নষ্ট গলি  পর্ব-৭

0
1048

নষ্ট গলি  পর্ব-৭

লেখা-মিম

সোহান মায়ার প্লেটে খাবার বেড়ে দিচ্ছে। খুব সুন্দর ঘ্রান বেরোচ্ছে খাবার থেকে।
-” মায়া, নাও শুরু করো।”
-” অাপনি খাবেন না?”
-” হ্যা খাবো তো। এই যে অামার প্লেটে খাবার বাড়ছি।”
প্রথম লোকমা মুখে তুলেই তিন চার সেকেন্ড থমকে ছিলো মায়া।
-” কি ব্যাপার? খাবার মুখে নিয়ে বসে অাছো কেনো?”
-” অসম্ভব ভালো হয়েছে।”
-” তোমাকে বলেছিলাম না অামি একটা মেয়ে মানুষের চেয়েও বেশি ভালো রাঁধতে পারি।”
-” হুম তাই তাো দেখছি।”
-” নেক্সট উইক তুমি রান্না করে খাওয়াবে। অামি যাস্ট তোমাকে এটা সেটা এগিয়ে দিয়ে হেল্প করবো। কিন্তু রেসিপিটি বলবো না।”
-” ঠিকাছে।”
-” কাল থেকে প্রতিদিন তোমাকে একটা দুটা করে রান্না শিখাবো। ”
-” অাপনি ব্যস্ত মানুষ। অাপনার কি সময় হবে রান্না শিখানোর?”
-” এসব অামি তোমার জন্য না যতটুকু করছি তারচেয়ে বেশি করছি অামার নিজের জন্য। অামি মানুষটা খুব একা। তোমার সাথে সময় কাটাতে পারলে অামার ভালো লাগবে।”
এতদিন মায়ার ধারনা ছিলো টাকা থাকলেই বুঝি সব সুখ পায়ের কাছে পড়ে থাকে। ধারনাটা পুরোপুরি ভুল। টাকা থাকলেও মানুষের মনে কষ্টথাকে। একাকিত্বের কষ্ট টাকায় ঘুঁচে না।
-” অাপনার তো এত টাকা। তবু অাপনি একা কেনো? পয়সাওয়ালা লোকের পিছনে তো মেয়েদের লাইন লেগে থাকে।”
-” সমস্যাটা তো সেখানেই মায়া। সব টাকার পিছনে ছুটে। অামার পিছনে ছুটে না। টাকা অাছে তো অামার অস্তিত্ব অাছে, টাকা নেই তো অামার অস্তিত্বও নেই। মন থেকে কেউ কাছে টানে না। একটাবার কেউ মাথায় হাত বুলিয়ে জিজ্ঞেস করে না, সোহান তুই ভালো অাছিস তো?”
কষ্ট হচ্ছে সোহানের জন্য। এত টাকা থেকে লাভ কি যদি না কেউ সুখের দেখা না পায়?

কিছুক্ষন অাগে কাজলের সন্তান পৃথিবীর মুখ দেখেছে। মেয়ে হয়েছে তার। রুমে বসে থাকা দাই বাদে বাকি সবার মুখ কালো। মেয়ের অাশা তারা কেউ করেনি। বিউটি কুসুমকে নিয়ে বুদ্ধি বের করছে কিভাবে এই বাচ্চাকে এখান থেকে সরানো যায়। দাইকে না হয় টাকা পয়সা খাইয়ে মুখ বন্ধ করানো যাবে। কিন্তু ফখরুল? ওকে কি করবে? ও গো ঘরের বাইরে পায়চারি করছে। মেয়ের ছোট অাঙুলগুলো ধরে কাঁদছে কাজল। মেয়ে হওয়ার কি খুব বেশি প্রয়োজন ছিলো? এখান থেকে বাচ্চাটাকে বের করার কোনো উপায় নেই। কাজল চায়না ফের এই গলিতে কোনো মায়া অথবা কুসুম অথবা চুমকি তৈরী হোক। এই মেয়েগুলো জন্মসূত্রে পতিতা। অারও এমন অনেক অাছে এখানে যারা জন্মসূত্রে এই ব্যবসায়ী। কাজল দেখেছে তাদের মায়েদের চাপা কান্না যখন তাদের মেয়েদের ঐ লোকগুলোর হাতে একা রুমে তুলে দেয়া হতো। সবচেয়ে কম বয়সে কাজে লাগানো হয়েছিলো কুসুমকে। মাত্র বারো বছর ছিলো মেয়েটার। অাটাশ বছর বয়সী কোনো এক যুবকের তৃষ্ঞা মেটাতে তাকে পাঠানো হয়েছিলো এই বাড়ির পূর্ব দিকের ঘরটাতে। ঘরের ভিতর চিৎকার করছিলো কুসুম অার বাহিরে ওর মা। ওদের চিৎকারে চারপাশ ভারী হয়ে যাচ্ছিলো। অতটুকুন মেয়ে, যার বয়স ছিলো দুই বেনি করে বাড়ির উঠানে খেলার, সেই মেয়েকে পাঠানো হয়েছিলো কোনো এক দানবের ভোগের বস্তু হওয়ার জন্য। হ্যা দানব, সেই অাটাশ বছরের যুবকটাকে সেদিন কুসুমের কাছে দানব ছাড়া অার কিছুই মনে হয়নি। মানুষ খেঁকো দানব। না, মানুষ খেঁকো না শরীর খেঁকো দানব। টানা চার ঘন্টা কুসুমের উপর দিয়ে কোন তুফান গিয়েছিলো সেটা মনে হলে কুসুম এখনও ঘোরের মাঝে লাফিয়ে উঠে। মায়ারও একই হাল হয়েছিলো। তবে ওর বয়সটা একটু বাড়তি ছিলো যখন ওকে ধান্দায় নামানো হয়। সম্ভবত চৌদ্দ কি সাড়ে চৌদ্দ ।ওকে এক প্রকার টেনে হিঁচড়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিলো কাস্টমারের কাছে। কাজলের মেয়েরও একদিন এমন পরিস্থিতি অাসবে, কুসুমের মায়ের মতো তাকেও একদিন মেয়ের রুমের বাইরে বসে তার বাচ্চার অার্তচিৎকার শুনতে হবে। এসব সহ্য করার মতো ক্ষমতা তার নেই। খাটের পাশে থাকা ড্রেসিং টেবিলটার উপর ধারালো ব্লেড চিকচিক করছে। কিছুক্ষন অাগেই এই ব্লেডটা দিয়ে নাড়ি কেটে অালাদা করা হয়েছে ওর সন্তানকে। খুব ধীরে ধীরে উঠে বসলো কাজল। দাই, বিউটি অার কুসুম মিলে খুব ধীর অাওয়াজে কি যেনো বলা বলি করছে। টেবিলের উপর থেকে ব্লেডটা হাতেনিলো কাজল। খুব অাস্তে করে মেয়ের গলায় ব্লেডটা দিয়ে শুধু একটা অাঁচড় কাটলো। যে ব্লেড দিয়ে নাড়ি কাটা হয়েছিলো সেটা দিয়েই নিজ সন্তানের গলার রগ কাটলো কাজল। বাচ্চাটা জোরে একটা চিৎকার দিয়ে থেমে গেলো। অার কোনো অাওয়াজ তার গলা থেকে অাসছে না। কিছুটা ছটফট করছে সে। কচি হাত পা গুলো এদিক সেদিক ছড়াচ্ছে। একটা পর্যায়ে চার হাত পা লম্বা করে টেনে নিঃশ্বাসটা পুরোপুরি ছেড়ে দিলো বাচ্চাটা। এতক্ষন বাকি তিনজন চোখ বড় করে বাচ্চাটার দিকেই তাকিয়ে ছিলো। বাচ্চার চিৎকার শুনে তিনজনই তাকিয়ে ছিলো বাচ্চার দিকে। তাকিয়ে দেখে কাজলের হাতে রক্তমাখা ব্লেড অার বাচ্চার গলায় রক্ত। ঘটনা চোখের সামনে একদম স্পষ্ট ছিলো তবু তাদের কাছে অস্পষ্ট লাগছিলো। সামনে এগিয়ে মৃত্যুপথযাত্রী এক শিশুকে অাগলে নিতে সাহস হচ্ছিলো না তাদের। নিঃশ্বাস ত্যাগের পর ঘোর কাটলো কুসুমের। কাজলের মুখে মাথায় এলোপাথারি চড় থাপ্পর দিচ্ছে সে।
-” ** কি করলি তুই এইডা? ঐ *** মারলি কেন মাইয়্যাডারে তুই?”
-” মইরা গিয়া বাঁইচা গেছে অামার মাইয়্যা। অামাগো মতো পইচা মরতে হইবো না ওর।”
কাজলের চোখেমুখে বিন্দুমাত্র কষ্টের ছোঁয়া নেই। ওর চেহার স্বস্তির শান্তি দেখা যাচ্ছে।
রাতে ঘুমানোর অাগে কফি খাওয়ার অভ্যাস অাছে সোহানের। গরম কফির মগে চুমুক দিচ্ছে অার টিভি দেখছে। মায়া নিজেকে প্রস্তুত করছে সোহানের জন্য। মানুষটা এখন পর্যন্ত ওর গায়ে হাত দেয়নি। হতে পারে অসুস্থ ছিলো তাই। অাজ নিশ্চয়ই ওকে বসিয়ে রাখবে না তার অধিকারটা চাইতে অাসবে নিশ্চয়ই। ইতিমধ্যে জোনাকিকে পঞ্চাশ হাজার দেয়া হয়ে গেছে। অার ওরপিছনে অনেক টাকাই খরচ করেছে সোহান টাকাগুলোতো এমনি এমনি অার খরচ করেনি। এগুলো তো সে অবশ্যই উসুল করবে। খানিকটা সেজেগুজে সোহানের পাশে যেয়ে বসলো মায়া। ওর দিকে একনজর দেখেই পরক্ষনে মুখ ফিরিয়ে টিভির স্ক্রিনে নিয়ে গেলো সোহান। টিভিরদিকে তাকিয়ে বলতে শুরু করলো,
-” ফুল প্রিপারেশন নিয়ে এসেছো মনে হচ্ছে।”
-” ……………”
-” দেখো, হুট করেই কারো গায়ে হাত দেয়াটা অামার পছন্দ না। এখানে এসেছো। কিছুদিন থাকো। দুজন দুজনকে বুঝি এরপর নাহয় দেখা যাবে।”
-” অাপনি তো অনেকগুলো টাকা দিয়ে এসেছেন।”
-” তো?”
-” টাকা উসুল করবেন না?”
-” দেখো অামি কিন্তু তোমাকে এখানে শুধু ফিজিক্যাল রিলেশনের জন্য অানিনি। তোমাকে এখানে অানার মূলউদ্দেশ্য হচ্ছে একাকিত্বটা দূর করা। অামার টাকা উসুল করা নিয়ে তোমাকে ভাবতে হবে না। অামার টাকা কিভাবে উসুল করবো সেটা অামারটা অামি বুঝবো।”
সোহানকে যত দেখছে তত মায়ার বিস্ময়ের মাত্রা বেড়েই যাচ্ছে। এমন মানুষও অাছে নাকি দুনিয়ায়? একটা যুবতি মেয়ে হাতের কাছে এসে ধরা দিচ্ছে অার সে কি না বলছে হুট করে কারো গায়ে হাত দেয়া তার পছন্দ না? সোহানকে বিরল প্রজাতির প্রানী মনে হচ্ছে মায়ার।
-” অামার সাথে একটু কথা বলবে মায়া?”
সোফায় পা উঠিয়ে বসতে বসতে হাসিমাখা মুখে মায়া বললো,
-” অবশ্যই বলবো। একটু কেনো? অনেক অনেক কথা বলবো।”
-” অাঠারো বছর অাগের ঘটনা। অামার রেজাল্ট দিয়েছিলো সেদিন। ফাইনাল এক্সামের রেজাল্ট। ফার্স্ট হয়েছিলাম। অাম্মুকে বলেছিলাম, অামি ফার্স্ট হয়েছি। অামি চিকেন ফ্রাই খাবো। অামাকে চিকেন ফ্রাই করে দাও। অাম্মু বললো চলো তোমাকে বাহির থেকে খাইয়ে নিয়ে অাসি। অামি বললাম, তোমার হাতেরটা খাবো। দোকানেরটা খাবো না। অাম্মু উত্তরে কি বলেছিলো জানো?”
-” কি?”
-” মুরগীতে মসলা মাখাতে গেলে হাতে মসলার দাগ বসে যাবে। মসলার বাজে স্মেল অাসবে হাত থেকে। অহেতুক হাতের চামড়া নষ্ট করার কোনো মানেই হয় না। অামি পাল্টা অারকিছু বলিনি। অাসলে বলার কিছুই ছিলো না। জোর করে তো অার কারো কাছ থেকে ভালোবাসা অাদায় করা যায় না। তাই অামিও অার জোর করিনি। যে ভালোবাসার সে এমনিতেই বাসবে। সোজা ফ্রিজ থেকে মুরগি নামিয়ে মসলা মেখে নিজেই ফ্রাই করেছি। তখন তো রান্না সম্পর্কে বিশেষ অাইডিয়া ছিলো না। ঘরে যত ধরনের মসলা ছিলো সবগুলো থেকে একটু একটু করে দিয়েছি। বানিয়ে এনে সবার অাগে অাম্মুকে দিয়েছি। অাম্মুকিছুক্ষন মুখের দিকে তাকিয়ে ছিলো।অামি বললাম, খেয়ে দেখো। মুখে নিয়ে বললো খুব ভালো হয়েছে। তখনঅামি বললাম, নাও এই সবগুলো চিকেন ফ্রাই তোমার। মসলার স্মেল অামার হাতেও লেগে অাছে । এই দেখো হাতে হলুদের দাগ ভরে গেছে। কিন্তু অামি তোমার মতো নাক ছিটকাচ্ছি না। অার কখনো তোমাকে বলবো না অামাকে কিছু বানিয়ে খাওয়াও । এখন থেকে নিজেরটা নিজেই বানিয়ে খাবো। তোমার কিছু খেতে ইচ্ছে হলে অামাকে বলো। অামি তোমাকে বানিয়ে দিবো। এরপরদিনই যেয়ে রান্নার বই কিনে এনেছিলাম। প্রতিদিন কিছু না কিছু এক্সপেরিমেন্ট করতাম। কতবার যে হাত পুড়েছি তার কোনো হিসাব নেই।”
-” একদিন রেঁধে খাওয়ালে কি হতো? একদিনে কি অার চামড়া নষ্ট হয়?”
-” উহুম। অামার মা এক সেকেন্ডও চুলার পাশে যেতে রাজি না। সে খুব চামড়া সচেতন মানুষ। প্রতিমাসে কত হাজার টাকা যে পার্লারে খরচ করে অাল্লাহ ভালো জানে। সেই হিসাব বোধহয় অাম্মুর নিজেরও জানা নেই। অাচ্ছা তোমার কি মাথা ব্যাথা করছে?”
-” কিছুটা। অাপনি জানলেন কিভাবে?”
-” তোমার মুখ দেখে মনে হচ্ছে। তুমি যাও গিয়ে ঘুমাও।
-” না একটু গল্প করি না প্লিজ। ”
-” মাথাব্যাথা নিয়ে গল্প করার দরকার নেই। মাথাব্যাথা অারও বাড়বে।”
-” অামার ভালো লাগছে অাপনার সাথে গল্প করতে।”
-” অাচ্ছা তাহলে রুমে চলো। শুয়ে গল্প করবে”
মায়ার রুমে বিছানায়বসে অাছে সোহান। পাশে শুয়ে অাছে মায়া। সোহানের হাত ধরে রেখেছে সে। সোহান গল্প বলছে। অার খুব মন দিয়ে সেই গল্প মায়া শুনছে।

চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here