My_Mafia_Boss পর্ব-৫৫ And last par

0
851

My_Mafia_Boss পর্ব-৫৫ And last part
Writer: Tabassum Riana

রোয়েনের চোখ থেকে খুব ধীরে ধীরে হাত সরাতে লাগলো রুহী।হাত সরিয়ে রুহী রোয়েনের পাশে এসে দাঁড়ালো। পুরো ঘর মোমবাতি ফুল দিয়ে সাজানো।রোয়েন বিস্ময়ে চারদিক দেখছে।রুহী মুচকি হেসে রোয়েনে হাতের আঙ্গুলের ভাজে ভাজে আঙ্গুল ঢুকিয়ে দিতে থাকলো।রোয়েন রুহীর দিকে তাকালো।রুহীর হাত হ্যাঁচকা টেনে নিজের একদম কাছে নিয়ে রুহীর হাত পিছনে রাখলো রোয়েন।আহ ছাড়েন না!!!! রুহী ব্যাথা পেয়ে বলল। এসব কখন করলে?বাঁকা হেসে বলল রোয়েন।অনুষ্ঠানের সময় করিয়েছি।চোখ বন্ধ করে বলতে লাগলো রুহী।রোয়েন রুহীর হাত আলগা করতেই সরে এলো রুহী। মাথা নিচু করে রোয়েনের সামনে এসে দাঁড়ালো রুহী।আপনাকে কিছু বলতে চাই। দুহাত কঁচলাতে কঁচলাতে বলল রুহী।কি?রোয়েন রুহীর দিকে ভ্রু কুঁচকে তাকিয়ে প্রশ্ন করলো। আ আম আম……(রুহী পারবি তুই রুহী বল)কি হলো কিছু বলছো না কেন?গম্ভীর কন্ঠে প্রশ্ন করলো রোয়েন।

আপনি বা বাব …. চোখ খিচে বন্ধ করে নিলো রুহী……..আপনি বাবা হতে চলেছেন।এক চোখ খুলে রোয়েন কে দেখার চেষ্টা করলো রুহী।রোয়েন অবাক চোখে তাকিয়ে আছে রুহীর দিকে।কি বললা আবার বলো রুহীর দুকাঁধে হাত রেখে বলল রোয়েন।আ আপনি ব বাবা হতে চলেছেন….কাঁপা কাঁপা কন্ঠে বলল রুহী।রুহী!!!!আমার দিকে তাকাও রোয়েন বলে উঠলো।রুহী রোয়েনের দিকে মুখ একটু উঁচু করে তাকালো।আবার বলো কথাটা রোয়েন বলে উঠলো।আপনাকে বাবা ডাকার মতো কেউ আসবে রুহীর চোখের কোনা বেয়ে একফোঁটা অশ্রু গড়িয়ে পড়লো।রোয়েন দেরি না করে রুহীকে কোলে তুলে পুরো রুমে ঘুরতে লাগলো। রুহী রোয়েনের গলা জড়িয়ে ধরে আছে।কি করছেন কি নামান প্লিজ।আরো কিছুক্ষণ ঘুরিয়ে খাটে বসিয়ে দিলো রুহীকে।হাঁপাচ্ছে রোয়েন।রুহী রোয়েনের দিকে অপলক দৃষ্টিতে চেয়ে আছে।রোয়েন রুহীর দিকে এগিয়ে আসতেই রুহী রোয়েনের বুকে হাত রেখে থামালো।রোয়েন একটু সরে এলো।কি হলো?ভ্রু কুঁচকে প্রশ্ন করলো রোয়েন।একটু আসছি আমি রুহী খাট ছেড়ে উঠে বলল।রোয়েন মাথা ঝাঁকালো।রুহী ওয়াশরুমে ঢুকে পড়লো।রোয়েন খাটে উঠে বসে পড়লো।সে বাবা হবে ভাবতেই অন্যরকম ভালো লাগা কাজ করছে।ওর ছোট্ট মায়াবতী মা হবে।ঠোঁটের কোনে হাসি ফুঁটে উঠলো রোয়েনের।

শুনুন পিছন থেকে ডেকে উঠলো রুহী।রুহীর ডাক শুনে খাট ছেড়ে উঠে দাঁড়িয়ে পিছনে তাকালো রোয়েন।রুহী নাইটিটাকে টানতে টানতে রোয়েনের দিকে এগিয়ে আসছে।অতো টেনোনা বড় হবেনা এটা।বলে মুচকি হাসলো রোয়েন।রুহী কাপড় টা ছেড়ে রোয়েনের কাছে এসে দাঁড়ালো।রোয়েন ভ্রু নাচিয়ে ইশারা করলো কি করতে চাচ্ছে রুহী এখন। রোয়েনের মাথার পিছনে হাত রাখলো রুহী।তারপর এগিয়ে গিয়ে রোয়েনের ঠোঁটে ঠোঁট ডুবালো রুহী।পরম আবেশে প্রবেশ করছে রুহীর ঠোঁট জোড়া।রুহীর কোমড় নিজের সাথে জোরে জড়িয়ে রেখেছে রোয়েন।কিছুক্ষন পর একটু সরে এলো রুহী।রোয়েন চোখ বন্ধ করে রুহীর উষ্ণতা অনূভব করছিলো।রুহী রোয়েনের নিশ্বাস গুলো উপভোগ করছে।আই লাভ ইউ টু রোয়েন কাঁপা কাঁপা গলায় বলে উঠলো রোয়েন।রোয়েন চোখ খুলে ওর মায়াবতীর দিকে একটু তাকিয়ে মুচকি হাসলো।রুহী মাথা নিচু করে নিলো।রোয়েন রুহীর মুখ উঠিয়ে ওর ঠোঁটে নিজের ঠোঁটজোড়া চেপে ধরলো।রুহীর খোলা চুলের ভিতর হাত ঢুকিয়ে ওর কাঁধে আঙ্গুল দিয়ে আলতো করে ছুঁইয়ে দিচ্ছে রোয়েন।রুহী থরথর করে কাঁপছে।ওর কাঁপুনি রোয়েনকে রুহীর নেশায় মাতাল করে দিচ্ছে।রোয়েন রুহীর কোমড়ে হাত দিয়ে পিছনের ফিতাটা খুলে দিলো।রুহী রোয়েনের গলায় চুৃমো দিচ্ছে।রোয়েন মাথা উঠিয়ে মুচকি হেসে মায়াবতীকে কোলে তুলে বিছানার দিকে এগোলো।রুহী রোয়েনের বুকে মাথা রেখে চোখ বুজে আছে।

রুহীকে খাটে শুইয়ে দিয়ে ওর ওপর উঠে বসলো রোয়েন।নিজের শেরওয়ানি খুলে ফ্লোরে ছুড়ে মারলো।রুহীর উপর শুয়ে ওর কপালে চুমো খেলো রোয়েন।রুহীর দুই গালে ঠোঁট বুলিয়ে ওর গলায় মুখ ডুবালো রোয়েন।সারারাত একে অপরের উষ্ণতায় মেতেছিলো দুজন।রাত গড়িয়ে সকাল হলো।রোয়েনের বুকে ঘুমিয়ে আছে রুহী।সাদা চাদরে মুড়ে আছে দুজন। ঘুমভেঙ্গে মায়াবতীকে আরো জোরে জড়িয়ে কপালে চুৃমু দিলো রোয়েন। রুহী ঘুমের মাঝেই মুচকি হেসে রোয়েনের বুক ঘেষে শুয়ে থাকলো।মায়াবতী!!!!রুহীর মাথায় হাত বুলিয়ে ডাকলো রোয়েন।হুম!!!ঘুমের ঘোরে সাড়া দিলো রুহী।উঠবানা?রোয়েন রুহীর গালে চুমো খেয়ে বলল।রুহী চোখ খুলে মুচকি হেসে সরে এলো।রোয়েন হাতের ওপর মাথা রেখে রুহীর দিকে চেয়ে আছে।রুহী চাদর দিয়ে গলা পর্যন্ত ঢেকে নিলো।তাকিয়ে আছেন কেন এভাবে? মাথা নিচু করে জিজ্ঞেস করলো রুহী।রোয়েন মুচকি হেসে বিছানা ছেড়ে উঠে দাঁড়ালো।উঠে ফ্রেশ হয়ে নাও।হসপিটালে যেতে হবে বলে ওয়াশরুমের দিকে পা বাড়ালো রোয়েন।রুহী আরো কিছুক্ষণ শুয়ে থাকার পর বিছানা ছেড়ে উঠে ফ্রেশ হতে চলে গেল।
,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,ফ্রেশ হয়ে নাস্তা সেড়ে বেরিয়ে পড়লো রোয়েন রুহীকে নিয়ে।ডাক্তার মাসুমার সামনে বসে আছে রোয়েন আর রুহী। ওনার প্রেগন্যান্সি তে কোন কমপ্লিকেশনস নেই। এভরি থিং উজ অল রাইট। ওকে ডাক্তার। রুহীর হাত ধরে রোয়েন বেরিয়ে এলো।বাসার সামনে এসে গাড়ি থামায় রোয়েন।গাড়ি থেকে বেরিয়ে রুহীকে কোলে তুলে নিয়ে বাসার ভিতরে ঢুকলো রোয়েন।সিড়ি বেয়ে রুমে চলে এলো ওরা। রুহীকে খাটে শুয়ে দিয়ে কপালে চুৃমো খেয়ে উঠে দাঁড়ায় রোয়েন।

ঘুমাও আমি এক্ষুনি ফিরে আসছি।রুহীর মাথায় হাত রেখে বলল রোয়েন।হুম মাথা ঝাঁকালো রুহী।রোয়েন বেরিয়ে পড়লো।দলের লোকদের সামনে বসে আছে রোয়েন।আজ এখানে আমার শেষদিন।তোমরা ও এ কাজ ছেড়ে দিবে ওকে?গম্ভীর গলায় লোকগুলোর দিকে তাকিয়ে বলল রোয়েন।লোকগুলো কাঁদছে দাঁড়িয়ে। সবার জন্য চাকরির ব্যাবস্থা করে দিবো যাওয়ার আগে।স্যার কই যাইবেন?একজন কাঁদতে কাঁদতে জিজ্ঞেস করলো।অস্ট্রিয়া। আর কখনো আসবোনা রোয়েন টেবিলে পা উঠিয়ে বলল।তোমাদের ফেমেলিকে নিয়ে ভালো থাকবে।রোয়েন উঠে দাঁড়িয়ে বলল।লোকগুলো রোয়েনকে এসে জড়িয়ে ধরলো।
২মাস পর অস্ট্রিয়া (ভেনিস)
রুহীকে নিয়ে অস্ট্রিয়া চলে এসেছে রোয়েন।নিজের কোম্পানিতে জয়েন করবে।আজ প্রথম দিন অফিসে যাওয়ার।রোয়েন ড্রেসিংটেবিলের সামনে দাঁড়িয়ে চুল আঁচড়াচ্ছে।রুহী রোয়েনের পিছনে এসে দাঁড়ালো কফির মগ হাতে।আ আপনার ক কফি মাথা নিচু করে বলল রুহী।রোয়েন মুচকি হেসে পিছে তাকালো।কফির মগ হাত থেকে নিয়ে টেবিলের ওপর রেখে কোমড় জড়িয়ে কাছে টেনে নিলো রুহীকে।কফি না আজ অন্য কিছু খাবো। বাঁকা হাসি দিয়ে বলল রোয়েন।ক ক কি খাবেন?রুহীর ঠোঁটে ঠোঁট ডুবিয়ে দিলো রোয়েন।বেশ কিছুক্ষণ পর সরে এসে কফির মগ হাতে নিলো রোয়েন।রুহী ঠোঁটে হাত রেখে মাথা নিচু করে মুচকি হাসছে।লাস্ট চুমুক দিয়ে রুহীর ঠোঁটে ঠোঁট রেখে কফি ঢেলে দিলো রোয়েন।রুহীর কপালে চুমো খেলো রোয়েন।নিচে নেমো না।মার্থা এখানে এসে থাকবে। গম্ভীর কন্ঠে বলল রোয়েন।রুহী মাথা ঝাঁকালো।রোয়েনের পারফিউমের কোম্পানি আছে।ওর বাবার কোম্পানি ছিলো তবে ও নিজেই সকল দায়িত্ব নিয়েছে।
৪মাস পর
রোয়েন হসপিটালের বাহিরে বসে আছে।ভিতর থেকে চিৎকার ভেসে আসছে রুহীর।রোয়েনের চোখের কোনা বেয়ে একফোঁটা অশ্রু গড়িয়ে পড়লো।উঠে দাঁড়িয়ে গেল রোয়েন।এদিক ওদিক হাঁটা হাঁটি করছে রোয়েন।
রাতে খুব ব্যাথা ব্যাথা বলছিলো মেয়েটা।কিন্তু রোয়েন বুঝে উঠতে পারেনি যে এতোটা দেরি হয়ে যাবে।ডাক্তার বলছিলো পানি শুকিয়ে গেছে। বাবুরা জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছে।ভাবতেই চোখ জোড়া ভিজে গেলো রোয়েনের।
আমেরিকান সার্জন এনির দায়িত্বে আছে রুহী।
Mr Royen Ahmed (Doctor)
Yes.পিছনে ফিরলো রোয়েন।ডাক্তারের কোলে দুটো ফুটফুটে বাবু।রোয়েন ডাক্তারের কাছে এগিয়ে এলো।
A son and a daughter বলে হাসলেন ডাক্তার।
My Wife!!!(রোয়েন)
She is alright.come.রোয়েন কে নিয়ে রুমে এলো ডাক্তার।রুহী রোয়েনের দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসলো।রোয়েন দৌড়ে এসে রুহীকে জড়িয়ে ঠোঁটে চুৃমো খেলো।রোয়েনের চোখ মুছে দিলো রুহী।কা কাঁদছেন কে কেন?
মাফ করে দাও রুহী দেরি করে ফেলেছিলাম।
ইটস ওকে।কাঁদবেননা সব ঠিক আছে তো।রোয়েনের চোখের পানি মুছে দিতে দিতে বলল রুহী।রুহীর হাতে চুমো খেলো রোয়েন।আই লাভ ইউ রুহী।
আই লাভ ইউ টু।
রোয়েন মেয়েটাকে কোলে নিয়ে রুহীর সামনে এসে দাঁড়ালো। নার্স ছেলে বাবুকে কোলে নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে।রুহী উঠে বসার চেষ্টা করলো।কি হলো কি করছো?রোয়েন জিজ্ঞেস করে উঠলো।বাবুদের কোলে নিয়ে দেখতে চাই।অপর নার্স এসে রুহীকে বসিয়ে দিলো।বাবুদুটো কে রুহীর কোলে দেয়া হলো।রোয়েন ধরে রাখলো।রুহী বাবুদের অজস্র চুমো তে ভরিয়ে কাঁদতে লাগলো।আমাদের বাবু রোয়েন। রুহী কাঁদতে কাঁদতে বলছিলো।হুম আমাাদের বাবু।আমার ছোট্টমায়াবতীর বাবু বলে রোয়েন বাবু সহ রুহীকে জড়িয়ে ধরলো বুকে।
,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,সমাপ্তি

এর পর পাবেন এর সিজন ২। সিজন ২ পেতে লাইক, কমেন্ট, শেয়ার করে পাশে থাকুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here