প্রেমের_পরশ পার্ট_29

প্রেমের_পরশ
পার্ট_29
জামিয়া_পারভীন

নিরুর প্রেগন্যান্সির ৯ মাস চলছে, সে শারীরিক ভাবে সুস্থ হলেও মানসিক ভাবে খুব অসুস্থ হয়ে পড়ে। নিরুকে নিয়ে শুভ বড়ই দুশ্চিন্তায় আছে। পরিবারের এই রকম অবস্থা, এর উপর নিরুর মানসিক ভেঙে পড়া শুভর মনে প্রচুর আঘাত আনছে। সিড়ি বেয়ে বারবার উঠানামা করা নিরুর জন্য কষ্ট সাধ্য বলে নিচতলায় থাকছে নিরু আর শুভ। সেইদিন সকালে নিরু মাথা ঘুরে পড়ে যেতে নিলে শুভ ধরে নেয়।
শুভ নিরু কে জিজ্ঞেস করে,

__ “ কি হয়েছে, খারাপ লাগছে নাকি? ”
__ “ নাহহ মাথা টা এমনিতেই কেনো জানি চক্কর দিয়ে উঠলো, বেডে শুইয়ে দাও, ভালো লাগবে হয়তো। ”

নিরুকে শুইয়ে দিয়ে শুভ নিরুর জন্য স্যুপ নিয়ে আসে। মানসিক দুর্বলতা কাটতে শুভ নিরুর সাথে গল্প করে বেশি। রাজা রাণীর রুপকথার গল্প শুনায় নিরুকে। নিরু এগুলো আগে কখনো শুনেছি, এতিমখানা তে কেই বা গল্প শুনাবে। শুভর কাছে গল্প শুনে আর রুপকথার রাজ্যে ভাসে নিরু। একদিন গল্প শেষ করতেই নিরু শুভকে জিজ্ঞেস করে,

__ “ আচ্ছা শুভ আমাদের রাজকুমার এর নাম কি হবে শুনি? ”
__ “ রাজকুমার চাই না রাজকুমারী হবে, চাঁদের মতো সুন্দরী রাজকুমারী। অবশ্য তোমার থেকে অল্প কম সুন্দরী হলেও হবে। ”
__ “ কেনো, আমার রাজকুমারী হবে আমার চেয়েও সুন্দরী। আমার মেয়ে বলে কথা। ”
__ “ তোমার চেয়ে বেশি সুন্দরী হলে আবার তোমার আদর কমে যাবে। হাহা,, ”

নিরু রেগে কয়েকটা আস্তে করে কিল দেয় শুভর হাতে। শুভ নিরুকে জড়িয়ে নেয় আলতো করে।
,,,

বাইরে সাগর বসে ছিলো, ওর সাথে ওর বাবা মা কি নিয়ে যেনো তর্ক করছে। শুভ যেতেই থেমে যায় সবাই। শুভ গিয়ে জিজ্ঞেস করে,

__ “ আমি কি আজকাল বাড়িতে নগন্য নাকি , যে আমায় দেখলে কথা বলা থেমে যায়। ”

শুভর মা আমতা আমতা করে বলে,

__ “ ন মানে! তেমন কিছুই না বাবা, ভুল বুঝিস না দয়া করে। ”
__ “ তো কি এমন কথা যে আমায় দেখে থেমে যাওয়া লাগে। ”
__ “ আসলে, বলছিলাম যে, রুবি মারা যাওয়া একমাস পার হয়ে গেলো। বাসায় আসলেই একা একা বসে থাকে, ও যদি আবার বিয়ে করে সংসার করে। মায়ের মন বলে কথা, তোরা ছেলেরা কেনো যে বুঝিস না। ”

তখন সাগর মায়ের কথার প্রতিউত্তরে বলে,

__ “ আম্মু, বিয়ে যদি করার ই হতো, আগেই করে নিতাম। আমি রুবির স্মৃতি ভুলতে চাইনা। ”
__ “ রুবি তোকে বিয়ের জন্য বলতো, কারণ ও চাইছিলো তুই বাবা হতে পারিস। এখন যদি তুই বিয়ে না করিস রুবির আত্মা শান্তি পাবেনা। ”
__ “ ওকে ফাইন, আমি বিয়ে করবো। কিন্তু রুবির সাথে স্মৃতি ঘেরা শহরে আমি থাকতে পারবোনা। বিয়ের পর বিদেশে যাওয়ার ব্যবস্থা করে দিও তাহলে। কিন্তু বাইরে যাওয়ার নিউজ যেনো ফাঁস না হয়। ”

শুভ জিজ্ঞেস করে,

__ “ মেয়েটা কে? যার সাথে বিয়ে দিতে চাচ্ছো! ”

শুভর আম্মু চাই সাগর সামিহা কে বিয়ে করুক, কারণ ছোট বোন আবদার করেছে বোনের ছেলের সাথে মেয়ের বিয়ে দিবে। শুভ এই কথা শুনে রাগ করে চলে যায় নিজের ঘরে।

দুইদিন এর মাঝেই সাগরের সাথে সামিহার বিয়ে দিয়ে দেয় ঘরোয়া ভাবেই, আর বিয়ের দিন রাতেই নিরুর পেইন উঠে। নিরুর চিৎকারে বিয়ে বাড়ির সবাই নিরুকে নিয়ে হসপিটালে পৌঁছে। চার ঘন্টা পর নিরুর নরমাল ডেলিভারী তে ছেলে হয়। শুভ পুরো সময় টা নিরুকে পাহারা দিচ্ছে, যেনো ভুলেও কেউ নিরুর বা বেবির ক্ষতি করতে না পারে। একজন নার্স বেবি কে এনে প্রথমে শুভর কোলে দেয়, শুভ প্রথমে বেবি কে কোলে নিয়ে জোরে করে আযান দেয়। এরপর বাচ্চাকে মায়ের হাতে দিয়ে কেয়ার করতে বলে। নিরু অজ্ঞান ছিলো, তাও শুভ নিরুর পাশে গিয়ে বসে। নিরুর পেটে হাত বুলিয়ে দেয় আলতো করে । কপালে চুমু দিয়ে কেবিনের বাইরে আসে। বেবি কে শুভর আম্মু কোলে নিয়ে বসে ছিলো।

শুভ মায়ের কাঁধে মাথা রেখে বলে,
__ “ আম্মু দোয়া করো, মা আর ছেলে দুজনেই যেনো ভালো থাকে। আমি যেনো আমার সন্তান কে তোমাদের মতো করে যত্ন নিয়ে বড় করতে পারি। ”
__ “ সব সময় দোয়া করি বাবা। ” শুভর মা শুভর মাথায় হাত বুলিয়ে দেয়।

সাগর সামিহা কে নিয়ে শুভর সামনে আসে। খুব নরমাল ভাবেই সাগর শুভর ছেলে কে কোলে নিয়ে কাঁদতে থাকে। এটা যদিও খুশির কান্না কিন্তু সাগরের খুব মনে পড়ছিলো রুবির কথা। সাগর শুভ কে বলেই ফেলে,

__ “ জানিস শুভ, আজ যদি রুবির এক্সিডেন্ট না হতো, তাহলে আমারও সংসার টা হয়তো ভেঙে যেতো না। ”
__ “ মন খারাপ করিস না ভাই, অতীত ভুলে গিয়ে বর্তমান নিয়ে নতুন ভাবে শুরু কর। দেখ খুব সুখে থাকবি, আর তোর ও আবার সুখের সংসার হবে দেখিস। সামিহা আছে তো, ওকে নিয়ে সুখেই থাকবি তুই। ”

বেবি কে শুভর বাবা কোলে নেয়। সবার মুখেই আনন্দর ছোঁয়া কিন্তু একজন এর মুখে ভার, সেটা সামিহা!। খুব শখ ছিলো শুভর স্ত্রী হবে কিন্তু কিনা ওর মা ওকে সাগরের সাথে বিয়েতে বাধ্য করে। সামিহা ওর মায়ের কথায় বাধ্য মেয়ের মতো বিয়ে করে নেয়। শুভর ছেলেকে দেখে হিংসা হচ্ছে খুব ওর। তারপরও সবার সাথে ভালো বিহেভ করতে হচ্ছে তার।

শুভ নিরুর জ্ঞান ফেরার পর নিরুর পাশে গিয়ে বসে, নিরু বলে,
__ “ দেখেছো আমার ছেলেকে। ”

__ “ হুমম ”

__ “ তোমার মতো হয়েছে তাইনা! ”

__ “ আব্বু তো বলছে আমার মতো আর আম্মু বলছে তোমার মতো। আমি তো ভাবি আমাদের ছেলে দুজনের মতই হয়েছে। ”

নিরু তখন বলে,
__ “ এই! শোনোনা! আমাদের ছেলের নাম কি রাখবে গো? ”

__ “ চাঁদের মত সুন্দর ছেলের নাম ঠিক করবে আমার বউ, কারণ এই অধিকার তার আছে। ”
__ “ তুমি আমাকে অনেক ভালোবাসো তাইনা! আমি জানি! আমরা দুজনে ওর নাম ঠিক করবো। কারণ ও আমাদের দুজনের সন্তান। ”

__ “ শুভর শ আর নিরুর ন দিয়ে আমাদের ছেলের নাম হবে শায়ানুজ্জামান শায়ন। কেমন হবে! ”

__ “ খুব ভালো হবে, আমি শায়ান বলেই ডাকবো আজ থেকে।”

শায়ান, শায়ান আর শায়ান! নাম শুনতে শুনতে সামিহার মনে বিষ উঠে গেছে। সবাইকে শুভ মিষ্টি খাওয়াচ্ছে আর ফোন দিয়ে শায়ান নাম বলছে শুভ। সে মনে মনে ঠিক করেছিলো শুভর সাথে সংসার হবে, ছেলের নাম রাখবে স্নিগ্ধ। সব গুড়েবালি, শুভর ছেলের নাম নাকি শায়ান। এইটা আবার নাম হলো নাকি। একা একাই বিড়বিড় করতে থাকে সামিহা।

রাতে বেবিকে নার্স দের দায়িত্বে নিতে দেয়না শুভ।

বাচ্চা তার মায়ের পাশেই থাকবে, শুভ নিজেই থাকবে নিরুর কাছে। শুভর মায়ের বয়স অনেক হয়ে গিয়েছে বলে সাগর সামিহা কে থাকতে বলে। শুভ সামিহা কে পছন্দ না করলেও আর নিষেধ করতে পারেনা সবার সামনে। আর রিমি তো থাকবেই নিরুর পাশে।

শুভ নিরুর পাশে শায়ান কে শুইয়ে পাশে বসে থাকে। আর সামিহা আর রিমি পাশের বেডে শুয়ে পড়ে। রিমি ঘুমিয়ে গেলেও সামিহা জেগেই থাকে।

গভীর রাতে শুভ ও নিরু পাশে মাথা দিয়ে শুয়ে পড়ে। পরদিন বাচ্চার কান্না তে শুভর ঘুম ভাঙে। বেবি খুব কান্নাকাটি করতে থাকে। শুভ থামানোর অনেক চেষ্টা করেও পারেনা। নার্স দের ডেকে বাচ্চা কে দিয়ে দেয়। নার্স রা বলে,

__ “ বাচ্চার ঠান্ডা লেগেছে, নিউমোনিয়া হয়ে গেছে। ”

চলবে……….

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here