চশমাওয়ালা_ছেলেটি _পর্ব_৪

0
278

চশমাওয়ালা_ছেলেটি
_পর্ব_৪
Written by Avantika Anha
নাহিদ ঢাকায় গেলো আর ভাবতে লাগলো কে এই মেয়ে আনহা নাকি তার পাশের বাড়ির মেয়েটা ।
.
নাহিদ এসব ভাবতে ভাবতে সময় পার করতে লাগলো ।
.
এদিকে শাম্মি আর জাহিদের প্রেম গভীর হতে লাগলো ।
.
১ মাস পর….
কোনো এক ছুটিতে আবার নাহিদের ফিরে আসা ।
.
নাহিদ আবার ওই পাড়ার ওদিক যায় । এবার নাহিদ খুঁজে পায় একজনকে কিন্তু সেই মানুষটা যে ভুল মানুষ সে বুঝতে পারে না ।
.
সেদিন জান্নাত দের বাড়িতে আনহা গিয়েছিলো কোনো এক কাজে । জান্নাতের বন্ধুরা ছিলো । তারা রিকোয়েস্ট করেছিলো আনহার গান শুনতে তাই আনহা গান গেয়েছিল । সেই সময়ই নাহিদ এসেছিলো ।
পরে সে জানালা দিয়ে জান্নাত কে দেখতে পায় আর ভাবে এটাই হয়তো তার এলোকেশী ।
.
.
দিন যেতে থাকে আর নাহিদ জান্নাতের সাথে বন্ধুত্ব করে ফেলে । জান্নাত মেয়েটা ওতোটা ভালো না । কিছুটা পাগল টাইপ । সাইকো ও বলা যায় । কিন্তু অন্য সময় ভালো থাকে ।
.
পরের দিন….
কলেজে
আমি আর শাম্মি বসে আছি । এমন সময় জাহিদ আসলো ।
আমি : কি রে রোমিও লেট কেন জানিস না তোর জুলিয়েট অপেক্ষা করছে
জাহিদ : না রে ঢংগি জানতাম না
আমি : দোস্ত একটা কাম কইরা দে না
জাহিদ : পারুম না
আমি : শাম্মি তোর বফ রে বল কইরা দিতে
জাহিদ : আইছে মেডাম নিজে কর
আমি : কিটক্যাট আইনা দে না শেষ হইয়া গেছে
জাহিদ : পারুম না
আমি : শাম্মি দেখ
শাম্মি : ওই আনহা যা বলছে করো নইলে ব্রেক আপ
আমি : হিহি থেংকু দোস্ত
জাহিদ : দুই বান্ধবী আম্রে শেষ কইরা দিবে আল্লাহ তুইলা নাও
আমি : আগে কিটক্যাট আইনা দে ।
.
.
জাহিদ কিটক্যাট আনতে গেল । এমন সময় নাহিদ আসলো জাহিদ কে কি জানি দিতে । আমি সেই টাইমে নাহিদ কে দেখলাম আর জাহিদ ভেবে টানতে টানতে শাম্মির কাছে নিয়ে আসলাম ।
.
আমি : হারামি আমার কিটক্যাট কই?
নাহিদ : মানে ?
শাম্মি : ওই তুমি না ওর কিটক্যাট আনতে গেলা কই কিটক্যাট ?
আমি : দ্বারা দেখাচ্ছি মজা ।
.
কিল ঘুসি মারতে লাগলাম নাহিদের গায়ে । আমি ভেবেছিলাম ওটা জাহিদ ।
এমন সময় জাহিদ আসলো আর বললো : কি রে কাকে মারিস ?
আমি : জাহিদ রে
জাহিদ : আমি তো এখানে
আমি : মানে ?
.
তাকায় দেখি ওটা জাহিদ
আমি ভুউউউউউউউত বইলা অজ্ঞান ।
.
জাহিদ : ওই নাহিদ তুই এখানে কেন ?
নাহিদ : তোকে এটা দিতে আসছিলাম আর এই মেয়ে আমাকে মারতে লাগলো ।
শাম্মি : এটা কে ?
জাহিদ : আমার যমজ ভাই নাহিদ তোমার ভাসুর হবে সালাম দাও
শাম্মি : আসসালামুয়ালাইকুম ভাইয়া
নাহিদ : ওয়ালাইকুমআসসালাম
.
কিন্তু এই মেয়ে তো ভয়ে অজ্ঞান কি করবি ?
জাহিদ : তোর জন্য হইছে তুই দেখ
নাহিদ : ওকে উঠা
জাহিদ : আমার হাত ব্যাথা শাম্মি আসো আমি গাড়ি বের করি ।
নাহিদ : ওই ওই জাহিদ
.
হুর আমাকেই কোলে উঠাতে হবে ।
নাহিদ আমাকে কোলে তুলে নিলো ।
নাহিদ : বাহ পাতলু মেয়েরো ওজন আছে ভালোই ।
.
.
উঠাতে গিয়ে আমার চুল খুলে গেলো । নাহিদ দেখলো লম্বা চুল মেয়েটার একদম আমার এলোকেশির মতো । কিন্তু ও কেনো জানি চুল কেটে ফেলছে ।‌ ওকে বলবো চুল আর জেনো না কাটে । কিন্তু মেয়েটা বড্ড মায়াবি ।
.
এসব ভাবতে ভাবতে গাড়িতে নিলো আমাকে ।
বাড়িতে আনলো । তারপর আমার মুখে পানির ছিটা দিলো ।
আমার জ্ঞান ফিরলো ।
আমি : আমার কি হইছে ।
.
মনে পড়লো সব পাশে তাকায় দেখি জাহিদ আর নাহিদ । ভয়ে চিল্লায় উঠলাম ।
আমি : আম্মু ভুত
জাহিদ : আর জ্ঞান হারাইস না । এটা ভুত না আমার যমজ ভাই ।
আমি : কি?
শাম্মি : হুম
আমি : তো আগে বলিস নাই কেনো ?
এতোদিন ধরে আমি আন্দাজি ভয় পাইতাম ।
শাম্মি : হুম
.
.
সেদিন বিকেলে…..
আমি , শাম্মি , নাহিদ আর জাহিদ গেলাম বেড়াতে ।
আমি : ওই‌ জাহিদ যা তো কিছু কিনে আন ।
জাহিদ : ওকে নাহিদ চল ।
নাহিদ : হুম চল
আমি : না শাম্মি কে নিয়ে যা
জাহিদ : ওকে
নাহিদ : কেন আমিই তো যাইতে পারবো তোমরা থাকো
আমি : না না ওই‌ তোরা যা আমার নাহিদের সাথে জরুরী কথা আছে ।
নাহিদ : ও বলো
.
জাহিদ আর শাম্মি গেলো ।
.
নাহিদ : বলো কি বলবে ?
আমি : ওই গাধা নাকি আপনি ?
নাহিদ : কেনো ?
আমি : ওরা সময় কাটাবে একটু । তাই আমি ওদের পাঠালাম‌ আর আপনি সাথে যাচ্ছিলেন ।
নাহিদ : ও সরি আমি না বুঝি নি
.
বলেই হাসে দিলো ।
আমি : কিউট হাসি, মায়াবি চোখ সেই তো ( আস্তে বললাম )
নাহিদ : কিছু বললেন
আমি : না ও কিছু না ।
নাহিদ : হেহে তা কি করতে ভালোবাসেন
আমি : কিটক্যাট খাইতে , গান গাইতে আর বকবক করতে আপনি ?
নাহিদ : গান গাইতে একটু ।
আমি : তাহলে তো শুনাতেই হবে ।
নাহিদ : ওকে পরে
আমি : না না এখন নইলে কিন্তু কথা কমু না
নাহিদ : ওকে‌
.
“আমি তোমাকে আরও কাছে থেকে
তুমি আমাকে আরও কাছে থেকে ।
যদি জানতে চাও তবে ভালোবাসা দাও
ভালোবাসা নাও । ভালোবাসা দাও
ভালোবাসা নাও । “
.
আমি : বাহ সেই তো
নাহিদ : আপনাকেও গান গাইতে হবে তাহলে ।
.
এমন সময় জান্নাত এলো ।
জান্নাত : আরে নাহিদ তুমি
আর আনহা তুমিও আছো দেখছি ।
আমি : হুম তুমি একে চিনো ?
জান্নাত : হুম
.
নাহিদ , আমি আর জান্নাত অনেক সময় ধরে গল্প করলাম ।
.
জান্নাত আসলে নাহিদ কে পছন্দ করে । নাহিদও তাই চায় কারণ নাহিদ জানে তার এলোকেশি জান্নাত ।
.
দিন যেতে লাগলো আমি আর নাহিদ ভালো বন্ধু হলাম ।
আমি ওর প্রতি দুর্বল হয়ে পড়লাম । কিন্তু নাহিদের অজানা সে তো জানে তার ভালোবাসার মানুষটি জান্নাত ।
আমার ডায়রির পাতা ভরতে থাকলো নাহিদের নামে ।
.
একদিন আমার ব্যাগ নাহিদ কে ধরতে দিছিলাম ফুল ছিঁড়ার সময় ।
এমন সময় নাহিদের হাত থেকে ব্যাগ টা পড়ে গেলো আর ডায়রি টা বেড়িয়ে এলো ।
.
নাহিদ কিছু পৃষ্ঠা পড়ে ফেললো ।
.
আমি ফুল পাড়িয়ে যেয়ে দেখি ও আমার ডায়রির পাতা পড়ছে ।
.
আমি জ্বলদি টেনে নিলাম ।
নাহিদ : আনহা তুমি যা চাও তা কোনোদিন হবে না ।
আমি : না মানে
নাহিদ : আমি জান্নাত কে ভালোবাসি
আমি অনেক পরিমাণ কষ্ট পেলাম কিন্তু কিছু বললাম না
শুধুই বললাম : ওহ
বলেই চলে আসতেছিলাম কিন্তু উষ্টা খেয়ে পড়ে যেতে লাগলাম আর নাহিদ ধরে ফেললো কিন্তু পমি তারাতারি চলে গেলাম ।
.
সেই‌ সময় জান্নাতও এটা দেখে ফেললো । আগেই বলেছিলাম তার মাঝে কিছু সাইকো টাইপ ভাব আছে । সে নাহিদকে একদম হারাতে চাইলো না । সে প্লান করলো যেন নাহিদ আমাকে একদম ঘৃণা করুক ।
.
.
পরের দিন জান্নাত কি একটা কারণে‌ আমাকে তার বাড়ি যেতে বললো । তার রুমে ধুকেই দেখি রুম অন্ধকার ।
আমি : জান্নাত কই তুমি
জান্নাত চাকু নিয়ে : তুমি আমার নাহিদ থেকে দূরে চলে যাও
আমি : আমি তো ওর কাছে যাই নি আপু
জান্নাত : মিথ্যা বলছো আমি দেখছি কাল তুমি ওর কাছে যাচ্ছিলা ।
আমি : ভুল ভাবছো তুমি ।
জান্নাত : না ভুল না
.
তোমাকে আমি থাকতে দিবো না । না না না ।
আমার দিকে এগুতেই আমি চাকুটা কেড়ে নিলাম কিন্তু এমন সময় নাহিদ এসে আমাকে চর মারলো ।
.
.
নাহিদ : নির্লজ্জ , সাইকো মেয়ে । তুমি এতো বাজে । কেনো মারতে আসছো ওকে কি করছে ও । আমি কোনোদিন তোমাকে ক্ষমা করবো না ।
.
জান্নাতের যে এটা প্লান ছিলো আমি বুঝলামও না ।
.
আমি কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি ফিরে এলাম । আমার জীবনের কোনো বিষয়ই শাম্মির কাছে লুকাই নি ।
সাথে সাথে কাঁদতে কাঁদতে শাম্মি কে ফোন দিলাম ।
.
শাম্মিকে সবটুকু জানালাম ।
শাম্মি : একটু দ্বারা আমি আসতেছি জাহিদকে নিয়ে এখনি তুই কাঁদিস না
আমি : জ্বলদি আয় দোস্ত খুব কষ্ট হচ্ছে ।
.
জান্নাত এতেও থেমে থাকে নি । আমি বাড়ি ফিরার কিছু সময় পর নাহিদ আমার মা কে বলে আমি নাকি পাগল ইত্যাদি । জান্নাত সায় দেয় এতে ।
.
জান্নাত যে একটু সাইকো ধরনের আমরা সবাই জানতাম এমনকি জান্নাতের পরিবারও । কিন্তু এমন পরিস্থিতি ছিলো আম্মুও আমাকে ভুল বুঝলো । সেখানে আব্বুও ছিল ।
.
.
সেদিন আব্বু আম্মু লজ্জিত বোধ করেছিলো কিছুটা ।
পরে তারা আমাকে খুব বকলো ।
শেষে মা বললো : কেনো যে তোকে জন্ম দিলাম ?
মরে গেলেই ভালো হতো ।
.
আমি সামান্য জেদ নিয়ে চলি । তাই তারাতারি রুমে গিয়ে রুম বন্ধ করে নিলাম ।
.
ওদিকে জান্নাত : তুমি আমাকে কখনো ছেড়ে যেও না
নাহিদ : যাবো না
জান্নাত : চলো না আমরা বিয়ে করে ফেলি তাহলে কেউ আর আমাদের আটকাতে পারবে না । নাহলে ওই আনহা আমাকে মেরেই ফেলবে
নাহিদ : আচ্ছা চলো
.
নাহিদ জান্নাতকে ভরসা করে ফেলছিলো ।
.
এমন সময় শাম্মি আর জাহিদ আসলো ।
নাহিদ : তোমরা আসছো । জানো কি ওই আনহা কতোটা বাজে ।
শাম্মি : দাড়ান ওর ব্যাপারে কিছু বলার কোনো অধিকার নাই আপনার
নাহিদ : মানে
জাহিদ : তুই যা দেখছিস কীভাবে বুঝলি যে ওটাই সত্য
নাহিদ : তুই জান্নাত কে জিজ্ঞেস কর
.
জান্নাত কিছুটা ভয়ে : হ্যা হ্যা আনহা আমাকে মারতে চাইছে ।
শাম্মি : কেনো মারতে চাইছে ?
জান্নাত : কারণ নাহিদ আর আমি একে অপরকে ভালোবাসি
শাম্মি : তাই
জান্নাত : হুম
শাম্মি : আচ্ছা জান্নাত তোমার কি জানি একটা রোগ‌ আছে না ?
জান্নাত : না মানে
শাম্মি : অনেক হয়েছে আর মিথ্যে না নাহিদ ভাইয়া শুনুন আনহা কিছুই করে নি । আপনি যা দেখছেন তাই বিশ্বাস করছেন । দ্বারান এক মিনিট
.
শাম্মি জান্নাতের মা কে ফোন করে জানালো ।
জান্নাতের মা ভালো করেই জানে জান্নাতের সব সমস্যা ।
.
সে নাহিদ কে সরি বললো আর জান্নাতের সমস্যা সম্পর্কে জানালো ।
সব শেষে জান্নাতও স্বীকার করে নিলো ।
.
নাহিদ : ছি তোমাকে কতো ভালোবাসলাম আর তুমি এতোটা মিথ্যুক ।
.
শাম্মি : জাহিদ চলো আনহার কাছে ও অনেক ইমোশোনাল । কিছু করেও ফেলতে পারে ।
.
ওরা তিনজন আমার বাড়িতে এলো ।
নাহিদ আমার আম্মু ও‌ আব্বুর কাছে ক্ষমা চাইলো ।
.
তারাও ক্ষমা করে দিলো ।
.
সবাই আমাকে ডাকতে লাগলো কিন্তু আমি সেই সময়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে গিয়েছি ।
.
সব সময়ের আমার আপন ছিল ফুপি তাই ফুপিকে ফোন করে সব বললাম । ফুপিও তার কাছে ডাকলো ।
রুমে একটা চিঠি ছাড়ছিলাম,
“আচ্ছা যা দেখা যায় তাই কেনো বিশ্বাস করে সবাই । আমি তো কিছুই করি নি । তবুও সবার চোখে খারাপ হলাম । আমাকে খুঁজবে না কেউ চলে গেলাম ।‌”
.
চিঠিটি পড়ে সবাই কাঁদতে লাগলো । কিন্তু সেই সময় ফুপি জানালো আম্মু আব্বু কে সব ।
তারা একটু স্বস্তি ফিরে পেলো ।
.
সবাই নিজের বাড়ি চলে গেলো । কারণ শাম্মি জানে আমি ফিরে‌ আসবো ।
.
নাহিদ নিজেকে অনুতপ্ত ভাবা শুরু করলো ।
.
চলবে……

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here