Angry_Husband _পার্ট_১

0
774

Angry_Husband
_পার্ট_১
Written by Avantika Anha
আজ আনহার বিয়ে । অনেকটা জটিলতা প্রবণ ভাবেই বিয়েটা হলো । পারিবারিক বিয়ে হলেও মেয়ে দেখে পছন্দ করার পর তাড়াতাড়ি ই বিয়ে হয়ে গেলো ।
.
বাসরে……..
আনহা একা বসে রয়েছে । ছোট থেকেই মেয়েটা ফাজিল । তার খুব ইচ্ছে এমন একজন কে ভালোবাসার যে তাকে বড্ড ভালোবাসবে ।
.
জিহাদের প্রবেশ……….…
সে : ওই মেয়ে যায়ে কাপড় পাল্টিয়ে নিচে শুয়ে পড় ।৤
আমি : মানে
সে : আজাইরা মানে খুঁজবি না যা বলছি তাই কর আর আমার মুখের উপর কথা বলবি না
আমি : কেন আপনি কি আমার স্যার যে কথা বলবো না আপনার মুখের উপর
সে : আজ থেকে তাই তুই আমাকে একা থাকলে স্যার ই বলবি
আমি : এসব কেমন ব্যবহার আপনার
সে : হাহ তোকে বিয়ে করেছি শুধুই আমার মা কে খুশি করতে
নাহলে আজকাল কার লোভী মেয়েদের কে বিশ্বাস করে‌ । আমার টাকা আছে এখন তাই আসছিস তাই না । কোনো এক ছেলে কে মিথ্যে ওয়াদে করে আমার জীবনে আসছিস তাই না ।
আমি : হইলো আপনার৤?
সে : মানে
আমি : আপনি ছেকা খাইছেন ভালো কথা আমার উপর Angry হচ্ছেন কেন
সে : চুপ আমার মুখের উপর কথা
আমি : বলবো আপনার সমস্যা । আমি আমার বরের সাথে কথা বলছি হুহ
সে : তুই ও একটা লোভী মেয়ে
আমি : ওই চুপ আমি বিয়ের আগে প্রেম করি নি বরের সাথে করবো বলে আর লোভী বলবেন না হুহ
সে : তুই এমন কেন দেখছিস না আমি কতো খারাপ ।
আমি : খারাপ হন আর ভালো আমারি তো বর হিহি ( হাসি দাত বের করে )
সে : (তাকিয়ে হাসি দেখছে বড্ড মায়াবী হাসি । পরক্ষণেই ভাবলো না এ কি ভাবছি সব মেয়ে আজকাল কার লোভী হয় )
আমি : তা ছেকা খাইছেন বুঝছি আপনাকে সোজা করা মুশকিল ।
সে : চুপ করররররর একদম
আমি : ওহো করবো না চুপ
সে : যা নিচে ঘুমা আমার ঘুম পাচ্ছে
আমি : আমি বিছানায় ই ঘুমাবো
সে : না তুই নিচেই থাকবি
আমি : আমাকে নিচে থাকতে হলে আপনাকেও নিচেই রাখবো
সে : হুহ আমি নিচে গেলে তো
আমি : ওকে মিস্টার ওয়েট এন ওয়াচ আনহার কেরামতি
.
আমি চলে আসলাম । ভাবতেছি একে কেমনে শায়েস্তা করা যায় ।
.
.
সে : বড্ড পাগলি টাইপের মেয়ে । এই মেয়েও কি তার মতোই ধোকা দিবে । কিন্তু একে তো নিশ্পাপ মনে হয় । নাহ আমি কারো মায়ায় জড়াবো না আর ।৤
.
আমি এক বালতি পানি এনে বিছানায় ঢেলে দিলাম । সাথে ছোফায়ও ।
.
জিহাদ তো থ
.
.
সে : এটা কি করলিইইইইইই
আমি : কেনো গো দেখতে পাও না
সে : পানি ঢাললি কেন
আমি : আপনি এতো রাগী কেনো হুহ
সে : তুই কথা বলিস কেন এতো
আমি : আপনি রাগ করেন তাই
সে : যাহ এখান থেকে
আমি : ওকে মামনির কাছে গেলাম
সে : ওই না ( ও মামনি কে ভয় পায় )
আমি : হিহি আপনি ভয় পান
সে : নাহ তোকে কে বললো
আমি : ননদিনী
সে : ওরে আমি খাইছি
আমি : চুপপপপপ
সে : আমার মুখের উপর আবার কথা বলিস
আমি : আপনার মুখের উপর কই আমি তো আপনার না আমার #Angry_husband এর মুখের উপর কথা বলছি
.
.
ও আর কিছু না বলে আমার এক হাত শক্ত করে ধরে পিছনের দিকে ঘুরিয়ে নিলো ।
আমি : লাগছে আমার
সে : তুই এমন করলি কেন
আমি : হুহ আপনার জন্য
.
সে আরও শক্ত করে হাত টা ধরলো আর বলল : কিইইই আমার মুখের উপর কথা
.
এবার অনেক লাগলো
.
আমি : ছাড়ুন লাগছে
সে : লাগুক
.
.
আমি আর পারলাম না কেঁদে ফেললাম
.
.
জিহাদ আনহার কান্না দেখে আর খারাপ ব্যবহার করতে পারলো না । নিচে বিছানা করে শুয়ে পড়লো ।
.
আমি কাঁদলাম অনেক সময় ধরে । জিহাদ ও ঘুমের ভান করে সব শুনলো কিন্তু কিছু বললো না ।
.
কিছু সময় পর আমি ঘুমিয়ে পড়লাম ।
.
ভোরের সময়……
জিহাদ ভোরের আলোতে মেয়েটাকে আরও বেশি মিষ্টি লাগছে । সত্যি কি আনহাও । নাহ সব মেয়ে ই এক ।
.
কিছু সময় পর আনহার ঘুম ভাঙলো
.
নামায পড়তে উঠেছে সে ।
.
নামায শেষে…..
জিহাদের পাশে বসলো …..
ছেলেটা বড্ড মায়াবী । বুঝাই যায় না কালকের রাগী ছেলেটাই হলো ও ।
.
সকালে৤৤৤৤৤৤……..
আমি : উঠুন
জিহাদ : আমি ঘুমাবো
আমি : ওই পোলা উঠেন
জিহাদ : এই মেয়ে যাও তো
আমি : দাড়ান দেখাচ্ছি মজা
.
পানি ঢেলে দিলাম
.
জিহাদ : ইউউউউউউউ
আমি : হ অনেক খারাপ উঠেন এবার
.
জিহাদ গোসল শেষ করে এসে দেখলো………….
.
আনহা ভিজা চুলে দাড়িয়ে রেডি হচ্ছে……
জিহাদ ভাবছে…… (অপরূপ লাগছে মেয়েটি সব মেয়ে ই কি কিউট হয় । নাকি ও ই একটু বেশি মায়াবী । আমি কি ভাবছি এসব । নাহ এর মায়ায় জড়ানো যাবে না । মেয়েরা মায়ায় জড়িয়েই কষ্ট দেয় )
.
.
আমি : কিছু বলবেন ?
জিহাদ : আমার মা কে কিছু বলবি না তুই
আমি : উনি আমারো মা আপনি আমাকে স্ত্রী না ভাবলেও আপনি আমার স্বামী আর আমি আমার মা কে কষ্ট দিবো না হুহ ।
জিহাদ : না দিলেই ভালো
.
রান্নাঘরে
আমি : আসসালামুয়ালাইকুম দেন আমি করছি
মামনি : নাহ রে পাগলি তুই বস
আমি : আমাকে কি মেয়ে ভাবো না
মামনি : তুই তো আমারি মেয়ে
আমি : তাহলে মেয়ে থাকতে মা এতো কাজ করবে কেন
মামনি : আচ্ছা কর
.
রান্নার সময় মা আমার দিকে তাকিয়ে কেনো । আল্লাহ উনি তো আমার হাত দেখছে । কালকের দাগ টা তো এখনো আছে । ভয়ে হাত লুকালাম ।
.
মামনি : জিহাদ করেছে তাই না
আমি : নাহ ওইতো পড়ে গেছিলাম
মামনি : মিথ্যে বলছিস তাই না ।
আমি : না মিথ্যে কেন বলবো
মামনি : চোখ লুকাচ্ছিস কেন
আমি : নাহ কই
মামনি : আমাকে বল আমি কাউকে বলবো না
আমি : ওয়াদা করো যে আমি না বলা অব্দি কাউকে বলবে না
মামনি : আচ্ছা ওয়াদা রইলো
.
আমি বললাম……..
বলতে গিয়ে কেঁদেই ফেললাম
মামনি : মা রে আমার ছেলেটা অমন ছিল না । ওর এমন ব্যবহারের জন্য দায়ী নিহা নামের এক মেয়ে । ও তখন এইচএসসি দিচ্ছিল এক মেয়ে কে বড্ড ভালোবাসতো । আমরাও জানতাম কিন্তু মেয়েটা টাকার লোভে এক ছেলেকে বিয়ে করে । বিয়ের আগে আমি মেয়েটাকে ফোন ও দিছিলাম কিন্তু সে আমাকেই বাজে কথা শুনায় । তারপর থেকেই ও এমন হয়ে যায় ।
আমি : ব্যাপার না মামনি আনহা আছে না
আমি থাকতে এতো চিন্তা কই । ওকে সোজা আমি করবো ।
মামনি : আচ্ছা
আমি : চলো নাস্তা নিয়ে যাই
মামনি : আচ্ছা
.
খাবার টেবিলে জিহাদ কে দেখে ইচ্ছে করে চোখ মারলাম
.
হিহি ওয় তো রাগে শেষ । মনে হচ্ছিল আমাকে খেয়ে ফেলবে ।
.
রুমে আসলাম ।
জিহাদ : চোখ মারলি কেন
আমি : প্রমাণ আছে ?
জিহাদ : আমি দেখছি
আমি : আপনার চোখে সমস্যা আছে
জিহাদ : কিহ্
আমি : এমা আমার বরের চোখে সমস্যা আমার বর কানা এমা……
জিহাদ : চুপপপপ
.
.
.
চলবে………………….

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here