হায় আবুল

0
176

হায় আবুল
হানিফ ওয়াহিদ

চাচা চাচী আলটিমেট দিয়েছেন, রবিন ভাইকে এক মাসের মধ্যে বিয়ে করতে হবে, নইলে ত্যাজ্যপুত্র ঘোষণা করবেন। সাদা, কালো, নিগ্রো যে কোন ধরনের বউ হলেও হবে। শুধু বউ চাই।তাদের বয়স হয়েছে। নাতি নাতনীর মুখ দেখবেন কবে? কবরে গেলে? একমাত্র ছেলের বিয়ে দেখবেন না তা কী করে হয়?
শুয়ে শুয়ে গান শুনছিলাম। রবিন ভাই আমার কাছে এসে বললেন, কী করা যায়, বলতো?
আমি বললাম, বিয়ে করে ফেল। আল্লাহ আল্লাহ করে কারও গলায় মালা পড়িয়ে দাও।
গাধার মতো কথা বলিস না তো! চাইলেই কি বিয়ে করা যায়? পছন্দের ব্যাপার স্যাপার আছে না?
আমি ফিসফিস করে বললাম, পছন্দের কেউ আছে নাকি তোমার? থাকলে বলে ফেল।
আছে তো।কিন্তু ঝামেলা আছে। এখন বিয়ে করা যাবে না।
কী ঝামেলা?
আরে, মেয়ের বড় বোনের এখনো বিয়ে হয়নি। বড়জন রেখে কীভাবে হয় বল?
পালিয়ে যাও।ল্যাঠা চুকে যাক।
এক কাজ কর,তুই বিয়ে করে ফেল। তাহলে কিছুদিন আমার কথা সবাই ভুলে থাকবে। আছে নাকি কেউ তোর?
আছে তো। আমার ও একই সমস্যা। বড়টার বিয়ে হয়নি। কেন যে পরিবারে বড় মেয়ে গুলো আগে জন্মগ্রহণ করে! পরে জন্মগ্রহণ করলে কি সমস্যা ছিল!
তাহলে তুই পালিয়ে যা।

আরে দূর! যাকে পছন্দ করি,সে তো এখনো জানেই না। ওর মা যা পাঁজি। ওর মায়ের ভয়ে কাছে ঘেঁষি না।
কার কথা বলছিস তুই?
আমাদের বাড়ি ওয়ালির ছোট মেয়ের কথা। আহা! যা সুইট! কেন যে সুন্দরী মেয়ের মা গুলো এতো পাঁজি টাইপ হয়! এরা ছেলে দেখলেই দূর দূর করে।
রবিন ভাই লাফ দিয়ে উঠে বললেন, সে কী রে! তুই কি সত্যি সত্যি বাড়িওয়ালার ছোট মেয়েকে পছন্দ করিস?
আমি বললাম, হ্যা।এতে তোমার কোন সমস্যা?
আরে না,আমার আবার কী সমস্যা!
একটা বুদ্ধি শিখিয়ে দাও তো দেখি,কীভাবে ঐ মেয়েকে পটানো যায়।তুমি আমার ভাই, তোমার একটা দায়িত্ব আছে না?
সত্যি বুদ্ধি চাস?ঠিক আছে। আমার কথা মতো চল।তাহলেই হয়ে যাবে।

এর দুই দিন পর বাড়ি ওয়ালি কে গিয়ে বললাম, আন্টি, আপনার ছোট মেয়ের তো ভয়াবহ বিপদ।
আন্টি বললেন, কী বিপদ?
আপনার ছোট মেয়ে রিমিকে তো গলাকাটা আবুল পছন্দ করেছে।
গলাকাটা আবুল কে?
এই শহরের সবচেয়ে বড় সন্ত্রাসী।
সে আমার মেয়ের কী ক্ষতি করবে? ঐ ব্যাটার তো গলাই নাই।
আহা আন্টি! তার গলা কাটা নয়।একজনকে প্রকাশ্যে সে গলা কেটেছিল। তারপর থেকে তার নাম হয়েছে গলাকাটা আবুল। গলাকাটা হচ্ছে তার টাইটেল। এই যেমন ধরেন বিদ্রোহী কবি নজরুল, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ, তেমনি গলাকাটা আবুল।
সে কী চায়?
আপনার মেয়েকে বিয়ে করতে চায়।
বল কী? ওর তো সামনে পরীক্ষা, এখন কী হবে? ওকে তো একা একা ছাড়া নিরাপদ হবে না।হায় আল্লাহ! এখন কী হবে?
আপনি টেনশন করবেন না,আন্টি। আমি তো ফ্রী আছি। এই সময় যে কয়দিন রিমি কলেজে যাবে, আমি গিয়ে দিয়ে আসবো। আবার বিকেলে গিয়ে নিয়ে আসবো।
আন্টি বললেন, যাক,বাঁচালে বাবা। তুমি যে এতো ভালো ছেলে আগে জানতাম না।

প্রতিদিন নিয়ম করে রিমিকে কলেজে নিয়ে যাচ্ছি, আসছি। মানুষ না চাইতেই জল পায়,আমি সমুদ্র পেয়ে গেছি! আমার খুশি দেখে কে! রবিন ভাই আসলেই ব্রিলিয়ান্ট! তার পরামর্শ ভালোই কাজ দিয়েছে। একদিন রবিন ভাইকে আচ্ছা করে চাইনিজ খাইয়ে দিলাম।

একদিন রিমিদের বসার ঘরে বসে আছি, রিমি রেডি হচ্ছে। এমন সময় আমার মোবাইলে একটা কল এলো,হ্যালো, আমি গলাকাটা আবুল বলছি! তোমার আন্টিকে দাও।
আমি অবাক হয়ে গেলাম। এটা আবার কী? সত্যি সত্যি আবার গলাকাটা আবুল আছে নাকি?
আন্টি বললেন, কে ফোন করেছে?
আমি বললাম, গলাকাটা আবুল।

কী চায়?
আপনার সাথে কথা বলতে চায়।
রিমি বললো, মা ফোন ধরো ,দেখ কী বলতে চায়। শুনেছি ঐ ব্যাটা নাকি বহুত ডেঞ্জারাস! তুমি ফোন না ধরলে বড় বিপদ হতে পারে।
আন্টি ফোন ধরেই বললেন, হ্যালো। হ্যালো বলেই ফোন কানে ধরে রাখলেন, তারপর জ্বি,আচ্ছা, ওকে ঠিক আছে বাবা বলে বিমর্ষ মুখে ফোন রেখে দিলেন।
আমি বললাম, কী হয়েছে আন্টি? গলাকাটা আবুল কী বলছে?
রিমিকে তোমার সাথে কলেজে পাঠাচ্ছি শুনে খুব রেগে আছে। এক সপ্তাহের মধ্যে রিমিকে বিয়ে করতে চায়। হায় আল্লাহ! এখন কী হবে?
আমি বললাম, টেনশন করবেন না আন্টি, আমরা আছি না!
আন্টি আর্তনাদ করে বললেন, ও রে রিমি! এই ছিল তোর কপালে! দুইদিনের মধ্যে তোকে বিয়ে দেব।তোর কাউকে পছন্দ আছে? থাকলে বল,কালকেই তোরা বিয়ে করে ফেল। তবুও এই নাক কাটা গলাকাটা লোকের হাতে পড়িস না!

রিমি বললো, কালকে কাজি অফিসে গিয়ে বিয়ে করবো, রেডি থাকবেন।বিয়েটা লুকিয়ে করবো, কাউকে বলবেন না।
আমার আনন্দ দেখে কে? বাড়ি গিয়ে কতক্ষণ যে আয়নার সামনে দাড়িয়ে নাচলাম তার হিসাব নাই। দৌড়ে গিয়ে রবিন ভাইকে পাঁজা কোলে তুলে নিলাম। সে না চাইতেই তার হাতে আবার চাইনিজ খাওয়ার টাকা গুজে দিলাম। তাকে কিছু বললাম না,কাজটা গোপনে সারতে হবে।
পরের দিন কাজি অফিসে গিয়ে দেখি, রবিন ভাই কাজি অফিসের সামনে দাড়িয়ে আছে, পাশে একটা মেয়ে বড় করে ঘোমটা দেওয়া।
রবিন ভাই বললো, তোর ভাবি। পায়ে ধরে সালাম কর।
আমি ভাবির পায়ে সালাম করে বললাম, তুমি বিয়ে করে ফেললে?আমাকে অন্তত বলতে পারতে!
তুই যে বিয়ে করতে এসেছিস,আমাকে বলেছিস?
আমি অবাক হয়ে বললাম, আমি বিয়ে করতে এসেছি তুমি জানলে কেমন করে?
আমি গলাকাটা আবুল। আমাকে সব জানতে হয়।
এবার আমার টাশকি খাওয়ার পালা! তুমি! তুমি গলাকাটা আবুল!
হ্যা রে বুদ্দু! আর রিমি হচ্ছে তোর ভাবি। যদি এই প্ল্যান না করতাম তাহলে কি বাড়িওয়ালি তার ছোট মেয়েকে আমার সাথে বিয়ে দিতো? বুদ্ধিটা কি ভালো হয়নি,তুই ই বল?
আমি চিঁহি চিঁহি সুরে বললাম, অবশ্যই ভালো হয়েছে। অবশ্যই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here