নষ্ট গলি পর্ব-৩৫

0
614

নষ্ট গলি পর্ব-৩৫

লেখা-মিম

বিকেলের দিকে মায়াকে নিয়ে শপিং করতে এসেছে সোহান। কোনো কিছু না দিয়েই বিয়ে করেছে ওকে। ব্যাপারটা মনের মধ্যে মধ্যে বারবার খচখচ করছিলো সোহানের। তাই ওকে নিয়ে এসেছে কিছু গোল্ডের জুয়েলারি আর শাড়ি কিনে দেয়ার জন্য। শাড়ি কেনার পালা শেষ করে স্বর্নের দোকানে গলার নেকলেস দেখছে ওরা। গলায় নেকলেস ট্রায়াল দিয়ে দেখছে মায়া৷ সোহান খুব মনোযোগ মায়ার গলার দিকে তাকিয়ে দেখছে। অপর পাশের দোকানে দাঁড়িয়ে আছে আলিশা। সোহানের দিকে তাকিয়ে আছে ও। কত মনযোগ দিয়ে মায়াকে দেখছে মানুষটা৷ মায়ার গলায় স্পর্শ করছে কিছুক্ষণ পরপর৷ একটার পর একটা নেকলেস পাল্টে যাচ্ছে মায়া। কোনোটাই সোহানের পছন্দ হচ্ছে না৷ নিজের বউয়ের কোনো জিনিস কেনার ব্যাপার সোহান কতটা যত্নশীল সেটা দেখতেই পাচ্ছে আলিশা। এতটা ভালোবাসে মায়াকে! কান্নাটা বহু কষ্টে চেপে রেখেছে আলিশা। কন্ঠনালীর ঠিক মাঝখানটাতে তীব্র চাপ অনুভব করছে সে।

মায়ার জন্য একসেট গহনা কিনে দোকান থেকে বেরিয়ে এলো ওরা। কসমেটিকস শপ থেকে কিছু কসমেটিকস আর জুতার দোকান থেকে জুতা কিনে ফুড কোর্টে বসেছে খাওয়ার জন্য। এতক্ষণ আলিশা ওদের পিছন পিছন ঘুরেছে। দূর থেকে দুজনকে দেখেছে। মায়াকে নিয়ে সোহান বেশ সুখে আছে৷ মায়ার দিকে সোহানের তাকিয়ে থাকা। মায়ার কাঁধ জড়িয়ে হাঁটা। সোহানের হাসি। প্রতিটা ব্যাপার খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে লক্ষ্য করেছে আলিশা। এই ব্যাপারগুলো আলিশাকে প্রতি সেকেন্ডে জানান দিচ্ছিলো সোহান কতটা সুখী। সোহানের সাথে প্রেম চলাকালীন সময়ে কখনো সোহানকে এভাবে হেসে হেসে কথা বলতে দেখেনি। ওর দিকে এভাবে মন্ত্রমুগ্ধের মতো তাকিয়েও থাকতে দেখেনি। তাকিয়ে থাকতো না ঠিক তা না। ওর দিকেও মুগ্ধ হয়ে তাকিয়ে থাকতো। তবে মায়ার ব্যাপারটা আলাদা। সোহানের চোখের ভাষা পাল্টে যায় মায়ার দিকে তাকালে। মনে হয় যেনো সমস্ত ভালোবাসা ঐ দু’ চোখের মাঝেই ভিড় জমাচ্ছে। আর মায়া……… চেহারা থেকে বাচ্চা ভাবটা এখনো কেটে উঠেনি৷ আদুরে একটা ভাব আছে চেহারার মাঝে৷ হাসেও বাচ্চাদের মতই। খিলখিল শব্দ করে। প্রচন্ড বাধ্য স্বভাবের বউ। সোহান যা পছন্দ করে কিনে দিয়েছে তাই চুপচাপ নিয়েছে। নিজের পছন্দ প্রকাশ করতে দেখেনি ওকে। সোহান যা পছন্দ করে দেখাচ্ছে তাতেই মাথা নেড়ে সায় দিচ্ছে। বোধহয় সোহান এমন একটা বউয়ের শখ করেছিলো।

আজ ওদেরকে দেখার আগ পর্যন্ত সোহানের প্রতি ভীষন ক্ষোভ কাজ করছিলো মনের ভিতর। কিভাবে পারলো সোহান ওকে ভুলে যেতে? ভালোবাসায় কি কমতি ছিলো? কিন্তু এখন মনে হচ্ছে কমতি সত্যিই ছিলো। সোহান যেভাবে আশা করেছিলো সেভাবে হয়তো ও সোহানকে ভালোবাসতে পারেনি। আজ সকালে রুপমও তো বলে গেলো। মায়া স্বামী সংসার আগলে রাখতে জানে। এই গুনটাতো ওর মাঝে নেই। শুধু ভালোবাসাতে কি হয়? ভালোবেসে আগলে রাখতে পারলে তবেই না ভালোবাসার মানুষ আমার বাহুবন্দী হয়ে থাকবে। আমার অস্তিত্বের সাথে মিলেমিশে একাকার হয়ে থাকবে। নিজেকে তুচ্ছ মনে হচ্ছে আলিশার। নিজের কমতির কথাগুলো মাথার ভিতর নাড়াচাড়া দিয়ে উঠছে৷ সোহানকে ভালোবেসেছে ঠিকই কিন্তু আগলে রাখতে পারেনি। তাইতো ভালোবাসা ছুটে গিয়ে অন্যের বাহুবন্দী হয়েছে৷ সেই ভালোবাসা নিজের বাহুবন্দী করার মিথ্যা প্রয়াস চালাতে যেয়ে রুপমকে এতগুলো বছর ধরে কষ্ট দিয়েই গিয়েছে। আর সে…….. লাগাতার ভালোবাসি ভালোবাসি বলেই গিয়েছে। পরম যত্নে আগলে রেখেছে। কখনো মানুষটার ভালোবাসায় ডুব দিয়ে গভীরতা মাপতে ইচ্ছে হয়নি আলিশার। ডুব দেয়া থাক দূরের কথা কোনোদিন পা ভিজিয়ে উষ্ণতাটুকুও মাপতে ইচ্ছে হয়নি ওর। কেনো ইচ্ছে হয়নি সে কারনটা জানে না আলিশা।

সিদ্ধান্ত নিয়ে নিয়েছে আলিশা। আজ মনে হচ্ছে একটাবার রুপমের ভালোবাসায় ডুব দেয়ার চেষ্টা অন্তত করা উচিত। যে চলে গেছে তাকে আর ফিরিয়ে আনা ঠিক হবে না। সে তার আপন জগত নিয়ে দিব্যি আছে৷ আর যে ওর জীবনে বর্তমান তাকেই আগলে ধরাটা হবে সঠিক সিদ্ধান্ত। তবে আগলে তো রেখেছে রুপমই। এখন শুধু আলিশার এক ধাপ এগিয়ে রুপমের বাহুবন্দী হওয়া বাকি।

গাড়ি নিয়ে সোজা চলে এসেছে রুপমের অফিসে। আজ পর্যন্ত কখনো রুপমের অফিসে আসা হয়নি আলিশার। এইবারই প্রথম। নিচতলায় রিসিপশনে রুপমের খোঁজ করতেই রিসিপশনিস্ট বললো,

– স্যার তো মিটিংরুমে।
– ওহ। কখন মিটিং শেষ হবে জানেন?
– ঠিক বলতে পারছিনা।
– আচ্ছা ওর পারসোনাল কেবিনটা কোন দিকে?
– ম্যাম আপনি এখানে ওয়েট করুন। মিটিং শেষ হলে স্যারের পারমিশন নিয়ে আপনাকে উনার কেবিনে পাঠানো হবে।
– আচ্ছা।

সোফায় বসে আছে আলিশা। মোবাইলে নিউজ ফিড স্ক্রল করছে। মনোযোগ সেদিকে নেই। ঘোরের মাঝে পড়ে আছে সে। রুপমকে কি বলবে? কিভাবে বলবে? নিজের কমতিগুলো কিভাবে ঢাকবে?

বিশ-বাইশ মিনিট পর মিটিং শেষে নিজের রুমের দিকে যাচ্ছিলো রুপম। উপর থেকে দেখতে পেলো আলিশা নিচতলায় বসে আছে৷ আলিশাকে দেখে হতভম্ব হয়ে গেলো রুপম। এই মেয়ে এখানে বসে আছে কেনো? সিঁড়ি বেয়ে নিচে নেমে এসেছে রুপম। আলিশার সামনে এসে দাঁড়িয়ে জিজ্ঞেস করলো

– তুমি এখানে কি করো?

রুপমের আওয়াজ পেয়ে মুখ তুলে তাকালো আলিশা।

– মিটিং শেষ তোমার?
– হ্যাঁ৷ কিন্তু তুমি এখানে?
– তোমার জন্য ওয়েট করছিলাম।
– আমার জন্য?
– হুম।
– তো এখানে কেনো বসে আছো? আমার রুমে চলে যেতে।
– তোমার রিসিপশনিস্ট বললো তুমি মিটিংয়ে। তাই এখানে বসে ছিলাম।
– তোমার হাজবেন্ডের অফিস এটা। যখন খুশি তখন আমার রুমে চলে আসবে। নিতু, তুমি ওকে আমার রুমে পাঠাওনি কেনো?
– স্যার উনি তো আমাকে বলেননি যে উনি আপনার ওয়াইফ।
– না, রুপম। ওর দোষ নেই। আমি ওকে আমার পরিচয় দেইনি।
– আচ্ছা তাহলে উপরে আসো।
– তোমার আর কোনো কাজ আছে।
– না তেমন কোনো কাজ নেই।
– তাহলে বাসায় চলো।
– কোনো সমস্যা আলিশা?
– কিছু বলার ছিলো।

আলিশার মুখ দেখে বুঝা যাচ্ছে সিরিয়াস কিছু ঘটেছে৷ আর নয়তো এই মেয়ে অফিসে আসার কথা না। রুপম আর কিছু জিজ্ঞেস না করে আলিশাকে নিয়ে বেরিয়ে এলো অফিস থেকে।

(চলবে)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here