অদ্ভুত ভালোবাসা পর্ব:-২৫

0
371

অদ্ভুত ভালোবাসা পর্ব:-২৫
—-অন্না
,
,
নিলয় তিশা গাড়ি থেকে নেমে যায় আর নীরা গাড়ি থেকে নামতেই শাড়ির কুচির ওপর পা পরে কুচি খুলে যায়,,,,, ,,,,,
,
নীরা:::: হায় খোদা,,,,
,
নিলয়::::: oh shit! ,,, তিশা তোর ভাবিকে আরাল করে দারা,,,,
,
নিলয় গাড়ির দরজা খুলে একপাশ থেকে নীরাকে আরাল করে দাড়ায় আর এক পাশ থেকে তিশা,,,,
,
নীরা শারি গুটিয়ে নিয়ে দাড়ায়…. তাকিয়ে দেখে নিলয় রাগি লুক এ নীরার দিকে তাকিয়ে থেকে শাড়ি কুচি ঠিক করতে থাকে,,,,
,
নিলয়:::: ইচ্ছে করছে থাপ্পরিয়ে গাল লাল করে দেই,,, ভাগ্যিস এখানে কেনো লোকজন নাই নয়তো কি হতো হ্যা,,,,
,
নীরা::::: বকছেন কেনো,, কুচি টাই তো খুলছে শাড়ি তো ঠিক ঠাকই,,,,,,,
,
নীরা নিলয়ের দিকে তাকাতেই চুপ মেরে যায় কথা শেষ করে না,,,
,
নিলয় শাড়ির কুচি ঠিক করে গুজে দিতে গেলো,,,,
,
নীরা:::: আমি পারবো,,,,,,
,
নিলয় :::: চুপ,,,
,
শাড়ির কুচি গুজে দেবার সময় নীরার পেটের সাথে নিলয়ের হাত এর ছোয়া লাগতেই নীরা নিলয়ের হাত খামচে কুচিগুলা ধরে,,,,
,
নীরা:::: আমি করি প্লিজ,,,,,
,
নিলয় আর কোনো কথা বারালো না,,, নীরা কুচি গুজে শাড়ি ঠিক করে নেয়,,,,
,
তিশা::::: কি ম্যাম ভালো করে ঠিক করে নিয়েন,,,, সব রাস্তা কিন্তুু ফাকা পাবেন না,,,,,,,
,
নিলয়:::: দুটোকেই থাপ্পরিয়ে ঠিক করে দিবো সব সময় ফাজলামি, চুপচাপ গাড়িতে বস আমি ফুচকা নিয়ে আসি,,,,
,
নিলয় চলে যায় ফুচকা নিতে,,,,,
,
তিশা::::: ভাবি কাজ টা তুমি মোটেই ঠিক কররেনা আজ,,,
,
নীরা:::: (তেতুল খেতে খেতে) কেনো? আমি আবার তোমার কি করলাম?
,
তিশা:::: মেয়েটাকে শুধু শুধু মার খাওয়ালে আজ,,,,
,
তিশার কথা শুনেই নীরা খাওয়া বন্ধ করে দিলো,,,,
,
নীরা:::::( এই পেত্নী তোর কেনো এতো গায়ে বাধছে রে,,, দরদ একেবারে উথলে পরছে না,,, যা না ওর কাছে,,, তোর রাক্ষস ভাইটারে ওই রাক্ষসীন গলায় ঝুলিয়ে দে,,,, আমি বেচে যাই ওই গুন্ডাটার হাত থেকে,,, ষাড়নী,বিড়ালনী,হাতিনী,,, গন্ডারনী,,,,, ধুর কি সব বলছি আমি,,,,,)
,
তিশা;;;;; কি গো কি বলছি তোমায় শুনছো না নাকি????
,
নীরা :;;;; হু হু বলো,,,,
,
তিশা;:;;; কি তাহলে আমার কথা টা মিলে গেলো তো? বাজিতে তাহলে আমারই জিত হলো,,,,
,
নীরা:::: কিসের বাজি?
,
তিশা;;;;; আরে মনে নাই??? আমি বলছিলাম না তোমায় তুমি ভাইয়াকে ভালো না বেসে থাকতে পারবে না,,, কি মিলে গেলো তো?
,
নীরা”’:: কি যা তা বলছো?
,
তিশা:::: এখানে যা তার কি আছে?
,
নীরা:;;; যা তা নয় তো কি? আমি কবে বললাম আমি তোমার ভাইকে ভালোবাসি???
,
তিশা:::: মানেহ্ কি বলছো তুমি? অন্তত আমায় মিথ্যা বলোনা তুমি,,,,ভাই এর ওপর তোমার ভালোবাসা আমি উপলব্ধি করছি,,,,, আচ্ছা আমার কথা বাদ দাও আজ যা হলো তার পরেও তুমি কি করে বলো যে তুমি ভাইকে ভালো বাসোনা,,,, how it possible ভাবি,,,,
,
নীরা কি বলবে সত্তিই ভেবে পায় না, কারন সত্তিই ও নিলয়কে খুব ভালোবাসে,,, কিন্তুু নীরার মধ্যে কোনো এক জরতা কাজ করছে এই সত্তিটা মেনে নিতে,,,, ও কোনো কিছু না বলে গাড়ি থেকে নেমে পরে ,,
,
তিশা:::: সত্তির কাছ থেকে পালাচ্ছো?
,
নীরা;::: পা,,,,লা,,,,বো কেনো???
,
তিশা::::: তা তুমি যানো,,,,
,
নীরা::;; আমি মোটেই পালাচ্ছি না,,,,,,,, আর আমি মিথাও বলছি না,,,
,
তিশা:::: কি মিথ্যা বলছো না তুমি ভাবি,,,
,
নীরা:::: এটাই যে আমি তোমার ভাইকে ভালোবাসিনা,আর কনোদিন বাসতেও পারবো না,,,,,
,
তিশা কিছু বলতে যাবে ঠিক তখনই খেয়াল করে দেখে নিলয় দ্বারিয়ে আছে,,,, তিশা ওর ভাইয়ের মুখের দিকে তাকিয়েই বুঝতে পারে ও নীরার সব কথা শুনছে,,,,
,
তিশা:::: ভাই তু,,,,,,ই কখন এলি,,,,,,

গল্প পোকা মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন =>

 

 

 

 

,
নীরা তিশার কথায় চমকে উঠে পিছে ঘুরে দেখে নিলয় দুহাতে প্যাকেট নিয়ে ছলছল দৃষ্টিতে ওর দিকে তাকিয়ে আছে,,,, নিলয়ের দিকে তাকিয়ে ওর ওই দৃষ্টি দেখেই নীরার বুকের মধ্যে মোচর দিয়ে ওঠে,,,, নীরা কিছু বলতে যাবে তার আগেই নিলয় তিশার হাতে প্যাকেট ধরিয়ে দিয়ে গাড়িতে উঠে পরে,,, সাথে সাথে তিশাও,,,,,নীরার কথাৃয শুধু নিলয়ের না তিশার ও মন ভেঙে যায় ,,,
নীরা সত্তিই আজ বড় একটা ব্লানডার করে ফেলছে,,,, ,,, পুরা রাস্তা নীরার সাথে আর কেউ কথা বলে নি,,,,, ,,,
,
বাসায় এসেও নীরার সাথে কেউ কথা বলে না,,,, ,,, নীরার খুবই খারাপ লাগে,,,, তিশা নীরার হাতে প্যাকেট দিয়ে রুমে চলে যায়..
,
নিলয়:::: ( একটা শুকনো হাসি দিয়ে) জান পাখি খেয়ে নাও গিয়ে,সব ঠান্ডা হয়ে যাবে,,,,
,
( বলেই ভেতর। চলে যায়,,, এক মুহুর্তও দারায় না)
,
নীরা এক নিলয়ের যাবার দিকে তাকিয়ে থাকে,,,,,
,
নীরা:::: এই ছেলেটা আমায় এত্ত কেনো ভালোবাসে,,, এত্তটা কষ্ট দেই আমি তারপরও আমার ওপর ওর ভালোবাসা কিছুতেই কমে না,,,, আমি তোমার যোগ্য না নিলয়,,, তুমি কেনো আমায় ছেরে দিচ্ছো না, আমি কেনো তোমায় আপন করে নিতে পারিনা কেনো,, কেনো,,,,
,
নিলয়ের মা;::::; কিরে মা তুই এখানে দাড়িয়ে কি করছিস?? ভেতরে আয়,,,,,,,
,
নীরা দৌড়ে গিয়ে নিলয়ের মা কে জরিয়ে ধরে,,,,,
,
নিলয়ের মা::::: কিরে পাগলি কাদছিস কেনো তুই,,,, চল আগে ভেতরে তোর জন্য সারপ্রাইজ আছে,,,,
,
নীরা কাদতে কাদতে ভেতরে গিয়ে দেখে নীরার বাবা,মা বসে নিলয়ের বাবার সাথে গল্প করছে,,,, নিলয় আর তিশাও উনাদের পাশে গিয়ে বসে,,,,,
,
নীরা দাড়িয়ে না থেকে দৌড়ে গিয়ে ওর বাবাকে জরিয়ে ধরে হাউমাউ করে কাদতে থাকে ,,,,
,
নীরার বাবা:::: ধুর পাগলি মেয়ে কাদছিস কেনো,,,
,
নীরা ওর বাবাকে ছেরে ওর মাকে জরিয়ে ধরে,,,,,
,
নিলয়ের মা::: দেখেছেন বিয়াইন আপনার মেয়ে যেমন করে কাদছে মনে হচ্ছে আমরা তিন বেলা আপনার মেয়েকে মারধর করি,,,,,
,
নীরার মা::::: থাক মা থাক,,,,, আর কাদিস না,,,,
,
নীরা:::: আমি জানতাম তোমরা ভুল বুঝবে না আমায় ,,,, বিশ্বাস করো মা,,,
,
নীরার মা::::থাক মা আর পুরাতন কথা তুলতে হবে না,,,, আমরাই ভুল ছিলাম,,, তোর সুখেই আমরা সুখি,,,তুই যার কাছেই থাক ভালো থাক এই দোয়াই করি,,,,
,
নিলয়ের মা :::: এই পাগলি মেয়ে এবার তো কান্না থামা,,, আমি আর তোর বাবাই মিলে তোকে এত্ত বড় একটা সারপ্রাইজ দিলাম আর তুই কেদেই ভাসিয়ে দিচ্ছিস,,,,,,
,
নীরা আবার নিলয়ের মা কে জরিয়ে ধরলো,,
,
নিলয়ের মা আস্তে আস্তে নীরাকে বলে,,,
,
> কাদিস না মা, আমির জিবনের এক মাত্র আশা তুই পুর্ন করে দিছিস, আমার ছেলেকে তুই আমার কাছে ফিরিয়ে দিছিস, তোর জন্য আমরা এটুকু তো করতেই পারি,,,,যা আর কাদিস না,,,, কি আনলি সবাইকে খেতে দে,,,,,
,
নীরার মা ‘::::: বাবা নিলয় আমায় মাফ করে দাও, আমি তোমার সাথে খুব খারাপ ব্যবহার করেছি,,,,,, কি করবো বলো একমাত্র মেয়ে আমার,,,,
,
নিলয়’::: ছি ছি আন্টি আপনি মাফ চাইবেন না,, ভুলটা আমারই ছিলো,,
,
নিলয়ের বাবা::::: আর যাই করো আমার মেয়েটাকে কখনও কষ্ট দিও না বাবা,,,
,
নিলয়::::: আমি আমার সর্বস্ব দিয়ে চেষ্টা করবো,,,
.
এর মধ্যে নীরা সবার জন্য প্লেটে ফুচকা নিয়ে আসে,,,, কিন্তুু তিশা খায় না,,,, কিন্তুু নিলয় সবাইকে দেখানোর জন্য এক পিচ খায়, নীরা আর খায় না,,, নীরা বুঝে নিলয়ের মধ্যে দিয়ে কি চলে যাচ্ছে,,,
,
নীরার বাবা:::: এবার উঠতে হবে বিয়াইসাহেব,,,,
,
নিলয়ের বাবা ::::: আরে কি বলছেন এসব,,,, এখন কেনো? রাতে ভালো মন্দ রান্না হবে দুবেয়াই কব্জি ডুবিয়ে খাবো তারপর তো,,,,
,
নীরার বাবা:::: না বেয়াই আপনি যেভাবে আমাদদের নিয়ে আসলেন,,, এখন থাকা সম্ভব না,,,,, মেয়ে যখন আছে আপনার কাছে তো আসা যাওয়া চলবেই,,,,
,
নিলয়ের মা:::: তাই বল্লে হয়,,,
.
নীরার মা:::: না আপা আজ নয়, অন্য দিন,,,, কিরে মা জাবি আমাদের সাথে?
,
নীরা কিছু বলে না চুপ করে থাকে,,, ও নিলয়ের থেকে দুরে থাকতে পারবে না,,,, নিলয়ের মা নীরার মনের কথা বুঝতে পারে,,,,
,
নিলয়ের মা::::: না না আমাদের মেয়ে কে এখন কোথাও যাইতে দিবো না,,,
,
নীরার মা:::: ঠিক আছে তৈরি হয়েই মেয়েকে নিতে আসবো,তখনই নিয়ে যাবো,,,,,
,
নীরার বাবা মা চলে গেলো,,,, সন্ধ্যায় নীরা রুমে বসে আছে,,,,
,
তিশা’:::: আসতে পারি???
,
নীরা:::: হ্যা আসো না,,, অনুমতি নেবার কি আছে???
,
তিশা:::: ( একটা খাম এগিয়ে দিয়ে) এটা আপনার জন্য,,,
.
নীরা:::: আমায় আপনি বলছো কেনো? আর এটা কি?
,
তিশা:::: ব্যাংকক এর ফ্লাইট এর টিকিট,,, আর এতে এক লক্ষ টাকা আছে,,,,,,,
,
,,,,,,,
,
continue♥

প্রিয় পাঠক আপনারা যদি আমাদের (গল্প পোকা ডট কম ) ওয়েব সাইটের অ্যাপ্লিকেশনটি এখনো ডাউনলোড না করে থাকেন তাহলে নিচে দেওয়া লিংকে ক্লিক করে এখনি গল্প পোকা মোবাইল অ্যাপসটি ডাউনলোড করুন  👇👇👇👇👇👇

https://play.google.com/store/apps/details?id=com.golpopoka.android

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here