ভালোবাসি তোমাকে পার্ট-০১

0
982

 ভালোবাসি তোমাকে পার্ট-০১
 jannatul_ferdous

 

নিশাত এসে টান দিয়ে সরিয়ে নিয়ে গেলো শিমুকে।আরেকটু হলেই ছাদ থেকে ঝাপ দিতো সে।কিন্তু নিশাত সরিয়ে নিয়ে গেলো।বৃষ্টি হচ্ছে তার মাঝেই শিমু ছাদে চলে আসছিলো।

নিশাত-(জড়িয়ে ধরে)কি করছিস এসব আপ্পি.এত কাছে গেলি কেনো ছাদের।তোর যদি কিছু হয়ে যেতো.

শিমু-আমার আবার কী হতো?দেখ ও দাঁড়িয়ে আছে আমার অপেক্ষায়,যেতে হবে তো আমাকে।

নিশাত-আপ্পি কেউ নেই দাঁড়িয়ে.চল এখান থেকে.

(নিশাত টেনে নিছে নিয়ে গেলো শিমুকে)

নিশাত-আম্মু.

শিমুর আম্মু-কি হয়েছে?

নিশাত-দেখো কী করছে.

শিমুর আম্মু-শিমু তো পুরো ভিজে গেলো।এভাবে ভিজলো কীভাবে?

নিশাত-ছাদে গিয়ে.

শিমুর আম্মু-আবার ছাদে গেলো.নিশু যা তো ওকে চেঞ্জ করিয়ে নিয়ে আয়।আমি খাবার দিচ্ছি।

শিমু-আম্মু।

শিমুর আম্মু-বল মা।

শিমু-শুভ্র তো ওইখানে দাঁড়িয়ে আছে।ও তো ভিজে যাবে,ওকে বাসায় আসতে বলো।

শিমুর আম্মু-(চোখে পানি টলমল করছে)–আচ্ছা তুই চেঞ্জ কর আমি ওকে নিয়ে আসছি।

শিমুকে নিয়ে নিশু চলে গেলো।

শিমুর আম্মু-আমার মেয়েটার ভাগ্যেই এরকম হয় কেন?হে পরম করুনাময় আল্লাহ ওর এই অবস্থা আমি মা হয়ে কীভাবে দেখবো।ওর সুস্থ হওয়ার পথ দেখিয়ে দেন আমিন।

শিমুর আব্বু-শুনছো গতকালকেই বিদেশ থেকে ডাক্তার এসেছে।আমরা শিমুকে নিয়ে ওর কাছে যাবো।

শিমুর আম্মু-আমার শিমু সুস্থ হবে তো?

শিমুর আব্বু-চেষ্টা করে তো দেখতে পারি.বাকিটা আল্লাহ ভরসা।

শিমুর আম্মু-হুমমম।নিশু শিমুকে নিয়ে খেতে আয়।

শিমু-(খাবার টেবিলে বসেই)–শুভ্র কই আম্মু।তুমি ওকে আনোনি?আমি খাবো না।
(বলেই প্লেটটা ফ্লোরে ছুড়ে পেলে দিলো)

শিমুর আম্মু-শিমু(চিৎকার দিয়ে উঠলো)

শিমুর আব্বু-থামো ওর উপর রাগ করছো কেন?
মা রে এইদিকে আয়.এত রাগ করলে হয়.আমি গেছিলাম ওকে আনতে,ও বাসায় চলে গেছে।তোর আন্টি তো ওর জন্য অপেক্ষা করছে তাই না?

শিমু-হুম না গেলে তো আন্টি বকা দিবে।

শিমুর আব্বু-তাই তো চলে গেছে।এখন তুই খেয়ে নে।

শিমু-আচ্ছা ঠিক আছে তুমি খাইয়ে দাও.

শিমুর আব্বু-আমার রাজকুমারীটাকে খাইয়ে দিবো তো।

শিমু-লাভ ইউ বাবাই.

শিমুর আব্বু-লাভ ইউ টু মা.

শিমুকে বুজিয়ে সুজিয়ে খাইয়ে দিলো ওর বাবা।কিন্তু এভাবে আর কয় দিন চলবে.

শিমুর আম্মু-আমার মেয়েটা কী আর কোনো দিন সুস্থ হবে না?

শিমুর আব্বু-দেখি এই ডাক্তারটাকে দেখিয়ে.কালকে যাবো আমি ওর সাথে দেখা করতে.

শিমুর আম্মু-ঠিক আছে.

পরের দিনেই শিমুর আব্বু-আম্মু শিমুকে নিয়ে চলে গেলো ডাক্তারের চেম্বারে.

শিমু-আমি এখানে কেনো?

শিমুর আম্মু-তোর সাথে একজনের দেখা করাতে নিয়ে এসেছি.

শিমু-কে?

জিহাদ-আমি.(পিছন থেকেই বললো)

শিমু-এই তুমি কে?

জিহাদ-আমাকে চিনতে হলে ফ্রেন্ড হতে হবে আমার।

শিমু-আচ্ছা ফ্রেন্ড।

জিহাদ-তাহলে আমার নাম জিহাদ আর আমি তোমার ফ্রেন্ড।

শিমু-তুমি খুব ভালো।

জিহাদ-তুমিও.আন্টি আজকে ওকে নিয়ে চলে যান আমি পরে যাবো আপনাদের বাড়িতে ওকে দেখতে।

শিমু-আমার জন্য কিন্তু চকলেট আনতে ভুলবে না।

জিহাদ-ঠিক আছে মহারাণী।

শিমুর আম্মু-চল তাহলে।

শিমু-আমার সাথে দেখা করতে যাবে কিন্তু।

জিহাদ-যাবো তো,মহারাণীর হুকুম তো মানতেই হবে

শিমু-আচ্ছা।

(শিমু চলে গেলো)

শিমুর আব্বু-আপনি তাহলে ডাক্তার।

জিহাদ–হুমম,ওর সব গুলো রিপোর্ট হাতে পেয়েছি।

শিমুর আব্বু-ধন্যবাদ ডাক্তার.

জিহাদ-ধন্যবাদ দিয়ে ছোট করবেন না প্লিজ।ওর এরকম অবস্থা হলো কীভাবে তা যদি বলতেন।

শিমুর আব্বু-আচ্ছা বলো কী জানতে চাও.

জিহাদ-এখানে থেকে বের হয়ে চলুন.অন্য কোনো জায়গায় কথা বলতো পারি আমরা.

শিমুর আব্বু-ঠিক আছে চলো.

জিহাদ আর শিমুর আব্বু গিয়ে একটা কপিশপে বসলো।তারপর বলা শুরু করলো ১বছর আগের কথা।

চলবে………….

বি.দ্র.ভুল ত্রুটি হলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here