অভিনয়হলেওভালোবাসি পার্ট-০৯(শেষ পর্ব)

0
995

অভিনয়হলেওভালোবাসি পার্ট-০৯(শেষ পর্ব)
#jannatul_ferdous

অনলাইনে আসতেই কয়েকটা পিক আসলো রাগিনীর ফোনে।যেখানে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে রোদ প্রিয়ু কে জড়িয়ে ধরে আছে।সেখানেই বসে পরলো রাগিনী।

পরী-আম্মু কী হয়েছে?

রাগিনী-কিছু না তুই নুহানের কাছে থাক আমি আসছি।নুহান ওকে একটু দেখিস।

বাড়িতে ডুকতেই রাগিনী দেখলো প্রিয়ু গাড়িতে উঠে বের হয়ে যাচ্ছে।

রাগিনী-তাহলে প্রিয়ু এতক্ষন রোদের সাথে ছিলো।রোদ প্রিয়ুকে ভালোবাসলে আমার সাথে কেনো ভালোবাসার অভিনয় করলো।কেনো এমন করলো সে।

চোখ মুছে রুমে গেলো রাগিনী।রুমে যেতেই রোদ রাগিনীকে দেখে অবাক হয়ে গেলো।

রোদ-কি ব্যাপার পরী কই? তুমি যে ফিরে আসলে।তোমার চোখ মুখ এমন দেখাচ্ছে কেনো,কিছু হইছে?

রাগিনী-কেনো করলে এটা আমার সাথে?

রোদ-কী করলাম?

রাগিনী-এইসব কী?কেনো এত অভিনয় করলে আমার সাথে।

রোদ-রাগিনী এই পিক গুলো মিথ্যে বিশ্বাস করো।

রাগিনী-আরেকটু আগে প্রিয়ু এই বাড়ি থেকে বের হইছে।এটাও মিথ্যে?

রোদ রাগিনীর কথায় অবাক হয়ে গেলো।অনেক বার বুজানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হলো রোদ।

রোদ-প্লিজ যেয়ো না রাগিনী।এই সব মিথ্যে বিশ্বাস কর।

রাগিনী-আর একটা কথাও না।

রোদ রাগিনীকে হাত ধরে ঘুরাতে যেতেই রাগিনী থাপ্পড় মারলো রোদকে।

রাগিনী-আমাকে ধরার চেষ্টাও করবেন না রোদ চৌধুরী।

রোদ-রাগিনী

রেগে গিয়ে থাপ্পড় দিতে হাত তুলেও মারতে পারলো না রাগিনীকে।

রাগিনী-কি হলো মারেন আমাকে।নাকি ওইদিন যা করছেন,তা আবার করবেন।কেনো অভিনয় করলেন আমার সাথে।

রাগিনী বসে গেলো ফ্লোরে,অঝোড়ে চোখের পানি ঝরছে।রাগিনীর কান্না দেখে রোদ জড়িয়ে ধরতে গেলে রাগিনী রোদকে ছাড়িয়ে দূরে সরিয়ে দেই।
কিছুক্ষনের মধ্যেই রোদ বের হয়ে গেলো বাসা থেকে।
প্রিয়ুর বাসায় গেলো রোদ।প্রিয়ু এখানে একাই থাকে,ওর বাবা-মা দুইজনেই বাইরে থাকে।

প্রিয়ু-রোদ তুই এখানে?

রোদ-একদম নড়বি না,নড়লেই তুই শেষ।

প্রিয়ু-ছুরিটা সরা।

রোদ-চুপ একদম।

প্রিয়ুকে নিয়ে চেয়ারে বসিয়ে হাত পা সব বেঁধে পেললো প্রিয়ুর।

প্রিয়ু-কী করছিস এসব?

রোদ-আমার আর রাগিনীর মধ্যে কেনো আসছিস?

প্রিয়ু-ভালোবাসি তাই।

রোদ-আমি ভালোবাসি না।

প্রিয়ু-আমার তোকেই চাই।

হঠাৎ করেই পিছন থেকে কয়েকজন এসে রোদকে ধরে পেললো।তারপর প্রিয়ুর হাত পা খুলে দিলো।

প্রিয়ু-তোর বুকে শুধু প্রিয়ু থাকবে,রাগিনী না।যাও ওই মেয়েটাকে তুলে আনো।

রোদ-ওর কোনো ক্ষতি করবি না প্রিয়ু।

প্রিয়ু-একদম চুপ।যাও সবাই।

রোদ-আমি তোকে ছাড়বো না প্রিয়ু।

প্রিয়ু-ছাড়তে বলি নাই তো সুইটহার্ট।আমি তো তোমাকেই চাই।

কিছুক্ষনের মধ্যেই রাগিনীকে নিয়ে আসলো, প্রিয়ুর কথা মত বেধে পেললো রাগিনীকে।

প্রিয়ু-সরি সরি সরি গেম টা ভালোই চলছিলো।দেখাতে চেয়েছিলাম রোদ ভালোবাসার নামে অভিনয় করেছে রাগিনীর সাথে।কিন্তু খেলাটার রুলস একটু চেঞ্জ করলাম।এখন রোদ রাগিনীকে ডিবোর্স দিয়ে আমাকে বিয়ে করবে।

রোদ-এটা সম্ভব না।

প্রিয়ু-এই রাগিনীর জন্য।ওকে তো এখুনি শেষ করে দিবো।ডিবোর্স দিতে হবে না।

রোদ-তুই ওকে ছেড়ে দে প্রিয়ু।

প্রিয়ু-দিবো তবে বিয়ে করতে হবে।

রোদ-আমি রাজি।

রাগিনী-তুমি এটা করতে পারবে না।

রোদ-চুপ থাকো।

রাগিনী-দেখো আমি তোমাকে ভালোবাসি।

প্রিয়ু-ভালোবাসা ভুলে যাও।ওই তো উকিল বাবু চলে এসেছে।কাগজ পত্র সব এনেছেন তো?

উকিল-হুম এনেছি।

প্রিয়ু-ওকে দিয়ে স্বাক্ষর টা নিয়ে নিন।

রোদ-আমার তো হাত বাঁধা।

প্রিয়ু-হাত ছাড়িয়ে দাও।আমি একটু বাইরে যাচ্ছি,আমাদের বাসর ঘর সাজানো হচ্ছে।গিয়ে দেখে আাসি

রোদের হাত ছাড়াতেই উকিল এগিয়ে আসলো রোদের দিকে।

রোদ-উকিল সাহেব আপনাদের ম্যাডাম কত টাকা দিয়েছে আপনাকে।

উকিল-ত্রিশ হাজার।

রোদ-ওকে আমি পঞ্চাশ হাজার দিবো।আমার হয়ে কাজ করেন।

উকিল-এত কম।

রোদ-আচ্ছা যত চান ততোই দিবো।

উকিল-ওকে।এই যে গুন্ডর দল ম্যাডাম তোমাদের কত টাকা দিবে এই সব কাজের জন্য।

গুন্ডারা-আমাদের ৫জনকে দশ হাজার করে।

রোদ-আমি আরো বেশি দিবো।আমার হয়ে কাজ করো।

গুন্ডারা-কত?

রোদ-যত চাও।

গুন্ডারা-আচ্ছা ঠিক আছে।

রোদ-রাগিনীর বাধন খুলে দাও।আর প্রিয়ু আসলে ওকে বেঁধে রেখো।

ওরা রোদের কথা মতই কাজ করলো।রোদের প্ল্যান সাকসেসফুল হলো। পরে প্রিয়ু আসতে তাকে বেঁধে পেললো

প্রিয়ু-এই সব কী হচ্ছে?

রোদ-তোমার গুন্ডাদের দিয়ে তোমাকে কাত করলাম।

প্রিয়ু-আমার হয়ে কাজ করার জন্য তোমরা টাকা নিয়েছিলে।

গুন্ডারা-স্যার আরো বেশি টাকা দিবে।

প্রিয়ু-তোমাদের আমি পেলে খুন করে পেলবো।

হঠাৎ করেই পুলিশ এসে ধরে পেললো প্রিয়ুকে এবং পুরো গুন্ডার দলকে।

রাগিনী-পুলিশ কীভাবে এলো?

রোদ-আমি আসতে বসছি।

অফিসার-থ্যাংক ইউ স্যার।ওদের এবার যথাযথ শাস্তি হবে।

রোদ-আপনাকেও ধন্যবাদ সঠিক সময়ে আসার জন্য।

অফিসার-আসি স্যার।

পুলিশ অফিসার চলে গেলে রাগিনী রোদকে জড়িয়ে ধরলো।

রাগিনী-সরি।

রোদ-হবে না

রাগিনী-বেশি জোরে মেরেছি?

রোদ-হুম।

রাগিনী-সরি তো।

রোদ-একটা কিস করো।

রাগিনী-ইশশশ।

রোদ-আচ্ছা আমিই করছি।

বলেই রোদ রাগিনীর ঠোঁটের সাথে ঠোঁট মিশিয়ে দিলো।

পরী-আম্মু।

রাগিনী রোদকে সরিয়ে দিলো।

রাগিনী-দেখলা তোমার জন্য দেখে নিলো।

রোদ-আমার মা টা এইখানে আসলো কীভাবে?

পরী-নুহান খালামনি এনেছে।

রোদ-আচ্ছা আসো মা আমার।

পরী দৌড়ে এসে রোদের কোলে এসে গেলো।রোদ পরীকে জড়িয়ে ধরলো।পরী চুমু দিলো রোদের গালে।

রাগিনী-আমারটা।

পরী-কাছে এসো।

কাছে আসতেই রাগিনীকেও চুমু দিলো পরী।তারপর রাগিনীও চুমু দিলো পরীর কপালে।

রাগিনী-মিষ্টি পরীটা আমার।

নুহান-এবার বাড়ি চলুন আপনারা।

রোদ-হুম চলো রাগিনী।

পরীকে কোলে নিয়ে রাগিনীকে এক হাতে জড়িয়ে ধরে নতুন জীবনের পথে পাড়ি জমালো রোদ-রাগিনী আর মিষ্টি পরীর ছোট্ট একটা সংসার।

সমাপ্ত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here