৩২বছরের ছেলে ১৭ বছরের মেয়ে ২য়(শেষ পাট)

0
240

৩২বছরের ছেলে ১৭ বছরের মেয়ে ২য়(শেষ পাট)

লেখা/রুবেল(হিংসুটে ছেলে)

 

,

মিলি যদি ও একটু অাগে হাসি খুশি ছিলো, যখন শুনতে পেল রিপন অার বাংলাদেশে নাই, মিলি তখন হঠাৎ এ অজ্ঞান হয়ে গেল,
!
এমনটা তো হওয়ার কথা ছিলো না, তাহলে রিপন অামাকে কখনো ভালোবাসে নাই
এ সব ভাবতে ভাবতে মিলি মাটি তে পড়ে গেল।
মিলির বাবা মা এখন কি করবে কিছু ভেবে পাচ্ছে না,
বেশ কিছু পরিচিত অাত্বীয়-স্বজন কে দাওয়াত করেছে, রাহাত পরিচিত না হলে ও ব্যবসার ক্ষেত্র অনেটা পরিচিত তাই মিলির বাবা রাহাত কেউ দাওয়াত করেছে,
!
মিলির জ্ঞান ফিরে অাসলেও,
মিলি কারো সাথে কথা বলছে না, কেমন পাথর গুলোর মত হয়ে গেছে,
মিলির বাবা মা ও কেমন যেন ভেজা বিড়াল গুলোর মত চুপ হয়ে অাছে,
একে একে সব অাত্বীয় -স্বজন নিজের বাড়িতে যাওয়া শুরু করছে,
রাহাত অাগে থেকে সবটা জানে,
মিলির বাবার কাছে গিয়ে তাকে বুজাতে লাগলো,
কিন্তু মিলির বাবার একটাই কথা অামার মেয়েটার এখন কি হবে?
রাহাত হঠাৎ এ বললো অাপনার অাপত্তি না থাকলে অামি মিলি কে বিয়ে করবো,
যদি ও কোন বাবা মা চাইবে না যে তার মেয়ে তার বয়সের দ্বিগুন কোন ছেলের সাথে বিয়ে হোক,
কিন্তু এখন মিলির বাবা মার জন্য এটাই এখন ভালো প্রস্তাব,
!
এখানে মিলির মতামতের কোন মুল্য নেই,
মিলির ইচ্ছা না থাকলেও এ বিয়াটা করতে হবে,
এ ছাড়া মিলির কাছে অার কোন উপায় নেই,
!
তার পর মিলির অ্র রাহাতের বিয়ে হয়ে গেলো, মিলির বাবা মিলি কে বুকে জড়িয়ে কান্না করে মিলি কে গাড়িতে তুলে দিলো।
মিলি অঝড়ে কেঁদে যাচ্ছে,
রাহাত গাড়ি নিয়ে বাড়িতে পৌছালো,
রাহাত বাড়িতে একা থাকে তাই রাহাত কে একাই সবটা করতে হলো,
মিলিকে গাড়ি থেকে নামিয়ে নিয়ে রুমে নিয়ে গেল,
!
মিলি তুমি এ ভাবে কান্না করতিছো কেন(রাহাত)
দেখো অামি তোমার বেপারে সবটা যানি (রাহাত)
!
অাপনি সব কিছু যানার পরও কেন এটা করলেন(মিলি)
দেখো ঔ মহুতে ঔ খানে দাড়িয়ে অামার যা করার উচিত ছিলো অামি তাই করছি, (,রাহাত)
ও তার মানে অাপনি অামাকে দয়া করছেন(মিলি)
তুমি যদি এটা কে দয়া মনে করো তো করতে পারো, শোন অামি যানি অামি তোমার বয়সে অনেক বড়ো হয়তো অামি যা করছি তা ঠিক হয়নি,
কিন্তি বললাম না ঔ মহুতে অামার যা করার উচিত ছিলো অামি তাই করছি,
তুমি তোমার বাবা মার কাছে যেমন ছিলো ঠিক এখানে সে ভাবে থাকবে,
অামি শুধু তোমাকে অার তোমার বাবা মাকে সমাজের চোখে নিচু হতে দেই নাই, (রাহাত)
ও তার মানে শুধু দয়া করছেন, স্ত্রী মানেন নাই(মিলি)
দেখো বিয়ে যখন করছি তখন তো সমাজের চোখ এ তুমি অামার স্ত্রী তাই না,
!
মিলি তুমি অসুস্থ অনেক রাত হয়ে গেছে ঘুমাও, (রাহাত)
এই দয়া কত দিন থাকবে (মিলি)
দেখো এ ভাবে বলছো কেন,
অার তুমি এটাকে দয়া মনে করতিছো কেন?
কত দিন থাকবে মানে, বললাম তো ইসলাম অনুযায়ী তুমি এখন অামার স্ত্রী, অামি যতো দিন বেচে থাকবো ততো দিন তো তোমাক দেখতে হবে তাই না? এখন তুমি কত দিন থাকবে অামার কাছে অামি যানি না,(রাহাত)
!

ভালোবাসবেন অামায় সারাজীবন? বলে মিলি রাহাত কে জড়িয়ে ধরে কাদতে লাগলো,
রাহাত অাস্তে করে মিলি কে জড়িয়ে বললো
মিলি এ ভাবে কাদছো কেন, অতীত সব ভুলে যাও, কথা দিলাম সারাজীবন পাশে থাকবো,
!

সমাপ্ত

গল্পটা শেষ করতে চাই নাই। কিছু একটা কারনে দ্রুত শেষ করতে হলো, যানি শেষ টা ভালো হয়নী,
!
ভালোবাসা জাতী অার বয়স অনুযায়ী হয় না, ২০ বছরের মেয়ে ৪০ বছরের ছেলে কে ভালোবাসতে পারে,
যাই হোক এবার মিলি বুড়োর বুকে ভালোই থাকবে

অতিরিক্ত কিছু কথা ঃ অাপানার প্রেমিক কখনো অাপনাক রুমডেট এর কথা বলে তার হাতে ৫০০ টাকার নোট দিয়ে বলুন যা কোন বেশ্যার কাছে গিয়ে রুমডেট করে অায় অামি বেশ্যা না।
ভালোবাসায় কোন নোংরামি নাই, অাছে শ্রদ্ধা, সন্মান অার ভক্তি,
ভালো থাকবেন সবাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here