স্বামীর ভালোবাসা part : 26

0
413

স্বামীর ভালোবাসা part : 26

লেখিকা সুরিয়া মিম

!
ভালোই হলো,
এখন থেকে নিজের খাবার নিজে বানিয়ে খাবেন,
!
শোনো না বলছি কি?
যে রান্নাবান্না তো আমি করছি,
তুমি গিয়ে ফ্রেশ হশে আসো,
!
এই শুনন আমাকে এতো আল্লাদ দেখাবেন না কেমন?
!
আশ্চর্য দশ টা না পাঁচ টা একটা মাএ বৌ আল্লাদ তো সব,
তাকেই দেখাবে তাই না?
!
তাহলে ইশা কে গিয়ে দেখান,
আমাকে এতো ঢং দেখাবেন না প্লিজ,
!
তুমি সক্কাল সক্কাল তেতো কথা না বলে,
মিষ্টির মতো মিষ্টি মিষ্ট কথা বলো সোনা প্লিজ প্লিজ প্লিজ,
!
যতসব নেকামো,
………
তারপর আমি আমার রুমে শাওয়ার নিতে চলে যাই,
………..
শাওয়ার শেষে বাহিরের বেড় হয়ে দেখি,
..।….।…..।…..
একটা নীল সাড়ি ও দু ডজন রেশমি চুড়ি আমার বেডের ওপরে রাখা,
…..
নির্ঘাত এটা ওই লুচ্চার কাজ,
…..
যতসব লুচ্চা,লুচ্চামির ও একটা সীমা থাকে,
আর এতো পুরোই সীমানাহীন,
……
তার ওপরে সখে বাঁচেনা,
যে আমি ওনার দেওয়া সাড়ি পরে সেজেগুজে ধৈইধৈই করে নাচবো,
..
আগে সখ ছিলো নাচার এখন আর নেই একটু ও নেই,
…..
তাই আমি আমার সাড়ি পরবো মিস্টার খান,
……..
তবে ইউ জাস্ট ওয়েট অ্যান্ড ওয়াচ মিস্টার খান,
…….
তাই আমি অনেক সময় নিয়ে সাজুগুজু করে নিচে চলে যাই,
…..
সেখানে শুনি উনি কাকে যেন বলছেন,
…….
আজকে তোর ভাবি অবশ্যই আমার দেওয়া সাড়ি পরে আসবে,
……….
কারন আজকে ও অনেক সময় নিয়ে সাজুগুজু করছে,
…….
আমি না ওকে দেখার জন্যে পাগল হয়ে যাচ্ছি,
……
আমার বিশ্বাস ও আবারো আমার জন্যে নীল সাড়ি চুড়ি পরে সুন্দর করে সাজুগুজু করে আসবে,
!
ইসসস,
সখে বাঁচে না,
তোমার বিশ্বাসের মাথায় পা,
আমার বিশ্বাস ভেঙে,
এখন এই সাড়ি নিয়ে বিশ্বাসের খুব মাতামাতি করছেন তাই না?
যতসব আতেল কনে কার,
!
হঠাৎ করে তখনি ওনার নজর আমার ওপরে এসে পরে,
…..
আর উনি হা করে আমার দিকে তাকিয়ে থাকে,
…..
কারন উনি এক্সপেক্ট করেনি,
যে আমি নীল কারের সাড়ি রেখে, খয়েরি কালারের সাড়ি পরে সাজুগুজু করে নিচে চলে আসবো,
……
খুব সখ না তোমার মন ভেঙে মন জোড়া লাগানোর?
…..
সেটা আর হবেনা মিস্টার খান,
…….
তাই আমি ওনার পাশ কাটিয়ে কিচেনে গিয়ে অম লেট বানিয়ে সোফায় বসে খেতে শুরু করি,
…….
উনি তখন আমার কাছে একটা বোল এগিয়ে দিয়ে বলে,
……..
এই নাও তোমার জন্যে থাই সুপ বানিয়েছি,
!
নো থ্যাংকস আপনি গেলেন ,
আমি এ ছাইপাঁশ গিলি না,
!
একটু খেয়ে দেখ না,
আমি অনেক ভালোবেসে বানিয়েছি তোমার জন্যে,
!
না বাবা থাক আমার আর দরকার নেই,
আপনার ওমন ভালোবাসার,
…..
অনেস্টলি আমি আপনার ভালোবাসা দেখতে দেখতে বিরক্ত হয় গেছি মিস্টার খান,
তাই আর দেখতে চাই না প্লিজ,
!
আমি আর কখনওই তোমার কষ্ট হয় এমন কিছু করবোনা প্রমিছ করেছি তোমায়,
!
ওমা তাই?
….
এর আগেও তো কতো কতো প্রমিছ করেছেন,
সেগুলো কি রেখেছেন?
……….
যে এখন আবার এই মিথ্যে প্রমিছ টা করছেন?
!
আমি কি করে তোমাকে বিশ্বাস করাবো?
তা আমি জানিনা এবে আমি সত্যি কথা বলছি,
!
বাবা এতো দেখি ,
“মেঘ না চাইতেই জল”
………
স্বয়ং সত্যবাদী যুদিষ্ঠীর আমার সামনে বসে আছে,
!
তুমি বিশ্বাস করো আমি অনেক ভালোবাসি তোমাকে,
……
তুমি আমাকে বাধ্য করোনা,
তোমার সাথে জোরজবরদস্তি করতে,
!
এতক্ষণে সত্যি কথাটা বললেন?
!
মানে?
!
এই যে আপনি আমার সাথে জোরজবরদস্তি করতে চান,
…..
আরে ভালো করে বললেই তো পারেন যে আপনি আমাকে ভোগ করতে চান,
……..
দেখুন আমি অসহায় অবলা নারী,
তার ওপরে জুটেছে ফাঁকা বাড়ি,
….
তাই আপনি যা মন চায় তা করতেই পারেন,
…..
এতে আবার ভদ্র হয়ে ভালোবাসার কথা বলার দরকার কি?
…….
যখন আপনি আমাকে আপনার লালসাকামনায় জড়াতে চান,
ভোগের পাত্রী বানাতে চান,
!
তুমি ভুল ভাবছ আমায়,
!
নাহহ,
যা যেটা ঠিক সেটাই ভাবছি আমি,
…..
আফটার অল এখানে কেউ তো নেই….. যে আমাকে আপনার থেকে প্রোটেক্ট করবে,
!
আমার দুধের শিশুরা ওদের মা ছাড়া কিছু বোঝেনা,
…..
তাই প্রোটেকশনের তো কোনো প্রশ্নই ওঠে না,
…..
তাই ভদ্র হয়ে না বলে,
আপনি যেটা করতে চান করে ফেলুন মিস্টার খান,
!
আমি কিছু করতে না,
আমি চাই তুমি আমাকে ক্ষমা করে আমার কাছে ফিরে আসো সোনা,
!
ওমা গো মা,
আপনি তো ভালোই কথা ঘুরতে পারেন?
!
তখনি উনি আমাকে সোফার সাথে চেপে ধরে বলেন,
!
আমি কোনো কথা ঘুরচ্ছি না,
……
আমি আমার পুরনো মিশকা কে ফিরে পেতে যাই,
…………..
সারা জীবনের জন্যে আমার আগের মিশকা কে আমার বাচ্চার মা কে আমার করে পেতে চাই,
…..
আমি চাইনা,
ভাবছি বড়লোক বিজনেসম্যান দেখে দু একটার সাথে প্রেম করবো,
!
এই কিসব বলছ তুমি?
তুমি কি পাগল হয়ে গেছ?.
!
বারে আপনি প্রেম করতে পারেন নষ্টামো করতে পারেন আমি করতে চাইলেই দোষ?
!
আমি খারাপ তুমি তো খারাপ না সোনা,
এসব বাজে কথা বলছ কেন হুমম?
!
“বারে নিজের বেলায় ফিটফাট ”
“আমার বেলায় বাপের বাপ?
!
তুমি এ কথা ভুলে ও মুখে আনবে না,
!
শুনুন আমি আপনার সাথে থাকতে মোটে ও ইচ্ছুক নই,
তাই নিজের মতো করে কাও কে খুজে নিতে চাই,
……..
তুমি মিথ্যে বলছ,
তুমি শুধু আমার ,
তুমি কখনওই পরপুরুষের কথা ভাবতে পারো না,
!
না ভাবলে বলছি কি করে?
হাওয়ায় হাওয়ায়,
.. ……
এই প্রথম উনি ‘থ’ মেরে আমাকে ওনার বুকে জড়িয়ে ধরল,
……
তবে আমার কোনো ফিলিংস আসছে না,
…..
বরং তার এই চেহারা দেখে,
……….
আমার খুশ হাসি পাচ্ছে,
…..
কারন,
আমি তাকে মুরগি বানিয়েছি,
হা হা হা
চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here