হারিয়ে যাওয়া পথ খুঁজে পাওয়া part 23

0
409
হারিয়ে যাওয়া পথ খুঁজে পাওয়া part 23

 

হারিয়ে যাওয়া পথ খুঁজে পাওয়া part 23

লেখা –সুলতানা ইতি

পরদিন আনুশা অফিসে বসে বসে ভাবছে,,এতো লেইট হচ্ছে কেনো অন্নির আসতে ওকি তা হলে আর আসবে না,এই সময়, হুট করে অন্নির আগমন

সাথে তানিম ও আছে,
আনুশা: ও অন্নি তুই এসেছিস,এই ফাইল গুলো একটু দেখতো। আমি একটু সাইডে কাজ দেখতে যাবো

অন্নি: দোস্ত আমি না কয়েকদিন অফিস করতে পারবো না

আনুশা: কেনো আপনার কি হইছে, অফিস করবেন না কেনো

অন্নি: আসলে বিয়ের আগে তানিমকে ভালো করে বুঝে নিতে চাই তাই ওর সাথে কিছুটা টাইম ওয়েস্ট করতে চাই

আনুশা: কয়দিন আসতে পারবেন্না

অন্নি: আমি চাই এক সাথে বিয়ে হানিমুন সেরে অফিস জয়েন করতে,

আনুশা: ভ্র কুঁচকে অন্নির দিকে তাকালো। মিস অন্নি এটা কোন প্লে গ্রাউন্ড নয় যে আপনার ইচ্ছে মতো, আপনি যাবেন আর আপনি ফিরে আসবেন এটা কাজের জায়গা,,এখানে এতো বাহানা চলবে না

অন্নি: দেখ আনুশা আমি তো নিজের ইচ্ছে যাচ্ছি না,তোর থেকে অনুমতি নিয়ে যাবো,,

আনুশা: তো আমি অনুমতি দিচ্ছি না,মন চাইলে রিজাইন দিয়ে চলে যেতে পারেন,, আমি আপনার জায়গাতে অন্য কাউকে এপয়েন্ট করবো

অন্নি: আনু তুই এটা আমাকে বলতে পারলি, তুই যখন দেশে ছিলি না তোর কম্পানির জন্য আমি কি না করেছি,রাত জেগে এতো এতো কাজ করেছি,,
তোর একার জন্য কম্পানিটা আজকের জায়গাতে আসেনি,,আমি ও অনেক করেছি আর সেই তুই কি না,আমাকে,আমি শুধু কয়েক মাসের জন্য কাজের থেকে ছুটি চাইলাম,
বিয়ের পর তানিম আবার ইতালিতে চলে যাবে তখন আমি একা হয়ে যাবো, তখন তো আবার জব টাতে জয়েন করবো, আমার তো এতোটুকু চাওয়া থাকতেই পারে

আনুশা: বুঝলাম তুই এই কম্পানির জন্য অনেক কষ্ট করেছিস,কিন্তু এটা ভুলে যাস না এইটা আমার কম্পানি,আজকের জায়গাতে এনে দাড় করাতে আমার প্রচুর শ্রম দিতে হয়েছে, তুই যে এতো গুলো মাস থাকবি না, তোর কাজ গুলো দেখবে কে বল,,আমি একা এতো সব দেখবো কি করে, তুই তো জানিস ঘর,এন্ড অফিস দুইটাই আমাকে সামলাতে হয়,ঐ দিকে মামাকে ডাক্তার দেখাতে হবে,সে দিকে দৌড়া দৌড়ি করতে হয় আমাকে,আর এদিকে এখন অফিস, কি করবো?

অন্নি: আমি সব বুঝতে পারছি,আচ্ছা ফাইন আমার কাজ গুলো না হয় ম্যানেজার তানভীর করে দিবে

আনুশা: হোয়াট, তানভীর। নো য়ে এর থেকে ভালো আমি একাই সব পারবো,

অন্নি: সে তুই পারবি এটা আমি জানি কিন্তু তবুও এতো কাজ এক সাথে করে তুই অসুস্থ হয়ে পড়বি, এমন সময় তানিম এলো তানভীর কে নিয়ে

আনুশার ক্যাবিনে,দুটি মানুষই আনুশার কাছে খুব বিরক্তিকর,

আনুশা: এরা এখানে কি করছে,,কেনো এসেছে এরা

অন্নি: আমি ওদের ডেকেছি

আনুশা: তুই কেনো

অন্নি: আমি থাকলে তোর কি কি কাজ আমি করি সে গুলো তানভীর কে বুঝিয়ে দিতে আজ থেকে যতো দিন আমি আসবো না তত দিন, তানভীর আমার হয়ে কাজ গুলো করবে

আনুশা: তুই আমার বেষ্ট ফ্রেন্ড এর ফায়দা নিচ্ছিস তাই না

অন্নি: তোর ভুল ধারনা এই টা,আমি শুধু তোর যেন কষ্ট কম হয় সেই ব্যাবস্থা করছি

আনুশা: তোকে আমার কথা ভাবতে হবে না, আমি নিজেই নিজের কথা ভাবতে পারি

তানভীর : ম্যাম আপনার কি মনে হচ্ছে আমি অন্নি ম্যামের কাজ গুলা পারবো না আপনি একবার দায়িত্ব দিয়ে দেখুন সব কাজ একদম ঠিক ঠাক ভাবে পাবেন

অন্নি: এই দেখ ও পারবে

আনুশা: কিন্তু

অন্নি: আমি আর কিচ্ছু শুনতে চাই না,আমার হয়ে ও তোর কাজ গুলো দেখবে এটা আমি বেছে দিলাম ওকে

এই বলে অন্নি তানিম কে নিয়ে বেরিয়ে গেলো

তানভীর : ম্যাম এখন কি করতে হবে আমাকে

আনুশা: কিচ্ছু করতে হবে না আপনি যান

তানভীর : টেবিলের দিকে তাকিয়ে দেখলো অনেক গুলি ফাইল পড়ে আছে,,ম্যাম আমি এই ফাইল গুলি নিয়ে যাচ্ছি,ফাইল গুলি দেখে দিয়ে যাবো

আনুশা: কিছু বল্লো না,,শেষ অন্নি কি না আমার সাথে এমন করলো,এই জন্যই কাউকে বেশি সান্স দিতে নেই,,নইলে পরে গলায় কাটা হয়ে আটকে থাকে,,

তানভীর : ফাইল গুলি দেখছি আর আনুশার ক্যাবিনের দিকে চোখ রাখছি। কি করে দেখার জন্য,,অন্নি তো বলে দিয়েছে তানভীর ভাই আনুর শুধু সামনে নয় পিছনে ও কাঠালের আঠার মতো লেগে থাকবেন,???

কিন্তু সে তো বলেই খালাস ও তো আর জানে না ওর বান্ধুবী একটা শাঁকচুন্নি

যাক ফাইল গুলো দেখা শেষ, যাই ম্যাম কে দিয়ে আসি, তানভীর আনুশার ক্যাবিনের দিকে তাকাতেই দেখলো আনুশা কোথায় ও যাচ্ছে
তানভীর তাড়া তাড়ি ক্যাবিন থেকে বের হয়ে, ম্যামম কোথায় যাচ্ছেন

আনুশা: ওহ নো এখন আমি কোথায় যাবো সেটা ও আপনাকে বলে যেতে হবে,,

তানভীর : না ম্যাম তা কেনো আসলে কয়েক দিনের জন্য হলে তো আমি আপনার পিএ, তাই আর কি

আনুশা: উফফ এর সাথে কথা না বাড়ানোই ভালো, আমি সাইডে কাজ দেখতে যাচ্ছি

তানভীর : আমি যাবো

আনুশা: আপনাকে আমার সাথে যেতে হবে না,

তানভীর : আমি তো যাবোই

আনুশা: এই অন্নি টা আমার পিছনে কোন পাগল লাগিয়ে দিলো
ঠিক আছে আসুন।
তানভীর : চলুন ম্যাম,,

সাইডে কাজ দেখে ফিরতে ফিরতে অনেক বেলা হয়ে গেলো তানভীর কিছুতেই আনুশা কে এই পড়ন্ত বিকালে একা ছাড়বে না,তাই আনুশা আর তানভীর এক সাথেই আসছিলো

তানভীর : আনুশা একটা কথা বলি

আনুশা: একটা কেনো এতক্ষন তো বক বক করে আমার মাথা খেয়েছেন,তার পরে ও যদি আরেকটা কথা থেকে যায় তা হলে বলুন আমি শুনছি

তানভীর : না শুধু একটাই বলবো এর পর চুপ থাকবো কেমন,,

আনুশা:???

তানভীর : যাই হোক কথা টা হচ্ছে এই যে তুমি আমাকে আপনি আপনি করে বলো,,তোমার কি একবার ও মনে হয়না তুমি আমাকে তোমার দাদার বয়সের মুরুব্বী বানিয়ে পেলছো,
যেখানে আমরা এক সাথে পড়া শুনা করেছি,,সেখানে তো তুমি করে বলার কথা,আনুশা প্লিজ দয়া করো তুমি আমাকে আর যা কিছু বলো না কেনো মুরুব্বী বানিয়ে দিও না

আনুশা: তানভীর ছেলেটা সত্যি খুব মজার,ও সাথে থাকলে মন খারাপ করে থাকার কোন উপায় নেই,,নাহ ওকে বুঝতে দেয়া যাবে না,ও কে দূরে রেখেছি ও দূরেই থাক,,, এমন সময় গাড়িটা ঝোরে একটা ধাক্কা খেয়ে ব্রেক করে

আনুশা: ড্রাইভার কি হয়েছে এক্সিডেন্ট করে বসলে তো আবার

ড্রাইভার: না ম্যাম তেমন কিছু হয়নি আসলে একটা লোক উইল চেয়ারে বসে একা একা রাস্তা পার হচ্ছিলো আর আমি খেয়াল করিনি হঠ্যাৎ ই সামনে এসে যাই

তানভীর : তো বসে আছো কেনো গিয়ে দেখো লোকটা ঠিক আছে কি না

আনুশা: ড্রাইভার আপনি আপনার জায়গাতে বসুন এক্ষনি লোক জমা হবে তার পর কি হয় বলা যায় না,আমি দেখছি

তানভীর : চলো আমি ও যাবো তোমার সাথে,

তানভীর আর আনুশা গাড়ি থেকে বের হলো লোকটা গাড়ির ধাক্কা খেয়ে উইল চেয়ার থেকে পড়ে যায় আর পাব্লিক দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখছে, লোকটাকে উঠানোর কোন চেষ্টাই করছে না

তানভীর : আনুশা আমি লোকটা কে উঠাচ্ছি,,তানভীর লোকটাকে উঠে বসালো গাড়িতে তেমন একটা লাগেনি,একটু ব্যাথা পেয়েছে

আনুশা এতোক্ষন পড়ে যাওয়া লোকটার মুখের দিকে তাকায়নি,তানভীর ওকে বসানোর পরেই নজর পড়ে আনুশার

আনুশা: লোকটার মুখের দিকে তাকিয়ে দু পা পিছিয়ে গেলো,,নিজের চোখ কে যে বিশ্বাস করতে পারছি না আমি,এ আমি কাকে দেখছি,,নিজের অজান্তেই চোখ দিয়ে পানি গড়িয়ে পড়লো, নাহ এ কি করে সম্ভব, এ হতেই পারে না

তানভীর আনুশার এই অবস্থা দেখে আনুশার কাছে এসে বল্লো
তোমার কি হয়েছে আনুশা তোমাকে এমন দেখাচ্ছে কেনো,

তানভীরের মুখে আনুশা নামটা শুনে উইল চেয়ারে বসা লোকটা আনুশার দিকে তাকালো, তাকিয়ে সে আর এক মুহুর্ত না দাঁড়িয়ে উইল চেয়ার ঠেলে সেখান থেকে চলে আসার চেষ্টা করে,আনুশা ততক্ষনে নিজেকে সামলে নেয়,

তানভীর : তোমার কি হয়েছে আনুশা ডাক্তার ডাকবো,চলো তোমাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাই

আনুশা: আমি ঠিক আছি,,এই বলে তানভীর কে সরিয়ে দেয়,,
নিহাল যেওনা দাড়াও এই বলে আনুশা দৌড়ে গিয়ে নিহাল এর পথ আগলে দাঁড়ায়(উইল চেয়ারে বসা লোকটা আর কেউ নয় নিহাল,যার হাতে হাত রেখে সারা জীবন কাটানোর কথা ছিলো আনুশার কিন্তু সেদিন নিহাল সেই সুযোগ আনুশাকে দেয়নি)

নিহাল: (আজ এতো গুলো বছর পর আনুশাকে দেখবো ভাবতেই পারিনি,তাও আবার একদম নতুন রুপে পাশের লোকটা নিশ্চয়ই ওর বর,আমি তো কষ্ট ছাড়া কিছুই দিইনি হয় তো লোকটা তাকে সুখে রেখেছে,,)

আনুশা: নিহাল চুপ করে আছো কেনো তোমার এই অবস্থা কি করে হলো,বলো আমাকে

নিহাল:( আনুশা তোমাকে বলার মতো কোন ভাষা আমার নেই সেদিন নিজের ইগো আর নিজের জেদের কারনে তোমার উপর অবিছার করেছি,আমাকে ক্ষমা করতে পেরেছো কি তুমি)

আনুশা: নিহাল চুপ করে থেকো না কথা বলো প্লিজ নিহাল, মা কোথায় তোমার এই অবস্থা হলো কি করে

নিহাল:( কি বলবো তোমাকে তুমি কি সুন্দর এখন ও আমার মাকে মা বলে ডাকছো আর আমি কি না)নাহ আমি আনুশার কোন প্রশ্নের উত্তর দিবো না,, আমাকে যেতে দাও আনুশা,, বাধা দিও না

আনুশা: সেদিন ও তুমি তোমার নিজের ইগোকে জিতিয়ে দিলে, আজও কি তোমার ইগোর কারনেই আমার সাথে কথা বলবে না।

নিহাল: অপমান করছো,ইগো দেখানোর মতো আমার আছে কি বলো, আজ দুই বছর এই উইল চেয়ার আমার চলার সংগি,,

আনুশা: আমি সেটাই জানতে চাইছি এমন হলো কি করে,

নিহাল:,,,,,,,,,,,,,,,,

আনুশা: ওকে ফাইন বলবে না তো,,আমি ও শুনবো,এইটা তো বলবে তুমি কোথায় থাকো, তোমাকে পৌছে দিয়ে আসি

নিহাল: না আমি কোথায় থাকি এটা আনুশা কে বলা যাবে না,,,,,,, নাহ আমি একাই যেতে পারবো

আনুশা: তুমি যদি ভেবে থাকো, তুমি চুপ করে থেকে পার পেয়ে যাবে আর আমি তোমাকে একা ছেড়ে দিবো তা হলে তুমি ভুল ভাবছো, আমি তোমাকে এখান থেকে একা যেতেই দিবো না

নিহাল: পা.শে. পাশেই একটা আশ্রম আছে সেখানেই থাকি

আনুশা: হোয়াট আশ্রম তুমি এখন আশ্রমে থাকো, কিন্তু কেনো তোমার বাড়ির কি হলো

নিহাল: আনুশা এতো প্রশ্ন করো না

আনুশা: এতক্ষনে নিহাল এর হাতের দিকে নজর পড়লো  পড়ে গিয়ে কেটে গেছে আগে চলো পাশে ফার্মেসী থেকে কাটা জায়গাতে ওষুধ লাগিয়ে আনি

তানভীর এতোক্ষন দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ওদের কথা শুনছিলো আর বুঝার চেষ্টা করছিলো,বাট কিছুই বুঝতে পারেনি

আনুশা তানভীরের দিকে তাকিয়ে বল্লো আপনি বাসায় যান আমার ফিরতে লেইট হবে

তানভীর : প্রব্লেম নেই আমি ও তোমার সাথে যাবো, রাত হলে কিচ্ছু হবে না

নিহাল:( আনুশাকে একবার জিজ্ঞাস করে দেখবো এই লোকটা তার কে, নাহ থাক কোন মুখে জিজ্ঞাস করবো,আমার তো সেই মুখ নেই)

তানভীর আর আনুশা নিহালকে ফার্মেসিতে নিয়ে গেলো কাটা জায়গাতে ওষুধ লাগিয়ে দুইজনে নিহাল কে আশ্রমে দিতে এলো,

আনুশা: মিঃ তানভীর আপনি উনাকে শুইয়ে দিয়ে আসুন আমার একটু কাজ আছে এখানে

তানভীর : ওকে

এই পাকে আনুশা আশ্রমের লোকেদের কাছে থেকে নিহাল এর ব্যাপারে জানতে চাইলো ও কি করে এখানে এলো,
কিন্তু কেউ কিছু বলতে পারলো না শুধু বল্লো দুই বছর আগে রোড এক্সিডেন্ট করে তখন ওকে ডাক্তার এর কাছে নেয়া হয়,

এক্সিডেন্ট হয়েছিলো খুব গুরুতর, আর সেই এক্সিডেন্ট এ ওর পায়ে অনেক আঘাত পাওয়া তে উন্নত চিকিৎসার অভাবে সে হাটতে পারছে না
,ওর বাড়ির ঠিকানা ও কাউকে বলেনি,

তখন হাসপাতাল এর কর্তি পক্ষ তাকে এই আশ্রমে রেখে যেতে বলে সেই থেকে ও এখানে আছে

এমন সময় তানভীর এলো,আনুশা চলো এই বার বাড়ি যাই উনাকে রেখে এসেছি

আনুশা: হুম চলুন, গাড়িতে বসে আর কেউ কোন কথা বলেনি,

বাসায় এসে আনুশা কারো সাথে কোন কথা না বলেই রুমের দরজা বন্ধ করে দেয়
যাতে কেউ ওকে ডিস্টার্ব না করে,রুমে বসে ভাবছে পেলে আসা দিন গুলোর কথা,নিহাল এর কথা

to be continue

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here