খেলাঘর পর্ব-২৭

0
692

খেলাঘর পর্ব-২৭
লেখা-সুলতানা ইতি

আশা করি আপনাদের আর কিছু বলতে হবে না, এই বলে মিথিলা বেরিয়ে যায়,,

পরীক্ষা শেষে নতুন করে পরিচিত হওয়া এক বান্ধবীর সাথে দেখা করলো মিথিলা

মিথিলা- তৃধা আমার না কিছু টিউশনি খুব দরকার,একটু খুঁজে দিতে পারবি?

তৃধা- দোস্ত আমার ছোট একটা বোন আছে পড়া শুনায় ফাঁকিবাজ, তুই যদি তারে পড়াশ তা হলে পাঁচ হাজার করে পাবি

মিথিলা- পাঁচ হাজার কেনো, একটা টিউশনি তে এতো দেয় নাকি

তৃধা- শুন আমার বোন কে কোন টিচার ই পড়াতে চায় না, দূর্বল, ক্লাস সেভেনে এই চার বছর আছে,এর আগের এক টিচার কে তো আট হাজার টাকা করে দিতাম,, কিন্তু তা ও কিছু হয়,এই টা লাষ্ট সান্স

সে হিসেবে তোকে অনেক কম ই বলেছি
মিথিলা- ওকে ডান, প্রতি দিন সন্ধায় আজ থেকেই শুরু করবো,কিন্তু তৃধা আমার আর ও কিছু টিউশনি দরকার, মানে যা দিয়ে তিন চার জনের সংসার খুব ভালো ভাবে চলতে পারবে

তৃধা একটু ভেবে বল্লো
– দোস্ত টিউশনি করে তুই সংসার চালাতে পারবি না কারন দেখ অনেক স্টুডেন্ট এর গার্ডিয়ানরা মাস শেষে বেতন দিতে গড়িমসি করে,,যদি এই টিউশানির ফাকে তুই কোন প্রাইভেট কম্পানিতে জব নিস,বা প্রাইভেট স্কুলে তা হলে গিয়ে একটু বরকত পাবি

মিথিলা- তুই আমার জন্য টিউশনি খুঁজে দে, রেজাল্ট বের হলে জবের কথা ভাববো

তৃধা- ঠিক আছে,

মিথিলা তা হলে আমি যাই এখন
মিথিলা বাসায় চলে আসে অনেক রাত আয়ান এখন ও ফেরেনি,মিথিলা জেগে বসে আছে আজ আয়ানের সাথে কথা বলতেই হবে

আনুমানিক রাত একটায় আয়ান আসে
মিথিলা আয়ানের রুমে যায়
আয়ান মিথিলা কে দেখে মনে মনে বল্লো ভাগ্যিস আজ সেন্সে আছি নইলে আপু যে কি বলতো

মিথিলা গিয়ে আয়ানের পাশে বসে
আয়ান ছুপটি মেরে বসে আছে
কথা শুরু করলো মিথিলা ই
– ভাই যেদিন আমি এস,এস, সি তে প্লাস পেয়ে বাসায় আসি সেদিন মা বাবার পাশা পাশি তুই ও অনেক খুশি হয়েছিলি বরাবর তোর আর নির্ঝরের দুষ্টুমির কারনে আমি ভাবতাম পড়াশুনা নিয়ে তোদের বুঝি কোন ভাবনা নেই
কিন্তু সেদিন নির্ঝরী আমার সাথে ফাজলামি করলে ও তুই আমার ধারনা পালটে দিয়েছিলি, মনে আছে তোর সেদিনের কথা?

আয়ান মিথিলার দিকে তাকায় মুখে তার কথা নেই,,কি বলবে সে ভাষা ও খুজে পাচ্ছে না

মিথিলা ই বলতে শুরু করল
– তুই সেদিন আমায় একটা কলম গিফট করেছিলি,আর বলেছিলি কলম একটা শিক্ষা উপকরণ এটা তার হাতে ই মানায় যে এটার মূল্য বোঝে,আর ও বলে ছিলি,টিপিনের টাকা জমিয়ে তুই আমার জন্য কলম টা কিনেছিলি বেশ দামি ছিলো কলম টা

আমি সেদিন খুব খুশি এতো টা খুশি হয়েছিলাম যে তোরা দুজন ই বুঝতে পারিস নি, আমি সেদিন তোকে নিয়ে দূরে ভবিষ্যৎ দেখতে থাকি,,এই কলম ই হবে তোর ভবিষ্যৎ এর পথ চলার ছাবি কাঠি,,
এতোটুকু বলে মিথিলা থেমে যায়,,একটা শূন্যতা ভরা নিঃশ্বাস গোপন করে আবার বলতে শুরু করলো
– কিন্তু আব্বুর মৃত্যুর পর তুই এমন হয়ে যাবি আমি ভাবতে ও পারিনি,দেখ তোর ভবিষ্যৎ এখন অনিশ্চিত

তোর সাথে আমার নির্ঝর সবার ভবিষ্যৎ ঝড়িয়ে শুধু আমাদের দুজনের কেনো জিমি আপু কে আব্বু বিয়ে দিলে ও একদিনের জন্য ও সে তার স্বামির কাছে সুখি হয়নি,তাকে যদি আমরা না দেখি কে দেখবে বল

আচ্ছা আমার কথা বাদ দে আমি না হয় কোন ভাবে আমার জীবন টা পার করে দিবো, যদি তোদের নিয়ে আমার কেনো চিন্তা না থাকতো,কিন্তু এখন আমার প্রতিনিয়ত টেনশন তোদের কি হবে,

জানিস মা শেষেবার আমাকে দেখে ইশারায় অনেক কথা বলে ছিলো,সেটা তোরা না বুঝলে ও আমি বুঝেছি,
মায়ের মৃত্যুর আগের রাতে আমি স্বপ্নে দেখি বাবা মা দুজনেই এক সাথে বসে আছে,আর আমাকে বলছে মিথিলা তুই তোর ভাই বোন দের দেখিস

আমি বল্লাম- তোমরা থাকতে আমি কেনো?
তখন মা বল্লো আমরা তো সব সময় থাকবো না তার পরেই আমার ঘুম ভেঙে যায়

মিথিলা থামতেই আয়ান মিথিলা কে ঝড়িয়ে ধরে কাঁদতে শুরু করলো
মিথিলা কিছু বল্লো না কাঁদতে দিলো আয়ান কে কাঁদলে হয়তো মনটা হালকা হবে

কিছুক্ষন পর আয়ান নিজেকে সামলে নিয়ে বল্লো
– আপু আমি এখন কি করবো বল

মিথিলা- দেখ এখন ও অনেক দেরি হয়ে যায়নি,সময় আছে তুই পড়াশুনা শুরু কর, আমি আছি তোদের পাশে,যখন যা দরকার হবে আমাকে বলবি আমি আমার রক্ত বেছে হলে ও তোদের পাশে থাকবো

আয়ান- আপু দুলা ভাইয়ের সাথে তোমার কি হয়েছে

মিথিলা কিছুক্ষন ছুপ করে থেকে বল্লো
-তুই এখন ও ছোট যখন বড় হবি তখন নিজেই বুঝতে পারবি,এখন শুয়ে পড় অনেক রাত হয়েছে

আয়ান আর নির্ঝর আবার পড়াশুনা শুরু করে,,ওদের পড়াশুনার খরচ, সংসার খরচ সব চালাতে মিথিলা হিমসিম খেয়ে যাচ্ছে তবু ও হাল ছাড়েনি, ভাই বোন দের একটা পর্যায়ে না পৌছানো পর্যন্ত শান্তি নেই তার

জে.এস.সি তে আয়ান টেনে টুনে পাশ করলে ও নির্ঝরী অনেক ভালো রেজাল্ট করে যদি এ প্লাস পায়নি তবু ও ভালো হয়েছে

আয়ানের মন খারাপ
মিথিলা গিয়ে ভাইয়ের পাশে বসলো
আয়ান মন খারাপ করছিস কেনো?
এখন রেজাল্ট খারাপ হয়েছে তাতে কি, এস.এস.সি তে অবশ্যই ভালো হবে,ভালো করে পড়াশুনা কর

আয়ান- আপু তুই বলছিস, আমার দ্বারা ভালো রেজাল্ট হবে
মিথিলা- হ্যারে পাগল,অবশ্যই পারবি,

মিথিলা এখন ছয়টা টিউশনি করায় সব মিলিয়ে মাসে পনেরো ষোল হাজার হয় কিন্তু তবু ও
ওদের পড়া শুনা আর সংসারে ঠিক মতো হয়ে উঠে না,নির্ঝরিণীর পরনে একটা ভালো ড্রেস নেই, আয়ানের ভালো একটা শার্ট নেই,,মিথিলা কি করবে ভেবে পাচ্ছে না,,

এইচ,এস,সি র পরে নিজে আর পড়াশুনার কথা ভাবেনি এতো খরচ চালাবে কি দিয়ে,,
অনেক চেষ্টার পর টিউশানির পাশা পাশি একটা প্রাইভেট স্কুলে মিথিলার জব হয়, মাথা থেকে যেন কিছু টা চিন্তা গেলো,

স্কুল শেষ করে মিথিলা, তাড়াতাড়ি রান্না বসালো কিছুক্ষন পর নির্ঝর আর ভাই আসবে অনেক ক্ষুর্ধাত্ব থাকবে, খাবার রেডি না হলে কি যে হবে

সন্ধায় আবার তৃধার বোন তৃনা কে পড়াতে যেতে হবে মেয়েটা এতো অমনোযোগী পড়া শুনায়, তবু ও টেনে টুনে সেভেনের বছর পার করিয়ে এনেছে তৃনার মা বাবা অনেক খুশি তাদের অনুরোধ এইটের বছর ও মিথিলা কেই পড়াতে হবে দরকার হলে বেতন বাড়িয়ে দিবে

নির্ঝরিণী বাসাতে প্রবেশ করতেই চিৎকার করে করে মিথিলা কে ডাকতে লাগলো আপি এই আপি শুন না কি ঘটেছে আজ

আয়ান- এই নির প্লিজ আপুকে কিছু বলিস না

মিথিলা- কি হয়েছে রে নির্ঝরী, আমাকে বললে কি হবে

আয়ান- আপু তুই ওর কথা শুনিস না, ও এমনিতেই ফাজিল

নির্ঝরিণী – আপু আমি মটেও ফাজিল নয় সত্যি বলছি,
পাশের বাসার আন্টির মেয়ে উতলা, ভাই কে রোজ আসা যাওয়ার পথে চোখ মারে,আর আমাদের রোমিও লজ্জায় মাথা তুলে তাকাতে ও পারে না হা হা হা

মিথিলা ও মুচকি মুচকি হাসতে থাকে
আয়ান লজ্জায় মাথা নিচু করে আছে

মিথিলা- হয়েছে যা হাত মুখ ধুয়ে আয় খেতে দিচ্ছি

হ্যারে আয়ান উতলা যেন কিসে পড়ে?
আয়ান- আপু নিউ টেনে

মিথিলা- ওপ্স আমার ভাই নয়,ভাইয়ের বউ দশ

নির্ঝরিণী – আপি এক সাথেই থাকার কথা আমাদের আদুভাইয়ের এক বছর মিস হয়েছে না
আয়ান- আপু তোরা কি শুরু করেছিস,ধূর ভাল লাগে না

মিথিলা- ওকে নির্ঝর আর কোন ফান নয় খেতে আয়

নির্ঝরিণী – খেতে খেতে বল্লো জানিস আপু কালকে না আমাদের স্কুলে কন্সার্ট হবে,, অনেক বড় নাম করা শিল্পী কে আনবে
আমি কাল তাড়া তাড়ি স্কুল যাবো

মিথিলা- কি জানি আমি তো গান ফান এতো শুনি না, তাই শিল্পী দের নাম ও জানি না,কোন শিল্পী আসবে রে

আয়ান- আরেহ আপু শিল্পি আয়াপ খান, নতুন করে মাথা ঝাড়া দিয়ে উঠেছে তাই এখানে সেখানে যায় আর কি

নির্ঝরিণী – আপু তুই ওর কথায় কান দিস না,আয়াপ সত্যি অনেক ভালো গান করে,ওর ছেলে ফ্যানের থেকে মেয়ে ফ্যান অনেক,,সবার ক্রাশ উনি,,

আয়ান- হা আপু আমাদের ফাটা বাশওয়ালির ও ক্রাশ

মিথিলা- কি সব বলছিস বলতো, নির্ঝরের কন্ঠ সত্যি অনেক সুন্দর ফাটা বাশ হতে যাবে কেনো

আয়ান- শুন নির তুই না সাবধানে থাকিস ফাকনামি করে আবার স্টেজে তোর ফাটা গলায় গান ধরিস না নইলে স্কুলে আমার মান থাকবে না সবাই জানে তুই আয়ানের বোন

মিথিলা ভাই বোন দের ধমক দিয়ে বল্লো- ছুপ কর তোরা খাওয়ার সময় এতো কথা বলতে নেই

মিথিলা- তোরা খা আমার একটু মার্কেটে যেতে হবে সেখান থেকে তৃনা কে পড়িয়ে একেবারে আসবো

নির্ঝরিণী – হুম তাড়া তাড়ি এসো আর শুনো আপি তোমাকে আর বেশি দিন কষ্ট করতে হবে না আমি এস.এস.সি দিয়ে তোমার মতো টিউশনি করাবো

আয়ান- আপু তুই যদি ওর আশায় থাকিস তা হলে তুই বুড়ি হবি আমি বুড়া হবো তবু ও ঝড়ের টিউশনি ঝুটবে না হি হি হি

মিথিলা আয়ান কে ধমক দিয়ে বেরিয়ে গেলো
আজ মিথিলার মার্কেটে যাওয়ার কারন নির্ঝরিণীর জন্য একটা ভালো ড্রেস কিনবে

মিথিলা একটা মার্কেটে ডুকলো,
এই দোকানদার মেয়ে,মিথিলা বেছে বেছে এই দোকানেই আসলো কারন মেয়েদের সাথে ধামা ধামি ভালো করা যায়,

মিথিলা দোকানি কে বল্লো
আমাকে একটা চুড়িদার দেখান তো

দোকানি পাশে ফিরে থাকা একটা মেয়ে কে ডাক দিয়ে বল্লো
– এই রাহি এই ম্যাম কে চুড়িদার দেখা তো

রাহি সামনে ফিরতেই মিথিলা ভুত দেখার মতো চমকে উঠে
-আরেহ রাহি তুই এখানে

রাহি- আমি তো এখানে কাজ করি কিন্তু তুই এখানে?

মিথিলা কিছুক্ষন আর কথা বলতে পারলো না
রাহি এসে মিথিলা কে ঝড়িয়ে ধরলো
রাহি- তোর সব কথা শুনেছি কিন্তু সময়ের কারনে তোর সাথে যোগাযোগ করতে পারিনি
আর তোর নাম্বার টা ও হারিয়ে ফেলেছি

মিথিলা- ওহ

রাহি – চল কোথাও গিয়ে বসি
মিথিলা প্রথমে যেতে চায়নি পরে ভাবলো ইহানের খবর জানে কি না জিজ্ঞাস করা যাবে তাই বল্লো চল যাই

ওরা একটা কফিশপে গিয়ে বসলো
রাহি- তো দিন কাল কাটছে তোর

মিথিলা- ভালো,পড়াশুনা করছিস না এখন ও

রাহি- হুম সেটা তো করতেই হবে সব বন্ধুরা দেশের বাইরে ডিগ্রী নিতে গেছে আমি বিদেশে না যেতে পারি দেশে থেকে তো পারবো

মিথিলা- হুম,সব বন্ধুরা মানে তুই আর কার কার কথা বলছিস

রাহি- ইহান,সাম্মি, অরনি ওদের কথা বলছি

ইহানের কথা শুনে আবেগে মিথিলার কন্ঠ ভারী হয়ে যায় অনেক কষ্টে নিজেকে সামলে নিয়ে বল্লো
ইহানের খবর কোথায় ফেলি

রাহি- ইহানের খবর তেমন বেশি জানি না,অস্ট্রিয়া তে সাম্মি যায় সেখানে একটা ভার্সিটি তে ইহানের সাথে দেখা হয় তার,সেখান থেকেই জানতে পারি ইহান এখন অস্ট্রিয়া তে আছে,আর অরনি আমেরিকায়

মিথিলা- অরনি আমেরিকায় কেনো

রাহি- কারন অরনি জানে না ইহান যে অস্ট্রিয়া তে আছে, তাই অরনি তার আন্টির কাছে আমেরিকায় যায়
মিথিলা- ওহ,

রাহি- তবে লাস্ট মান্থে শুনেছি অরনি অসুস্থ, হোসপিটালে ভর্তি আছে

মিথিলা- কি হয়েছে অরনির

রাহি- সেটা জানি না,বাই দ্যা য়ে জিজুর খবর রাখিস?

মিথিলা গম্ভীর হয়ে বল্লো
যখম সম্পর্ক টার কোন মূল্য নেই তখন মানষ টার খবর রেখে কি হবে

রাহি- তোদের তো ডিভোর্স হয়নি,,তুই চাইলে তো জিজু কে আইনের জাঁতাকলে আটকাতে পারিস

মিথিলা- ওসব করে কি লাভ বলতো থাকনা সে নিজের মতো

রাহি- শুনেছি জিজুর সাথে তার বাবা মা,র কোন সম্পর্ক নেই,এ দিকে নায়া আপুর সাথে সে আলাদা ফ্ল্যাটে থাকে,বিয়ে ও করে নিয়েছে

মিথিলা অবাক হয়ে বল্লো
– নায়া কে তুই ছিনিস নাকি,আপু বললি যে

রাহি- আরেহ তুই তো জানিস না,নায়া আপু ইহানের বড় বোন

মিথিলা- হোয়াট

রাহি- হুম,নায়া অস্ট্রিয়া থেকেই পড়া শুনা করেছে আর জিজু ও সেখানে ছিলো তাদের পরিচয় সেখানেই হয়,দেশে আসার পর জিজুর মা,বাবা মানে তোর শ্বশুর শ্বাশুড়ি ঝোর করে তোর সাথে বিয়ে দিয়ে দেয়,তার পর নায়া দেশে ফিরে যা করার তা করলো

মিথিলা পাথরের মতো বসে আছে

রাহি মিথিলার কাদে একটা হাত রেখে বল্লো
– মন খারাপ করিস না,নায়া আপু যে এমন আমি ও ভাবতে পারিনি,তবে শুনেছি ইহান এই নিয়ে নায়ার সাথে রাগা রাগি করে বাংলাদেশে আসা বন্ধ করে দিয়েছে ফ্যামেলীর কারো সাথে যোগাযোগ নেই ইহানের

মিথিলা – ওহ, আমি এখন উঠি রে,
মিথিলা রাহি কে কোন কথা বলার সুযোগ না দিয়ে বেরিয়ে যায়,রাহি পিছন থেকে ডাকলে ও শুনে না

আজ আর তৃনা কে পড়ানো হয়নি সোজা বাসায় চলে আসে

নির্ঝরিণী – আপু তুমি না বললে দেরি হবে তোমার আসতে

মিথিলা কিছু বল্লো না সোজা নিজের রুমে গিয়ে দরজা লাগিয়ে দেয়

নির্ঝরিণী – কি হলো আপুর, যাওয়ার সময় তো সব ঠিক ই ছিলো

মিথিলা রুমের লাইট অফ করে বসে আছে ভাবছে ইভানের কথা বিয়ের পর তার পাগলামির কথা
সব ই তো ঠিক ছিলো,তা হলে এমন হলো কেনো, ভালো বাসা হুম ওদের ভালোবাসার কাছে আমি হেরে গেছি,
ওরা ঠিক ই ওদের ভালোবাসা জয় করে নিয়েছে,,আমার ভালোবাসায় অনেক খাদ ছিলো তাই হয়তো ইভান কে নিজের করতে পারিনি হয়তো ওকে নায়ার মতো করে ভালোবাসতে পারিনি,
ভালো থাকুক ওরা,,,

সকালে মিথিলার খুব ঝামেলা হয় ভাই বোন দের খাইয়ে তার পর স্কুলের জন্য বের হতে হয়
আজ নির্ঝরিণী ও কোন হেল্প করেনি সকাল থেকেই স্কুলে যাওয়ার জন্য তার কতো আয়োজন ভাবা যায় বিখ্যাত শিল্পি আয়াপ খান আসছে

চলবে
ভুল ক্রুটি ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here