sanam teri kasam part 1

0
713

@@sanam teri kasam @@
.
পর্ব : (১)
.
লেখক : Abdullah Al Ador mamun (কাল্পনিক লেখক)
.
— ও আম্মু ও আম্মু গেলো রে গেলো আমার নাকটা বুঝি এবার গেলো।(আমি)
.
–কিরে কি হয়েছে চোঁখ খুলতে দেরি কিন্তু তোর চিল্লানি শুরু হতে দেরি হলো না।এত চিল্লাচিল্লি করছিস কেনো। (আম্মু)
.
–আরে রাখ তোমার বক বক আমার নাকটা আগের জায়গায় আছে কিনা দেখ।(আমি)
.
–নাকের আবার কি হলো নাক তো নাকের জায়গায় আছে।(আম্মু)
.
–আম্মু আমার মনে হচ্ছে এই মানব সংসার আমাকে ত্যাগ করে জঙ্গলে গিয়ে থাকতে হবে।(আমি)
.
–কিন্তু কেনো।(আম্মু)
.
–লেজ ছাড়া যেমন বান্দর কে মানায় না তেমনি নাক ছাড়া আমাকেও এই মানব সমাজে মানাবে না।জঙ্গলে গিয়ে হনুমানের সাথে থাকতে হবে।(আমি)
.
–হনুমানের তো নাক আছে।(আম্মু)
.
–আমার নাকটাও হনুমানের মতো হয়ে যাবে চ্যাপটা আকৃতির।(আমি)
.
–তোর নাকটা হনুমানের মতো হবে কি করে।(আম্মু)
.
–কিভাবে হবে তুমি জানো না বুঝি।ঘরের মধ্যে তো একটা শয়তানের বাইচ্ছা আছে ও করবে আমাকে হনুমান। (আমি)
.
–নূরী আবার কি করছে। (আম্মু)
.
–ওই হারামির বাইচ্ছা তো সকাল সকাল আমার নাকের উপর হামলা করে আমাকে হনুমান বানানোর চেষ্টা চালাচ্ছে।(আমি)
.
–তোর এত বড় সাহস আমার বান্ধবী কে হারামি বলিস।(আম্মু)
.
–তোমার বান্ধবী যদি হারামি না হয় তাহলে ডাইনির মতো মেয়েটি কে কেনো এখানে রাখছে।(আমি)
.
–আমার কপালে মেয়ে নাই তো ৩ টা বান্দর পোলা ছাড়া তাই ওরে আমার মেয়ে করে নিয়ে এসেছি এবং পরর্বতীতে এ বাড়ির বউ হয়ে থাকবে।(আম্মু)
.
–আচ্ছা এটা বল যে কি মনে করে বা কি দেখে তুমি ওর মতো একটা প্রেত্নি কে এ বাড়ির বউ করতে চাইছো।(আমি)
.
–নূরী আমাদের জানা শুনা, বাইরের মেয়ে কেমন হবে কি করে বলবো তাই আগে থেকে ভেবে রেখেছি ও হবে এ বাড়ির বউ।(আম্মু)
.
–নূরীর বাইচ্ছাটা কি জানে ও এ বাড়ির বউ হবে।(আমি)
.
–হুম।(আম্মু)
.
–তোমার ৩ ছেলের মধ্যে কোন ছেলের বউ হবে ওই ফাজিলটা।(আমি)
.
–তোর বউ মানে বাড়ির বড় বউ।(আম্মু)
.
–আম্মু মাংস পুড়ে যাচ্ছে মনে হয় গন্ধ আসছে নাকে।(আমি)
.
–মাংস যদি পুড়ে তোর খবর আছে।(আম্মু)
.
কি ভাবছেন বিয়ের কথা শুনে লজ্জায় মাংস পুড়ো যাচ্ছে বলে আম্মু কে তাড়িয়ে দিছি।
সেটা যদি ভাবেব তাহলে আমি বলবো অযথা ভাবছেন।
এখন শান্তিতে বসে একটু চিন্তা ভাবনা করে কিছুনা কিছু বের করতে হবে।
নূরীর মতো ফাজিল মেয়ে কে বিয়ে করে মৌমাছির মতো জীবনটা নষ্ট করতে চাই না।
পেট শান্তি তো দুনিয়া শান্তি। আগে পেটের মধ্যে দানা পানি দিতে হবে তারপর ভাবতে হবে।
কি একটা বলতে ভুলে যাচ্ছি। কি যেনো মনে পড়ছে না।ওয়াও রুম থেকে ঘুরে আসি যদি মনে পড়ে তাহলে বলবো।
ওহহ মনে পড়ছে মনে পড়ছে, আমার পরিচয় তো জানেন নতুন করে আবার জানিয়ে দিই।আমি আদর।ভার্চুয়াল লাইফে সবাই আদর নামে চিনে।ভার্চুয়ালের বাইরে সবাই আদর এবং মামুন দুই নামে চিনে।খেলার মাঠে সবাই নিলয় নামে চিনে তবে এখন নতুন করে আরেকটা উপাধি যোগ করা হয়েছে লেগি নিলয় (লেগ স্পিনার)
আমরা ৩ ভাই, আব্বু -আম্মু আর সাথে আম্মুর বান্ধবীর মেয়ে নূরী।
.

–আদর ভাইয়া তোরে হবু ভাবি ডাকছে নাস্তা করতে।(রনি)
.
–জানোয়ার জানোয়ার আরেক বার যদি ভাবি ডাকিস না তোর হালুয়া টাইট করে দিবো জানোয়ার। (আমি)
.
জানোয়ার হবু ভাবি বলতে আসছে।আজকে একটা ফয়সালা করতে হবে।
ছোট্র পিচ্ছি ভাইটাও ভাবি ডাকতে শুরু করছে। আরেক জনের তো এখনো পাত্তাই নাই।
মি.ইমন থুক্কু নেতা ইমন।
.
নাস্তা করতে বসলাম সবাই এক সাথে।আমি ছাড়া সবাই মিটিমিটি করে হাসছে।কিছুই বুঝতেছি না।আমাকে কি ওদের পাগল মনে হয় সবার।যদি পাগল মনে করতো তাহলে নূরী কে আমার মাথায় চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করতো না এখনে নিশ্চই অন্য কোন মতলব আছে।
.
–খেতে বসছিস খা দাঁত বের করছিস কেনো।(আমি)
.
–আমার দাঁত আমি যা ইচ্ছে তাই করবো তাতে তোর কি।(নূরী)
.
–তুই আমার মুখোমুখি চেয়ারে বসে আমার দিকে তাকিয়ে হাসবি না বলে দিলাম।(আমি)
.
–ভাবির হাসি পাচ্ছে হাসছে তুই রেগে যাচ্ছিস কেনো। (ইমন)
.
–এই বক বক না করে নাস্তা করে বের হও। (আমি)
.
–আব্বু তুমি তাহলে ডেকোরেশনের মালিক হারুন করে বলে দিও।(ইমন)
.
–এই তোরে না বলছি হাসবি না সরে যা আমার সামনের চেয়ার থেকে এটা অন্য কারো নাকে বুক করা আছে।(আমি)
.
–এই বাড়িতে ও ছাড়া যদি অন্য কেউ আসে তাহলে তোরে মেরে ফেলবো।(আম্মু)
.
–আমি মরে গেলে নূরীর কি হবে।(আয় হায় কি বলতে কি বলে দিলাম)
.
–তুই যেহেতু রাজি তাহলে শুভ কাজে দেরি করতে নেই।(আব্বু)
.
–না না শুভ কাজে দেরি করে লাভ কি ১ মাসের মধ্যে সবকিছুই রেড়ি কর।(আমি)
.
তোমাদের শুভ কাজ তোমাদের কে মোবারক আজকে কোন উপায় বের করতে হবে যে করেই হোক।
.
বিকালে ছাদে গোলাপ গাছে পানি দিচ্ছিলাম ঠিক তখনি নূরীর বাইচ্ছাটা লাফিয়ে লাফিয়ে ছাদে এসে সাথে সাথে একটা কালো গোলাপ ছিড়ে নিলো।
আমাকে দেখে ভয়ে চুপশে গেলো।প্রতিদিন একটা করে গোলাপ ছিড়ে ফেলতো।কিন্তু কে এমন করতো জানতাম না।আজকেই সে মহান ব্যক্তি ধরা খেয়েছে।
.
–এই এদিকে আয়।(আমি)
.
–প্লিজ আদর ছেড়ে দেয়।আর কোন দিনও একটাও ফুল ছিড়বো না।(নূরী)
.
–এতদিন তো ঠিকই ছিড়ছো।তখন মনে ছিলো না ধরা গেলে কি অবস্হা করবো।(আমি)
.
–ও গো হবু বর আর কোনদিনও এমন করবো না।(নূরী)
.
–শয়তানের বাইচ্ছা কান ধরে সামনে আয়।(আমি)
.
–কান ধরতে পারি ঠিকই কিন্তু তোর সামনে যাবো না তুই আমাকে মারবি।(নূরী)
.
–যদি না আসিস তাহলে চিকেন রোল বানিয়ে ফেলবো।(আমি)
.
–প্লিজ আদর প্লিজ…(নূরী)
.
–এই কাঁদবি না সোজা সামনে এসে দাড়াবি। (আমি)
.
–মারিস না প্লিজ…(নূরী)
.
–মারবো না যদি একটা উপায় বলে দিতে পারিস তবে বেঁচে যাবি।(আমি)
.
–আমি রাজি।তোর মতো দানবের হাতে মাইর খাওয়ার চেয়ে সমাধান দেওয়া ঠিক হবে।(নূরী)
.
–তোর সমাধান যদি ভুল হয় তাহলে মাইর একটাও মাটিতে পড়বে না সব তোর পিঠে পড়বে।(আমি)
.
–বকবক না করে কি করতে হবে সেটা বল।(নূরী)
.
–শোন একটা ছেলেকে বিয়ে করার জন্য ওর বাবা মা ভাই বোন সবাই জোর করছে।কিন্তু যে মেয়ের সাথে ছেলের বিয়ে ঠিক করা হয়েছে সে মেয়ের সাথে ছেলেটির বনে না তাই ছেলেটি কি করবে ভেবে পাচ্ছে না।এখন তুই বল ছেলেটির কি করা উচিৎ।(আমি)
.
.
চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here