একরাতেরবউ পর্ব ৪ 

একরাতেরবউ পর্ব ৪
Written by Avantika Anha
আরাভ জানে না সে কেন আনহাকে ফোন দিলো। আরাভের প্রচুর রাগ উঠলো। দেয়ালে কয়েকবার হাত দিয়ে বাড়ি মারলো। হঠাৎ আরাভের ফোনে এক কল আসলো,
আরাভ- হ্যালো কে বলছেন?
জান্নাত- আমি বেবি।
আরাভ- মানে?
জান্নাত- এতো সহজে ভুলে গেলা? তোমার প্রথম ভালোবাসা জান্নাতঙ
আরাভ- না বেবি তোমাকে কেমনে ভুলি। তোমার সাথে তো আমার হোটেলের সম্পর্ক।
জান্নাত- হাহা যাই হোক। তা বাড়ি অব্দি আমিই আনবো।
আরাভ- তাই?
জান্নাত- অবশ্যই।
আরাভ- তা বেবি তোমার রাহুলের খবর কি? সেদিন হোটেলে গেছিলা যে?
জান্নাত- মানে? আমি কোথাও যাই নি। (হকচকিয়ে)
আরাভ- বেবি আমি যাদের যা-ই করি পরে ঠিক খোঁজ রাখি ওকে।
জান্নাত- ফাইন। ফার্স্ট তো তুমিই নিয়েছিলে এখন কেনো অস্বীকার করো। তুমিও তো কতো মেয়ের সাথেই। প্লিজ আমাকে ফিরিয়ে নেও।
আরাভ- আমি যা ছেড়ে দেই একেবারে ছাড়ি।
জান্নাত- প্লিজ। (কিছুটা কান্নার সাথে)
আরাভ- গলি না আমি। আমি একটা অমানুষ।
.
এটুকু বলে আরাভ কল কেটে দিলো। আরাভের এসবে যায় আসে না। আরাভের চিন্তায় কোনো কিছুই নাই। সব শেষে এখনো তার চিন্তায় আনহা রয়েছে। সে ভিতরে ভিতরে এখনো অনুতপ্ত। সে ঠিক করলো সামনে একদিন আনহার সাথে দেখা করবে। ও আনহাকে কিছু দিয়ে হলেও অনুতাপের হাত থেকে বাঁচতে চায়। আরাভ শুয়ে পড়লো। কিন্তু ওর চোখে ঘুম নাই। আছে শুধু অনুতাপ।
.
পরেরদিন,
ঘুম থেকে উঠে কিছুটা ভুলে গেলেও ব্যাথা সব মনে করিয়ে দিলো। কিছু সময় কিছু জিনিস হয়তো চাইলেও ভুলা যায় না। আমিও ভুলতে পারছি না। যে আমার সাথে কি কি হয়েছে। চোখে পানি চলে আসলো। কিন্তু পরোক্ষণেই প্রেয়সি ঘরে আসলো।
.
প্রেয়সি- হ্যাপি বার্থডে আপু। বাইরে আয় আম্মু ডাকে।
আমি- হুম এগিয়ে যা আমি আসছি।
.
প্রেয়সি চলে গেলো। যদিও আমি ভুলে গেছিলাম আমার জন্মদিন। আমি নিজেকে একা রাখতে চাচ্ছিলাম। তাই ঠিক করে ছিলাম বাহানা করবো অসুস্থতার। যেই‌ ভাবা সেই কাজ। বের হয়ে আম্মুকে বললাম মাথা ব্যাথা ভালো লাগছে না। সে বললো যেন রেস্ট নেই। সবাই ভাবলো একটু অসুখ। কিন্তু কেউ বুঝছিলো না এটা শারীরিক অসুখ না, মানসিক অসুখ।
.
ঘরে আসতেই মিমির ফোন,
মিমি- হ্যাপি বার্থডে বেবি।
আমি- থেংকু। (স্বাভাবিক ভাবে)
মিমি- কি রে এক্সাইটেড না?
আমি- না।
মিমি- কিছু হয়েছে কি?
আমি- না।
মিমি- জ্বলদি আয়। সবাই তোর ট্রিটের অপেক্ষায়।
আমি- আমি অসুস্থ।
মিমি- ওরে কিপটু রে। ওকে আমি আসতেছি।
আমি- না। (কারণ ও আসলে মা জেনে যাবে আমি গতদিন মিমির সাথে ছিলাম না।)
মিমি- এখন না কেনো?
আমি- আসতেছি রে। রেডি হচ্ছিলাম। (মিথ্যা বললাম)
মিমি- জানি তো।
আমি- হুমমম তোরা স্কাই তে আয়। আমি আসছি।
মিমি- ওকে।
.
অগত্যা রেডি হতেই হলো। রেস্টুরেন্টে সবাই কথা বললাম অনেক বিষয়ে। যদিও প্রথমে গুরুত্ব দেই‌নি। কিন্তু পরে ওরা সন্দেহ করছিলো। কারণ আমি চুপ থাকার মেয়ে না। তাই তাদের সাথে বকবক করলাম। তারপর সবাই বের হয়ে শহরের বাইরে এক জায়গায় গেলাম। যেখানে মেলা লেগেছে। সেখানেও ঘুরাঘুরি শেষে‌ আমি আর মিমি বাড়ি ফিরছিলাম একসাথে। রাস্তায় কয়েকটা ছেলে বাজে মন্তব্য করছিলো। আমি আর‌ মিমি চুপচাপ হেটে যাচ্ছিলাম। পিছন থেকে কে জানি ওদের কথার জবাব দিলাম। তাকিয়ে দেখি আরাভ। ওকে দেখতেই রাগ উঠে গেলো। কিন্তু মিমি পাশে ছিলো। আরাভ ওদের কিছু কথা বললো আর‌ ওরা সরি বলে চলে‌ গেলো।
.
মিমি- দেখ ভাইয়াটা অনেক ভালো।
আমি- হাহা। ওসব নাটক।
মিমি- তুই চিনিস নাকি? এটাই কি এংরি ম্যান?
আমি- হুমম। (মিমিকে সব বলতাম। আরাভের সাথে কয়েক পরিচয়ে ওর রাগ দেখে তার নাম রেখেছিলাম এংরি ম্যান)
মিমি- ওয়াও সেই তো।
আমি- বাদ দে।
.
.
আমি আর মিমি আবার হাঁটা শুরু করলাম। পিছন থেকে,
আরাভ- আনহা।
.
আমি পিছনে ঘুরলাম না। এগিয়ে যাচ্ছিলাম।
আরাভ আরও একবার ডাক দিলো। এখনো জবাব না দিলে মিমি একটু বেশি চিন্তা করবে। হয়তো সন্দেহ করে বসবে। তাই জবাব দিলাম,
আমি- জ্বী বলুন।
আরাভ- এদিকে‌ এসেছো যে?
আমি- এমনি ঘুরতে।
আরাভ- এতো দূরে কোনো বিশেষ দিন আজ?
আমি- না।
আরাভ- মিমি আপু আপনি বলেন আজ কি বিশেষ কিছু?
মিমি- হ্যা আজ আনহার জন্মদিন। (মজা করে বলে দিলো সত্যি)
আরাভ- হ্যাপি বার্থডে।
মিমি- ভাইয়া আপনি আমাকে চিনলেন কিভাবে?
আরাভ- আনহার সাথে কয়েকবার দেখা হলেও ও অনেকবার আপনার কথা বলেছে।
মিমি- ওয় তো ঢংগি বকবক করে খালি।
আরাভ- সত্যিই তাই পাগলি টাইপ।
মিমি- জ্বী ভাইয়া। ও নিজেও অনেকবার আপনার কথা বলেছে।
আরাভ- তাই নাকি আনহা?
.
আমি আরাভের দিকে তাকালাম। ওর চাহনিতেও আমার বাজে লাগছে।
আমি- মিমি তোর হলো? চল বাড়ি যাবো দেরি হচ্ছে।
মিমি- এতো জ্বলদি গিয়ে কি করবো?
আমি- মুড়ি খাবি চল।
মিমি- আরে রাগিস কেন?
আরাভ- আনহা আমাকে ট্রিট দিবা না?
আমি- না আমার টাকা নাই। আমি ফকির। হইছে। মিমির বাচ্চা চল।
আরাভ- এটা তো হবে না। ট্রিট তো আমিও চাই। কি বলেন মিমি আপু?
মিমি- জ্বী ভাইয়া অবশ্যই।
আমি- তুই আমার বান্ধুবী নাকি শত্রু?
মিমি- ওকে সরি। ভাইয়া আমাদের যেতে হবে বাড়িতে কাজ আছে।
আরাভ- ওকে চলেন এগিয়ে দেই। নাহয় সামনে আরো কোনো ছেলে জালাতে পারে।
মিমি- আচ্ছা চলুন ধন্যবাদ।
.
আমরা কিছুদূর হাটলাম। মিমি আর আরাভ একটু আধতু কথা বললো। যদিও আমি জবাব দিলাম না।
.
হঠাৎ আইসক্রিম দেখে,
মিমি- আনহা আইসক্রিম খাওয়া।
আমি- টাকা নাই।
মিমি- ওকে আমি খাওয়াচ্ছি চল।
আমি- ওকে।
মিমি- কি ফ্লেভার খাবি?
আমি- চকলেট।
মিমি- ভাইয়া আপনি?
আরাভ- আমি আইসক্রিম খাই না।
মিমি- আরে একটা খান।
আমি- বাদ দে শয়তানের ঘি হজম হয় না।
মিমি- এভাবে বলতে হয় না।
আমি- আরে না না আরাভ ভাইয়া ভালো মাইন্ড করে না। তাই না মি. আরাভ? (কিছুটা বাঁশ মারতেই বললাম)
আরাভ- জ্বী। (যদিও রাগ করেছি। কিন্তু কিছু বললাম না)
.
মিমি আইসক্রিম আনতে যেতেই.
আরাভ- বেশি বাড়তেছো আনহা।
আমি- আপনার কি প্রবলেম আর‌ কেনো এসেছেন? আর কি ক্ষতি করার বাকী?
আরাভ- আমি কোনো ক্ষতি করতে আসি নি। তোমার বার্থডে উপলক্ষে কিছু দিতে চাই। একটা বিএমডাব্লুউ।
আমি- নো নিড।
আরাভ- রাখো আমি পে করে দিবো যাস্ট চয়েজ।
আমি- শুনেন আমি কোনো কিছু নিবো না। পতীতা না যে দাম নিবো। আপনার কাছে বর্তমানে আমি ধর্ষিতা। তাই কিছু দেওয়ার হলে আপনার আগের গফগুলোকে দেন।
আরাভ- তারা আর তুমি এক না।
আমি- তাই?
আরাভ- জ্বী।
আমি- এক না তাই তো আমার সাথেও বিছানা‌…
.
কথাটা শেষ করার আগেই মিমি এলো।
মিমি- নে খা।
.
আমি আর মিমি আইসক্রিম খেতে লাগলাম। আমার যতোই যা হোক সব ক্ষেত্রে পাগলামি চলে আসে কিছুটা। তাই তাড়াতাড়ি নিজেরটা শেষ করে মিমির টা কেড়ে নিয়ে খেতে লাগলাম।
মিমি- ওই শয়তান্নি দে।
আমি- দিবো না।
মিমি- দে বলছি।
আমি- নো বেবি এটা এখন আমার। শয়তান্নি আজ জন্মদিন বইলা ছাড়লাম।
.
আমি ভুলে গেছিলাম পিছনে আরাভ ছিলো। আরাভ এগুলো দেখে হাসতে লাগলো। আর মনে মনে ভাবতে লাগলো, “তোমার এই পাগলামি গুলো দেখেই আমি কেনো যেন তোমাকে পেতে চেয়েছি। জানি আমি দোষী কিন্তু কিভাবে এসব হলো জানি না রে।” মনে মনে ভাবলো আরাভ।
.
সেদিন এসব শেষেই আমরা চলে এলাম। আর আরাভও চলে গেলো। কারণ আমি আর মিমি দুজনেই আলাদা অটো নিয়ে নিলাম। আরাভ বাড়ি ফিরে এলো।
.
কিন্তু এখনো তার মনে আনহার স্মৃতি। রাতে ঘুমানোর আগে ঠিক ১১:৫৯ সময়ে আরাভ আনহাকে মেসেজ দিলো। সেই নম্বর দিয়ে যা দিয়ে আগেও একবার কল দিয়েছিলো।
“tmr ei jonmodiner ses wish ta hoyto ami kresi. kintu prarthona oporisim. jani praptir baire. kintu kolponar majhe. shuvo jonmodin. wish u a happy birthday.”
.
মেসেজটা পড়ে বুঝলাম না কে দিয়েছে? তাই রিপ্লাই দিলাম,
“k?”
reply- “a mask man”
me- ow great so mask poira ghuman. gd night.
reply- haha okay wish ta purno krbo

.
আমি আর‌ রিপ্লাই দিলাম না।
.
চলবে….

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here