হারিয়ে যাওয়া পথ খুঁজে পাওয়া part:15

0
123
হারিয়ে যাওয়া পথ খুঁজে পাওয়া part:15

হারিয়ে যাওয়া পথ খুঁজে পাওয়া

part:15

লেখা –সুলতানা ইতি

 

পরদিন সকাল বেলা আনুশা ঘুমাচ্ছিলো,

অন্নি: কিইই আমার ঘুম ভেঙে গেছে আর আনুশা এখন ও ঘুমাচ্ছে এই টা আমি কি করে মেনে নিই বলো আল্লাহ,, আমার তো একটাই বন্ধু,একটাই বান্ধুবী, এই বলে অন্নি আনুশাকে ডাকতে লাগলো এই আনু দেখ ১০ টা বেজে গেছে, এমা তুই এখন কি করবি,তোর তো এখন ও অনেক কাজ বাকি, এই আনু, আনু দেখ ১১ টা বাজে

আনুশা: অন্নির ডাকে আমার ঘুম ভেঙে গেছে, কিন্তু ওর বানিয়ে বানিয়ে মিথ্যা বলা কথা গুলো শুনতে ভালো লাগছিলো তাই ঘুমের ভান করে শুয়ে আছি,আমি জানি এখন ১০-১১ টা কোনটাই বাজেনি,আমাকে ঘুম থেকে উঠানোর এক ধান্দা,আমি ও কম যাইনা,ঘুম ঘুম ভাব নিয়ে বললাম,উফফ অনু ঘুমাতে দে তো, বিরক্ত করিস না

অন্নি: কি আমি বিরক্ত করি,তা হলে আজ তোকে ঘুমাতেই দিবো না, তুই উঠবি নাকি আমি পানি ডালবো গায়ে

আনুশা: এইরে এবার উঠতে হবে,আর ঘুমের ভান করে শুয়ে থাকা যাবে না,
অন্নি: কিরে ঘুম থেকে উঠে মিট মিট করে হাসছিস কেনো

আনুশা: অনু তুই আর পাল্টালি না বল,সেই ছোট্ট অনুই রয়ে গেলি

অন্নি: দেখ আনু আমি তোর মতো গোমরা মুখো হয়ে থাকতো পারবো না আমার কাছে লাইফ মানে হচ্ছে ইনজয় করা,যা সময় পেরিয়ে গেলে করতে পারবো না

আনুশা: সময় পেরিয়ে যাবে মানে

অন্নি: এই যেমন বিয়ে হয়ে গেলে। স্বামি সংসার প্যারা, এই সব এর মধ্যে ইনজয় করতে পারবো না

আনুশা: অন্নির মুখে স্বামি সংসার এর কথা শুনে মেজাজ গেলো বিগড়ে,অন্নিইইইইইইই

অন্নি: আনু তুই রেগে গেলি কেনো প্লিজ প্লিজ তুই রাগিস না,আমি তোর সামনে বলতে চাইনি,বাট কি করে যেন মুখ দিয়ে বেরিয়ে গেলো

আনুশা:……………..

অন্নি: এই যা অন্নিকে তো রাগিয়ে দিলাম এখন উপায়

আনুশা: মনে মনে (স্বামি এরা কে হয় অযোগ্য পুরুষ মানুষেরা,যোগ্য। দের তো খুজে পাওয়া যায় না,এরা মেয়েদের কে সারা জীবন পায়ের তলায় জুতো আর জুতোর তলায় পাপশ বানিয়ে রাখতে চায়,যেমন আমার দুই বোনের জামাই,আর আরেক জলন্ত প্রমান নিহাল,বোনেদের কথা না হয় বাদই দিলাম,কিন্তু আমার সাথে যা হয়েছে তা আমি কোন দিন ভুলতে পারবো না)

অন্নি: ইসস এখন কি হবে আনু তো আগুন চোখ করে ভাবনার জগতে ডুকে গেছে, কি করে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করবো,ইউরেকা

আনুশা: অন্নির চিৎকার এর বাস্তবে ফিরে এলাম, ভ্রু কুঁচকে অন্নির দিকে তাকালাম

অন্নি: মানে আনু আমি কি বলছি শুননা অনেক বেলা হলো,তোকে নিয়ে আমার একটা জায়গাতে যাওয়ার ছিলো,চলনা আমরা যাই

আনুশা: নো য়ে,আজ আমি কোথায় ও যাবো না আজ আমি সারা দিন মায়ের সাথে কাটাবো

অন্নি; প্লিজ প্লিজ না করিস না,আমি তোর হাত ধরছি,তোর পা ধরছি

আনুশা: এই এই কি করছিস পাগল হয়ে গেলি নাকি তুই,আচ্ছা আমি যাবো, এবার তো শান্ত হও

অন্নি: সত্তিইই
আনুশা: হুম,
অন্নি: উঠ তা হলে রেডী হয়ে নিইই
আনুশা: এখন ই রেডী হতে হবে
অন্নি,হুম চল তো


তানভীর : শুনেছি কাল রাত আট টায় আনুশার ফ্লাইট, ওকে দূর থেকে হলে ও শেষ বারের মতো চোখের দেখা দেখতে হবে, নইলে মনটা যে শান্ত হবে না,
আর আনুশা আমাকে কোন দিন হয়তো ভালো বাসবে না,হয় তো কালকের পর ওর সাথে আমার কোন দিন দেখা হবে না,
হয়তো তানভীর নামে একটা ছেলে ওকে পাগলের মতো ভালো বাস তো এই টা তার মনেই পড়বে না কোন দিন,
কিন্তু আমি, আমি তো কোন দিন আনুশা কে ভুলতে পারবো না, আমার সুইট এঞ্জেল, I love you sweet angel, I love you sob mach তোকে এই খারাপ ছেলেটা খুব ভালোবাসেরে, তুই বুঝলি না

অন্নি আনুশাকে নিয়ে মার্কেট এ এলো

আনুশা: এই খানে নিয়ে আসলি কেনো,

অন্নি: এই খানে মানুষ কেনো আসে তুই জানিস না,,আমি ও সেই জন্যই এসেছি

আনুশা: কিন্তু তুই তো বললি তুই একটা জায়গাতে যাবি,এখানে আসবি সেটা তো বলিস নি

অন্নি: বলিনি তো কি হয়েছে এখন তো জানলি, আর কথা বলিস না তো ড্রেস, দেখতে দে,,

আনুশা; কিচ্ছু বুঝতে পারছি না সব মাথার উপর দিয়ে যাচ্ছে,

অন্নি: এটা দেখতো আনুশা এই ড্রেস টা তোকে খুব মানাবে

আনুশা: আমার কিছু লাগবে না অন্নি,তুই তোর জন্য নে

অন্নি: একদম চুপ থাক,কি লাগবে আর কি লাগবে না সেটা কি আমি জানি না

আনুশা: আর কিছু বললাম না,আর বলে যে কোন লাব হবে না,সেটা তো বুঝতেই পারছি

অন্নি: বেছে বেছে কয়েকটা ড্রেস নিলাম আনুশার জন্য,
অনেক বেলা হয়ে গেলো আনুশা কে নিয়ে একটা রেস্টুরেন্ট এ খেতে ঢুকলাম

আনুশা: প্লিজ অন্নি আজকের দিন টা আমি মায়ের হাতের খাবার খেতে চাই,তুই আমাকে এখানে খেতে বলিস না

অন্নি: কিন্তু আমার যে খুব সখ আজকের দিনটা নিজের মতো করে তোর সাথে কাটাবো বলে

তুই,রাত আর সকালে এই দুইবেলা আন্টির হাতের খাবার খাস,কেমন
প্লিজ এখন আমাকে না করিস না

আনুশা: ওকে ফাইন তোকে নিয়ে আমি আর পারি না, খাবার দাবার গুরা গুরি সব শেষ করে সন্ধায় বাসায় ফিরলো ওরা

আনুশার আম্মু: এতোক্ষনে তোদের আসার সময় হলো

অন্নি: আন্টি আসলে কি বলেন তো অনেক দিন পর আনুশার সাথে দেখা,তা ও আবার একদিনের জন্য,কালতো ও চলেই যাবে তাই আজকের দিন টা স্মৃতি করে রাখলাম এই আর কি

,দুই বান্ধবি মিলে ফ্রেশ হয়ে,পেকিং এর কাজ টা সেরে পেল্লো, তার পর আনুশা অন্নির আনলিমেটেড বক বক শুনতে শুনতে ঘুমিয়ে পড়লো

to be continue

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here