রোমান্টিক_ডাক্তার পার্ট: ৭

0
134
রোমান্টিক_ডাক্তার

পার্ট: ৭

লেখিকা: সুলতানা তমা

চোখেমুখে পানির ছিটা পড়াতে জ্ঞান ফিরলো, আস্তে আস্তে চোখ খুলে তাকালাম। ঝাপসা চোখে তাকিয়ে দেখি কাব্য’র কোলে শুয়ে আছি। এক লাফ দিয়ে উঠে ওকে জরিয়ে ধরলাম।
কাব্য: শান্ত হও প্লিজ (কিছু না বলে শুধু কেঁদেই যাচ্ছি)
কাব্য: তিলো তাকাও আমার দিকে, আমাকে বলো কি হয়েছে। (আস্তে আস্তে কাব্য’র দিকে তাকালাম, কি হয়েছে সেটা কি ওকে বলা ঠিক হবে)
কাব্য: ভয় পেয়ো না আমি তো তোমার কাছেই আছি, বলো আমাকে কি হয়েছে।
আমি: যা হয়েছে সেটা দুঃস্বপ্ন ভেবে ভুলে যেতে চাই আর মনে করতে চাই না এসব (কাব্য’কে জরিয়ে ধরে বললাম। আজ মামি খারাপ কাজ করেছে কিন্তু এতোদিন তো আমাকে মামিই দেখাশোনা করেছে থাকনা মামির খারাপ চরিত্রটা লুকানো)
কাব্য: ঠিক আছে বলতে হবে না তুমি শান্ত হও। (চারদিকে চোখ বুলালাম, আমি তো একটা বাসায় আছি)
আমি: আপনি আমাকে পেলেন কোথায় আমি তো…
কাব্য: হুম রাস্তাতেই অজ্ঞান অবস্থায় পেয়েছি।
আমি: আপনি…
কাব্য: আমি তোমাদের বাসায় গিয়েছিলাম তোমার মামির সাথে বিয়ের কথা বলতে কিন্তু উনি বললেন সকালে যেন যাই কারণ তুমি এখন ঘুমে। সন্ধ্যায় তোমার কন্ঠ শুনে অসুস্থ মনে হচ্ছিল তাই আমি বিশ্বাস করে চলে আসি। মধ্যে তোমাকে অনেক বার ফোন দিয়েছি কিন্তু তুমি রিসিভ করনি তাই ভেবেছিলাম সত্যি তুমি অসুস্থ আর তাই ঘুমিয়ে আছ। কিন্তু বাসায় ফিরার পথে তোমাকে রাস্তার পাশে এভাবে পড়ে থাকতে দেখি, আর বাসায় নিয়ে আসি। ভাগ্যিস আমি ওই রাস্তা দিয়ে আসছিলাম নাহলে তো তোমাকে আমি হারিয়েই ফেলতাম।
আমি: আরে বাচ্চাদের মতো কাঁদছেন কেন..?
কাব্য: যদি সত্যি তোমাকে হারিয়ে ফেলতাম, জানো আমি কতোটা ভয় পেয়েছিলাম।
আমি: হ্যাঁ বুঝেছি অনেক ভয় পেয়েছিলেন এখন বাচ্চাদের মতো কান্না থামান।
কাব্য: আমার কান্না তোমার কাছে বাচ্চাদের মতো লাগে।
আমি: নাতো কে বললো, আপনি তো বুড়ো মানুষ।
কাব্য: কি আমি বুড়ো..?
আমি: আচ্ছা এই বাসায় কি কোনো মানুষ থাকে নাকি আপনি আমাকে ভুল করে এইটা বাসা ভেবে চিড়িয়াখানায় নিয়ে এসেছেন।
কাব্য: ইসস মানুষ এভাবে লজ্জা দেয়, আমার তো বউ নেই যে সবকিছু গুছিয়ে রাখবে তাই বাসার এই অবস্থা। কিন্তু এখন তো তুমি চলে এসেছ এখন সব গুছিয়ে রাখবে।
আমি: হুম বুঝেছি কিন্তু আপনি তো বলেছিলেন ভাই ভাবী সবাই আছে।
কাব্য: ওরা তো অন্য বাসায় আমি এখানে একা থাকি।
আমি: হ্যাঁ চিড়িয়াখানার…
কাব্য: আবার বলছ।
আমি: ওকে আর বলবো না।
কাব্য: তুমি ফ্রেশ হয়ে নাও আমি একটু আসছি।
আমি: কোথায় যাবেন..?
কাব্য: আমার এই বাসাটা শহর থেকে একটু দূরে এখানে তেমন কিছু পাওয়া যায় না একটা রেস্টুরেন্ট আছে সামনে ওখান থেকে কিছু খাবার নিয়ে আসি।
আমি: ঠিক আছে।

কাব্য চলে গেলো, আমি বাসাটা ঘুরে ঘুরে দেখছি অনেক বড় বাসা। রাতের বেলা তাই বাইরের কিছু বুঝা যাচ্ছে না কিন্তু কাব্য সবাইকে রেখে শহর থেকে দূরে এমন একটা অদ্ভুত বাড়িতে একা একা থাকে কেন বুঝতে পারছি না। বাসাটা সত্যি খুব অদ্ভুত ভিতরে তেমন কোনো জিনিসপত্র নেই, চারপাশ কেমন যেন খালি খালি লাগছে। হঠাৎ আমার শরীরের দিকে নজর পড়লো, সারা শরীরে ধুলো জামার মধ্যে কাদা কোথা থেকে লাগলো আবার। এক্ষণি গোসল করতে হবে কিন্তু কাপড়চোপড় পাবো কোথায়। রুমের এক কোণে আলমারির দিকে চোখ পড়লো হয়তো কিছু পাবো তাই আলমারি খুলে খুঁজতে শুরু করলাম। কিন্তু কাব্য’র কিছু শার্ট প্যান্ট ছাড়া কিছুই পেলাম না। একটা শার্ট আর একটা প্যান্ট হাতে নিয়ে আলমারি লাগাতে যাবো তখনি আলমারির কোণে পড়ে থাকা একটা ছবির দিকে চোখ পড়লো। হাতে এনে ভালোভাবে দেখলাম, ছবিটাতে কেমন যেন সাদা সাদা দাগ পড়ে গেছে। দেখে মনে হচ্ছে উনারা কাব্য’র মা বাবা। কিন্তু নিজের আব্বু আম্মুর ছবি দেয়ালে না রেখে ও আলমারির এক কোণে এভাবে ফেলে রেখেছে কেন। ইসস ছবিটা কি অযত্ন করে ফেলে রেখেছে।

কাব্য: তিলো কোথায় তুমি..?
আমি: আসছি।
কাব্য: কি করছ তু…
আমি: এইতো। (গোসল করে বের হতেই দেখি কাব্য খাবারের প্যাকেট হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। আমাকে দেখে তো কাব্য হা করে তাকিয়ে আছে, তাকাবেই তো ওর শার্ট পড়েছি যে। নিজেরই লজ্জা লাগছে কিন্তু কি করবো অন্য কিছু ছিল না তো)
কাব্য: আমি ঠিক দেখছি তো নাকি স্বপ্ন দেখছি (কাব্য’র কাছে গিয়ে ওর হাতে একটা চিমটি দিলাম)
কাব্য: উফফ।
আমি: এবার বুঝেছেন সত্যি যে।
কাব্য: তুমি পড়েছ আমার শার্ট…?
আমি: হ্যাঁ তো কি করবো আর কিছু ছিল নাকি..? আচ্ছা বাসাটা যেহেতু আপনার তাহলে ভবিষ্যৎ বউ এর কথা ভেবে তো কিছু কাপড়চোপড় কিনে রাখতে পারতেন।
কাব্য: যেখানে বিয়ে করার ইচ্ছেটাই মরে গিয়েছিল আবার ভবিষ্যৎ বউ এর কথা ভেবে এতোকিছু করবো (একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে আস্তে আস্তে কথাটা বললো)
আমি: বিয়ে করার ইচ্ছে ছিল না মানে..?
কাব্য: বিয়ে জিনিসটা আর মেয়েদের আমি ঘৃণা করতাম কিন্তু সেদিন হসপিটালে তোমাকে দেখে সবকিছু কেমন যেন উলটপালট হয়ে গেলো। কিভাবে যে তোমাকে এতোটা ভালোবেসে ফেলেছি আর বিয়ে করার জন্য এমন পাগল হয়েছি নিজেই বুঝতে পারছি না।
আমি: একটা কথা জিজ্ঞেস করবো..?
কাব্য: করতে পারো কিন্তু রেজাউল চৌধুরী আর হুমায়রা চৌধুরীর প্রসঙ্গ বাদে।
আমি: উনারা কারা..?
কাব্য: হিয়ার বাবা মা।
আমি: হিয়া…
কাব্য: আমার ছোট বোন।
আমি: আশ্চর্য তো উনারা যদি হিয়ার বাবা মা হন তাহলে তো আপনারো…
কাব্য: না উনারা আমার বাবা মা না, কোনো সন্তানের বাবা মা হবার যোগ্যতা উনাদের নেই।
কাব্য বারান্দায় চলে গেলো। সবকিছু কেমন যেন গুলিয়ে যাচ্ছে। কাব্য নিজের বাবা মায়ের নাম ধরে ডাকছে, উনাদের নিজের বাবা মা বলে স্বীকার করছে না আবার বলছে বিয়ে করার ইচ্ছা ছিল না মেয়েদের ও ঘৃণা করে। থাক এসব নিয়ে পড়ে ভাববো আগে কাব্য’র কাছে যাই, হয়তো কাঁদছে।

যা ভেবেছিলাম তাই, কাব্য বারান্দায় দাঁড়িয়ে সিগারেট খাচ্ছে আর কাঁদতেছে। বুঝতে পারছি না আম্মু আব্বুর কথা বললেই ও কাঁদে কেন।
আমি: সরি (কাব্য’কে পিছন থেকে জরিয়ে ধরলাম)
কাব্য: সরি।
আমি: আপনি কেন সরি বলছেন..?
কাব্য: তোমার সামনে সিগারেট খাচ্ছি তাই, আমি তো জানি তুমি সিগারেট অপছন্দ করো।
আমি: আমিও সরি আব্বু আম্মুর কথা মনে করিয়ে আপনাকে কষ্ট দিয়েছি। কিন্তু আপনি বুঝলেন কিভাবে আমি যে আব্বু আম্মুর কথা জিজ্ঞেস করবো..?
কাব্য: আলমারি থেকে শার্ট খুলে পড়েছ তারমানে ছবিটা তুমি দেখেছ তাই মনে হলো এইটা নিয়েই কিছু জিজ্ঞেস করবে। (জিজ্ঞেস তো করার ছিল অনেক কিছু, আমার মনে যে একের পর এক প্রশ্ন জাগছে শুধু কিন্তু আপনার কান্না সহ্য করতে পারিনা তাই আর কিছু জিজ্ঞেসও করবো না)
আমি: চলুন খিদে লেগেছে আমার।
কাব্য: হুম চলো।

একটু আগে যে মানুষটা যন্ত্রণায় ছটফট করে কাঁদছিল সে এখন আমাকে খুব যত্ন করে খাইয়ে দিচ্ছে। কাব্য’কে দেখে বুঝার উপায় নেই যে ও একটু আগেই কেঁদেছে।
কাব্য: কি দেখছ এভাবে..?
আমি: উঁহু কিছুনা। (কাব্য আমাকে তুলে খাইয়ে দিচ্ছে আর বার বার আমার দিকে তাকাচ্ছে। আমি একমনে ওকে দেখছি আর ভাবছি আমার মতো একটা মেয়ে যে কিনা দেখতে কালো, বাবা মা নেই আর এখন তো আমার কিছুই নেই, সেই আমাকে কিনা কেউ এতোটা ভালোবাসতে পারে তাও আবার কাব্য’র মতো একজন মানুষ। যে মানুষটা কিনা দেখতে সুন্দর, পেশায় একজন ডক্টর সেকিনা আমাকে এমন নিখুঁত ভাবে ভালোবাসে)
কাব্য: শার্ট পড়লে তোমাকে দারুণ লাগে আমার তো মাথা নষ…
আমি: এই একদম বাজে কথা বলবেন না।
কাব্য কিছু না বলে হাসছে শুধু, আর আমি মুগ্ধ হয়ে ওর হাসি দেখছি। একটা মানুষের হাসি এতো সুন্দর হয় কিভাবে…?

জানালার কাছে নিশ্চুপ হয়ে দাঁড়িয়ে আছি, কাব্য এসে আমাকে পিছন থেকে জরিয়ে ধরলো।
কাব্য: তোমার জন্য আর একটা খাবার আছে।
আমি: কি..?
কাব্য: পিছনে তাকাও (কাব্য’র কথা শুনে পিছনে তাকালাম)
আমি: এতোগুলো চিপস।
কাব্য: তিশা বলেছে তুমি চিপস পাগলী তাই নিয়ে এসেছি।
আমি: তাই বলে এতোগুলো..?
কাব্য: আমার বউকে আমি সবকিছু বেশি বেশি দিবো তাতে তোমার কি…?
আমি: কিন্তু ভালোবাসাটাই তো কম দিচ্ছেন।
কাব্য: তাই বুঝি।
আমি: এই কি করছেন কোলে নিচ্ছেন কেন আমি তো ফাজলামো করে বলেছি।
কাব্য কিছু না বলে আমাকে কোলে করে বারান্দার দিকে নিয়ে যাচ্ছে। কাব্য’র শার্ট খামচে ধরে এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছি ওর দিকে।

বারন্দায় একটা কাউচ রাখা, কাব্য আমাকে কাউচে শুয়ে দিলো। রুমে গিয়ে চিপস এনে আমার হাতে দিয়ে হেসে বললো…
কাব্য: চিপস পাগলী চিপস খাও (অবাক হয়ে তাকিয়ে আছি ওর দিকে, আমি তো এমন একজন জীবনসঙ্গীই চেয়েছিলাম। শুধু আমি কেন প্রত্যেকটা মেয়েই এমন একজন জীবনসঙ্গী চায়, যে কিনা মেয়েটির ছোট ছোট ইচ্ছে গুলোর মূল্য দিবে)
কাব্য: নাও তিশার সাথে কথা বলো (আমার দিকে ফোন এগিয়ে দিলো)
আমি: হ্যাঁ তিশা।
তিশা: আমাকে একবার বলে তো যাবি আমার টেনশন হয় না..?
আমি: আসলে আমি খুব ভয় পেয়ে গেছিলাম তাই তোর কাছে আর যাইনি।
তিশা: না এসে ভালোই করেছিস তোর মামি আমাদের বাসায় লোকজন নিয়ে এসে যা কান্ডটাই না করেছে। এখন কাব্য’র কাছে যেহেতু আছিস আমার আর কোনো চিন্তা নেই।
আমি: হুহ।
তিশা: শুন এখানে ফিরে আসার প্রয়োজন নেই কাব্য’র সাথে ওর বাসায় যাবি আর দু-তিন দিনের মধ্যেই তোর আর কাব্য’র বিয়ে হবে, আমি ওদের বাসায় আসবো চিন্তা করিস না।
আমি: ঠিক আছে।
তিশা: রাখছি।

তিশা ফোন রাখতেই কাব্য এসে আমার পাশে বসলো, এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে আমার দিকে।
আমি: কি দেখছেন..?
কাব্য: আমার বউটাকে।
আমি: আপনি যে কি।
কাব্য: আমি একজন ভদ্র মানুষ তাই তো আজ নিজেকে অনেক কষ্টে কন্ট্রোলে রাখছি।
আমি: মানে।
কাব্য: কিছুনা।
আমি: এই এভাবে হাসবেন নাতো। (কাব্য এসে আমার পাশে শুয়ে পড়লো তারপর আমার নাকে ওর নাক ঘষে হেসে বললো…)
কাব্য: আমার হাসি তোমার পছন্দ না বুঝি…?
আমি: উহু আপনার হাসি খুব সুন্দর তাই আপনি যখন হাসেন আমার নিজেরি নিজের প্রতি হিংসে হয়।
কাব্য: কেন কেন..?
আমি: এইযে আমার মতো মেয়ে আপনার মতো একজন মানুষকে পেয়েছে।
কাব্য: আর কখনো যদি নিজেকে ছোট ভেবেছ তাহলে কিন্তু… (কাব্য রেগে গেছে বুঝতে পারছি তাই চুপ হয়ে আছি। হঠাৎ কাব্য আমার বুকের উপর শুয়ে পড়লো)
আমি: ডাক্তারবাবু কি করছেন।
কাব্য: তিলো আমার এই জায়গাটায় না অনেক ব্যথা, অনেক প্রিয়জনদের হারানোর যন্ত্রণা জমা হয়ে আছে এই জায়গায়। সব কষ্ট ভুলে যেতে চাই আমি তোমার ভালোবাসা দিয়ে প্লিজ আমাকে ছেড়ে যেওনা (আমার ডান হাতটা কাব্য’র বুকের বাম পাশে নিয়ে রেখে কথা গুলো বললো। কাব্য আবারো কাঁদছে কিন্তু কাব্য’র কিসের এতো কষ্ট)
আমি: উহু কখনো যাবো না আমার ডাক্তারবাবুকে ছেড়ে।
কাব্য’কে আমার বুকের সাথে শক্ত করে জরিয়ে ধরলাম। কাব্য ছোট বাচ্চাদের মতো নিশ্চুপ হয়ে শুয়ে আছে আর কাঁদছে। আর আমি ওর চুলগুলোর মাঝে হাত বুলিয়ে খেলা করছি।

চলবে😍

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here