স্বামীর ভালোবাসা part : 15

0
950

স্বামীর ভালোবাসা part : 15

লেখিকা সুরিয়া মিম

!
আমার কথা শুনে রুহান আমার মুখ চেপে ধরে হা হা হা কে হেসে দেয়,
!
ফাজিল তুই আমার মুখ চেপে রেখেছিস কেন?
!
এমন কথা বলেনা বুঝলি?
!
আমি বলবো কি করবি তুই?
!
মাইর দিবো,
!
ছেমড়া তোরে ও ইমান আরিয়ানের সাথে মেরে উগান্ডা ট্রান্সফার করবো,
!
কোথায় ট্রান্সফার করবি?
!
উগান্ডায় হালার পুত,
!
তুই আর জিসার সাথে মিশবি না,
!
ক্যান তোর কথায়?
!
ওর সাথে থাকতে থাকতে তুই ও ওর ভাষা শিখে গেছ,
!
ওম্মা তাইই,
!
জ্বি,
!
জিসা দেখ রুহান আমাকে তোর সাথে মিশতে মানা করে,
!
কি?
এ ছেমড়া তোর সাহস কতো?
!
অনেক,
!
বাদাইম্মা খাড়া তুই আইতাছি মুই,
বলেই জিসা রুহান কে পেটাতে ওর পেছনে লাঠি নিয়ে তাড়া করতে থাকে,
!
তখন তাকিয়ে দেখি শয়তান গুলো এখনো শুয়ে আছে,
নির্ঘাত দুটোর একে অপরের মধ্যে আকর্ষণ অনুভাব করছে,
…….
“নো নড়ন নো চড়ন অনলি মুচকি মুচকি স্মাইল করিং”
!
তাই আমি দুষ্টুমি করে মাইক্রোফোনে বলি,
!
এখানে যাদের জেন্ডারে প্রবলেম আছে তাড়া তাড়াতাড়ি ডক্টর দেখাতে জান প্লিজ,
!
তখনি সবাই আবারো হা হা করে হেসে দেয়,
আর ওমনি শয়তান দুটো লাফ দিয়ে ওঠে পরে আমার দিকে রাগে ফোঁসফোঁস করতে করতে তেড়ে আসে,
!
“তাই আমি চাচা আপন প্রাণ বাচাঁ”
বাঁচিয়ে ওখান থেকে মানে মানে কেটে পরি,
!
তারপর আমি আমাদের ইউনিভারসিটির গোলচত্বরে যাই,
সেখানে গিয়ে আমরা সবাই মিলে ফটোসেশন করি,
….
তখন আমাদের ইউনিভারসিটির পিয়ন এসে বলে,
!
মিশকা ও জিসা আফা আর রুহান ও জাহাদ ভাই আপনাদের ভি,সি স্যর ডাকেন,
!
ওকে আপনি জান আমরা আসছি,
!
তারপর আমরা তাড়াতাড়ি অনুষ্ঠানে চলে যাই,
…..
তখন ভি.সি স্যর আমাদের বলেন,
!
প্রত্যেক ডিপার্টমেন্টের স্টুডেন্টরা ড্যান্স করবে তোমরা করবেনা?
!
জ্বি স্যর,
!
তাহলে মিশকা রুহান ও জিসা জাহাদ কেমন?
!
ওকে স্যার,
!
গেট রেডি ফর ড্যান্স,
আকাশ মিউজিক প্লে করো,
!
ওকে স্যরর,
!
কিনে দে কিনে দেরে তুই রেশমি চুড়ি,
কিনে দে কিনে দেরে
তুই রেশমি চুড়ি,
নইলে করবো তোর সাথে আড়ি,
!
কিনে দে কিনে দেরে তুই রেশমি চুড়ি,
নইলে করবো তোর সাথে আড়ি,
!
বলে ছিলি তুই আমায় মেলায় ঘুড়াবি,
তবে ডাকনারে ডাকনারে গাড়ি নইলেরে নইলে করবো তোর সাথে আড়ি,
!
কিনে দে কিনে দেরে তুই রেশমি চুড়ি,
নইলেরে নইলে করবো তোর সাথে আড়ি,
!
রেশমি চুড়ি, রেশমি চুড়ি, রেশমি চুড়ি, রেশমি চুড়ি,,
হায় রেশমি চুড়ি রেশমি চুড়ি, রেশমি চুড়ি,
!
সোনা দানা কিছুই তো চাই না প্রেমে আজ মন মেলেছে পাখনা,
ওহহহো হো সোনাদানা কিছুই তো চাই না মনে প্রেমে আজ
মন মেলেছে পাখনা,
!
বলেছিলি তুই আমায় শপিং করাবি তবে করিস না করিস না দেরি,
নইলেরে নইলে করবো তোর সাথে আড়ি,
!
কিনে দে কিনে দেরে তুই রেশমি চুড়ি,
নইলে করবো তোর সাথে আড়ি,
!
আরে আরে কিনে দিবো সাজিয়ে দিবো পড়িয়ে দিবো তোকে রেশমি চুড়ি ওঅঅঅ নিয়ে যাবো শপিং করাতে তোর কথা কি কখনো ফেলতে পারি?
!
আকাশ থেকে নামছে জোছনা জোছনা খুশি তে মন ঘরে তে টেকে না,
ওঅঅঅ আকাশ থেকে নামছে জোছনা খুশি তে মন ঘরে তে টেকে না,
!
বলেছিলি তুই আমায় ডিনার করাবি তবে করিস না করিস না দেরি নইলেরে নইলে করবো তোর সাথে আড়ি,
!
কিনে দে কিনে দেরে তুই রেশমি চুড়ি নইলে করবো তোর সাথে আড়ি,
!
কিনে দে কিনে দেরে তুই রেশমি চুড়ি নইলে করবো তোর সাথে আড়ি,
!
রেশমি চুড়ি, রেশমি চুড়ি রেশমি, রেশমি চুড়ি,
!
নাচের শেঅ পর্যায় আমরা স্টেজ ছেড়ে ভি.সি স্যারের পাশে গিয়ে খচখচ করে সেলফি তোলা শুরু করি,
তখন সবাই আমাদের কান্ডা কারখানা দেখে হা হা করে হেসে দেয়,
!
পরে যখন আমি একা একা সেলফি তুলছিলাম তখন আমার ফোনের সেলফি ক্যামেরায় দেখি,
!
মিস্টার খান ও চৌধুরি কে আমার দুপাশে ভালো করেই দেখা যাচ্ছে ,
আর আমি যখন সেলফির জন্যে পোজ দিচ্ছি,
……
তখন শয়তান দুটো ও ইবলিশ মার্কা পোজ দিয়ে দাঁড়িয়ে মুচকি হাসি দিচ্ছে,
!
ফইন্নি কতো গুলো দেখলেই জুতোপেটা করতে মন চায়,
!
ওরা এতো বড়বড় বিজনেস এ্যম্পায়ারের মালিক হইছে কি করে আল্লাহ মালুম?
!
ক্যালারর ছোলায় আছাড় খাইয়া ও আমার পেছনে লাগার শখ যায় নাই ধলা ইন্দুর কনে কার,
!
তখন আমার ফ্রেন্ড নিরব এসে বলে আমার আপুর বিয়ে ঠিক হয়েছে মিশকা,
!
আলহামদুলিল্লাহ্‌ আমাদের জিজু কি কালা না ধলা?
!
এ আবার কেমন প্রশ্ন?
!
প্রশ্নের উওর দে তারপর বলছি,
!
জিজু কালো,
!
আলহামদুলিল্লাহ্‌,
!
কেন?
!
নিজের জীবন থেকে শিখেছি অতিরিক্ত সুদর্শ স্বামীর চরিত্র খারাপ হয় চরিত্রহীন হয়,
!
মিশকার কথা টা ইমানের বুকে তীরের মতো গিয়ে লাগে এবং সাথে সাথে চোখ জোড়া ছলছল করে ওঠে ওর,
!
তারপর মিশকা বাথরুমে চলে যায় ওর ল্যাহেঙ্গা ঠিক করার জন্যে,
……
ল্যাহেঙ্গা ঠিক করার পরে মাথায় হাত দিয়ে দেখে,
…….
খোপা খুলে গেছে ওর,বেলি ফুলের মালা টাও নেই হয়তো খুলে পরো গেছে,
….
তখনি পেছন থেকে কেউ চিরুনি দিয়ে ওর চুল গুলো আঁচড়ে দেয়,
আর খোপা করে বেলি ফুলের মালা পরিয়ে দেয়,
!
তখন তাকে থ্যাংকস জানাতে পেছনে ফিরে রীতিমতো ভয় পেয়ে মিশকা,
……..
কারন ও এক্সপেক্ট করেনি,
যে ইমান ওর চুল আঁচড়ে বেলি ফুলের মালা পড়িয়ে দিবে,
!
এসবের মানে কি মিস্টার খান?
!
মানে কিছুই না,
বুকের ওপর থেকে ওড়না সরে গেছে ঠিক করে নাও,
!
গেছে তো?
আমি আপনাকে আমার ওপরে নজরদারি করতে বলিনি গট ইট,
!
তখন ইমান খুব জোড়ে বেসিনে ঘুসি মেরে বলে,
!
আমি আমার বৌয়ের নজরদারি করবোনা তো কি?
পরপুরুষে মানে তোমার ওই রুহান করবে?
!
এসবের মধ্যে রুহান কে টানবেন না বুঝলেন?
আপনি নিজে যেমন সবাই কে তেমন মনে করেন?
এই আপনি আমাকে ডিভোর্স দিয়ে দিচ্ছেননা কেন?
সমস্যা কোথায় কি সমস্যা আপনার?
!
ডিভোর্স তো আমি মরে গেলে ও দিবো না বুঝলে?
!
কেন সেটা জানতে চাইছি আমি?
তাই নাটক করবেননা প্লিজ,
!
কারন আমি চাই না কেউ তোমাকে ডিভোর্সি বলে অপমান করুক,
!
সবচেয়ে বেশি অপমান তো আপনি আমাকে করেছেন,
আর আপনি যেটা বলছেন সেটা সত্যি নয়,
অন্য কারনে আপনি আমাকে ছাড়তে চাইছেন না,
তাই সেই আসল কারন টা বলুন?
!
যেটা সত্যি সেটাই বলেছি তোমায়,
!
শুনুন যে নারী যে পুরুষের সাথে সহবাস করে তাকে সে সবচেয়ে ভালো করে চেনে,
তাহলে আপনি আমাকে মিথ্যে বলছেন কেন?
!
কারন সত্যি যেনে কোনো লাভ নেই তোমার,
!
তারপর উনি ওনার কোর্ট টা বেসিনের ওপরে রেখে টাই লুজ করে শার্টের বাটান খুলতে খুলতে আমার কাছে এক পা এক পা করে এগিয়ে যায়,
!
এএএএসসসবের মামানে কি?
আপনি শার্ট খুলললছেন কেন?
!
একজন স্বামী তার স্ত্রীর সামনে কখন শার্ট খোলে?
!
দেখুন আপনি এমমমন কিছু করবেন না,
আপনি আমার স্বামী না,
!
তুমি অস্বীকার করলে ও এটাই সত্যি যে আমি তোমার স্বামী,
আমার সম্পূর্ণ অধিকার আছে তোমার ওপরে,
!
নেনেনেই আপপপনার কোনো অধিকার আমার ওপরে,
আপনি আপপপনার ওই নোংরা হাত দিয়ে আমাকে ছোঁবেন না প্লিজ,
!
আমি আমার হাত ডেটল হ্যান্ডওয়াস দিয়ে ধুয়ে এসেছি এখন আর আমার হাতে নোংরা নেই,
!
নোংরা মানুষ নোংরামোর ও একটা সীমা থাকা উচিত,
আমি বলছি আপনি আমাকে ছোঁবেন না,
!
আমি ছুঁয়েছি বলেই আজ তুমি আমার সন্তানের মা,
!
নিজের ওই নোংরা মুখ থেকে আমার বাচ্চাদের কথা উচ্চারণ করবেননা,
!
আমি নোংরা বলেই তুমি তোমার প্রেগন্যান্সির কথা আমার থেকে লুকিয়ে গেছ?
আমাকে বললে কি আমি তোমার যত্ন নিতাম না?
!
যে সারাদিন ব্যভিচারে লিপ্ত থাকে সে কখনোওই কারো যত্ন নিতে পারেনা,
একান্তই তাকে চিট করা ছাড়া,
!
আপনি আপনার বুকে হাত দিয়ে বলতে পারবেন যে আপনি বিয়ের আগে ইশার সাথে শারীরিকভাবে মেলামেশা করেননি?
কি হলো দাঁড়িয়ে গেলেন কেন?
আসুন আমার কাছে আসুন কি করবেন করুন,
!
আমার জীবনের সবচেয়ে কঠিন সত্যি টাকি জানেন?
……….
সত্যি টা হলো আপনি আমার স্বামী আর ইশা আমার নিজের বোন আপনি ওর সাথে ব্যভিচারের লিপ্ত ছিলেন আর ওকে বিয়ে করে নিজের ঘরে এনে তুলেছেন,
আর আজ আপনি ওরি সন্তানের বাবা হতে চলেছেন,
আর এখন আপনি আমার সন্তান কে নিজের বলে দাবী করতে এসেছেন?
আপনার একটু ও লজ্জা করে না তাই না?
!
মিশকার প্রশ্নের উওর দিতে না পেরে চোখেরজল ফেলতে থাকে ইমান,
!
কারন আমি জানতাম না যে মিশকা ইশার বোন,
আর মিশকা জানেনা ইশার মিসক্যারেজের কথা
মিশকা ইশার বোন?
কি কিরে জানতে হবে আমার?
ওরা বোন হলে আমি তো মস্তবড় অপরাধী,
কারন আমি জানি ইশার কোনো বোন নেই?
সত্যি টা কি সব জানতে হবে আমার,
……..
তখন মিশকা ওখান থেকে চলে যায়,
!
কিছুক্ষণ পরে মিশকা মেলার স্টলে রেশমি চুড়ি কিনতে যায়,
!
লালসবুজ চুড়ি পছন্দ করে হাতে পড়তে যেতেই,
ইমান ওর হাত চেপে ধরে নিজের কিনে আনা সোনার বালা পরিয়ে দিয়ে বলে,
!
আমাকে তোমার অসহ্য লাগতেই পারে তাই বলে তুমি বিধবা সেজে থাকবে?
!
অন্তত আমাদের বাচ্চাদের মুখ চেয়ে সেজে গুজে হাসিখুশি থাকবে,
!
তুমি জানো আমি শুধু ওদের কথা শুনেছি তাও ময়নাপাখির মুখে,
আমি তো ওদের বাবা এখনো ওদের চাঁদের মতো মুখ টা দেখিনি,
!
তবে একদিন তো দেখবো,
তুমি জানো আমি জানতাম না ইশা তোমার বোন,
জানলে কখনো ওকে ছিঃ,
!
আপনি সবজান্তা ছিলেন, আপনি জানতেন আপনি সব ইচ্ছে করে করেছেন,
………
কারন ও আমার থেকে অনেক সুন্দরী,
আপনার জন্যে পারফেক্ট ও আপনার সাথে মানানসই,
!
আর আপনি যদি ভেবে থাকেন আমি আপনার কাছে ফিরে যাবো,
…….
তাহলে ইউ আর অ্যাবসোলুটলি রং মিস্টার খান,
আমি মরে যাবো তবু ও আপনার কাছে ফিরে যাবো না,
!
তারপর মিশকা ওখান থেকে চলে যায়,
!
আমি জানি তুমি আমাকে ঘৃণা করো বলে বিশ্বাস করছ না,
কিন্তু আমি প্রমাণ করে দিবো যে আমি জানতাম না যে ইশা তোমার বোন,
!
তারপর তুমি আমায় একটু হলে ও কম ঘৃণা করবে ,
!
চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here