Love At 1st Sight Season 3 Part – 49

0
644

Love At 1st Sight
~~~Season 3~~~

Part – 49

writer-Jubaida Sobti

স্নেহা : না..নাহ! ওকে! আ..আমি তো মজা করছিলাম! আপনার কিক..কিছু করতে হবে না [ বলেই জোড়ে একটি শ্বাস ফেলে সোজা তাকিয়ে রইলো, হাসতে লাগলো রাহুল ]

আশেপাশে চোখ বুলিয়ে দেখছে স্নেহা, সচরাচর সবাইকেই দেখা যাচ্ছে..কিন্তু যারা পাশে থাকবে বলেছে তারাই উদাও!…গেলো কই এই তিনোটা?..

হঠাৎ রাহুলের ফ্রেন্ড শ্রেয়া এগিয়ে এলো,

রাহুল : হেই বেবী! [ বলেই জড়িয়ে ধরলো ]

শ্রেয়া : [ রাহুলকে সরিয়ে ] সর! তুই তোর সাথে কোনো কথা নেই! [ বলেই স্নেহাকে গিয়ে জড়িয়ে ধরলো ]

রাহুল : আরেহ!

শ্রেয়া : ইউ লুক! গরজিয়াস্ স্নেহা!

স্নেহা : থেংক ইউ!

রাহুল : হুমম! মাশাল্লাহ বল! নাহলে আমার সুন্দর বউটার নজর লেগে যাবে!

শ্রেয়া : তাইই?

রাহুল : হুমম.. আচ্ছা আর আমাকে কেমন লাগছে ?

শ্রেয়া : হুমম! নট বেড! [ হেসে উঠলো স্নেহা ]

রাহুল : এবার সত্যিই মার খাবি কিন্তু!

শ্রেয়া : রিভেঞ্জ ছিলো! হুহ!

রাহুল : দেখলা স্নেহা! জেল্যাস করে আমাকে! [ চুল ঠিক করে ] তুমি প্রাউড ফিল করো, রাহুলকে তুমিই পেয়েছো..

শ্রেয়া : লিসেন্ট স্নেহা! তুমি জানো না, ওরা অলোয়েজই আমাকে নট বেড বলে কমেন্ট করে, কখনোই বলেনি যে দোস্ত তোকে না আজ অনেক সুন্দর লাগছে, দারুণ লাগছে, প্রিটি লাগছে!

– আর আমার থেকে জিজ্ঞেস করলে আমি কি বলি, হ্যা? অনেক হ্যান্ডসাম লাগছে, ডেসিং লাগছে!

রাহুল : আরে তোকে লাগলেই তো বলবো!

স্নেহা : আরে আপনি মিথ্যে বলছেন কেনো? [ শ্রেয়ার দিক তাকিয়ে ] সত্যিই তোমাকে অনেক…

রাহুল : ক্ষেত লাগছে! হিহি! এটাই বলতে ছিলো স্নেহা! তাই না!

স্নেহা : [ রাহুলকে চিমটিয়ে ] মোটেও না..

শ্রেয়া : লিভ ইট স্নেহা! ওদের কাজই অলোয়েজ আমার পিছে লেগে থাকা, [ স্নেহা হাসতে থাকে ]

শ্রেয়া : বাই দ্যা ওয়ে কনগ্রেটস্ বোথ অফ ইউ! খুব শিঘ্রই, ম্যারেড লাইফে পা দিতে যাচ্ছো! হুম হুম…

– আর তুই! এখন থেকেই তো স্নেহাকে পেয়ে আমাদের ভুলে গেছিস! বিয়ের পর দেখলে বলবি, হু আর ইউ? আই নো ইউ? হ্যা?

রাহুল : আরে কি করবো বল! স্নেহা এমন একটা জিনিষ যাকে দেখলেই আমার নেশা ধরে যায়..আশেপাশের খবরাখবর থাকেনা..[ বলেই স্নেহার মাথার সাথে মাথা লাগিয়ে রাখলো, স্নেহা লজ্জায় সরিয়ে দিলো রাহুলকে ]

শ্রেয়া : হুমম! লাভ বার্ডস্ তাই না!

রাহুল : আচ্ছা এইদিকে আয় ছবি তোল, [ বলেই কাছে টেনে নিলো ] আর তোকে কেমনি ভুলবো বল? তোকে ভুললে জ্বালাবো কাকে?

শ্রেয়া : এক মিনিট! তোর পাশে অনেক তুলেছি, এবার স্নেহার পাশে তুলবো! [ বলেই স্নেহার পাশে গিয়ে দাঁড়িয়ে পোজ দিতে লাগলো ]

রাহুল : হুমম! ধীরেধীরে এভাবেই বঞ্চিত হবো আমি! [ হাসতে লাগলো স্নেহা আর শ্রেয়া ]

___________এইদিকে পার্কিংএ____________

রিদোয়ান : [ ফিসফিসিয়ে ] ইউ নো জারিফা!তোমার পেট দেখা যাচ্ছে আজ! তাই এত্তো হট লাগছে..

জারিফা : [ কোমোড়ের ওড়না টেনে ] আপনার চোখগুলো না আজকাল বেশীই উড়ছে..

রিদোয়ান : [ হেসে ] তাই? দেখাই তো যাচ্ছিলো আর আমি বললেই দোষ?

জারিফা : হ্যা! দোষ.. আপনি দেখবেন কেনো?

রিদোয়ান : [ ধীরেধীরে ওড়না সরিয়ে জারিফার কোমোড়ে স্লাইড করে হাত রেখে ] দেখালে তো দেখবোই…

জারিফা : দেদ…দেখেন..ওড়না সরেগিয়েছিলো হয়তো…

রিদোয়ান : [ একটানে কাছে এগিয়ে নিয়ে ] হ্যা! তারপর…

জারিফা : তাত..তাই খেয়াল.. [ বলতেই দেখে রিদোয়ান চোখ বন্ধেই নিমিষেই জারিফার ঠোটের দিক তার ঠোট বাড়াচ্ছে, আশেপাশে আড়চোখে তাকিয়ে হুট করেই ধাক্ষা দিয়ে সরিয়ে দিলো রিদোয়ানকে ]

রিদোয়ান : [ অবাক হয়ে ] হোয়াট?

জারিফা : পাগল নাকি আপনি? কেউ চলে আসলে…

রিদোয়ান : সব সময়ের বাহানা [ বলেই আবার কাছে আসতে চাইলো, তখনিই জারিফা মুচকি হেসে ঘাগড়া হাতে ধরে দৌড়ে চলে গেলো ]

রিদোয়ান : [ চেচিয়ে ] আরে জারিফা! ওয়েট…

______________ অন্যদিকে _______________

মার্জান : একটা ছবি ও ঠিক করে তুলতে পারিসনি তুই…আমার কি সুন্দর সুন্দর পোজ সব নষ্ট করে দিলি…

শায়লা : আরে এতো আফসোস করছিস কেনো? আবার তুলে দিবো নাহয়!

মার্জান : ওহো! দরকার নেই! আর তুই কেমন ছবি তুলে দিবি তা আমার জানা হয়ে গেছে.. [ বলতেই হঠাৎ ধাক্ষা খেলো কারো সাথে, নিচের দিক তাকাতেই দেখে রাশু ]

– আরে রাশু এইভাবে দৌড়ে কোথায় যাচ্ছিস, আস্তে হাট, মানুষ পড়ে যাবে তোর ধাক্ষায় ?

রাশু : আরে আমি ঠিকই হাটছি, তুমিই তো চোখ নামিয়ে মোবাইল দেখে দেখে হাটছো!

মার্জান : আচ্ছা বাদ দে! এতো লেইট করলি কেনো আসতে? মামার বাড়ীতে কি মধুর হাড়ী ছিলো যে আমাদের বাসায় আসিস নি থাকতে!

রাশু : আরে সামনে এক্সাম বাবা আনলেই তো আসবো, খালি বলে পড় পড় পড়! আমাকে তো বললোই না কেউ এসব বিয়েশাদী হয়ে যাচ্ছে, নাহয় আমি পালিয়েই চলে আসতাম!

– আর স্নেহাকে তো আমি দেখেই নিবো!

মার্জান : কি বললি স্নেহা? ডিরেক্ট নাম ধরে?

রাশু : আরে ও জানে রাগ উঠলে আমি ওকে স্নেহা বলেই ডাকি!

মার্জান : হুমমম! ঠিক বলেছিস! একটা মাত্র ভাই.. আর ও তোকে একটু জানালোই না বিয়ে করছে!

শায়লা : বাই দ্যা ওয়ে রাশু! দেখা করেছিস স্নেহার সাথে!

রাশু : নাহ! ঐ দিকটা আইস্ক্রীম দিচ্ছে, আগে আইস্ক্রীম খেয়েনি বাকি সব পড়ে [ বলেই দৌড়ে চলে গেলো ]

শায়লা : আরে কথা তো শোন… [ মার্জান আর শায়লা হাসতে লাগলো, হঠাৎ স্টেজের দিক চোখ পড়তেই ]

শায়লা : ওহো! ঐদিকটা দেখ! কি দারুণ জুটি লাগছে! মাশাল্লাহ.. [ বলতেই মার্জান হেসে হাত নাড়ালো, রাহুল ও হেসে হাত নাড়িয়ে কাছে আসতে ইশারা করলো, এগিয়ে গেলো দু-জনই ]

মার্জান : আমার তো মনে হয়েছে আজ, স্নেহা তার শশুড়বাড়ির সবাইকে পেয়ে আমাদের ভুলেই গেছে..

আসিফ : ভুলে যাওয়ায় উচিৎ! তাই না স্নেহা! এখন তো এদের সাথেই থাকবা.. আলতু-ফালতু মানুষদের মনে রেখে আর কি হবে!

মার্জান : [ নাকফুলিয়ে ] কি বললেন? আলতু-ফালতু?

শায়লা : শিসসস! মার্জান আস্তে! সবাই দেখছে!

মার্জান : আপনাকে তো পরে দেখে নিবো!

আসিফ : আই নো আমাকে দেখার জন্য সবাই পাগল, সো্ তুমি আবার লিষ্ট থেকে বাদ যাবে কেনো?

মার্জান : ওওও…তাই বুঝি!

আসিফ : ইয়েএএসস! তাইই…

মার্জান : ইডিয়ট!

রাহুল : [ হেসে ] আবারো শুরু হয়ে গেছে টম এন্ড জেরীর?

শায়লা : আচ্ছা! কে টম কে জেরী?

মার্জান : তুই চুপ কর! [ বলেই স্নেহার পাশে গিয়ে বসে ] স্নেহা! কেমন লাগছে সব হুম হুম?

রাহুল : ফাইনালি তোমাদের পাওয়া গেছে.. এতোক্ষণ তো তোমাদের চিন্তায় চিন্তায় স্নেহা বুড়ি হয়ে যাচ্ছিলো!

স্নেহা : [ হেসে রাহুলকে চিমটি মেরে মার্জানের দিক তাকিয়ে ] কোথায় ছিলি তোরা? আর জারিফা কোথায় ?

মার্জান : কি জানি কোথায়! রিদোয়ানের সাথেই যেতে দেখেছি..হবে কোথাও!

শায়লা : ঐ যে আসছে দুজনই!

রিদোয়ান : [ এগিয়ে এসে ] কি অবস্থা সবার [ বলেই রাহুলের পাশে গিয়ে বসলো ]

রাহুল : আমাদের অবস্থা তো সবাই দেখছেই কিন্তু তোরা কোথায় ছিলি,

রিদোয়ান : দোস্ত! গিয়েছিলাম একটু প্রেম করতে কিন্তু সেটাও ব্যার্থ!

আসিফ : [ রিদোয়ানে কাধে হাত রেখে ] উফফ! সো সে্ড! মন খারাপ করিস না,দোস্ত! প্রেমসেম অনেক করতে পারবি, এখন ছবির জন্য পোজ দে!

রিদোয়ান : [ আসিফের পেটে ঘুষি মেরে ] তুই তো সেটাই বলবি!

[ সবাই পোজ দিয়ে দিয়ে ছবি উঠাতে ব্যস্ত, হঠাৎ মার্জান স্নেহার ভাইকে দেখে হাত নেড়ে ইশারা করলো আসতে, রাশু ও দৌড়ে এগিয়ে এলো ]

মার্জান : কি মিষ্টার আইস্ক্রীম খাওয়া হয়েছে?

রাশু : হুমম! দারুণ ছিলো! [ বলেই স্নেহার দিক তাকিয়ে কোমোড়ে হাত রেখে ] এই স্নেহা! আমাকে বললে না যে বিয়ে করছো? [ রাহুল আর তার ফ্রেন্ডসরা সবাই অবাক হয়ে তাকালো ]

স্নেহা : বব..বলেছিলাম তো বাবাকে তোর কথা! বাবা বললো তোর নাকি অনেক পড়া আছে তাই মামাদের সাথেই আসবি আজ…

রাশু : হ্যা? বাবা বললো তাই না? বাবা কোনদিন বলে না পড়ার কথা…? শোনো এসব বাবা-টাবা আমি বুঝিনা,

– বাবাকে তুমি বলবা আজ আমাকে মামার বাড়ি না পাঠাতে,সব প্রোগ্রাম কমপ্লিট করে যাবো বলে দিলাম! কিভাবে হবে এসব আমি বুঝিনা, সব দায়িত্ব তোমার!

রিদোয়ান : বাহ! ইন্ট্রেষ্টিং…তো!

রাহুল : [ রাশুকে কাছে টেনে নিয়ে ] আরে এইতো দেখি আমার মতো,

জারিফা : হবেই তো! জিজু আপনার শালা বলে কথা!…

মার্জান : আরে রাশু একটা কথা বল..ঐ যে তোর আপুর জন্য ঐদিন একটা ছেলে দেখলো না ঐটা সুন্দর নাকি এটা..হুমম?

রাশু : [ রাহুলের দিক কিছুক্ষণ তাকিয়ে ] উমমম..একটাও না..

মার্জান : আয়হায়! নিজের চেহেরাটা দেখেছিস একবার আয়নায়..

রাশু : আমারটা ছাড়ো আগে তোমারটা দেখো…

আসিফ : [ কিটকিটিয়ে হেসে রাশুর পাশে এসে হাটু গেরে বসে ] ভাই! সাইজে ছোট হলে কি হবে জবাবটা মাইন্ডব্লোয়িং দিলি, এবার শুধু বল তোর কি চাই… [ মার্জান আর কিছু বললো না রাগ চাপা হাসি দিয়ে তাকিয়ে আছে, বুঝতে পারলো আসিফ, মাথায় কিছু না কিছু পাকাচ্ছে ]

রাশু : আরে বলো না তিনোটাই পেচি সারাক্ষণ পেকপেক করতে থাকে!

রিদোয়ান : বাট এরা তো চারজন!

রাশু : আমার আপু ছাড়া!

শায়লা : ওও..এতোক্ষণ স্নেহা! এখন আবার আপু!

জারিফা : আচ্ছা আমরা আংকেলকে লাগিয়ে দি বলে আমরা পেচি! আর তোর আপু বাচিয়ে নেই বলে ভালো!

– এখন থেকে আরো বেশী করে লাগাবো, কাল বিয়েতে আসবি তুই বিদায়ের মাত্র পাচ মিনিট আগে, দেখেনিস!

রাহুল : আরে না! তোমরা আমার একমাত্র পিচ্চি শালাটাকে এমন কেনো করছো বলো তো?

– কাল ও সবার আগে আসবে তাই না..?

রাশু : [ রাহুলের গালে একটি কিস করে ] ইয়েসস! [ বলেই স্নেহার দিক তাকিয়ে ] এই স্নেহা আরেকটু যাও তো.. [ স্নেহা মাথা নাড়িয়ে আরেকটু সাইড হয়ে বসলো ]

রাশু : [ স্নেহা আর রাহুলের মধ্যে বসে ] এইইই! ক্যামেরা মেন! ফটো তুলুন!

জারিফা : আরে বাপরে! আসছে একদম নবাব! কিভাবে অর্ডার করে দেখো! [ বাকিরা হাসতে লাগলো, রাহুল আর স্নেহাও রাশুকে মধ্যে নিয়ে কাধে হাত রেখে জড়িয়ে ছবি তুলে নেই ]

রাশু : আচ্ছা আমার কাজ শেষ এখন ঘুরে আসি! [ জারিফার দিক মাথা এগিয়ে ] শুনো কোনো ছেলে ডিষ্টার্ব করলে আমায় বলবা!

জারিফা : জ্বী জ্বী বড় ভাই আপনাকেই বলবো! [ চলে গেলো রাশু ]

রাহুল : [ হেসে ] সিরিয়াসলি?

জারিফা : আসলে গ্রামে, স্নেহার এক কাজিনের বিয়ে ছিলো! ঐখানে একটা ছেলে আমাদের ডিস্টার্ব করছিলো, তখন, ও মার্জান, আর আমি মিলেই ছেলেটাকে উল্লু বানিয়ে পুকুরে ফেলে দিয়েছিলাম!

– আর কাউকে উল্লু বানাতে ও ওর অনেক মজা লাগে! [ সবাই হেসে উঠলো ]

মার্জান : এক্সকিউজ মি! [ বলেই চলে যাচ্ছিলো ]

স্নেহা : কোথায় যাচ্ছিস?

মার্জান : ঐদিকটাই আছি!

শায়লা : আরে দাড়া আমিও আসছি [ বলেই দুজনে নেমে চলে যাচ্ছে আসিফ মার্জানকে চোখ টিপ মেরে তাকিয়ে আছে, মার্জান ও মুখ ভেংগিয়ে নেমে গেলো ]

জারিফা : আচ্ছা! আমি ও আসি! এবার…

রিদোয়ান : হ্যা আমার সাথে!

জারিফা : মোটেও না! [ বলেই দৌড়ে নেমে গেলো,রিদোয়ান ও হেসে পিছু পিছু নেমে পড়লো ]
________________ এইদিকে_______________

মার্জান : নিজেকে কি মনে করে এই ইডিয়ট! সবসময় আমার ইনসাল্ট করে!

শায়লা : তুই ও তো কোনো দিক থেকে ওর ইনসাল্ট করার পিছু ছারিস না,

মার্জান : তুই চুপ কর! তুই আছিসই ওর পক্ষে! ঘুষ খোর কোথাকার!

শায়লা : যাক বাবা ঘুষ খেলাম কবে! জাষ্ট অফারই তো করলো! [ বলতেই হঠাৎ খেয়াল করলো মার্জান এদিকওদিক উকি দিচ্ছে ]

শায়লা : আবার কাকে খুজছিস?

মার্জান : একমিনিট তুই এইদিকে দাড়া,আমি একটু আসছি, [ বলেই দৌড়ে গেলো রাশুর দিক, শায়লা তাকিয়ে আছে দূর থেকে, কি কি যেনো বুঝিয়ে দিচ্ছে রাশুকে, হঠাৎ পাশে আসিফ এসে দাড়ালো ]

শায়লা : আরে আপনি! ভালোই হয়েছে এসেছেন! শুনেন আপনি ওকে বারবার রাগান কেনো বলেন তো? রাগালে কি পটাতে পারবেন! অনেক ডেঞ্জার ও..অতো সহজে পটছে না!

আসিফ : আচ্ছা? তাহলে আমিও দেখি কতো ডেঞ্জার হতে পারে!

– এখন কই গেছে ও?

শায়লা : ঐ যে! আসছে! [ এগিয়ে এলো মার্জান আসিফকে দেখে দাত সব বের করে একটি হাসি দিলো ]

আসিফ : [ মুচকি হেসে অন্যপাশ ফিরে গিয়ে ] নাইস্ তিথ!

মার্জান : চিকচিক করছে তাই না?

আসিফ : [ মাথা নাড়িয়ে ] হুমম!

মার্জান : ছায় দিয়ে মাজি তো তাই! [ শায়লা মুখ লুকিয়ে হেসে উঠলো ]

আসিফ : ওহ! তাই নাকি!

মার্জান : হ্যাঁ! একদম! আপনিও ট্রাই করে দেখতে পারেন!

– বাই দ্যা ওয়ে, ফলো করছেন নাকি আমাকে?

আসিফ : লল! তোমাকে ফলো করবো? [ হেসে ] পিচ্চিটাই তো বলে গেলো আয়নায় আগে নিজের চেহেরা দেখতে!

– আমি তো শায়লার সাথে কথা বলতে এসেছি! ও কি গানে ডান্স করবে ঐটাই আস্ক করছি! তোমার দ্বারা তো ডান্স ইম্পসিবল! তাই জিজ্ঞেস করাটাও বেকার!

মার্জান : আচ্ছা! নিজে একদম কি ডান্স পেরে তরিয়ে ফেলেন ভালো জানি হুহু!

আসিফ : তোমার থেকে তো অন্তত বেটার জানি!

মার্জান : আচ্ছা? করে দেখান দেখি?

আসিফ : [ মার্জানের কাছে মুখ এনে ] চ্যালেঞ্জ করছো?

মার্জান : [ একটু পিছিয়ে গিয়ে ] ই..ইয়েস! চ্যালেঞ্জ করলাম!

আসিফ : ওকে! সে্ইম গানেই, দুজন পার্ফমেন্স করবো তারপর পাবলিক যার ডান্সে বেশি ভোট করবে সে উইনার!

– আর লুজার এর কি করতে হবে জানো তো?

মার্জান : জানার দরকার নেই! লুজার কে হবে তা চেহেরায় ভেসে উঠছে!

শায়লা : [ এক্সাইটেড হয়ে ] আচ্ছা আপনারা কোন গানে ডান্স করবেন?

আসিফ : ওউ! শাট-আপ! আমি এতোটাও কঠোর নয়! যাও তোমার ফ্রেন্ড এর জন্য সহজ করে দিলাম! [ অবাক হয়ে তাকালো মার্জান ]

আসিফ : রিসেন্টলি তুমি তোমার ফেইসবুকে লিসেনিং সং স্ট্যাটাস দিয়ে তোমার ফেভারিট হিরোর একটা সং শেয়ার করেছো!

শায়লা : রিতিক রোশন?

আসিফ : ইয়াহ! [ মার্জানের কাছে এসে ] মুজসে্ দোস্তি কারোগি! [ অবাক হয়ে তাকালো মার্জান ]

– [ হেসে ] এই ফ্লিমের!

মার্জান : কখনোই না! এই গানে তো ইম্পসিবল!

আসিফ : জানতাম তুমি ভয় পাবা!

মার্জান : আজিব ভয় কেনো পাবো? আমিতো..

শায়লা : আরে মার্জান! গানে কি এসে যায়! বাদ দে না! তখন ভাববে তুই ডারপোক!

আসিফ : সো্ ডান?

শায়লা : হ্যা! হ্যা! ডান ডান!

মার্জান : এক সেকেন্ড! আপনার সাথে তো আমার ফেইসবুকে এড নেই! তাহলে আপনি কিভাবে জানলেন আমি কি শেয়ার করেছি না করেছি?

আসিফ : ওহ! শাট-আপ! আমার এতোটাও শক পড়েনি তোমার আইডি চেক করার!

– ঐটা তো ব্যাস! ঐদিন রাহুল তার মোবাইল আমার হাতে রেখে গিয়েছিলো তখন ওর মোবাইল এ ফেইসবুক দেখতে গিয়ে তোমারটাও চোখে পড়ে,

মার্জান : আপনার কাছে আর কি আশা করা যায়! অন্যজনের ফেইসবুক ঘাটাঘাটি করা ছাড়া!

আসিফ : এক্সকিউজ মি! রাহুল ইজ মাই ফ্রেন্ড! ওর কিছুই আমার কাছ থেকে হাইড থাকে না সো্ ফেইসবুক তো জাষ্ট সিম্পল ম্যাটার!

– আর আমরা ছেলেরা তোমাদের মেয়েদের মতো এতো কিপ্টে না, তোমরা তো ফেইসবুক নিয়েও কিপটামি করো!

মার্জান : কি বললেন?..মেয়েরা কিপটা?

শায়লা : উফফ গাইস্! আবারো শুরু ঝগড়া? এবার তো ডান্স শুরু করেন! পাবলিক কমে গেলে ভোট ও কমে আসবে মাইন্ড ইট!

আসিফ : ইয়াহ! আই থিংক আমাদের এখন শুরু করা উচিৎ!

– উমমম! ও হ্যা! ফাষ্ট লিরিক্স তো মেয়ের সো্ গো… [ মার্জান নাক ফুলিয়ে এগিয়ে গেলো ডান্স ফ্লোরে, আসিফ আর শায়লা ও হেসে হেসে পেছন পেছন এগিয়ে গেলো ]

শায়লা : বাহ! বাহ! বাহ! গানটাও বরাবর দিলেন! কিন্তু আপনি যদি না জিতেন?

আসিফ : ডোন্ট ওয়ারি না জিতলেও ভোট ওর চেয়ে আমার বেশি আসবে বুঝেছো! যে বক্সে ভোট নিবো ওখানে আমি আগে থেকেই আমার নাম দিয়ে অর্ধেক এক্সট্রা কাগজে ভরে রেখেছি!

শায়লা : আরে ওয়াহ! কি বুদ্ধি আপনার!

হঠাৎ, পেছন থেকে,

জারিফা : [ এগিয়ে এসে ] বাহহহ! ডান্স শুরু? ইয়েএএএ! এবার তো আমিও ডান্স করবো!

শায়লা : আরে চ্যালেঞ্জ হচ্ছে! [ চোখ মেরে ] ঐ যে!

জারিফা : [ আসিফের কাধে হাত রেখে ] ওহহহ! বুঝেছি এবার! লাইন মারা হচ্ছে বুঝি! হ্যা হ্যা!

[ মার্জান ঠিকঠাক হয়ে দাঁড়িয়ে হাত নেরে ইশারা করলো মিউজিক ছাড়ছে না কেনো ]

জারিফা : মিউজিক মিউজিক!

শায়লা : আরে মিউজিক ছাড়তে বলছে! তাড়াতাড়ি! আপনিও থাকেন ঐদিকটা ওর পর সাথে সাথে আপনার ও তো যেতে হবে তাই না! [ আসিফ হেসে এগিয়ে গিয়ে মোবাইল স্পিকারে কানেক্ট করে গান ছাড়লো ]

সবাই তালি দিয়ে চিৎকার করতে লাগলো, ঐদিক থেকে স্নেহা আর রাহুল ও এক্সাইটেড হয়ে তাকিয়ে রইলো..রিদোয়ান ও এগিয়ে এলো..

জারিফা : [ চেচিয়ে ] ইয়েএএএ…মার্জান মার্জান মার্জান!

_________মার্জান

♪♪ আজেকি লাডকে আই টেল ইউ ♪♪
♪♪ কিতনে লাল্লু হোয়াট টু ডু ♪♪

জারিফা : আরে ইয়ার! শায়লা আমার ও তো ডান্স করতে মন চাইছে..

♪♪আজেকি লাডকে আই টেল ইউ ♪♪
♪♪ কিতনে লাল্লু হোয়াট টু ডু ♪♪
♪♪ কই মুঝে পুছে হাউ আর ইউ ♪♪
♪♪ কই মুঝে বলে হাউ ডু ইউ ডু ♪♪
♪♪ কাভি্ কয়ি মুঝসে্ না কাহে ♪♪
♪♪ ওহ মাই ডার্লিং আই লাভ্ ইউ♪♪
♪♪ ওহ মাই ডার্লিং আই লাভ্ ইউ♪♪

_________আসিফ

♪♪ আজেকি লাডকি আই টেল ইউ ♪♪
♪♪ নাখড়ে ওয়ালি সুনলে তু ♪♪

রাহুল : ওহ মাই গড! স্নেহা! সব মজা তো এরাই করছে, আর আমাদের কখন থেকে দরবেশ বাবার মতো বসিয়ে রেখেছে!

স্নেহা : [ হেসে এক্সাইটেড হয়ে ] শাট-আপ রাহুল! ঐ দিকে দেখুন!

♪♪ আজেকি লাডকি আই টেল ইউ ♪♪
♪♪ নাখড়ে ওয়ালি সুনলে তু ♪♪
♪♪ না মে পুছু হাউ আর ইউ ♪♪
♪♪ না মে বলু হাউ ডু ইউ ডু ♪♪
♪♪ আভি্ ইয়েহি মে কেহেতা হু ♪♪
♪♪ ওহ মাই ডার্লিং আই লাভ্ ইউ ♪♪
♪♪ ওহ মাই ডার্লিং আই লাভ্ ইউ♪♪

[ সবাই তালি দিচ্ছে, হাসি পাচ্ছিলো মার্জানের, তাও আসিফকে মুখ ভেংগিয়ে দৌড়ে চলে এলো জারিফা আর শায়লার দিক ]

জারিফা : [ মার্জানকে জড়িয়ে ধরে ] ওহ! মাই ডার্লিং আই লাভ ইউউউউ [ বলতেই রিদোয়ান এসে হাত ধরে জারিফাকে টেনে নিয়ে চলে গেলো ডান্স ফ্লোরে, হাসতে লাগলো বাকিরা ]

রিদোয়ান : [ চেচিয়ে ] মিউজিক! [ জারিফা অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে, এতোক্ষণ তো ডান্সের জন্য লাফাচ্ছিলো তবে হঠাৎ লজ্জা কেনো লাগছে ]

♪♪ বান্নো কি সে্হেলি রেশামকি ডোরি ♪♪
♪♪ চুপ চুপকে শারমায়ে দেখে চরি চরি ♪♪

[ জারিফাকে ঘুরিয়ে নিয়ে ]

♪♪ বান্নো কি সে্হেলি রেশামকি ডোরি ♪♪
♪♪ চুপ চুপকে শারমায়ে দেখে চরি চরি ♪♪
♪♪ ইয়ে মানে ইয়া না মানে ♪♪
♪♪ মে তো ইস্ পে মারগায়া ♪♪
♪♪ ইয়ে লাডকি হায় আল্লাহ ♪♪
♪♪ হায় হায়রে আল্লাহ ♪♪
♪♪ ইয়ে লাডকি হায় আল্লাহ ♪♪
♪♪ হায় হায়রে আল্লাহ ♪♪

______ জারিফা

♪♪ বাবুল কি গালিয়া না ছাডকে জানা ♪♪
♪♪ পাগাল দিওয়ানা ইস্ কো সামজানা ♪♪

[ রাহুল এক্সাইটেড হয়ে শিস বাজিয়ে উঠলো ]

♪♪ বাবুল কি গালিয়া না ছাডকে জানা ♪♪
♪♪ পাগাল দিওয়ানা ইস্ কো সা্মজানা ♪♪
♪♪ দেখো জি দেখো ইয়ে তো মেরা ♪♪
♪♪ পিছে পারগায়া ♪♪
♪♪ ইয়ে লাডকা হায় আল্লাহ ♪♪
♪♪ হায় হায়রে আল্লাহ ♪♪
♪♪ ইয়ে লাডকা হাহ আল্লাহ ♪♪
♪♪ হায় হায়রে আল্লাহ ♪♪

[ কোলে তুলে নিলো রিদোয়ান জারিফাকে সবাই তালি দিয়ে উঠলো, জারিফা লজ্জায় হেসে মুখে হাত দিয়ে ঢেকে রাখলো ]
_______________এইদিকে________________

স্নেহা খুশিতে তালি দিয়ে কখন যে রাহুলের হাত জড়িয়ে ধরে রাখলো খেয়ালই নেই! রাহুল বুঝতে পেরে হেসে তাকিয়ে রইলো স্নেহার দিক…

চলবে….

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here