আমার পাগলি প্রেমিকা ৬ষ্ঠ পার্ট 

0
330

আমার পাগলি প্রেমিকা ৬ষ্ঠ পার্ট

……#জেএইসজনি….
.
.
..
নিলাঃভাইয়া তোর কলম পরে গেছে,,
রাহাতঃকই ও হ্যা কলম আমার কলম,,আচ্ছা আমি ভিতরে গেলাম,,
আনিসাঃকাহীনি কি মিরা,,
মিরাঃক কই কি কাহীনি ,, এদিকে আসছিলাম তখন ই তোর ভাইর সাথে দেখা, এই আর কি।
নিলাঃতাই নাকি, নাকি অন্য কিছু,,
মিরাঃতোরাও না, ধ্যাত,সর
এই বলে মিরা আগে চোলে গেল,,
আর পিছন থেকে নিলা আর আনিসা
হাসতে লাগলো,,
.
কিছুক্ষন পর নিলা ,,আনিসা, মিরা আসলো,,
আমিঃকি ব্যাপার তোমাদের আসতে এত দেরি হলো,,
আনিসা ঃআমাদের মিরা হাড়িয়ে গিয়ে ছিল,,তাকে খুজতেই সময় হলো,
আমিঃআচ্ছা শুরু করো,,
.
নিলা আমার কাছে এসে বললো,
নিলাঃআপনি হা করেন আমি খাইয়ে দিচ্ছি,,ওই তোরা নিচে তাকা,,
নিলা আমাকে খাইয়ে দিচ্ছে,।
.
আসলেই মেয়েটা ভালোবাসতে জানে।
.
আমিঃকি ব্যাপার তুমি খাচ্ছো না কেন?
নিলাঃ আমি কি নিজ হাতে খাবো না কি?
আমি ঃ ওরা সামনে না,, একটু পরে খাও,,
নিলাঃ ওরা তো কি হোয়েছে,, ওরা দেখুক আপনি আমায় কতটুকু ভালোবাসেন,,, নিন আমি হা করছি খাইয়ে দিন,,, হা…..
.
নিলা হা কোরে আছে, এই মূহুর্তে ওকে দেখে হাসি পাচ্ছে,,
ওকে খাইয়ে দিতে গিয়ে একটু মাংশের জোল ওর নাকে লেগে গেলো,
এবার আর না হেসে পারলাম না,, হোহো করে হেসে দিলাম।
হাহাহা,,
নিলা রেগে গিয়ে বললো,,
লাগবে না আপনার খাওয়ানো,,
নিলা রাগ করে অন্যদিকে মুখ ফিরিয়ে নিলো,,,
.
আমি আমার দিকে নিলার মুখ ফিরিয়ে আনলাম,,
কি হোয়েছে রাগ করেছো,,
নিলা আমার হাত ছারিয়ে আবার মুখ
ঘুরিয়ে নিলো,,,
.
আমিঃআমার দিকে আবার ঘুরিয়ে এনে বললাম,, হোয়েছ আর রাগ করতে হবে না,,আমি আর হাসবো না,, হা করো,, পরে পুসিয়ে দেবো,,,
,,
নিলা খেতে খেতে বললো,,আমার টা আমি পুসিয়ে নেবো,, তখন কোনো না না শুনবো না,,,
.
মিরা আর আনিসা নিচের দিকে তাকিয়ে হাসছে,,
নিলা ওদের দিকে তাকিয়ে বললো,, তোরা হাসছিস কেনো,,
.
আনিসা ঃতোদের কথা শুনে,,
নিলাঃঅন্যর পার্সোনাল এসব কথা শুনতে লজ্জা লাগে না তোদের,, ডাইনি কোথাকার,
মিরা ঃআচ্ছা তুই তোরটা পুসিয়ে নে, আমরা বাহিরে যাচ্ছি,,
এই কথা বলে ওরা বাহিরে চোলে গেলো,,
নিলাঃদেখেছেন লজ্জা বলতে কিছু নেই ওদের,,
আমিঃতুমি বলার সময় লাগাম দিয়ে বলোনা,, ওরা বললেই সমস্যা,,
,,
নিলা হঠাৎ গম্ভির হোয়ে আমার মুখের দিকে একটু একটু আগাচ্ছে আর বলছে,, হ্যা সমস্যা,, আমার জিনিস আমি যা মনচায় তা বলবো আপনার কোনো পবলেম,,আমি আমার টা পুসিয়ে নিবো,,
আমিঃএই কি করছো,,
.
নিলা খুব কাছাকাছি চোলে এসেছে,নিলার গম্ভির চেহারা, গম্ভির কথা,, শ্বাষপ্রশ্বাস ও যেনো গম্ভির হোয়ে আসছে,,,,
হঠাৎ কারো আসার আওয়াজ পেলাম।
তাকিয়ে দেখি নিলার মা হাতে পিঠা নিয়ে রুমে ডুকলো,,
.
নিলা কাছ থেকে সরে গেলো,,
,,
নিলার মাঃ কি বাবা কি করছো,,
নাস্তা কোরেছো,,
আমিঃজি কোরেছি,,,
নিলার মাঃএই গড়ম গড়ম পিঠা গুলো খাও,,
আমিঃআপনি আবার কষ্ট করতে গেলেন,, এত খাবার কি ভাবে খাবো,,
নিলার মা ঃআরে খাও খাও, এখনই তো খা্ওয়ার সময়,,আজ কিন্তু না খেয়ে যেতে পারবে না,,
আমিঃকি যে বলেন,,,থানায় যেতে হবে,, কাজ আছে,,
নিলাঃ না খাইয়ে যেতে দিলেতো,, আজ কোনো কাজ নেই,, কলদিয়ে বোলে দেন আজ যেতে, পারবেন না,,
.
আমিঃ আরে কি যে বলো,,,
নিলার মা ঃতোমার আর কোনো কথা শুনছি না,, এই নিলা আয়,, একটু কাজে সাহায্য কর, জনি রেষ্ট নিক, তোর জন্য রাতে ঘুমাতে পারেনি,,,
নিলার মা চোলে যেতে লাগলো,, নিলা আমার মুখের কাছে এসে ফিসফিস করে বললো,, মার জন্য বেচে গেলেন, আজ নাহয় ঠোট ছিরে ফেলতাম,,
আমি মুচকি হাসলাম,,,,
নিলা আবার বললো,, হেসে লাভনেই, ঠোট ছিরবোই আসতেছি,,
নিলা তার মার পিছন পিছন চোলে গেলো,,
.
রান্না ঘরে তারা সবাই কথা বলছে,,
রাহাতঃ মা নিলাকে তো এবার বিয়ে দেওয়া দরকার,,ছেলেটেলে তো খোজা দরকার,
পাস থেকে আনিসা বললো,,, দুলাভাই
তো আমাদের খোজা আছেই রুমে বোসে আছে,,
রাহাত ঃ তাই নাকি মা। কে মা
মাঃহিম, জনি,, তোর চাকরি যে দিয়েছে,,
রাহাত ঃবলো কি,, ওনি রাজি,,
মিরা ঃএকশতে একশ রাজি,, নিলা আর ওনার মধ্যে তো চলছে,,
রাহাতঃতাই নাকি নিলা?
নিলা লজ্জা পেয়ে তার মার আচল দিয়ে মুখ ডেকে বললো,, মা…..
তখন তার মা বললো,,
এই তোরা কি শুরু করেছিস,, দেখছিস যে ও লজ্জা পাচ্ছে,,
আনিসাঃআন্টি তার আগে কিন্তু ভাইয়াকে বিয়ে করানো উচিত,, মেয়ে কিন্তু আমদের পছন্দ করা আছে,,
.
রাহাত ঃকিককি বলো,, কোন মেয়ে পছন্দ করেছো,,,
.
মিরা একটু রেগে বললো, এই তুই কি বলছিস আনিসা,, ওনার কি বিয়ের বয়স হোয়েছে নাকি,, আর ওনি যাকে তাকে বিয়ে করবে নাকি,,
নিলা মুখ থেকে আচল সরিয়ে বললো,, কিরে মিরা তুই রেগে যাচ্ছিস কেনো,, তোর কি কিছু পুরছে নাকি, দেখতো আনিসা কিছু পোরার গন্ধ পাচ্ছিস নাকি।
এই বলে ওরা হাসতে লাগলো, রাহাত
আর থাকতে পেরে বললো,, মা আমি ওনার সাথে দেখা করতে যাচ্ছি,,
মিরা মাথা নিচু করে বোসে আছে,,,
..
নিলা মিরার কাছে গিয়ে কানে কানে বললো,, ভাবি হিসেবে তুই হলে খারাফ হবে না,,
মিরা কিছুটা লজ্জা পেয়ে বললো,, ধ্যাত তুইও না,,
মিরাও সেখান থেকে উঠে চোলে গেলো,,,
.
আনিসা একটু উদাস হোয়ে বললো,, আমার জনকে যে কবে খুজে পাবো।
নিলাঃপাবি পাবি, খুব শ্রীঘই তোর জীবনে কেউ আসবে,,
আনিসা ঃ তাই যেনো হয়,,, তোদের এগুলো দেখে আমার আর একা থাকতে ইচ্ছে করে না,,
নিলার মা পাস থেকে বললো,,এই তোদের পাকনা পাকনা কথা শেষ হলে,, একটু কাজে সাহায্য কর,, খাওয়ার সময় হোয়ে এসেছে,।
,
তারা কাজে সাহায্য করতে লাগলো,
,
রাহাত হঠাৎ আমার রুমে আসলো,
,
রাহাতঃকেমন আছেন স্যার?
আমিঃআরে রাহাত তুমি,, কবে আসলে,,
রাহাতঃজি স্যার এইতো,, সাকালে আসলাম,,
আমিঃআচ্ছা রাহাত এখন বাসায় আছি so ভাইয়া বলবে,, যখন অফিসে থাকবো তখন স্যার বললেই হবে,,
রাহাত ঃজি স্যার,ও সরি ভাইয়া,
আমিঃযয়েন করেছো কবে,
রাহাতঃকাল থেকে এই থানায় যয়েন করবো, তাই বাসায় আসা,,
আমিঃও ভালো,, তাহলে তো দেখা হচ্ছে,,
,,
ওর সাথে আরো কিছু কথা বলার পর খাওয়ার জন্য ডাক পরলো,,
.
নিলাঃ জনাব খাবেন, উঠেন,,
আমিঃতুমি খেয়েছো,,
নিলাঃআমিতো অন্যকিছু খাবো,, এসব খাবারে আমার মন ভরবে না,,
আমিঃকি খাবে,,
নিলা আমার হাত টানতে টানতে বললো,, যখন খাবো তখন আপনি ও দেখবেন,, এটা একলা খাওয়া যায় না,, চলেন,,
.
অবশেষে খেতে বসলাম,
বাব্বা, এত খাবার আমার জন্য,,
আমি ঃনিলা আমিতো এত খাবার খেতে পারবোনা
.
নিলা খাবার বারতে বারতে বললো,, আপনি বলেছেন আর আমি শুনছি, সব খাবেন,,ওখানে কি খান না খান,
.
আমি ঃআরে এত দিচ্ছো কেনো,,আর দিও না,,
,,
খেতে খেতে শেষ,, এত খাওয়া যায় নাকি,,
নিলার মা ঃ কি হলো বাবা খাচ্ছো না কেনো,
নিলা তার মার দিকে তাকিয়ে বললো,,..
নিলাঃমা তুমি একটু রান্না ঘরে যাওতো,
নিঃমাঃকেনো?
নিলাঃযাওতো কাজ আছে,,
নিলার মা ঃআচ্ছা, ঠিক মতো বেরে দিস,
.
নিলার মা যেতেই নিলা আমার সামনে থেকে প্লেট টা নিয়ে নিজ হাতে খাবার নিয়ে বললো হা করুন,,
আমিঃ আমি আর পারবো না,,
নিলাঃনিন, হা করুন বলছি,,
আমিঃআচ্ছা তুমি এমন করছো কেনো,, ভুমি করে দেবো,,
নিলা কিছুটা রেগে বললো, হা করুন,,
ওর জোরাজুরিতে খেতে হলো, পেট নিয়ে কোনোরকম রুমে গেলাম,
,
কিছুক্ষন রেষ্ট নেওয়ার পর কারো দরজা বিরানোর শব্দ পেলাম,,,
তাকিয়ে দেখি নিলা,,,
,
আমি কোনোরকম বসার চেষ্টা করে বললাম,কি করছো কি,, দরজা বিরিয়েছো কেনো,,
নিলা একটু দুষ্ট হাসি দিয়ে বললো,,, বলেছিলাম না ঠোট ছিরবো,,,
আমিঃপাগলামি করো না, ,তোমার বান্ধুবিরা চোলে আসবে,,
নিলা কিছুটা মুখ বেকিয়ে বললো,, আজকে চুলও ছিরতে পারি ওদের,
ওদের জন্য আপনার কাছেই আসতে পারিনা,,
.
আমি ঃ দেখো কেউ এসে পরবে,
নিলাঃহাহাহা, বোলেছিনা কোনো না শুনবো না,,,
নিলা আমাকে আর কিছু বলতে দিলো না,, মুখটা কাছে টেনে ঠোটে ঠোট চেপে দরলো,
এক চুমুকে কতক্ষণ ছিলো যানিনা,, যখন ছারলো তখন আমি প্রায় যাই যাই অবস্থা,,,
নিলার লক্ষন বেশি ভালো না,আমার ঠোট আজ ছিরবেই মনে হয়,
আমার ঠোটের দিকে মাতাল ভাবে তাকিয়ে আছে,
,আবার যেই আমার দিকে আসবে ঠিক তখনই বললাম,এই কে যেনো আসছে,,
নিলা পাসে তাকাতেই আমি উঠে দৌর,, পিছন তাকাতেই দেখি নিলা আমার দিকে রাগী চোখে তাকিয়ে আছে,,
,,
আমি দৌরে মিরা আর আনিসার কাছে গেলাম,,
আমিঃকি ব্যাপার তোমরা কি করছো,,

.

ওরা আমার দিকে তাকিয়ে আছে,,
আমিঃকি ব্যাপার কি হোয়েছে,,
আনিসা ঃকি ব্যাপার ভাইয়া,, আপনার ঠোট গুলো এমন লাল হলো কিভাবে.
.
আমিঃমরিচ খেয়েছি তো তাই এমন মনে হয়।
মিরাঃএটাতো মরিচের লাল না,,
,,
ঠিক তখন নিলা হাতে আমার ফোন নিয়ে আসলো,,
আনিসা ঃকিরে নিলা,, ভাইয়ার ঠোট এমন লাল হলো কি করে,,,
নিলা আমার দিকে রাগী চোখে তাকিয়ে বিরবির করে বললো,, আজতো ছিরেই ফেলতামম,,,
মিরা ঃকি রে কি বলস,
নিলা আমার হাতে ফোন দিতে দিতে বললো কিছুনা,
আমার দিকে তাকিয়ে বললো,, আপনার কে যেনো ফোন দিয়েছে,, কি নাম যেনো, ও, সাইদ,,
আমিঃসাইদ, ,
নিলাঃকে উনি,, ভাই দিয়ে ছেব করা,,
আমি ঃআমার ছোট ভাই,,
নিলাঃদেন দেন মোবাইলটা দেন,, ছোট ভাইয়ার সাথে কথা বলবো,,
আমিঃআরে দারাও আমি আগে কথা বলে নেই,,
,,,
আমি ফোন দিলামঃ
,
সাইদঃহ্যালো ভাইয়া কেমন আছো.
আমি ঃভালো,, মা সবাই ভালো আছে,
সাইদঃভালো, আমি কাল তোমার ওখানে আসছি,,কিছুদিন তোমার ওখানে বেরাবো,
আমিঃআচ্ছা আয়,, আমি গাড়ি পাঠিয়ে দেবো।
সাইদঃআচ্ছা তাহলে রাখি,,,
আমিঃআচ্ছা আয়,,,
.
আমি ফোন রাখতেই নিলা বললো,,
নিলাঃকি বলল ওনি,,
.
আমিঃকাল এখানে আসছে,.
নিলাঃআমার সাথে পরিচয় করিয়ে দিবেন না,
আমিঃআরে আসুক না,,
নিলা ঃ কি বলে পরিচয় করিয়ে দিবেন,
আমিঃ কেনো, #আমারপাগলিপ্রেমিকা.. বলে।
নিলাঃধ্যাত.. ওনার সামনে এইভাবে বলবেন।
আমিঃথুর পাগলি, আমার হবু বৌউ বলে পরিচয় করিয়ে দেবো,,
.
নিলা কিছুটা মন খারাফ করে বললো,
মেনে নিবেন উনি,,
ওকে হাত দিয়ে কাছে টেনে এনে বললাম,,আমার উপর কেউ কথা বলে নাকি,,
নিলা আমার জামা এক হাত দিয়ে মোরাতে মোরতে বললো,, আমার খুব ভয় করে,, যদি না মানে তা হলে তো আমি মরে যাবো,,
.
আমি যেই ওকে একটু চেপে দরেছি, ,ঠিক তখনই পাস থেকে মিরা বললো,, আমরা আছি কিন্তু,,
আনিসা ঃআপনারা যখন তখন এত রুমান্টিক হন কিভাবে,,
.
নিলা আমার বুকের ভিতর মুখ গুজে দিয়ে বললো,, আমার মতো যখন তোর একটা জুটবে, তখন বুঝবি রুমান্টিকতা কোথাথেকে আসে,, ,
.
মিরাঃতোরা তোদের রুমান্টিকতা নিয়ে থাক,, আমরা গেলাম…..
.
……চলবে. ..

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here