নষ্ট গলি পর্ব-৮

0
807

নষ্ট গলি পর্ব-৮

লেখা-মিম

খুব ভোরে ঘুম ভেঙেছে মায়ার। চোখ মেলে দেখে সোহানের পায়ের উপর ওমাথা রেখে শুয়ে অাছে। অার সোহান হেলান দিয়ে বসে ঘুমুচ্ছে। ঘুম ভাঙার পরও সেখান থেকে সরছিলো না মায়া। ভালো লাগছে এভাবে ওর পায়ের উপর মাথা রেখেশুয়ে থাকতে। গতরাতে গল্প করতে করতে কখন ও ঘুমিয়ে পড়েছে সেটা ওর নিজের জানা নেই। হয়তোবা সোহানও কথা বলতে বলতেই ঘুমিয়ে পড়েছে। সোহানের মুখের দিকে তাকিয়ে অাছে মায়া। মানুষটা দেখতে সুন্দর। বিশেষ করে মাথার চুলগুলো। একদম সোজা চুল। একটুও কোঁকড়া না। মাথার চুলগুলো ছুঁয়ে দেখতে ইচ্ছে হচ্ছে মায়ার। ধরাটা কি উচিত হবে? সোহান গতকাল বলেছিলো হুট করে কারো গায়ে হাত দেয়াটা তার অপছন্দ। তাহলে নিশ্চয়ই এভাবে চুলে হাত দেয়াটাও সে পছন্দ করবে না। অার ও যে এভাবে শুয়ে অাছে এটা কি ঠিক হচ্ছে? বোধহয় না। সোহান ঘুম থেকে উঠে যদি দেখে মায়া এভাবে ওর পায়ের উপর শুয়ে অাছে তাহলে নিশ্চয়ই খারাপ ভাববে। নাহ এভাবে শুয়ে থাকাটা ঠিক হবে না। উঠে যাওয়াটাই ভালো হবে।
ফ্রেশ হয়ে রুমে এসে দেখে সোহান রুমে নেই। বোধহয় ঘুম থেকে উঠে চলে গেছে নিজের রুমে। ফুলগাছগুলোর কাছে গেলো মায়া। সাদা গোলাপের গাছটায় একটা নতুন কলি এসেছে। দু তিন দিন বাদেই বোধহয় ফুটবে কলিটা। গত পরশু থেকে একটা কথা মাথায় বারবার ঘুরছে। সেটা হচ্ছে সংসার। সংসার শুরু করতে হবে মায়াকে। অাচ্ছা সংসার কি?সংসার কেমন হয়? এ ব্যাপারে কিছুই জানে না মায়া। তবে নতুন এক অনুভুতির সাথে পরিচিত হচ্ছে সে। সংসার নামক অনুভূতি। গত পরশু থেকে অনুভূতিটা পাচ্ছে ও। অনুভূতিটা বড্ড অদ্ভুদ। ভয় এবং ভালোবাসার সংমিশ্রনে তৈরি অনুভূতি। তবে ভয়ের চেয়ে ভালোলাগার অনুভূতিটাই বেশি। অায়নার সামনে এসে দাঁড়িয়েছে মায়া। সংসারি মেয়ে মানে গৃহিনীদের দেখতে কেমন দেখা যায়? গৃহিনীদের দেখলে চট করে লোকে বলে দিতে পারে মেয়েটা একজন গৃহিনী। নাকটা ফুটো করা নেই ।মায়ার হাতে চিকন একজোড়া চুড়িও নেই। গৃহিনী হতে গেলে তো নাকে ফুল অার হাত একজোড়া চুড়ি থাকতে হবে। লোকটা বলেছিলো অাজ থেকে যা কিছু প্রয়োজন সব ওর কাছে চাইতে। সোহানকে কি বলবে কিনে দিতে? বলাটা কি উচিত হবে? নাহ। সেসব বলা যাবে না। সোহান ওকে লোভি ভাবতে পারে।
-” অায়নায় নিজেকে খুঁটে খুঁটে কি দেখছো?”
পিছনে ফিরে তাকালো মায়া। দুহাতে দুটো মগ হাতে ঘরে ঢুকছে সোহান।
-” নাও তোমার লাল চা।”
হাত বাড়িয়ে মগটা নিতে নিতে খাটে বসলো মায়া। পাশেই পা ঝুলিয়ে বসেছে সোহান।
-” বললে না তো অায়নায় ওভাবে কি দেখছিলে?”
-” নাহ তেমন কিছু না।”
-” তোমাকে তো দেখলাম গভীর মনোযোগ দিয়ে কিছু ভাবছিলে অায়নায় তাকিয়ে? কিছু হয়েছে?”
-” না কিছু না।”
-” কিছু বলতে চাও অামাকে?
-” না না। কিছু না।”
-” বলতে চাচ্ছো না। ঠিকাছে। জোর করবো না। চা ভালো হয়েছে?”
-” হুম।”
-” কাল থেকে তুমি অামার জন্য কফি বানাবে। অার অাস্তে অাস্তে অামার সমস্ত ব্যাপারগুলো খেয়াল দেয়া শুরু করো। অামি অফিস যাওয়ার অাগে অামার কাপড় তুমি সিলেক্ট করবে। সারাদিনে কয়েকবার অামাকে ফোন দিয়ে অামার খোঁজ নিবে। ঘরের বাজার থেকে শুরু করে কারেন্ট বিল পর্যন্ত সমস্ত হিসাব তুমি দেখবে। ঘরে কখন কি রান্না হবে সেগুলো তোমার ফরমায়েশ অনুযায়ী হবে। ঘরে যদি নতুন কোনো ফার্নিচার প্রয়োজন মনে করো তাহলে অামাকে বলো অামি কিনে দিবো।”
-” অাচ্ছা।”
-” অাজকে অফিস যাবো না। তোমাকে নিয়ে স্কুলে যাবো তোমার এডমিশনের ব্যাপারে কথা বলতে। কোন ক্লাস পর্যন্ত পড়েছিলে তুমি?”
-” এইট পর্যন্ত। নাইনে ভর্তি হয়েছিলাম। কিন্তু ক্লাস অার করতে পারিনি।
-” ঠিকাছে। ইংলিশে কেমন ছিলে তুমি?”
-” হুম ভা…….”
কথাটা শেষ করার অাগেই ফোন বেজে উঠলো মায়ার। ফোনটা রিসিভ করলো মায়া। ওপাশ থেকে ফুপিয়ে কাঁদার শব্দ পাচ্ছে ও।
-” কাঁদো কেনো অাম্মা?”
-” কাজলের একটা মাইয়্যা হইছিলো গতকাল রাইতে। বড় হয়া ওরেও বেশ্যাগিরি করতে হইবো এর লাইগা
কাজল ওরে মাইরা ফালাইছে।জানোস মায়া ঐটুক মাইয়্যাডার গলায় জল্লাদটা ব্লেড দিয়া কাটছে। বাচ্চাটা একটা চিৎকার দিয়া কতক্ষন ছটফট করছে এরপর মইরা গেলো। ”
দম বন্ধ হয়ে অাসছে মায়ার।দুচোখ বেয়ে অঝরে পানি ঝড়ছে। সোহান কফি খাওয়া বাদ দিয়ে মায়ার মুখের দিকে তাকিয়ে অাছে।
-” এখন অামার কি মনে হইতাছে জানোছ? তোরেও ছোট থাকতে মাইরা ফেলার দরকার ছিলো। তাইলে তোরে অাজকা বেশ্যা হইতে হইতো না। অামাগো জিন্দেগিটা অনেক খারাপ রে মায়া। এই জিন্দেগি করার চেয়ে মইরা যাওন ভালো। অামারও মইরা যাওয়াউচিত অাছিলো। কিন্তু সাহস করতে পারি নাই। মরতে গেলে অনেক সাহস লাগে।”
-” বাচ্চাটা কি মাটি দিয়ে দিছে?”
-” হ ভোরে মাটি দিছে।”
অার কথা বাড়ালো না মায়া ফোনটা কেটে দিলো। মায়ার মাথায় হাত রেখে সোহান বললো,
-” কি হয়েছে মায়া? কেউ কি মারা গেছে?”
মায়া কাঁদছে। কোনো উত্তর দিচ্ছে না। সে বুঝতে পারছে এখন ওকে কাঁদতে দেয়া উচিত। খানিকক্ষন বাদে না হয় ওকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করা যাবে। সোহান লক্ষ্য করলো মায়া ওর হাত চেপে ধরে কাঁদছে। মায়াকে জড়িয়ে ধরলো সোহান। ওর মাথায় খুব অাস্তে করে হাত বুলিয়ে দিচ্ছে। কিছুক্ষন বাদে মায়া নিজেকে ছাড়িয়ে নিলো সোহানের বাহুডোর থেকে। কিছুটা স্বাভাবিক হয়েছে মায়া।
-” অামাকে কি বলা যায় কি হয়েছে?”
-” অামার পাড়াতে একটা অাপা ছিলো। কাজল অাপা। উনি প্রেগনেন্ট ছিলেন। গতরাতে উনার মেয়ে হয়েছিলো। উনি মেরে ফেলেছে মেয়েটাকে।”
-” কেনো মেরেছে জানো? কারন ও চায়নি ওর মেয়েটারও ওর মতো হাল হোক।”
-” অাপনি কিভাবে জানেন?”
-” এমন গল্প অামি অাগেও শুনেছি। এমন ঘটনা অারও দুজন ঘটিয়েছিলো।”
-” একদিকে ভালোই হয়েছে। অামাদের মতো বাচ্চাটাকে একটুএকটু করে শেষ হতে হবে না। মরার অাগেই নরকের শাস্তি ভোগ করতে হয় অামাদের। মাঝে মাঝে এমন কিছু কাস্টমার অাসে এদের অাচরন দেখলে মনেহয় অামরা মুরগি অথবা খাসীর রানের পিস। মনের খায়েশ মিটিয়ে শরীরের যেখানে সেখানে কামড়াতে থাকে। একবার তো এক কাস্টমারের কামড়ে অামার হাতে ইনফেকশন হয়ে গিয়েছিলো। দাগ এখনও যায়নি। এমন জীবন কাটানোর চেয়ে মরে যাওয়াই ভালো। উচিত কাজ করেছে কাজল। ওর জায়গায় অামি হলে ঠিক এই কাজটাই করতাম।”
-” পানি খাবে?”
-” না।”
-” যা হয়ে গেছে তা তো বদলাতে পারবে না মায়া। সামনে দেখি তোমাদের মতো মানুষের জন্য কিছু করতে পারি কিনা।”
কথাটা বলেই সেখান থেকে সরে গেলো সোহান। সেখানে অার বসতে ইচ্ছে হচ্ছে না তার। কারো কষ্ট সহ্য করতে পারে না সে। তবে মনের কষ্ট মনে রাখতেই ভালোবাসে। লোকের সামনে প্রকাশ করাটা তার কাছে খুবই লজ্জাজনক মনে হয়। সবারসামনে ভাবখানা এমনদেখায় মনে হয় কিছুই হয়নি ।
অাজ দুপুরে মায়াকে স্কুলে ভর্তি করিয়ে এসেছে সোহান। ওর জন্য দুটো টিচার রাখা হয়েছে। বিকালে একজন পড়িয়ে গেছে। এখন অারেকজন পড়াচ্ছে। কিছুক্ষন অাগে অফিসের একজন স্টাফ এসেছে সোহানের বাসায়। অার্জেন্ট কিছু ফাইল সিগনেচার করাতে এসেছেন তিনি। ড্রইং রুমে বসে সোহান ফাইল দেখছে অার স্টাফ সাঈদ মায়ার রুমে একনজরে তাকিয়ে অাছে। ব্যাপারটা চোখে পড়লো সোহানের।
-” ওদিকে কি দেখছেন সাঈদ সাহেব?”
-” স্যার এই মেয়েটা কি হয় অাপনার?”
-” অামার ওয়াইফ। কেনো?”
-” এটা ওয়াইফ?”
-” কোনো সমস্যা?”
-” স্যার অাপনি ভালো করে খোঁজ নিয়ে বিয়ে করেছেন তো?”
-” হ্যা করেছি।”
-” এটা কি করে হয়? স্যার অাপনাকে বোধহয় মিথ্যা ফলে বিয়ে করেছে এই মেয়ে।”
-” সমস্যাটা কি সেটা তো বলবেন।”
-” এ তো…. ইয়ে মানে…. এই মেয়েটা প্রস্টিটিউট স্যার।”
-‘ অাপনি জানেন কিভাবে?”
-” অামি ওদের ওখানে প্রায়ই যাই। ও ভালো না স্যার।”
-” অাপনি ভালো?”
-” জ্বি?”
-” জিজ্ঞেস করলাম অাপনি ভালো কি না? ভাব তো এমন দেখাচ্ছেন মনে হচ্ছে অাপনি পবিত্র পুরুষ। একটা মেয়ে প্রস্টিটিউট হয় কিভাবে জানেন? একটা পুরুষের সাথে টাকার বিনিময়ে এক বিছানায় শুয়ে। এক মেয়ে অারেক মেয়ের সাথে ঘেষাঘেষি করে তো অার প্রস্টিটিউট হয়নি। অাপনার মতো অতিমাত্রার পবিত্র পুরুষের সংস্পর্শে এসেই এরা প্রস্টিটিউট হয়। অার অামি নিজে ওকে ঐ পাড়া থেকে তুলে এনেছি। ঐ পাড়ায় তো ভালো লোক যায় না। যায় খারাপ লোকেরা। তারমানে অামিও খারাপ। ওর অার অামার মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই সাঈদ সাহেব। তবে অাপনার ক্ষেত্রে উল্টোটা হয়েছে। অাপনার বউটা কিন্তু খুব ভালো। কিন্তু অাপনি?”
-” স্যার অাজ অামি অাসি। বাসায় যেয়ে বাকি কাজটা কমপ্লিট করতে হবে।”
কথাটা বলে সাঈদসাহেব ফাইল হাতে বেরিয়ে যাচ্ছিলেন। পিছন থেকে সোহান ডেকে বললো,
-” সাঈদ সাহেব, অাজকের কথাগুলো অাপনার অামার মাঝে সীমাবদ্ধ থাকলেই খুশি হবো।”
-” জ্বি স্যার। কথা বাহিরে যাবে না।”
মায়ার রুমে যেয়ে ওর নতুন টিচারকে সোহান জিজ্ঞেস করলো,
-” স্টুডেন্ট কেমন মাহিন?”
-” বেশ শার্প। এত অাগের পড়া গ্রামারগুলো এখনও মুখস্ত রেখেছে। একবছর প্র্যাক্টিস না করলেই সাধারনত মনে থাকে না। কিন্তু ও দেখছি সবমনে রেখেছে।”
-” কি মনে হয়? মাস দুই তিনেকের মধ্যে দৌড়ে ইংলিশ বলতে পারবে তো?”
-” অাশা করছি হবে।”
-” পড়ানো শেষ?”
-” না অারো পনেরো বিশ মিনিট লাগবে।”
-” অাজকে ওকে ছুটি দিয়ে দাও। একটু বাহিরে যাবো।”
-” জ্বি ভাইয়া।”
-” মায়া, যাও গিয়ে রেডি হও। অামি ওর সাথে কথা বলি।”
-” ভাইয়া বিয়ে করলেন, অথচ কিছুই জানালেন না?”
-” রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলাম। হুট করে দেখলাম একটা সুন্দর পরী পৃথিবীর রাস্তায় হাটাহাটি করছে। অামি ভাবলাম ডানা ভেঙে পড়ে টরে গেলো কিনা। দৌড়ে গেলাম হেল্প করতে। যেয়ে বললাম, অাপনার ভাঙা ডানাটা কোথায় পড়েছে বলেন। অামি এনে জোড়া লাগিয়ে দিচ্ছি। মেয়ে তো অামার মুখের দিকে হা হয়ে তাকিয়ে অাছে। চিন্তা করলাম পৃথিবীতে নতুন তাই হয়তো অামাকে উদ্ভট লাগছে। ফের বলতে লাগলাম, অাপনি তো পরী। ডানা ছাড়া বেশিক্ষন থাকলে ঝামেলা হতে পারে। জলদি বলুন ডানা কোথায়? কিছুক্ষন পর পরী মুখ খুলে বললো, সে নাকি পরী না। সে মানুষ। অামাকে অার পায় কে? পরদিনই ধরে বেঁধে ওকে বিয়ে করে ফেলেছি।”
-” হা হা হা। জানিনা কতটুক সত্যি বলেছেন। তবে গল্পটা মজার ছিলো।”
-” শোনো বিয়ের বয়স হয়েছে অামার। অার কত একা ঘুমাবো? অফিস থেকে ঘরে ফিরলে ঘরটা খালি লাগে। তাই মেয়ে পছন্দ হওয়ার সাথে সাথে বিয়েটা করে ফেললাম।”
দরজার অাড়াল থেকে কথাগুলো শুনেছে মায়া। কাপড় হাতে নিয়ে সোহানের রুমে যাচ্ছে অার ভাবছে, সোহান সবাইকে বলে বেড়াচ্ছে ও সোহানের বউ। কাজটা কি ঠিক করছে সোহান?
(চলবে)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here