যে মেয়েটা তোমাকে প্রতিঘন্টায় মেসেজ পাঠাতো

যে মেয়েটা তোমাকে প্রতিঘন্টায় মেসেজ পাঠাতো
যে মেয়েটা তোমাকে প্রতিঘন্টায় মেসেজ পাঠাতো

– যে মেয়েটা তোমাকে প্রতিঘন্টায় মেসেজ পাঠাতো,

 

যার পৃথিবী ছিলো তুমিময়, যে খাওয়ার আগে জেনে নিতো তুমি খেয়েছো কিনা? জবাবে তুমি রিপ্লাই না দিয়ে নিয়ম করে তাকে অবহেলা করতে । সে মেয়েটাও একদিন তোমাকে মেসেজ দেওয়া বন্ধ করে দিবে । বোকা মেয়েটা বুঝে যাবে ভুল জায়গায় মেসেজ পাঠালে রিপ্লাই আসে না!

– যে মেয়েটার রাত জেগে কান্না করার উপলক্ষ্য তুমি, যাকে তুমি প্রতিরাতে ঘুমের বদলে কান্না করতে বাধ্য করেছো, সে মেয়েটাও একদিন রাতে স্বামীর কাধে মাথা রেখে ভুলে যাবে তোমার কথা । স্বামীর কাধে মাথা রেখে সে মুচকি হেসে নিজে নিজেই ভাববে ‘আমি কি বোকা ছিলাম!’

– যে মেয়েটাকে ভালোবাসার কথা বলে তাকে দিয়ে নিজের একাকিত্ব দূর করেছো, সেও একদিন তোমাকে কল দিয়ে বলবে ‘তুমি আমাকে খেলনা পুতুল ভেবে খেলেছো, এখন একজন আমাকে পুতুলের মতো যত্নো করে । সে আমাকে নিয়ে খেলেনা, জানো? পুতুল কে কিভাবে রাখতে হয় তুমি জানোনা ।’

– যে তোমাকে ভালোবাসার দাবি নিয়ে তোমার কাছে এসেছিলো, তুমি তাকে ‘সস্তা মেয়ে’ ভেবে পাত্তা দাওনি, সেও একদিন কারো ভালোবাসায় আবদ্ধ হবে এবং তুমি সেটা দেখে ভিতরে ভিতরে জ্বলে যাবে । নিশ্চিত!

প্রকৃতি একটা নিয়ম করে রেখেছে! যে অবহেলা করবে, সে অবহেলা পাবেই! কেউ হয়তো খুব ভালোবাসে বলে বদদোয়া দিতে চায় না, প্রকৃতি ‘মানুষ’ না বলেই হয়তো এই দোয়া-বদদোয়া’র ধার ধারে না । সে একটা জিনিস ই বুঝে, ‘তুমি যা করবে, সেটা ফেরত পাবেই! আজ কাউকে কষ্ট দিলে, কাল অন্যজন তোমাকে কষ্ট দিবেই ।’ এই শাস্তি থেকে অতীতে কেউ পার পায়নি, আজ ও পাচ্ছে না, আগামীতেও পাবেনা!

লেখা- অনামিকা ইসলাম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here