বসের সাথে প্রেম পর্ব-১৬

বসের সাথে প্রেম

পর্ব-১৬

লেখা- অনামিকা ইসলাম।

সেদিন রাত্রে সিয়াম গিয়ে হাজির হয় সাইমার শ্বশুরবাড়িতে। মায়া তখনো ঘুমুচ্ছে। রাত্রে খাওয়ার সময় সাইমা গিয়ে মায়াকে ডাকে। বার বার ডাকার পরও মায়ার কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। মায়া গভীর ঘুমে মগ্ন। এবার সাইমার শাশুড়ি তারপর আবির এসে ডাকলেন। মায়ার কোনো হুশ নেই। ও ঘুমুচ্ছে তো ঘুমুচ্ছে। শেষে সিয়াম আসে মায়াকে জাগাতে। মায়া তখনও অঘোরে ঘুমুচ্ছে। আবির ওর মা আর সাইমাকে নিয়ে রুম থেকে চলে গেল। সিয়াম ধীরে ধীরে গিয়ে মায়ার পাশে বসল। কিছুক্ষণ মায়ার ঘুমন্ত মুখের দিকে তাকিয়ে থেকে মায়ার হাত’টা ধরল।শক্ত করে হাতটা কিছুক্ষণ ধরে রেখে সিয়াম মায়ার কপালে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা চুলগুলো কানের একপাশে গুজে দিয়ে মায়ার কপালে আলতু করে একটা চুমু খেল। তারপর মায়ার শরীরে চাদর টেনে দিয়ে রুম থেকে বের হয়ে এলো সিয়াম। বাইরে বেরিয়ে এলে সাইমা এবং আবির দু’জনে একসাথেই জিজ্ঞেস করে- মায়া জেগেছে কি না….
সিয়াম মাথা নেড়ে না বলে। আবিরের মা মানে সাইমার শাশুড়ি সিয়ামকে খেতে ডাকলে সিয়াম বলে__
” আন্টি, আমার ক্ষুদা নেই একদম। আমি খাব না।আপনারা খেয়ে নিন।”

সে’রাত্রে সিয়ামকে কোনো ভাবে’ই খাওয়ানো যায় নি। মন খারাপ করে সিয়াম বারান্দার রেলিং ধরে দাঁড়িয়ে আছে। আর কেউ না বুঝলে সিয়াম বুঝে গেছে মায়াকে এখন জাগানো যাবে না। দুপুরে মায়া অফিসে যে ট্যাবলেট খেয়েছিল সেটা ঘুমের ট্যাবলেট…

রাত ১২টা…
ভালো লাগছিল না সিয়ামের। বারান্দা ছেড়ে ছাদে চলে যায় সিয়াম। বিষণ্ন মন নিয়ে ছাদের রেলিং ধরে দাঁড়িয়ে থাকে সিয়াম। হঠাৎ’ই হাতের মধ্যে একটা কোমল পরশ অনুভূত হয় সিয়ামের। অশ্রুভেঁজা চোখ সেদিকে তাকালো। চমকে উঠে সিয়াম। মায়া তার’ই পাশে দাঁড়িয়ে। সিয়াম একদৃষ্টিতে মায়ার দিকে তাকিয়ে আছে। মায়াও সিয়ামের চোখে চোখ রেখে তাকিয়ে আছে।
মায়ার চোখে নিচে কালো দাগ দেখা যাচ্ছে, মনে হচ্ছে এই কয়দিনে এই দাগ পরেছে চোখের নিচে। মায়াকে খুব ক্লান্তও দেখাচ্ছে। সিয়াম ভাবছে “শুধু আমার জন্য মায়া পরিটার আজকের এই অবস্থা। ২বছর আগেই যদি মায়ার কথাটা ফ্যামেলিতে বলে দিতাম তাহলে আজকের এই দিনটি দেখতে হতো না। আমার মায়া-পরিটাকে তিলেতিলে এভাবে কষ্ট পেতে হতো না।”

সিয়াম আর পারছিল না।
চোখের সামনে ভালোবাসার মানুষটির এই অবস্থা কেন জানি সে মেনে নিতে পারছিল না। আর কান্না আটকিয়েও রাখতে পারছিল না। তাই চোখের জল ছেড়ে’ই দিল সিয়াম। গড়িয়ে গড়িয়ে সিয়ামের চোখ থেকে জল পরছে আর মায়া সেদিকে তাকিয়ে আছে।
কিছুক্ষণ পর_
মায়া সিয়ামের দিকে এগিয়ে যায় ধীরপায়ে। তারপর হাত দিয়ে চোখের জল মুছে দেয় মায়া। চোখের জল মুছে মায়া ছাদের রেলিং ধরে দুরে কোথাও দৃষ্টি মেলে দিয়েছে। সিয়াম গিয়ে মায়ার ঠিক পাশে রেলিং ধরে দাঁড়ায়। দুজনেই বেশ চুপচাপ। কারো মুখে কোনো কথা নেই।

এভাবে অনেকক্ষণ চুপ থাকার পর মায়া’য় নিরবতা ভাঙে। নিরবতা ভেঙে কথা বলে মায়া। বলে উঠে__
স্যার….
সিয়াম মায়ার মুখে হঠাৎ স্যার কথাটা শুনে চমকে তাকায়। আর যায় হোক, মায়া ওকে একান্তে, নিভৃত্তে স্যার নয় অন্যকিছু ডাকত। আর সেটা মায়ার পছন্দের’ই। আজ ২টা দিন এইভাবে এড়িয়ে চলার পর আজ আসছে স্যার বলতে?!!!
সিয়ামের ভেতরটা অজানা অভিমানে কেঁদে উঠে। মায়ার ডাকে সাড়া না দিয়ে অন্যদিকে তাকিয়ে থাকে সিয়াম। মায়া আবারো ডেকে উঠে__
“স্যার,একটা কথা বলব?”
সিয়াম এবারো কোনো জবাব দিল না। মায়া একটু অপেক্ষা করে আবারো বলল, “একটা কথা বলতে চাইছিলাম, যদি অনুমতি দিতেন?”
সিয়াম যেন শেষ হয়ে যাচ্ছে। প্রথমে স্যার তারপর আপনি সম্বোধনে….

প্রথমে কান্না আসলেও পরে মনটাকে শক্ত করে ফেলে। চোখের জল মুছে মায়ার বিরুদ্ধে তীব্র বিদ্রোহ করে মনে মনে।
~আমাকে কষ্ট দেওয়া, না?!!!
~আমাকে এড়িয়ে চলা, নাহ?!!!
~আমাকে ফাঁকি দিয়ে চলে যাওয়া, নাহ?!!!
~আমায় কাঁদাতে খুব ভালো লাগে,তাই না?!!!
আজ এর উপর্যুক্ত জবাব তোমায় দিতে হবে মিস মায়া…
মনে মনে এসব’ই বলতে থাকে সিয়াম……..
আর মায়া?!!!
সিয়ামের কোনো সাড়া না পেয়ে ছাদ থেকে চলে যাওয়ার জন্য পা বাড়ায়….

এদিকে সিয়াম ইচ্ছেকৃতভাবে মায়ার পায়ের সাথে ওর পা ঠেকিয়ে দিলে মায়া ধপাস করে পরে যায় আর সিয়াম?!!!
সিয়াম নিচ ইচ্ছেতেই মায়াকে আটকানোর অভিনয় করে ওর উপর গিয়ে পরে যায়….☺☺
মায়া নিচে আর সিয়াম তার উপর…??
সিয়াম এবং মায়া দু’জন দু’জনের দিকে অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকলেও যখন মায়া ওর শরীরে চাপ অনুভব করে তখন ঘোর কেটে যায়। মায়া হাত দিয়ে সিয়ামকে দুরে সরে দেওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু পারে নি। আস্তে আস্তে চাপটা পেট থেকে বুকে চলে আসে। মানে সিয়াম সবটুকু ভর মায়ার উপর ছেড়ে দিয়ে ওর মুখটা মায়ার মুখের দিকে নিয়ে যায়। মায়া ভীরু এবং কাঁপা কাঁপা চোখে সিয়ামের দিকে তাকিয়ে আছে।
মায়া কিছু বলতে গিয়েও বলতে পারছে না।
ওর গলা থেকে আটকে গেছে। এদিকে সিয়ামের মুখ যখন মায়ার খুব কাছে চলে আসে তখন মায়া অন্যদিকে মুখটা ঘুরিয়ে ফেলে। সিয়াম এত দ্রুত মায়ার দিকে এগিয়ে এসেছিল যে মুখটা মায়ার ঘাড়ে লেগে যায়।

এদিকে মায়া?!!!
ওর ঘাড়ে সিয়ামের ঠোঁটের শীতল পরশ পেয়ে কেঁপে উঠে। মায়ার পুরো শরীর শিহরণ দিয়ে উঠে….
কোনো রকম নিজেকে কন্ট্রোল করে মায়া সিয়ামকে বলে_
“লাগছে তো! উঠেন…”
সিয়াম কোনো কথা না বলে মায়ার ঘাড়ে নাকের পরশ বুলিয়ে দিচ্ছে। মায়া এবার চোখ দুটো বন্ধ করে ফেলল। চোখ বন্ধ করেই বলল,
কি করছেন?! উঠুন প্লিজ…
সিয়াম এবারো কোনো কথা না বলে মায়ার ঘাড়ের চুলগুলো দুরে সরাচ্ছে। মায়ার অবস্থা জটিল থেকে জটিলটর হচ্ছে তখন। মায়া আবারো বলছে,
” স্যার,
প্লিজ এমন করবেন না। ছাড়েন প্লিজ….”
সিয়াম মায়ার ঘাড়ের চুলগুলো সরিয়ে এবার ওর ঘাড়ে আঙুল দিয়ে রেখার মত টানতে থাকে। সে এক শ্বাসরুদ্ধকর অবস্থা। মায়া যেন আর পারছিল না। বহুকষ্টে নিজেকে কন্ট্রোল করে বলল,
” স্যার, দোহায় লাগে ছাড়েন প্লিজ…”
সিয়াম এবার মায়ার ঘাড়ে চুম্বন দেওয়া শুরু করে দেয়। মায়ার ধৈর্য্যের বাধ ভেঙে যায় এবার। এবার ও ঘন ঘন শ্বাস নিতে নিতে বলেই ফেলে…
” প্লিজ, ছাড়ো না বাবুর আব্বু….”

কথাটা বলার সাথে সাথে মায়া জিহ্বায় কামড় দিয়ে বলল, ইস! কি বলে ফেললাম। এদিকে সিয়াম?!!! মায়ার মুখ থেকে ঠিক এই কথাটা শুনার জন্য’ই এমন করছিল। মায়া কথাটা বলে সিয়ামের দিকে ঘুরে তাকালো। সিয়াম তখন ওর দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসছে আর চোখ দিয়ে ইশারা করে বলছে__
কি?!!!……
মায়া লজ্জায় চোখ দুটো বন্ধ করে ফেলল…..

চলবে…..

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here