গল্প : হবু বউ পাঠ :০২

0
200

গল্প : হবু বউ পাঠ :০২

লেখা : অর্দ্র(MR)
আমরা আমাদের বাইকটা নিয়ে বাসায় চলে আসলাম । আমি যত বাড়ির দিকে আসছি ততো বেশি ভয় হচ্ছে যে আজ কপালে কী আছে সেটা আল্লাহই ভালো জানেন ।
আমরা বাড়িতে চলে আসছি
যাক বাবা আব্বু এখনও কিছু বলেনি ।
আমি সরাসরি আমার রুমে চলে গেলাম গিয়ে ফ্রেশ হয়ে এসে ড্রয়িং রুমের দিকে যেতেই দেখি আব্বু আর আম্মু বসে আছে
তারা কী যেন বলাবলি করছে ।
আমি গিয়ে পাসে বসতেই আম্মু হাসতে হাসতে আমাকে জিজ্ঞেস করলো কি রে বাবা ঐ মেয়েটা কে ছিল । ( আম্মু)
আমি একটু ভ ‍্যাবাচ ‍্যাকা খেয়ে গেলাম আর আস্তে করে বললাম কোন মেয়েটা আম্মু ‌।
আম্মু : গাধা মাকেট এ গিয়ে যে তোকে বয়ফ্রেন্ড বানাতে চাচ্ছিল ঐটা কে চিনিস না ।
আমি: আশ্চর্য আমি চিনবো কীভাবে ।
আমি কী আগে কখনো দেখেছি নাকি যে চিনবো ।
আম্মু : আরে রাগ হবার কী আছে রাগ করিস না । আর এখনও কোনো পছন্দ থাকলে বল ।
( আসলে আমার রাগ একটু বেশি তাই বলল যে রাগ করিস না । আর ভাবছেন যে আমার পছন্দের কথা বলছে কেন আসলে সবাই আমার জন্য মেয়ে দেখে রেখেছে তাই আর কী)
আমি : আরে না আমার কোনো পছন্দ নাই ।
এই বলে আমি ঐখান থেকে রুমে চলে আসলাম ।
তারপর রাতের খাবার খেয়ে ঘুমুতে যাবো তখন মার্কেট এর ঐ মেয়েটার কথা মনে হচ্ছিল । এখন ঐ সব ভাবাভাবি শেষ আগে আপনাদের আমার পরিচয়টা দিই।
আমি মোঃ মেহেদী হাসান
বাবা মায়ের তিন নাম্বার এবং শেষ পিচ্চি ছেলে আমার বড় দুই ভাই আছে ।
বাবা কিছুই করে না ভাইয়া করে । আর আমার হবু উয়াইফ এর নাম রুবি আব্বুর বন্ধুর মেয়ে । আমি চেয়েছিলাম একটা প্রেম করবো তারপর বিয়ে করব । কিন্তু আব্বু আম্মুর কথায় রাজী হয়ে যাই বিয়েটা করতে । আমি পড়াশোনা শেষ করে এখন একটা কম্পানিতে চাকরি করি । আর আমি কিন্তু এখনও আবার স্ত্রী কে দেখি নাই মানে হবু বউ।
যাইহোক পরিচয় দিতে দিতে ঘুমিয়ে গেছি । এভাবে কয়দিন চলে গেলো আজ আব্বু বলছে একটু শ্বশুর বাড়ি যেতে হবে সরি হবি শ্বশুর বাড়ি । ভেবেছিলাম আজকে অন্তত নিজের জিনিসটার সাথে একটু দেখা করতে পারবো । কিন্তু কথায় আছে না যে ভাগ্যে না থাকলে কিছুই হয় না। আজকে ও দেখা হলো না । যাইহোক ঐখানে থেকে আসার সময় রাস্তার মধ্যে হঠাৎ করে বৃষ্টি আসায় একদম ভীজে গেলাম । যাইহোক বাসায় এসে রাতে থেকে প্রচন্ড জ্বর আসলো ।
ঔষধ খেয়ে কিছুটা সুস্থ হলেও পুরোপুরি সুস্থ হয়নি ।
আজ আমি আর আব্বু ডাক্তার এর কাছে গেলাম ডাক্তার আমাকে দেখে কিছু পরীক্ষা করাতে বলল । আজকে প্রচন্ড ভীড় তাকায় আমরা ওয়েট করছিলাম এমন সময় কোথায় থেকে যেন সেই মেয়েটা এসে আমাকে বলছে যে,,,
মেয়েটা: এতো টেনশন করতে হবে না বাচ্ছার বেশি সমস্যা হয়নি শূধু একটু জ্বর আসছিল । ( আমি যথারীতি অবাক হয়ে আব্বুর দিকে তাকিয়ে দেখলাম আব্বু মুচকি মুচকি হাসছে । আমি ভাবছিলাম আব্বু প্রচন্ড রিয়াক্ট করবে )
আমি : মান আপনি কাকে কী বলছেন এসব ।
মেয়েটা : মানে টা হ ‍্যা কী বলছ এইসব ।
আমার প্রচন্ড রকম রাগ হচ্ছে এইবার । খেয়াল করলাম আব্বু আমার দিকে তাকিয়ে ঐ মেয়েটাকে বলল,,
আব্বু: মা তোমার কোথাও ভুল হচ্ছে ।
মেয়েটা: না আংকেল ।
আব্বু : আচ্ছা আমরা এই বিষয়ে পরে কথা বলি তুমি বাইরে ওয়েট করো আমরা আসছি ।
মেয়েটা : ওকে আঙ্কেল ।
মেয়েটা বাইরের দিকে চলে আসলো ।আপনারা ভাবছেন আমি এতক্ষন চুপ করে ছিলাম কেন কারন আব্বু আমার রাগ হওয়া দেখে আমার হাত ধরে রেখেছিল যেন আমি কথা না বলি ।
তারপর আমরা এখানকার কাজ করলাম টেষ্টের রেজাল্ট একদিন পরে দিবে তাই চলে আসলাম ।
বাইরে এসে দেখি মেয়েটা আর নাই চলে গেছে । আমি মনে মনে বললাম ভালো হয়েছে
তারপর আমরা বাড়িতে চলে আসলাম আমাকে ।
পরদিন গিয়ে আমি রেজাল্ট নিয়ে ডাক্তারকে দেখালে ডাক্তার বলল সব ঠিক আছে তারপর আমি বাসায় চলে আসলাম । রাতে খাওয়া দাওয়া শেষ করে রুমে আসতেই আমার ফোন টা বেজে উঠলো আমি অপরিচিত নাম্বার দেখে রিসিভ করলাম না কিন্তু যে ফোন করছে সে আর থামছেই না পাঁচ বার ফোন করার পর আমি ফোন রিসিভ করতেই ওপাশ থেকে সালাম দিল।
আমি সালাম নিয়ে বললাম আপনি কে ।
ওপাশ থেকে : আমি ,,,,,,,,

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here