প্রতিশোধ__2পার্ট_22 (শেষ)

প্রতিশোধ__2
জামিয়া_পারভীন
#পার্ট_22 (শেষ)

__ অনুষ্ঠান এর মাঝে অভি আর অনন্যার ভাড়া করা কিছু গুন্ডা চারিদিকে ঘিরে ফেলে। অনন্যা আবিরের কাছে গিয়ে গলা জড়িয়ে ধরে বলে ” মাই ডিয়ার ডার্লিং! অনেক তো হলো লুকোচুরি, আমার ছেলের বউ তিথিকে তো নিজের ছেলের বউ করেই ফেললে, কোন আফসোস নাই এতে, তোমার মেয়েটা আরোও বেশি সুন্দর, ওকেই এখন ছেলের বউ করে চাই। নইলে তোমার কুকর্মের কথা তোমার ছেলেমেয়ের সামনে ফাঁস করে দিবো। সাথে সাথে তোমার মান সম্মান তো হারাবেই, ছেলেমেয়ের সামনে মুখ দেখাতে পর্যন্ত পারবেনা। ” বলেই জোরে জোরে হাসতে শুরু করে।

__ অনন্যার কথায় আবির বলে ” প্লিজ এমন করোনা অনু, সারাটা জীবন পাপের শাস্তি বয়ে বেড়িয়েছি। আর পাপের বোঝা মাথায় নিতে চাইনা। আমার মেয়েটা তো কোন দোষ করেনি, তাছাড়া ওর বিয়ে ঠিক করে রেখেছি আমার বেষ্ট ফ্রেন্ড এর ছেলের সাথে। একজন কে ভালোবেসে আরেকজনের ঘর কিভাবে করবে বলো? ”

__ এতে অনন্যা আরোও রেগে বলে ” আমি কিভাবে একজন কে ভালোবেসে আরেকজনের ঘর করেছি। ভালোবাসা পাইনি তো কি হয়েছে, প্রতিশোধের আগুনে তো সবাইকে জ্বলিয়েছি। এখন আমার সুখ শুধু তোমার মেয়ের দিকে। ” মনে হচ্ছে অনন্যার আগুনে সব কিছু পুড়ে ছাড়খার করে দিবে।

,
,
__ মনিকা ভেবেছিলো অভি তিথিকে বিয়ে করে পথের কাঁটা সরিয়ে দিবে। কিন্তু এখন পরিস্থিতি উল্টো দেখে অভির ঘাড়ে হাত দিয়ে বলে ” এই অভি! এইসব কেনো বলছো, তোমার তো তিথিকে বিয়ে করার কথা। ”

__ অভি মনিকার ঘাড় থেকে হাত নামিয়ে নিয়ে বলে ” অন্যের খাওয়া মালের উপর আমার লোভ নেই। আমার লোভ খাঁটি জিনিসের উপর। ”

__ মনিকা নুহাশকে ভালোবাসে তাই ওর ফ্যামিলির ক্ষতি চায়না তাই বলে ” আমি ও কারো সাথে প্রেম করিনি। তাহলে তো আমাকেই বিয়ে করতে পারো। ”

__ মনিকাকে সরিয়ে দেয় অভি, মনে মনে ভাবছে মনিকাও কম সুন্দরী নয়। কিন্তু নেহা তার চেয়ে বেশি সুন্দরী।

,
,
এতো বিপদের মাঝে নেহা তিথির হাত চেপে বসে আছে। আর নুহাশ বুঝতে পারছেনা কি বলবে। হটাৎ নুহাশের মাথায় বুদ্ধি আসে। নেহার সাথে যার বিয়ে ওদের বাবা ঠিক করেছে তাদের কে বাসার ঠিকানা আর পুলিশের নাম্বার দিয়ে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আসতে বলে। আবির আসলে নেহার বিয়ে ঠিক করেছে আবিরের বান্ধবী মিশির একমাত্র ছেলে মুরাদের সাথে। এটা নেহা কে সারপ্রাইজ দিতে চাইলেও নুহাশ কে আবির জানিয়ে রেখেছিলো। আর কাজের সময় নুহাশ এই বুদ্ধি কাজে লাগিয়ে ভালো ই করেছে।
,
,
মুরাদ নুহাশের বিয়ে উপলক্ষে ওদের বাসার দিকেই আসছিলো।
হটাৎ মুরাদের ফোনে মেসেজ আসতেই ওর বাবা মা কে দেখায়। আর কুইক লন্ডন পুলিশে ফোন করে জানিয়ে দিয়ে ওদের বাসায় প্রবেশ করে। যেহুতু নুহাশ জানিয়ে দিয়েছে ওদের কাছে পিস্তল আছে তাই সাবধানে গেটের কাছে দাঁড়িয়ে থাকে। শুধু পুলিশ আসার অপেক্ষায়।
,
,
অভি নেহার দিকে এগিয়ে গিয়ে ওকে জোর করে টেনে আনে। নুহাশ কিছু বলতে পারছেনা কারণ ওর মাথাতেও এখন পিস্তল ঠেকানো আছে। নুহাশের বিয়ে উপলক্ষে ম্যারেজ রেজিস্টার আর কাজী দুইজনেই ছিলো। তাই অভির কাজ টা সহজ হয়ে গেছে। বার বার নেহাকে রেজিস্ট্রি পেপার এ সাইন দিতে বলছে। সবাই জীবনের মায়া ত্যাগ করে নেহাকে বিয়ে করতে নিষেধ করছে।
তবুও বাবা আর ভাইয়ের দিকে তাকিয়ে সাইন করতে যায়। তখন পুলিশ চলে আসে। পুলিশ কায়দা করে সবাই কে এরেস্ট করে। অভি আর অনন্যার খেলা শেষ হয়ে যায়।

,
,
মিশি, তন্ময় আর মুরাদ ভিতরে আসে। নেহা বেশ অবাক হয় মুরাদ কে দেখে। মুরাদ মুচকি হাসি দিয়ে নেহার দিকে এগিয়ে যায়।

__ ” কি ম্যাম, ভয় পেয়েছিলেন বুঝি। আমি থাকতে আপনাকে বিয়ে করবে এমন কেউ আছে নাকি? ” মুরাদ নেহার মাথায় টোকা দিয়ে বলে।

__ “হুম, খুব ভয় পেয়েছিলাম, কিন্তু এখন বিরক্ত লাগছে আপনাকে দেখে। ” মুখ বাঁকিয়ে বলে নেহা।

__ মুরাদ নেহার দুই ঘাড়ে দুই হাত রেখে বলে ” এখন বিরক্ত লাগছে তাতে কি হয়েছে, পরে বিরক্ত টাকেই ভালবাসায় রুপান্তরিত করে নিবো। ”

__ নেহা কিছুটা লজ্জায় দূরে সরে যায়।

নিরা মিশির গলা জড়িয়ে ধরে বলে
__ ” মেয়ের সাথে আপনার ছেলের বিয়ে দিতে পারি তবে শর্ত আছে। দেশে ফিরে আমাদের বাসায় বড় অনুষ্ঠান করে বিয়ে দিবো। ”

নিরার এই কথায় সবাই মত দেয়। অনেকদিন তৃণা সাইফ ও দেশে যায়নি। আবার নিরা আবিরের ও দেশের কথা মনে পড়ে। আর নুহাশ, নেহা, তিথি কেউ ই দেশ দেখেইনি। সবাই এক সাথেই রাজি হয়ে যায়, দেশের বাড়ি ফিরার আনন্দে বিভোর সবাই।

__ মনিকা নুহাশ কে বলে ” তাহলে স্যার, আমাদের বাসাতেও যেতে হবে। ”

__ নুহাশ মনিকার প্রস্তাবে রাজি হয়ে যায়। ” ওকে যাবো ”

সবাই মিলে সব ঠিকঠাক করে দেশের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়।

আবিরদের বাসায় উঠে সবাই। বাড়ি টা অযত্নে কেমন যেন হয়ে গেছে। তাও এখানেই আসে মায়ার টানে।

নিরা আর তৃণা প্রথমে নিজেদের বাড়ি যায়। মানে ওদের বাবার বাড়ি, মাসুদ বা ওর বৌ মিলি কেউ ছিলো না তখন। ওরা অপেক্ষা করতে থাকে তখন মনিকা কে দেখতে পায়। মনিকা ওদের ভাইয়ের মেয়ে কখনো বুঝতে পারেনি কেউ। এয়ারপোর্টে নেমে মনিকা বাসায় চলে আসে। আর ওরাও ওদের উদ্দেশ্যে যায়।

মনিকা এগিয়ে এসে বলে
__ ” আরে আন্টি, আপনারা এসেছেন খুব খুশি হয়েছি। কিন্তু বাসা চিনলেন কিভাবে? ”

নিরা বলে
__ ” বাসা না চিনার কি আছে এটা আমার বাবার বাড়ি। যাই হোক তুমি কি মাসুদের মেয়ে নাকি। ”

__ ” জ্বী হ্যাঁ, আমার বাবার নাম মাসুদ। ” মনিকার কথা শেষ না হতেই নিরা জড়িয়ে ধরে মনিকাকে আর বলে

__ ” তোমার জন্মের আগেই দেশ ছেড়ে চলে গেছিলাম। তাই খবর পাইনি আর।
আচ্ছা তোমার দাদা দাদী রা কোথায়? আর বাবা মা? ”

__ ” দাদা তো আমার জন্মের কিছুদিন পরই মারা গেছিলো শুনেছিলাম আর দাদী তো……. ” বলেই থেমে যায় মনিকা।

__ দুই বোনের বাবার জন্য চোখে জল আসে। সামলিয়ে নিয়ে মায়ের কথা জানতে চায় ওরা। কিন্তু মনিকা কিছু বলার আগেই মাসুদ আর মিলি একসাথে প্রবেশ করে। হয়ত কোন অনুষ্ঠান এ গিয়েছিলো, খুব গর্জিয়াস ড্রেসে মিলি আর মাসুদ কোর্ট প্যান্ট পড়ে আছে। মাসুদ দুই বোন কে দেখে একটু চমকে গেলেও বলে
__” কিরে, তোরা এই অবেলায়! তোদের বাবার সম্পত্তির ভাগ নিতে এসেছিস বুঝি। ”

__ তৃণা রেগে গিয়ে বলে ” বাবা টা আমাদের ছিলো, সম্পত্তি যদি বলিস তাহলে তোমার কোন অধিকার নেই আমাদের বাবার সম্পত্তি তে। যাই হোক সেই জন্যে আমরা আসিনি। এসেছিলাম আমাদের বাবা মায়ের খোঁজ এ। বাবা তো মারাই গেছে, আমাদের মা কোথায় সেটা বলো? তাকেও কি মেরে ফেলেছো নাকি? ”

__ ” নাহ! আছে আছে, মরেনি, বুড়ির রক্তে অনেক তেজ। কোন এক বৃদ্ধাশ্রম এ আছে হয়তো। ” হাসতে হাসতে বলে মাসুদ।

__ তৃণা রাগ করে মাসুদ কে চড় মেরে দেয়। ” আজ তুমি আমার মায়ের পেটের সৎ ভাই বলে ক্ষমা করে দিলাম। যেই মা জন্মের পর স্বামীর অত্যাচারেও তোমাকে ফেলে পালিয়ে যায়নি। সেই মাকে অবহেলা করে জাহান্নামে ও যায়গা পাবেনা। ”

__ নিরা বলে ” জীবনে অনেক কিছু হারিয়েছি, এখন যদি মা কে সুস্থ না পাই তোমাকে জেলে পাঠাবো মনে রাখিও। ”

__ মনিকা নিরাকে ডেকে বলে ” ফুপি, আমি জানি দাদী কোথায় আছে, মাঝে মাঝে দেখতে যেতাম যখন দেশে থাকতাম। ”

__ “ক্ষমা করে দে বোন, তোদের ভাবি চায়নি মা থাকুক, তাই না চাইতেও সরিয়ে দিয়েছিলাম। যাদের জন্য আমাদের এতো উন্নতি তাদের কেই আমরা সরিয়ে দিয়েছি। ” বলে কাঁদতে শুরু করে মাসুদ

নিরা, তৃণা ওই বাসাতে এক মুহুর্ত না থেকে মনিকার সাথে সেই বৃদ্ধাশ্রমে যায়। অনেক খোঁজ নিয়ে মায়ের খবর পায় নিরা আর তৃণা। অনেক দিন পর মা কে দেখে দুই বোনের ই খুব কষ্ট হচ্ছে। মায়ের বয়স অনেক হয়েছে চোখেও ভালো দেখেনা। বিনা চিকিৎসা তে অবহেলায় কংকাল সার শরীর হয়ে আছে। দুই বোন হেনাকে জড়িয়ে ধরে অনেক কাঁদে আর ক্ষমা চায়। এরপর বৃদ্ধাশ্রম থেকে মা কে মুক্ত করিয়ে আবিরের বাসায় নিয়ে আসে। ফিরে এসেই মায়ের সব চিকিৎসা ব্যবস্থা করে নিরা, কয়েকজন নার্স রাখে বাসায়।

,
,
বড় অনুষ্ঠান করে নেহা আর মুরাদের বিয়ে দেয় আবির আর নিরা। নেহা কে বিদায় জানিয়ে আবির কে জড়িয়ে ধরে নিরা। তৃণা সাইফ মেয়ে আর মেয়ে জামাইকে নিয়ে নিজেদের বাড়িতে যায়।

,
,
নেহাকে নিয়ে যাওয়া হয় ওর শ্বশুরবাড়ি। বড় একটা ঘরের মাঝখানে খাট রাখা আছে। ফুল দিয়ে সাজানো খাট সাথে পুরো ঘরেই আছে গোলাপ আর রজনী গন্ধা ফুল। ঘর টা তাকিয়ে দেখছে নেহা, যতটা সুন্দর তার চেয়েও আকর্ষণীয় চারিদিকে ফুলের টবের জন্য। ঘরের মাঝে খাট একপাশে ড্রেসিং টেবিল, পাশে আলমিরা, অন্যপাশে সোফা, সোফার পাশে টি টেবিল, আর এক পাশে একুরিয়াম। সুন্দর সুন্দর মাছ ঘুরে বেড়াচ্ছে একুরিয়াম এ। ঘরের উপরে রেখেছে ঝাড়বাতি, এতে গোটা ঘরে আলো ছড়িয়ে পড়ছে। মুরাদ রুমে প্রবেশ করে নেহার দিকে এগিয়ে যায়। নেহা চোখ নামিয়ে নিলেও মুরাদ তাকিয়ে থাকে। বৌ সেজে নেহাকে খুব সুন্দর লাগছিলো।

__” প্রথম যেদিন তোমাকে দেখি তখনই আমি ঠিক করে নিই তোমাকে বিয়ে করবো। পরে সব খোঁজ নিতেই জেনে গেলাম তোমার আব্বু আমার আমার আম্মু ফ্রেন্ডস। কাজ টা খুব সহজ হয়ে যায়, তাই আজ তোমাকে পেয়ে গেলাম। ” মুরাদ নেহাকে বলে।

__ নেহা কোন কথা বলেনা। মুরাদ নেহার গালে স্পর্শ দেয় এতে নেহার লাজুকতা আরোও বেড়ে যায়। নেহা কিছু বলার আগেই নেহাকে কোলে তুলে নেয়। বারান্দায় নিয়ে গিয়ে সোফাতে বসিয়ে দেয়। চাঁদের আলো নেহার মুখে পড়তে সৌন্দর্য আরোও বেড়ে যায়। মুরাদ অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে নেহার দিকে।

__ ” সরি, সেদিন ওমন করে চড় দেয়া ঠিক হয়নি। মাফ করে দিয়েন। ” নেহা আস্তে আস্তে বলে।

__ “মাফ করতে পারি এক শর্তে, যদি তুমি তোমার ঠোঁটের ছোঁয়ায় আমার জীবন রাঙিয়ে দাও। ”

__ নেহা লজ্জা পেয়ে নিচের দিকে তাকায়। কি বলবে বুঝতে পারছেনা আসলে। সব বোঝা বুঝি অতিক্রম করে মুরাদ নেহার ঘাড়ে কিস দেয়। নেহা শিহরিত হয়ে উঠে দাঁড়াতে গেলে মুরাদ হাত ধরে টান দেয়, এতে নেহা মুরাদের উপরে গিয়ে পড়ে। মুরাদ নেহার মাথার পিছনে হাত দিয়ে টেনে ধরে নিজের কাছে। বাকিটা বাকিই থাক, ওদের রোমান্স দেখে আমরা কি করবো।
😍

,
,
আজ তিথি লাল শাড়ি পড়েছে

__ ” কি ব্যাপার তিথি পরি কাছে কি আসবে না। সেদিন থেকেই শুধু না না করছো? ” নুহাশ তিথিকে পিছন থেকে জড়িয়ে ধরে বলে।

__ ” আসবোই তো” বলে তিথি নুহাশের ঠোঁট এ কামড় দিয়ে পালিয়ে আসে।

__ নুহাশ তিথির আঁচল ধরে টান দেয়। তিথির পিঠে আলতো ছোঁয়া দিয়ে তিথিকে পাগল করে দেয়। তিথি ঘুরে এসে নুহাশের বুকে জড়িয়ে ধরে। নুহাশ তিথির ঘাড়ের কাছে ফিতে টা টান দেয়। শিহরণ এ আরোও বেশি করে নুহাশ কে জড়িয়ে ধরে।

সমাপ্ত

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here