কালো মেয়ের প্রতি অবহেলা পার্ট-০৪

0
456

কালো মেয়ের প্রতি অবহেলা পার্ট-০৪
লেখা-jannatul ferdous.

{দেহের সৌন্দর্য একদিন হারিয়ে যাবে,মনের সৌন্দর্য অাজীবন থাকবে}

অাজকে প্রথম দিন কলেজে যাবে রিত্ত অার শিমু. জিহাদ দুইজনকে কলেজে দিয়ে অাসবে.কলেজে যেতেই সোহানী জিহাদের সামনে এসে দাঁড়ালো.

জিহাদ-সোহানী তুমি এখানে?

সোহানী-তুমি কখন কী করো তার সবটাই অামি জানি.মেয়েটা কে?

জিহাদ-অামার বোন রিত্ত.

সোহানী-ও কে??(শিমুর দিকে ইশারা করে)

জিহাদ-ও একটা ভূত.গ্রাম থেকে এসেছে.

সোহানি-হ্যালো(কাকে জানি কল দিলো সোহানী)

ছেলেটা-জ্বি ম্যাডাম

সোহানী-তুমি অামাকে বললে জিহাদ কার সাথে জানি ঘুরে বেড়াচ্ছে।সঠিক না জেনে কোনো নিউজ অামাকে দিবে না,অার একবার এরকম নিউজ দিলে তোমার চাকরি শেষ মাইন্ড ইট.

ছেলেটা-ওকে ম্যাডাম।

সোহানী-জিহাদ চলো.

শুভ্র-কোথায় যাবে?

সোহানী-এত প্রশ্ন করো কেনো?তুমি তো অামাকে ভালেবাসো অার অামাকে বিশ্বাস করতে পারো না।

জিহাদ-কে বলছে বিশ্বাস করি না,নিশ্চয়ই যাবো.রিত্ত ক্লাশে যা.চলো সোহানী.

সোহানী অার জিহাদ চলে গেলো.

রিত্ত-এটা নাকি অামার ভাবি হবে।পাপা শুনলে তোমার হাত পা সব ভাঙ্গবে ভাইয়া।

শিমু-কি সব বলতেছো,তোমার ভাইয়া ওই মেয়েটাকে ভালোবাসে অার দেখতে তো ভালোই।

রিত্ত-হুম ভাইয়ার পিছনে সিক্যুরিটি দিয়ে রাখছে,হি হি হি.

(শিমুও হেসে উঠলো)

রিত্ত-ওকে চলো ক্লাশে যাবো.

ক্লাশে এসে বসতেই—–

রোহান-এটা কাকে নিয়ে অাসলি রিত্ত.

রিত্ত-ওর সম্পর্কে কিছু বলবি না রোহান।

রোহান-সবার দিকে দেখ,ওর জন্য তোর সাথেও কেউ কথা বলছে না।

রিত্ত-না বললে অামি কী করবো?

রোহান-দেখ রিত্ত,তুই অামাদের ফ্রেন্ড.

রিত্ত-অার শিমুও অামার ফ্রেন্ড।

রোহান-দুইদিনের ফ্রেন্ডের জন্য অামাদের ভুলে থেকে অালাদা হবি?

রিত্ত-তোদের কী কেউ অালাদা হতে বলছে?

রোহান-চল অামাদের সাথে.

রিত্ত-অামি যাবো না শিমুকে ছেড়ে.

হঠাৎ করেই রিত্তের সব ফ্রেন্ড এসে রিত্তকে টেনে নিয়ে চলে গেলো।ওরা কেউই নিয়মিত ক্লাশ করে না,বেশির সময়ই অাড্ডা দিয়ে কাটিয়ে দেই.তাই অাড্ডা দিতে চলে গেলো ওরা.
শিমু একা একা ক্লাশ করে অার সবার কাছেই অনেকটা অপমানিত হয়.কেউই কথা বললো না শিমুর সাথে.

(শিমু ক্লাশ থেকে বের হতেই রিত্ত চলে অাসলো)

রিত্ত-ক্লাশ কেমন হলো?

শিমু-ভালোই.

রিত্ত-ওকে চলো বাসায় যাবো।

শিমু-ওকে চলো.

(এভাবেই প্রায় প্রতিটা দিন সবার কাছেই অপমানিত হয় শিমু.রিত্ত ক্লাশে থাকলে কেউই কিছু বলার সাহস পায় না।কিন্তু রিত্ত ক্লাশ করে না তেমন)

হঠাৎ করেই ক্লাশে একটা নতুন মেয়ে অাসলো.

স্যার-গুড মর্নিং মাই ডেয়ার স্টুডেন্টস.

স্টুডেন্ট-গুড মর্নিং স্যার.

স্যার-অামাদের কলেজের নিউ স্টুডেন্ট নুসরাত জাহান পুষ্প.অারেকটা কলেজ থেকে ট্রান্সফার হয়ে এখানে এসেছে.পুষ্প যাও ক্লাশ জয়েন্ট করো।

পুষ্প-ওকে স্যার।

(পুষ্প গিয়ে শিমুর পাশে বসতে গেলো)

রোহিনী-অারে এটা কী করছো?ওর দিকে তাকিয়ে দেখেছো?

পুষ্প-অামি ওর পাশে বসলে তোমার সমস্যা কী?

রোহিনী-ক্ষেত মার্কা মেয়ে,তার উপর কালো।অার তোমার দিকে তাকিয়ে দেখো।

পুষ্প-অামার ব্যাপারে কেউ নাক গলাবে তা অামার একদম পছন্দ না।তাই অামি যা খুশি তাই করবো, তোমাকে কেউ ভাবতে বলে নাই।অামি এখানেই বসবো. অার বেশি কিছু না বলে যাও এখান থেকে(অনেকটা রেগে)

(বলেই শিমুর পাশে বসে গেলো।পুষ্প যেমন সুন্দরী তেমনি জেদি একটা মেয়ে।পুষ্পের রাগ দেখে শিমু ভয় পেয়ে গেলো)

পুষ্প-এই তোমার নাম কী?

শিমু-অামি কিছু করি নাই,অামাকে বকো না.

পুষ্প-তোমাকে কে বকলো। নাম বলো.

শিমু-শি..শ…শিমু.

পুষ্প-এবার থেকে অামার সাথে থাকবে,অামরা ফ্রেন্ড কেমন?

শিমু-অাঅামি তোতোমার….

পুষ্প-ফ্রেন্ড হবে না?না হলে তোর গায়ে তেলাপোকা ছেড়ে দিবো.

শিমু-না না অামি অাপনার সব কথা শুনবো।

পুষ্প-অাপনি করে বলো কেনো?অামরা ফ্রেন্ড তুই বল।

শিমু-তু..তু..তুই!!!!!!

পুষ্প-অারে এত ভয় পাইছ না।অামরা তো ফ্রেন্ড.

শিমু-অামি তো কাউকে কোনোদিন ফ্রেন্ড বানাইনি।

পুষ্প-অামাকে বানাবি।

শিমু-অামি পারবো না।

পুষ্প-অার একবার পারবো না বললে খুব খারাপ হবে।

শিমু-ঠিক অাছে.

পুষ্প-তাহলে ফ্রেন্ড তো?

শিমু-ঠিক অাছে।

পুষ্প-তাহলে তুই করে বল।

শিমু- অামি তু……

পুষ্প-বলবি?(ধমক দিয়ে)

শিমু-ওকে তুই.

পুষ্প-গুড গার্ল.

(ক্লাশ শেষ হতেই শিমু,পুষ্প একসাথে বের হলো)

পুষ্প-শুন কালকে অামার পাশে বসবি।অার কেউ কিছু বললো নাক পাটিয়ে দিবো।

শিমু-তুই দেখি রিত্তের মত।

পুষ্প-রিত্ত কে?

শিমু-ওই তো রিত্ত চলে এসেছে।

রিত্ত-হাই

পুষ্প-হ্যালো।

রিত্ত-শুনছি কলেজে নিউ স্টুডেন্ট অাসছে।তাহলে তুমিই নুসরাত।

পুষ্প-নো ফ্রেন্ডদের কাছে অামি পুষ্প.

শিমু-তাহলে তোমার নতুন ফ্রেন্ড হলো শিমু।

শিমু-হুম।

রিত্ত-খুব ভালো।চলো বাসায় যেতে হবে।

শিমু-তাহলে অামরা অাসি পুষ্প.

পুষ্প-ঠিক অাছে যা কালকে দেখা হবে।

রিত্ত-তোমার সাথে কালকে অনেক কথা বলবো পুষ্প.

পুষ্প-ওকে টাটা.

রিত্ত-বাই.

________________

সেদিন রাতে,,,,,,

অনেক রাত হওয়াতে সবাই যার যার মত ঘুমিয়ে গেলো.শুধু শিমু জেগে অাছে.
রিত্ত এখন অার রাতে বের হয় না তাই রিত্ত ঘুমিয়ে পরলো.নিজের পড়ালেখাতে ব্যস্ত থাকায় শিমু তখনো ঘুমাইনি.

দরজা ধাক্কা দিতেই শিমু গিয়ে দরজা খুললো.খুলতেই……….

চলবে………

বি.দ্র.-দয়া করে ভুল ত্রুটি ক্ষমা করবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here