অদ্ভুত ভালোবাসা পর্ব:-২২

0
524

অদ্ভুত ভালোবাসা পর্ব:-২২
—-অন্না
,
> আমায় কোলে নিয়ে এখন নিচে নিয়ে জাবেন সবার সামনে দিয়ে???
,
নিলয় কোনো কথা না বলে নীরাকে কোলে তুলে নেয়,,,,,নীরা পরম যত্নে নিলয়ের গলা জরিয়ে ধরে,,,,,,
,
নিলয়:::: নীর পাখি,,,,
,
নীরা;:: হুম
,
নিলয়:::: একটা কাজ করতে চাই অনুমতি দিবে???
,
নীরা:::: হুম কি???
,
নিলয় কিছু না বলেই নীরার ঠোট দুটি নিজের আয়ত্তে করে নেয়,,,,, নিলয় যে আবার নীরাকে কিস করবে নীরা ভাবতে পারে নি,,, নিলয় কিছুক্ষন পরে নীরাকে ছেরে দিয়ে কোলে নিয়েই সবার সামনে দিয়ে নিচে চলে আসে,,,, ,,,
সবাই তো হা হয়ে যায় ওদের ওভাবে দেখে……..গাড়ির কাছে এসেই নিলয় নীরাকে গাড়িতে বসিয়ে দিয়ে নিজেও গাড়িতে বসে ড্রাইভার কে কলেজে যাইতে বলে,,,
,
নিলয়ের কথা শুনেই নীরার মাথায় বাজ ভেঙে পরে,,,,
,
নীরা ;::( আল্লাহ তাহলে উনার রাগ কমে না,,,, এখন কি করে উনাকে থামাই) শোনেন না???
.
নিলয়::::উহু নীর পাখি কোনো কথা নয়…তোমার কি ধারনা আমি বুঝিনা? যে মেয়ে আমার ধারে কাছেও ঘেসে সে আজ নিজে যেচে আমার কাছে আসছে,,, কেনো বুঝিনা আমি? চুপচাপ বসে থাকো,,, আমার রাগ টা বেশি বাড়িও না,,,,
,
নীরা ::::: আপনার তো রাগ পড়েই গিয়েছিলো,,,, বাদ দেন না
,
নিলয়;:::: তুমি ভালো করেই জানো আমি ব্যতীত তোমার গায়ে কেউ টাচ টাও করুক আমি তা কখনই চাইবো না,,, আর এখানে ওই কুত্তার বাচ্চা আশিকের সাহস কি করে হয় তোমায় প্রপোজ করার,তোমায় ভয় দেখানোর আবার তোমার হাত ধরার,,,, আমি দেখবো আজ ওর কলিজাটা কত বড়…..
,
নীরা ::::না না আশিক না তো কিছু,,,,
,
নিলয়:::: ঠাস করে এমন একটা থাপ্পর মারবো না আমার কাছে মিথ্যা বলা বের করে দিবো,,,, তুমি কি ভাবছো তুমি না বললে আমি জানতে পারবো না??
,
নিলয়ের ধমক শুনেই নীরা চুপ করে যায়,,,
,
নিলয়:::: তোমার সাহস তো কম না তুমি আমায় মিথ্যা বলে ওকে বাচাতে চাচ্ছো??? কে হয় ও তোমার হ্যা,, কে হয়… চিনো তুমি আমাকে,,,, চুপচাপ গাড়িতে বসে থাকবা…. আমি আসতেছি,,,,
,
বলেই নিলয় গাড়ি থেকে নেমে ভেতরে চলে গেলো,,,
,
নীরা:::: হায় আল্লাহ্ এখন কি হবে? উনার যা রাগ কে বাচাবে এখন আশিক কে,,,, কি করি আমি এখন,,,, নাহ্ বসে থাকলে হবে না,, মার খাই খাবে কিন্তুু উনাকে আটকাতেই হবে,,,,,
,
নীরা তারাতারি গাড়ি থেকে নেমে কলেজে ঢুকে যায়,,,, পুরা কলেজ খুজেও নীরা নিলয়কে দেখতে পায় না,,,, পরে নীরার কলেজ এর ছাদের কথা মনে হইতেই দৌড়ে ছাদে চলে যায়,,, উঠে ছাদের দৃশ্য দেখেই নীরার মাথা ঘুরে যায়,, আশিক সেন্সলেস হয়ে মাটিতে পরে আছে ওর পুরা শরীর দিয়ে রক্তে ভেসে যাচ্ছে কিন্তুু নিলয় ওকে কুকুরের মতো মেরেই যাচ্ছে,,,মনে হচ্ছে কোনো দানব ভর করেছে ওকে,,,,, ,
,
নীরা :::::: নি,,,,,,,ল,,,,,,,য় ( চিল্লিয়ে)
,
নিলয় পিছে ঘুরে দেখে নীরা দেওয়াল ধরে দাড়িয়ে আছে,,,,
,
নীরা::::: মানুষ আপনি? কি করছেন টা কি মরে যাবে ও,,,,
,
নিলয়:::: গেলে যাবে তোমার কি এতে??? তুমি এখানে কেনো এসেছো তোমাকে আমি গাড়ি থেকে নামতে বারন করছিলাম,,,,,
,
নীরা::::: ওকে প্লিজ হসপিটাল এ নেবার ব্যবস্থা করেন নইলে ও মরে যাবে,,,
,
নিলয়::::: ওটাই ওর প্রাপ্য, ওর সাহস কি করে হয় তোমার গায়ে হাত দেয়,, দেখেছো কি হাল করছি আমি ওর,,, সবারই এমনই হাল হবে যে এর মতো সাহস দেখাবে,,,
,
নীরা:::: ভুল মানুষ মাত্রই হয় ওর,,,,,
,
নিলয়::::: হুসসসস্ নীর পাখি কোনো কথা নয়,,, যাও গাড়িতে গিয়ে বসো,,,,,
,
নীরা বুঝলো এখন ওকে কোনো ভাবেই বোঝানো যাবে না,,,,
,
নীরা:::: আপনি যদি এখন ওর চিকিৎসার ব্যবস্থা না করেন তো মনে রাখেন আমি কিন্তুু নিজের ক্ষতি করে দিবো,,,,,
,
নীরার কথা শোনার সাথে সাথে নিলয় নীরার গালে ঠাস করে থাপ্পর মেরে দেয়,…. নীরা ধপ করে ফ্লোরে পরে যায়,,,,
নিলয় নিজের হাত সজোরে দেওয়ালে ঘুসি মেরে সাথে থাকা ছেলেদের আশিক কে হসপিটাল এ নেবার জন্য বলে দেয়,,,, তারপর নীরার হাত ধরে টানতে টানতে গাড়িতে এনে বসিয়ে দেয়,,,,
,
নীরা নিলয়ের কাছ থেকে দুরত্ব রেখে বসে ফুপিয়ে ফুপিয়ে কান্না করতে থাকে,,,,,,,,,
,
নিলয়::::: কাদছো কেনো তুমি????( চিল্লিয়ে)
,
নিলয়ের ধমকে নীরা আরো জোরে কেদে উঠে,,,, ,,,
,
নিলয়::::: ভাইয়া গাড়ি থামান তো,,,,
,
,,
> গাড়ি থেকে নামো,,,,
,
নীরা:……..
.
নিলয়:::: আমি গাড়ি থেকে নামতে বলছি,,,,,
,
নীরা গাড়ি থেকে নামতেই নিলয় গাড়ির দরজা টা সজোরে লাগিয়ে ওকে রেখেই চলে যায়,,,,,
,
নীরা নিলয়ের যাবার দিকে তাকিয়ে আরো জোরে কান্না করে দেয়,,,, নিলয় যে ওরে মাঝ রাস্তায় এমন করে নামিয়ে দিবে তা কখনই ভাবে নি,,, নীরা ঠায় দাড়িয়ে কাদতে থাকে,,,
,
কিছুদুর গিয়েই নিলয় আবার গাড়ি ঘুড়িয়ে এনে নীরার সামনে দাড় করিয়ে দরজা খুলে দেয়,,,
,
নীরা এটা দেখে উল্টোদিকে হাটা শুরু করে দেয়,,,
,
নিলয়;:: এই মেয়েটা আমায় কত কষ্ট দিবে,,,,
,
নিলয় গাড়ি থেকে নেমে নীরার সামনে গিয়ে দাড়ায়,,,
,
নিলয়:::::গাড়িতে বসো,,,, বাসায় যাবো,,,,
,
নীরা কিছু না বলেই পাশ কাটিয়ে চলে যেতে লাগলে নিলয় এক ঝটকায় নীরাকে কোলে তুলে নিয়ে গাড়িতে ধুম করে বসিয়ে দেয়,,,,
,
নিলয়:::: ভাইয়া চলেন,,,,
,
,
বাসায় এসে নিলয় ফ্রেস হয়ে আবার অফিসে চলে যায়,,, ,,, নীরা ফ্লোরে বসে কান্না করতে থাকে,,, নীরা এটা কিছুতেই মেনে নেয় না যে ওর জন্য কারো ক্ষতি হয়েছে,,,দোষ টা যারই থাক না কেনো,,,,
,
তিশা::: ভাবি আসবো??
,
নীরা কোনো উত্তর দেয় না, উত্তর না পেয়ে নীরা ঘরে এসে দেখে নীরা ফ্লোরে শুয়ে কাত হয়ে শুয়ে আছে,,,
,
তিশা::::ভাবি তুমি এভাবে এখানে শুয়ে আছো কেনো? শরীর খারাপ?
,
নীরা::: নাহ্ শরীর টা ভালো লাগছে না,,,
,
তিশা নীরার গায়ে হাত দিয়েই চমকে উঠে,,,, নিলয়ের হাতের মার আর বকা খেয়ে নীরার গায়ে জ্বর চলে এসেছে,,,,
,
তিশা::::: একি ভাবি তোমার গায়ে তো অসম্ভব জ্বর … মামুনি,,,,,,,মামুনি,,,,,, জলদি এ ঘরে একবার এসো,,,,
,
নিলয়ের মা:::: কি রে কি হলো,,,
,
তিশা::: তারাতারি ভাবি কে বিছানায় নিতে হবে, ভাবা সেন্সলেস হয়ে গেছে,,, খুব জ্বর গায়ে,,,,,
,
নিলয়ের মা:::: বলিস কি,, নীরা,,,,,,নীরা,,,,কথা বল মা,,,,,
,
তিশা:::: মা এভাবে হবে না তুমি ভাবির মাথায় পানি ঢালার ব্যবস্থা করো আমি ভাই আর ডাক্তার আংকেল কে ফোন করে আসছি,,,

গল্প পোকা মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন =>

 

 

 

 

,
নিলয়ের মা খেয়াল করে দেখে নীরার গালো পাচ আঙুলের কালো দাগ হয়ে আছে,,,, নিলয়ের মা বুঝলো নীরার জ্বর আসার পিছে নিলয়ের অবদান,,,,,
,
তিশা নিলয় আর ডাক্তার কে ফোন করে,,, নিলয় তিশার কথা শোনা মাত্রই বাসায় চলে আসে,,, নিলয় বাসায় এসে দেখে ওর মা নীরার মাথায় পানি দিচ্ছে,,,নীরার এখনও সেন্স আসে নি,,,,,,, নিলয় দৌড়ে নীরার কাছে যাইতে গেলে ওর মা ইশারায় থামিয়ে দেয়,,,
,
নিলয়ের মা:::: একবার মেয়েটার দিকে তাকিয়ে দেখ,, কি অবস্থা করছিস ওর,,, ( গালটা দেখিয়ে)
এর জন্যই ভয়ে মেয়েটার গায়ে জ্বর চলে আসছে,,,অন্যের বাড়ির মেয়ে যখন নিয়ে আসছিস তাহলে ভালো করে রাখ,তোর বাবা জানলেই ওরে ওর বাবার কাছে রেখে আসবে কাল,,,
,
নিলয়:………
,
তিশা::::থাকনা মা এখন,,,ডাক্তার আংকেল যা বলে গেলো সেটা করো,,,
,
নিলয়ের মা :::: জ্বর তে কমছে কিন্তুু ওর তো সেন্সই আসছে না ওষুধ কেম্নে খাওয়াবো,,,,
,,
নিলয়:::: তোমরা যাও আমি ওষুধ খাইয়ে দিচ্ছি,,,
,
নিলয়ের মা আর তিশা রুম থেকে চলে আসে,,,,,
:নিলয় নীরার মুখে ওষুধ দিয়ে হালকা করে: পানি ঢেলে দেয়।,,, আর গাল বেয়ে পানি পরে যায়,,, পরে নিলয় ওর মুখে পানি নিয়ে নীরার ঠোটে ঠোট লাগিয়ে পানি দিয়ে ওষুধ খাইয়ে দেয়,,,,,, তারপর সারারাত নীরার পাশে হেলান দিয়ে বসে থাকে,,,,,
,
ভোরের দিকে নিলয়ের চোখ লেগে যায় ঘুমের ঘোরে ও নীরার বালিসের ওপর উপর হয়ে ঘুমিয়ে পরে,,,
,
সকালে নীরার ঘুম ভাঙলে নিলয়কে ওভাবে ঘুমাতে দেখে ও উঠে বসে নিলয়কে ঠিক করে শোয়াতে গিয়ে কালকে আশিককে মারার কথা মনে পরে যায়,, নীরা তারাতারি উঠে ফ্রেস হয়ে নিলয় উঠার আগেই রুম থেকে বেরিয়ে যায়,,,
,
নিলয়ের মা::: কি রে মা তুই আবার রান্নাঘরে আসলি কেনো? তোর শরীর এখন কেমন?
,
নীরা:::: ভালো আছি মামুনি কিন্তুু শরীর টা খুব দুর্বল লাগছে,,,
,
নিলয়ের মা:::; মা রে জ্বর থেকে উঠলি তো তাই এমন লাগছে,,,,, তুই গিয়ে বস,, আমি একটু পরেই নাস্তা দিচ্ছি,,,
,
নীরা;:::: আমি ঠিক আছি মামুনি আমি রুটি টা বানিয়ে দেই,,,,
,
নিলয়ের মা’::::: না না না না আমি পারবো,,,,
,
নীরা;:::: মামুনি প্লিজ প্লিজ প্লিজ প্লিজ,,,,
,
নিলয়ের মা::::: আচ্ছা আচ্ছা ঠিক আছে,,,
,
এদিকে নিলয়ে ঘুম ভেঙে নীরাকে দেখতে না পেয়ে রুম থেকে বেরিয়ে আসে, কিচেনে এসে দেখে নীরা ময়দা মাখছে,,, এটা দেখেই নিলয় রেগে যায়,,, ও নীরার কাছে চলে যায়,,,,,
,
নিলয়’ :::: তুমি এখানে এসেছো কেনো??
,
নীরা:……
,
নিলয়::::তোমার শরীর ভালোনা কাজ করতে হবে না চলো রুমে রেস্ট নিবে,,,,,,
,
নীরা:::;……
,
নিলয়;;;; আমি কিছু বলছি তোমায়,,,
,
নীরা :……
,
নিলয় নীরার হাত ধর। টানতে ট্নতে বেসিনের সামনে নিয় গিয়ে হাত ধুইয়ে দিয়ে রুমে নিয়ে গিয়ে বিছানার ওপর বসিয়ে দেয়,,,,
,
নীরা কোনো আওয়াজও করে না,,, নিলয় নীরার নাস্তা ঘরে এনে দিয়ে নীরাকে খেতে বলে,,নীরা কথা কানে না নিয়ে চুপ করে বিছানায় বসে থাকে,,, এটা দেখে নিলয় আরো রেগে যায়,,,, নিজের হাত এ নীরাকে খাইয়ে দেয়,,, নীরা চুপচাপ হালকা খেয়ে মেডিসিন নিয়ে বিছানাৃয শুয়ে পরে,,,,
,
নিলয়::::: পা এর ধাপ এ ঘরের বাহিরে যেনো না যায়,,, চুপচাপ শুয়ে পরো,,, আমার একটা জরুরি কাজ আছে শেষ করে তারাতারি বাসায় আসবো,তারপর একসাথে তোমার বান্ধবির বাসায় যাবো,,,,
,
নীরা নিলয়ের কথার কোনো উত্তর দিলো না,,,, চুপ করে থাকলো,,,,নীরার এ নিরাবতা নিলয়ের আরো অসহ্য লাগতে শুরু করে,,,,,,,,, নিলয় তারাতারি বাসা থেকে বেরিয়ে গেলো,,,,
,
,
নিলয় যাবার সাথে সাথেই নীরা তিশার কাছে গেলো,,,,
,
তিশা:::: আরে ভাবি তুমি আসলে কেনো
আমায়,ডাকলে পারে,,,, কেমন লাগছে এখন????
,
নীরা::::: আমার সাথে এক জায়গায়,যেতে পারবে???
,
তিশা:::: হ্য্ অবশ্যই,,, কোথায় যাবে?
,
নীরা:::: গেলেই দেখবে,,, হলুদ শাড়ি পরে রেডি হও,,,,
,
তিশা:::: শাড়ি পরতেই হবে?.
,
নীরা:::: হুম,,,
,
তিশা:::: ঠিক আছে ভাবি এ ঘন্টা টাইম দাও আমি রেডি হয়ে আসছি,,,,
,
নীরা :::: হুম কাউকে কিছু বলো না,,,
,
তিশা::::ঠিক আছে ভাইকে কিছু বলবো না,,,
,
নীরা একটা শুকনো হাসি দিয়ে বেরিয়ে এলো,,, দুজনে রেডি হয়ে বেড়িয়ে পরলো,,,খানিক বাদে নিলয় এসে নীরাকে রুমে নি দেখে ভিসন ভাবে রেগে যায়,,,, ওর মা এর কাছে এসে যানতে পারে নীরা আর তিশা কোথাও গেছে, ঠিক বলে যায়নি কোথায়,,,,
,
নিলয় ঠিকই বুঝতে পারে কোথায় গেছে,,, নিলয় একটা হলুদ রংয়ের পান্জাবি পরে, রেডি হয়ে বেরিয়ে পরে,,,,,
,
নিলয় নীরার বান্ধবির বাড়ি চলে যায়,, গিয়ে সেখানে নীরাকে কোথাও খুজে পায় না,,, তাই চলে আসতে নিলে দেখে একটা মেয়েকে ঘিরে ওনেকজন বসে আসে সম্ভবতো মেহেদি দিতে,,,,
,
continue,,,,,

প্রিয় পাঠক আপনারা যদি আমাদের (গল্প পোকা ডট কম ) ওয়েব সাইটের অ্যাপ্লিকেশনটি এখনো ডাউনলোড না করে থাকেন তাহলে নিচে দেওয়া লিংকে ক্লিক করে এখনি গল্প পোকা মোবাইল অ্যাপসটি ডাউনলোড করুন  👇👇👇👇👇👇

https://play.google.com/store/apps/details?id=com.golpopoka.android

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here