Love At 1St Sight Season 3 Part : 18

0
619

Love At 1St Sight
~~~Season 3~~~

Part : 18

writer-Jubaida Sobti

স্নেহা : [ অবাক হয়ে ] আপনি?..[ With Shocking expression ] আর এইভাবে ধাক্ষা দিয়ে হাটছেন কেনো?…

রাহুল : You know sneha happiness! [ with tedi smile ?]

স্নেহা কোনো জবাব না দিয়ে ক্লাসের দিক জোড়ে জোড়ে হাটা শুরু করে দিলো…. রাহুল ও স্নেহার পিছু পিছু…

তা দেখে স্নেহার ফ্রেন্ডসরা হাসতে থাকে…তারাও পেছন পেছনই আসছিলো!

স্নেহা : [ হেটে হেটে ] আজিব আপনি আমার পেছন পেছন কেনো আসছেন?

রাহুল : ♪♪ জায়েগি্ তু যা্হা♪♪ ♪♪ আওংগা মে্ ওয়াহা♪♪

♪♪ মেরি্ বানে্গি তু ♪♪
♪♪ আনা তুজে্ ইয়া্হা ♪♪

তু~~কারে দি্ল বেকা্রার ♪♪

স্নেহা : [ চোখ রাংগিয়ে রাহুলের দিক তাকিয়ে ] আরে পাগল নাকি?..এতো জোড়ে জোড়ে গান করছেন কেনো?..

রাহুল : আরে! গানটা ভালো হয়নি?..হেই গার্লস্ তোমরা বলোতো গানটা ভালো হয়নি?

মার্জান : সুপার! ?

জারিফা : সুপার সে্ উপার!

শায়লা : ফার্ষ্ট ক্লাস!

রাহুল : দেখেছো রিভিউ কেমন দিচ্ছে [ বলেই তেডি স্মাইল দিয়ে চোখ থেকে সানগ্লাসটা খুলে শার্টে লাগিয়ে নিলো, ]

স্নেহা কোনো জবাব না দিয়ে হাটতেই আছে,

শিরি দিয়ে দু-তলায় উঠে ক্লাসের দিক মোড়তেই হঠাৎ স্নেহা থেমে যায়,

রাহুল তা খেয়াল করে সামনের দিক তাকাতেই দেখে নেহা আসছে…,

রাহুল স্নেহার দিক তাকিয়ে তার হাতটি শক্ত করে ধরলো!…স্নেহা বারবার হাত ছুটানোর জন্য ব্যস্ত!

মার্জান দূর থেকে নেহার দিক তাকিয়ে চোখ টিপ মারলো,নেহা নাক ফুলিয়ে তাকিয়ে আছে তাদের দিক!

স্নেহা : হাত ছাড়ুন প্লিজ! রাহুল…

রাহুল : Shut-up! [ বলেই রাহুল স্নেহাকে নিয়ে হাটা শুরু করলো ]

স্নেহা : কেনো এমন করছেন রাহুল আপনি…বললাম না হাত ছাড়তে!

রাহুল : what স্নেহা! এমন বিহেভ করছো কেনো সবাই তাকিয়ে আছে!

স্নেহা : ব্যাস! আপনি আমার হাত ছাড়ুন! [ বলেই স্নেহা রাহুল থেকে তার হাত ছুটিয়ে…দৌড়ে ক্লাসের দিক চলে যাচ্ছিলো ]

রাহুল : [ চেঁচিয়ে ] স্নেহা! ওয়েট…

[ স্নেহা দৌড়ে চলে যাচ্ছে ]

রাহুল : [ দু-কদম এগিয়ে গিয়ে আবার অর্ধেকে থেমে যায় এবং চেঁচিয়ে বলে উঠে] স্নেহা আই লাভ ইউ!

[ পা থমকে গিয়ে দাঁড়িয়ে পড়লো স্নেহা ]

চোখ বড় করে…শকড হয়ে তাকিয়ে আছে নেহা রাহুলের দিক,

আশেপাশের সবাই ও অবাক হয়ে চেয়ে আছে…

[ স্নেহা শকড হয়ে পেছন ফিরে তাকালো চোখের পানি টলমল করছে…স্নেহার!]

রাহুল : [ চেঁচিয়ে ] আই লাভ ইউ স্নেহা! আই ওয়ান্ট টু এভ্রি মোমেন্ট অফ মাই লাইফ উইথ ইউ!
_________________________________

জারিফা : [ এক্সাইটেড হয়ে মার্জানের কানে ] ইয়ার! আই কান্ট বিলিভ দিস্! সবার সামনে আই লাভ ইউ স্নেহা! ওয়াও!

মার্জান : ওহ নো নো! স্নেহা…

জারিফা : [ অবাক হয়ে ] কি হলো [ বলেই সামনের দিক তাকাতেই দেখে.. স্নেহা তার পা পেছনে বাড়াচ্ছে ] আরে আরে স্নেহা! প্লিজ নো!

হঠাৎ করেই স্নেহা দৌড় দিয়ে…চলে যায়,

সবাই নিরাশ হয়ে রাহুলের দিক তাকিয়ে আছে,

নেহা : [ রাহুলের কাছে এগিয়ে এসে ] সো্ সেড্ রাহুল! আমি তো বিলিভ করতেই পারছিনা! তুই কখনো ভেবেছিলি তুকে কেউ রিজেক্ট করে চলে যাবে?…ওহ আই হেভ ওয়ান আইডিয়া রাহুল! এইখানে আরো অনেকেই আছে যারা তোর জন্য ফিদা, তাদের থেকেই কাউকে চুজ করেনে বেটার হবে!

রাহুল : [ নাক ফুলিয়ে রাগান্বিত ভাবে ] Listen! [ বলতেই আসিফ এসে রাহুলকে টেনে সরিয়ে ফেলে ]

আসিফ : চল রাহুল!

রাহুল : আরে তুই ছাড়! ওকে আমি…

আসিফ : স্টপ রাহুল! সবাই দেখছে এখন না! ওকে! [ বলেই রাহুলকে টেনে নিয়ে চলে গেলো ]

মার্জান, জারিফা, শায়লা মুড অফ করে দাঁড়িয়ে চেয়ে আছে,
_________________________________

শায়লা : কি ভেবেছি আর কি হয়েগেলো!

জারিফা : এই স্নেহাটাও না…কি হতো আই লাভ ইউ টু বললে?…

মার্জান : [ গম্ভীর হয়ে ] এতোটাও সহজ না, জারিফা যেটা আমরা ভাবছি!

শায়লা : মানে?..

মার্জান : আমার মনে হচ্ছে কেনো যেনো! স্নেহা আমাদের কাছ থেকে কিছু তো লুকাচ্ছে! I mean নেহার ওসব সামান্য কথায় রাহুলকে রিজেক্ট করা লজিক ছাড়া সাবজেক্ট এর মতো!

জারিফা : আচ্ছা? তাহলে কি হতে পারে?..

_________________________________

আসিফ : [ রাহুলকে একটি ক্লাসে এনে ] Don’t do this রাহুল…রাগ কন্ট্রোল কর!…এখন রাগ দেখালে চলবে না…তোর স্ট্রং হতে হবে…

রাহুল : [ চেঁচিয়ে ] আই কান্ট কন্ট্রোল!

আসিফ : দেখ রাহুল! এমন ওতো না যে…তুই স্নেহাকে ভালোবাসিস তাই বলে স্নেহাকে ও তোকে ভালোবাসতে হবে! হয়তো তুই ওর জন্য যে ফিলিংসটা রাখিস ও সেটা রাখেনা!

রাহুল : [ চেঁচিয়ে ] আচ্ছা?..তাহলে আমার সামনের ঐ লজ্জিত হাসি, ওকে ডান্স পার্টনার না করাতে জ্যালাস হওয়া, আমার গান শুনে ব্লাশিং হয়ে চলে যাওয়া… আর মেইনলি… যখন আমি ওকে আই লাভ ইউ বললাম.. তখন ওর চোখ বেয়ে পড়া পানি গুলো ?..বল?..ঐগুলো কি আমাকে রিজেক্ট করার খুশিতে?..নাকি আমি প্রপোজ করেছি বলে?..

আসিফ : ওকে রিলেক্স রাহুল!

রাহুল : [ মাথায় হাত দিয়ে ] স্নেহা এসব কেনো

[ বলেই রাগান্বিত ভাবে একটা বেঞ্চ লাত্তি দিয়ে সরিয়ে ক্লাস থেকে বেড়িয়ে যায়,]

_________________________________

এইদিকে,

স্নেহা লাইব্রেরী গিয়ে সেল্ফের ধারে দাঁড়িয়ে চোখের জলে ভাসিয়ে দিচ্ছে,

মনে পড়ছে তার,

রাহুল এসে লাইব্রেরীতে এই জায়গাটিতে দাড়িয়ে তার চশমা খুলে নিয়ে গিয়েছিল! ভাবতে ভাবতেই কান্নায় ভেঙে পড়ছে স্নেহা,

হঠাৎ, বুকটা ধুপ করে উঠলো!

লাইব্রেরীর দরজার দিক তাকাতেই দেখে..রাহুলের এন্ট্রি…অনেক মুড নিয়ে রেগে স্নেহার দিক এগিয়ে আসছে….স্নেহা ভয়ে গুটিমুটি হয়ে একধারে দাড়িয়ে আছে…..

রাহুল এসে স্নেহার হাত ধরে নিয়ে টেনে বেড়িয়ে যাচ্ছে…

স্নেহা : [ অবাক হয়ে ] আরে? কোথায় নিচ্ছেন?..ছাড়ুন প্লিজ সবাই দেখছে!

রাহুল কোনো জবাব না দিয়ে স্নেহাকে টেনে নিয়ে বেড়িয়ে যায়,

[ আশেপাশের সবাই হা করে চেয়ে থাকে তাদের দিক….]

রাহুল স্নেহাকে হল রুমে নিয়ে গিয়ে টেনে ছুড়ে মারে,

স্নেহা তার জলভরা অবাকচোখে চেয়ে আছে রাহুলকে! আর রাহুল তার লাল রাগান্বিত চোখে…স্নেহার দিক তাকিয়ে আছে…

চুপ করে রইলো দু-জন কেউই কিছু বলছে না!…স্নেহা মাথা নিচু করে বেড়িয়ে যাচ্ছিলো, রাহুল স্নেহার হাত ধরে ফেলে,

স্নেহা : আমার মনে হয় এখন এইখান থেকে যাওয়া দরকার,

রাহুল : [ স্নেহাকে টেনে তার সামনে এনে ] No way! এইখান থেকে ততোক্ষণ যাবো না যতোক্ষণ আমি আমার প্রশ্নের জবাব পাচ্ছি না, [ চেঁচিয়ে ] ততোক্ষণ যাবো না যতোক্ষণ আমি জানছিনা যে কি এমন কারণ যেটার কারণে তুমি আমার ভালোবাসা আমাকে ফিরিয়ে দিচ্ছো! [ স্নেহার কাছে এগিয়ে এসে ] ততোক্ষণ যাবো না স্নেহা যতোক্ষণ তুমি আমাকে সবকিছুর এক্সপ্লেইন করবে না….

[ স্নেহা চুপ হয়ে নিচের দিক তাকিয়ে থাকে…স্নেহার চুপ হয়ে থাকা দেখে রাহুলের রাগ আরো বাড়তে লাগলো ]

রাহুল : [ হাত দিয়ে স্নেহার মুখ তুলে ] স্নেহা! আমার কি জানার অধিকার নেই?…
[ স্নেহা চুপ করে কেঁদেই চলছে ]

[ রাহুল স্নেহার কোমোড়ে হাত দিয়ে তাকে কাছে টেনে নেই, সামনে চলে আসা চুল গুলো কানের কাছে গুজে দিয়ে ]

রাহুল : Talk to me sneha! [ বলতেই স্নেহা আরো ফুফিয়ে কেঁদে উঠলো! ]

রাহুল স্নেহার কোমোড়ের দিক টি-শার্টটি হালকা একটু উঠিয়ে শক্ত করে..চেপে ধরলো…

স্নেহা কেপে উঠে…রাহুলের হাতের দিক জ্যাকেটটি শক্ত করে মুঠি বেধে ধরে….

রাহুল : [ চোখ বন্ধ করে…স্নেহার কাধে মুখ লাগিয়ে ] কামঅন! স্নেহা Talk to me প্লিজ! একবার reason বলো..তারপর আমি আমার এই চেহেরাও তোমাকে কখনো দেখাবো না…[ রাহুলের চোখ ভিজে আসছে ] I don’t need anything else! sneha… I don’t need anything!

স্নেহা চোখ বন্ধ করে রাহুলকে ঝড়িয়ে পিটে হাত রাখলো…রাহুল স্নেহার কোমোড়ে স্লাইড করে…আরো শক্ত করে…চেপে ঝড়িয়ে নেই!স্নেহার গা শিউরে উঠলে, পা ধীরে ধীরে আলগে করে দাড়ালো!

রাহুলের নিশাস স্নেহার কাধে এসে পড়ছে…রাহুল স্নেহার পিঠে স্লাইড করতে লাগলো,

হঠাৎ স্নেহা চোখ খুলে তাকালো…নেহার কথা গুলো কানে বাজতে লাগলো,
_________________________________

নেহা : তুমি জানো না রাহুল আর আমার রিলেশন ছিলো! [ চেঁচিয়ে ] Rahul loved me! sneha…

infact আমাদের মাঝে physical রিলেশন ও হয়েছিলো..[ কাদো কণ্ঠে ] ঐরাত… স্নেহা ঐরাতের কথা আমি কেমনি ভুলবো?… তুমি জানো এমন একটা রাত প্রতিটা মেয়ের মাঝে চুপকে থাকে…সারাজীবন…

কিহ স্নেহা বিলিভ হচ্ছেনা তাই তো?..তাহলে এই ছবি গুলো দেখো… এগুলো কি মিথ্যে বলছে?…

_________________________________

ভেবে উঠতেই হঠাৎ করে স্নেহা রাহুলকে ধাক্ষে সরিয়ে দিলো! চোখ বেয়ে পানি পড়ছে স্নেহার জোড়ে শাস ফেলছে,….

[ রাহুল অবাক চোখে স্নেহার দিক তাকায় ]

স্নেহা : [ কেঁদে চেঁচিয়ে ] আপনি এটা জানতে চাচ্ছেন না কেনো আমি এমন করছি?..তাহলে শুনুন মিষ্টার রাহুল…

আপনাকে কেউ ভালোবাসবে আপনি এটা ডিজার্বই করেন না…

ভালোবাসা তো আপনার জন্য খেলনার পুতুলের মতোই তাই না?..ইচ্ছে হলো তো ভালোবেসে ফেললাম আর শখ মিটে গেলো তো ছুড়ে ফেলেদিলাম ব্যাস!

রাহুল : Listen sneha…

স্নেহা : উফ! এখন প্লিজ! এটা বলিয়েননা যে আমি কি ব্যাপারে কথা বলছি আপনি কিছুই জানেন না…

রাহুল : স্নেহা! trust me I really don’t know! what do you mean!

[ স্নেহা জোড়ে একটি শাস ফেলে অন্যপাশ ফিরে যায়… রাহুল স্নেহার কাছে এগিয়ে আসতে চাইলে ]

স্নেহা : আপনার সাথে নেহার রিলেশন ছিলো?…

রাহুল দাঁড়িয়ে পড়ে,

স্নেহা : [ রাহুলের দিক তাকিয়ে ] কি হলো?..ছিলো না?..

রাহুল : তো এটাই ছিলো reason?..

স্নেহা : আপনিতো কখনো বলেননি?..ওহ কিভাবে বলবেন…তাই না! বললে তো অন্য মেয়েদের আপনার প্রতি ইন্ট্রেষ্ট চলে যাবে …

রাহুল : [ রাগান্বিত ভাবে চোখ বটে অন্যপাশ ফিরে যায় ] স্নেহা! আমি এটাও বলিনি যে রিলেশন ছিলো না!

[ কিছুক্ষণ চুপ করে থেকে ]

রাহুল : [ স্নেহার দিক ফিরে ] নেহার সাথে আমার রিলেশন ছিলো! two months! আমি নেহাকে ভালোবাসতাম না স্নেহা! রিলেশনটা কেমন ছিলো আমি নিজেও বুঝি না…

স্নেহা : কেমন ছিলো বুঝেন না..? ওহ আমি বলছি! without love, physical relation! রাইট?…

রাহুল : [ রাগান্বিতভাবে ফুফিয়ে স্নেহার দিক এগিয়ে আসে…স্নেহা ভয় পেয়ে তাড়াতাড়ি পিছিয়ে গিয়ে বেঞ্চের সাথে লেগে দাঁড়িয়ে যায় ] physical relation?.. are you mad?.. [ দাত কিলিয়ে ] স্নেহা নেহা আর আমার মাঝে তেমন কিছুই হয়নি! যেমনটা তুমি ভাবছো!

স্নেহা : [ চোখের পানি টলমল করছে ] আচ্ছা?..তাহলে নেহার মোবাইলের ফটো গুলো?.. ঐগুলো ও কি আমি ভাবছি?…

[ রাহুল জোড়ে একটি শাস ফেলে স্নেহা থেকে সরে দাঁড়ায় ]

স্নেহা : কি হলো জবাব নেই?…

রাহুল : আজ পর্যন্ত আমি যা করেছি..কখনো কাউকে ঐগুলোর এক্সপ্লেইন করিনি! [ চেঁচিয়ে ] ইনফেক্ট কেউ আমার এক্সপ্লেইন শোনার যোগ্য বলে আমি মনেও করতাম না!

আজ তোমাকে দিচ্ছি! [ রাগান্বিত চোখে তাকিয়ে ] তাহলে শুনো স্নেহা!

আমি নেহাকে ভালোবাসতাম না…কখনো বাসিওনি আর কখনো বাসবো ও না!
[ অন্যপাশ ফিরে গিয়ে ] চুম্বকের মতোই চিপকায় থাকতো Always আমার সাথে! আমি ওর সাথে কথা বলতাম As a friend! কিন্তু ওর মনে অন্য কিছুই চলতো!

একদিন এক পার্টিতে ধুম করেই সবার সামনে প্রপোজ করে বসে…আমিও ডিরেক্ট রিপ্লাই দিলাম…but I don’t love you neha! পরদিন এসে আমার সামনে কান্নাকাটি… সে ইন্সাল্ট ফিল করেছে ব্লাহ ব্লাহ ব্লাহ! two month’s চান্স চাইলো আমার কাছ থেকে…two month’s এর মধ্যে যদি আমার ওর জন্য কোনো ফিলিংস্ আসে তাহলে..আমার Answer ইয়েস্ আর যদি না আসে…তাহলে permanently সে আমার লাইফ থেকে আউট!

নিজ ইচ্ছায় কখনো ওকে টাচ্ ও করিনি! ইনফেক্ট ওকে দেখে আমার কোনো ফিলস্ই আসতো না….

two month’s finished হওয়ার আর মাত্র তিনদিনই বাকি ছিলো!

ঐ রাতে, আমি ড্রাংক ছিলাম, বাসায় এসে শার্ট খুলে রাখতেই হঠাৎ দেখি নেহা এসেছে, she try to kissed me! কিন্তু আমি ওকে সরিয়ে খাটে শুয়ে পরি..মাথা ভার হয়ে ছিলো! ও ভেবেছে ও আমার ড্রাংকের ফাইদা উঠাবে…But no chance! আমি ওকে আমার গায়ের উপর থেকে ধাক্ষা দিয়ে সরিয়ে দেই..সেল্ফি নিতে লাগলো ও …আমার পাশে শুয়ে… আমার রাগ উঠাতে…হাত ধরে নিয়ে…ঘর থেকে বের করে দেই!

পরদিন, ভার্সেটি এলেই আমি ওকে sorry বলে two month’s এর দেওয়া কথাটি finished করে দেই! আমি বললাম Listen নেহা আমরা ফ্রেন্ডই ঠিকাছি! অন্যকিছু হওয়া আমাদের দারা পসিবল না! [ একটু হেসে উঠে ] হুহ! তারপর ও আমাকে ঐ ছবিগুলো দেখিয়ে ব্লাকমেইল করতে লাগলো…আমাদের মাঝে এই হয়েছে সেই হয়েছে…

আমি ও জবাব দিলাম…আমি ড্রাংক ছিলাম ঠিকই অতটাও সেন্সলেস্ ছিলাম না…

[ কিছুক্ষণ চুপ করে থেকে স্নেহার দিক তাকিয়ে ]

স্নেহা! তারপর ও যদি আমার চেয়ে তোমার নেহার কথাগুলোই বিশাস হয়! তাহলে! You can leave me! আমি একটু ও বাধা দেবো না….

[ স্নেহা অবাক হয়ে রাহুলের দিক তাকিয়ে আছে… চোখে পানি এসে জমে রইলো … টুপ করেই গড়িয়ে পড়লো…পানি ]

রাহুল : [ ধীরে ধীরে স্নেহার কাছে এগিয়ে এসে স্নেহার চোখের পানি গুলো মুছে দিয়ে ] বলেছিলাম না…একবার reason বলো এরপর থেকে আমি আমার চেহেরাই দেখাবো না … [ স্নেহার গালে স্লাইড করে ] স্নেহা তুমি বলেছিলে! রাহুল You are the biggest mistake of my life!

[ রাহুল ধীরে ধীরে পিছিয়ে গিয়ে একটু হেসে উঠে ] আর আমার লাইফের biggest mistake কি জানো?…

[ স্নেহা জলভরা চোখে তাকালো রাহুলের দিক ]

রাহুল : আমি তোমাকেই ভালোবেসেছি!
[ বলেই রাহুল হনহনিয়ে হলরুম থেকে বেড়িয়ে গেলো ]

স্নেহা শক্ত হয়ে মাটিতে বসে পড়লো…এমন লাগছে যেনো দুনিয়াটাই থেমে গেছে….চোখ থেকে ঝড়ঝড় করে পানি ছুটছে হাত-পা সব কাঁপতে লাগলো….

[ কানে বেজে উঠলো রাহুলের কথাটি,

– স্নেহা আমার লাইফের Biggest mistake কি জানো আমি তোমাকেই ভালোবেসছি ]

হঠাৎ, চিৎকার করে ফুফিয়ে কেঁদে উঠলো…
কান্নার আওয়াজ চেপে রাখতে নিজের হাত নিজে কামড়ে ধরেছে….কি হচ্ছে তার সাথে কিছুই বুঝে উঠতে পারছে না..

চোখ তুলে এদিকওদিক তাকাতেই হঠাৎ, চোখে পড়লো… রাহুলের গিটারটি,

ধীরে ধীরে উঠে দাঁড়িয়ে গিটারটির দিক এগিয়ে গেলো!হাতে ছুতেই চোখ বন্ধ করে ফেলে স্নেহা!

ফিল করতে লাগলো রাহুলকে,
__________________________

এইদিকে,

স্নেহার ফ্রেন্ডস রা তাকে খুঁজতে লাগলো হঠাৎ তিনতলায় উঠতেই দেখে রাহুল আসছে…চোখ-মুখ লাল হয়ে আছে রাহুলের…রাহুল হেটে চলে যাচ্ছে তারা চাইতেও রাহুলকে কিছু বললো না, বলার মতো কোনো ভাষায় নেই তাদের কাছে শুধু চেয়ে আছে…..

হল রুমের সামনে গিয়ে জারিফা ভেতরে ঢুকতে চাইলে মার্জান জারিফার হাত ধরে আটকে ফেলে…
তারা দূর থেকেই স্নেহাকে দেখে যাচ্ছে…
_________________________________

স্নেহা চোখ মুছে গিটার হাতে নিয়ে একটি চেয়ারে বসলো, সামনের স্পিকারটা সোজা করে নিলো ? হঠাৎ করেই একতার বাজিয়ে উঠলো গিটারের…

[ মার্জান, জারিফা,স্নেহা অবাক হয়ে দূর থেকে চেয়েই আছে ]

_________________________________

কানের ধারে গিটারের সাউন্ড ভেসে আসলো, রাহুল অবাক হয়ে থমকে দাঁড়িয়ে পড়ে,…এখন আরো জোড়ে আসছে… সাউন্ড, বাজতেই চলছে গিটার…

________________________________

স্নেহা : ♪♪ তেরে ইশকেনে্ সা্থিয়া ? মেরা্ হালে কি্য়া কারদি্য়া♪♪ ♪♪ তেরে ইশকেনে্ সা্থিয়া ~~ মেরা্ হালে্ কিয়া্ কারদি্য়া ♪♪

[ রাহুল অবাক হয়ে ধীরে ধীরে পাশের ক্লাসে গিয়ে একটি বেঞ্চে বসে পড়লো হাত-পা কিছুই চলছে না সব থমকে গেলো স্নেহার গানের ভয়েস্ শুনে,….কিছু জুনিয়র ছেলে বসে আড্ডা দিচ্ছিলো রাহুলকে দেখে তারা বেড়িয়ে পড়ে..]

স্নেহা: ♪♪ ? নে্নোসে্ বেহে্তে্ ইশকো্কি্ ধা্রোমে্~~
হামনে্ তুঝ্কো্ দেখা চান্দে্ সি্থা্রোমে্

মে্রি হাকি্ আগ্নিমে্ পাল্ পাল্ তা্পথিহে্..
আবতো্ সা্সে্ তে্রি্ মালা ঝাপথি্ হে্

[ চোখ লাল হয়ে পানি জমে এসেছে রাহুলের ঢোক গিলে আবার কন্ট্রোল হয়ে নিলো ]

স্নেহা : ?♪♪ তে্রে লি্য়ে তে্~~রে লি্য়ে~~~

তে্রে লি্য়ে~~ ইস্ দুনি্য়াকা্ হা্র সি্থা্ম হে্ গাওয়া্রা সা্নাম ওও ও ও ..হা্র সি্থাম হে্ গাওয়া্রা সা্নাম

রাহুল : [ মনে মনে ] স্নেহা! গিটার, গান…How! [ অবাক হয়ে কান পেতে রইলো রাহুল ]

স্নেহা : ?♪♪ তে~~রে নাম হামনে্ কিয়া্হে জি্বান আপনা্ সা্রা সা্নাম ও ও জি্বান আপনা্ সা্রা সা্নাম…

পি্য়ারে্ বহো্দ~~কা্রতে্হে তু্মসে্~~ ইশকে্ হে্ তু হামা্রা সা্নাম ওও ও ও ইশকে্ হে্ তু হামা্রা সা্নাম

রাহুল : [ মনে মনে একটু হেসে ] I knew that sneha! I knew that!

চলবে….

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here