প্রতিশোধ পার্ট_7

প্রতিশোধ
পার্ট_7
#জামিয়া_পারভীন

__আবির কিছু বলার আগেই নিরা জ্বলে উঠে
আপনাকে না বলেছি আমার আসেপাশে আসবেন না তাও কেন আসেন?

__তোমাকে দেখতে ইচ্ছে করে তাই।

__কি যা তা বলেন, আর এসব কথা ভুলেও বলবেন না।

__কেন, এমন কেন করো তুমি?

__চুপ! একদম চুপ! এক্ষুনি বেরিয়ে যান কিচেন থেকে।

__ওকে যাচ্ছি। আর আসবো না।

__হুহহ!

নিরা কাজ শেষ করে বেরিয়ে এসে আবির কে দেখতে পায়না। তাই ভাবে আবির উপরে গেছে, খেতে ডাকার জন্য উপরে গিয়েও না দেখে মন খারাপ করে বেরিয়ে আসে। কোথায় উধাও হয়ে গেলো , মেজাজ খারাপ করে শুধু। যেখানে খুশি সেখানে যাক আমার কি ? অন্যমনস্ক হয়ে সিড়ি দিয়ে নামতে গিয়ে আবিরের সাথে ধাক্কা লাগে

__কি ব্যাপার, একটু না দেখেই মন খারাপ হয়ে আমাকে খুঁজতে গেছিলে।

__মোটেও না।

__আমি তো বুঝি, তুমি মিথ্যা বলছো কেনো?

__সরে দাঁড়ান।

__এতো রাগ দেখাও কেনো? মনে মনে তো ঠিকিই খোঁজ করো।

__বয়েই গেছে আপনাকে খুঁজতে।

আবির নিরার হাত ধরে নিজের দিকে টান দেয়। এতে নিরা আবিরের খুব কাছে চলে আসে, আবির শক্ত করে নিরাকে জড়িয়ে ধরে। নিরা ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে, তখন আবির নিরার কানের কাছে গিয়ে বলে ” আমি তোমাকে ভালোবাসি নিরা “। নিরা কোনরকম নিরাকে সরিয়ে দিয়েই থাপ্পড় মেরে বসে।

__আই হেট ইউ মিঃ

__এমন করে বলিও না প্লিজ।

__আর কখনো এমন করলে আমি আপনার অনুপস্থিতিতে সুইসাইড করবো।

__তুমি এভাবে বলতে পারলে। তাহলে তোমার উপস্থিতি তেই আমি মরি।

__মানে! কি বলছেন? ( ভয় পেয়ে)

__আবির কথা না বাড়িয়ে কিচেন থেকে চাকু এনে নিজের হাত এ অনেক গুলি যায়গা কেটে দেয়। একসাথে প্রচুর রক্ত পড়তে থাকে আবিরের হাত থেকে। নিরা আবির কে বলতে থাকে

__এসব বন্ধ করেন, আমার ভয় করে।

__(কোন উত্তর নাই)

__প্লিজ, এমন করেন কেনো।

__( হাত টা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে)

__ হাত টা বাঁধুন, প্রচুর রক্ত পড়ছে।

__ তাতে তোমার কি।

__এমন করিয়েন না প্লিজ।

__ দূরে যাও, আমার কথা তোমার না চিন্তা করলেও হবে।

__ নিরা আবির কে জড়িয়ে ধরে বলে ” প্লিজ এমন করবেন না, বন্ধ করুন এসব” ( বলে খুব কাঁদতে থাকে)।

__ আমি মরলে তুমি তো খুশিই হবে, তাহলে কাঁদছো কেনো?

__ আপনি কি বলছেন এসব, আপনি আমার স্বামী। ভালো হোন মন্দ হোন আমি আপনার সাথেই মানিয়ে নিতে চাই। কথা দিচ্ছি আর খারাপ ব্যবহার করবোনা, প্লিজ তাও এসব বন্ধ করুন।

__ এসব বলে লাভ নাই।

__ আপনি যা বলবেন সেটাই করবো। আপনাকে ভালোবাসি বলে আবিরের পা ধরে নিরা।

__ আরে কি করছো এসব, তোমার স্থান আমার পায়ে নয় হৃদয়ে।

__ যদি ভালোবাসি তাহলে এসব বন্ধ করবেন, হ্যাঁ ভালোবাসি তাও বন্ধ করেন।

__ আবির যাই হোক নিরাকে কাঁদাতে চায় না তাই উপরে গিয়ে নিজের হাত ব্যান্ডেজ করে নিচে নেমে আসে। ততোক্ষণে দেখে নিরা যেখানে দাঁড়িয়ে ছিলো সেখানেই দাঁড়িয়ে আছে। নিরাকে হাসানোর জন্য বলে..

__ তোমার কোমল হাতের তৈরি খাবার খাইয়ে দিবেনা।

__ হু দিবো, বলেই রেডি করে দেয়।

__ নিরা আগে আবিরকে খাইয়ে নিজেও খায়। নিরা বলে

__ হাত কেটেছেন, ইনফেকশন হতে পারে৷ এন্টিবায়োটিক আছেনা বাসায়।

__ হুম ঘরে আছে।

__ওকে ঘরে যান, পানি নিয়ে আসছি।

__ হুম। (বলে আবির চলে যায়)

নিরা নিচে সব ঠিকঠাক করে পানি নিয়ে উপরে গিয়ে আবির কে ওষুধ খাইয়ে দেয়।

নিজের দুঃখ কে মাটিচাপা দিয়ে আরেকজনের সেবা করা লাগছে ( মনে মনে বলে নিরা )।

আবির বিছানায় শুয়ে পড়ে, নিরাও একপাশে শুয়ে কষ্ট গুলোর কথা ভাবতে ভাবতে ঘুমিয়ে যায়। সকালে নিরা ঘুম ভেঙে দেখে আবির তাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে আছে। যেন নিষ্পাপ চেহেরা আবিরের, ঘুমন্ত অবস্থায় খুব মায়াবী লাগছে। বেশি কিছু না ভেবে আবিরকে সরিয়ে দিলো নিরা। উঠে ফ্রেশ হয়ে কিচেনে গিয়ে খাবার বানিয়ে এসে আবির কে ডাক দেয়। আবির উঠে না দেখে আবিরের কপালে হাত দিয়ে দেখে আবিরের জ্বর এসেছে। তাও আবির কে ডেকে তুলে ফ্রেশ হতে বলে। আবির নিরার কথা শুনে ফ্রেশ হয়ে নিরার কথা মতো খাবার খেয়ে ওষুধ খেয়ে নেয়।

__ চুপচাপ শুয়ে না থেকে গোসল করে আসেন, এতে জ্বর কমবে।

__ হুম জানি! কিন্তু ঠান্ডা লাগে তো ।

__ তাড়াতাড়ি করবেন।

__ আবির ওয়াশরুমে গিয়ে ৫ মিনিটে শাওয়ার শেষ করে এসে ঠাণ্ডা থেকে বাঁচতে নিরা কে জড়িয়ে ধরে।

__ আমি কি কম্বল নাকি?

__ হুম

__ কম্বলের নিচে যান কাজ আছে কিছু।

__ আমার থেকেও বড় কি কাজ শুনি।

__ ঘর টা এলোমেলো হয়ে আছে গোছাতে হবে।

__ ও নিয়ে তোমার টেনশন করতে হবেনা।

__ কেনো?

__ রোমানা আজ আসবে।

__ কে সে?

__ এই বাসার সব দায়িত্ব তার। চাচী হয়, দুঃসম্পর্কের আত্মীয়। কিন্তু আমি ছোট থেকেই রোমানা বলেই ডাকি।

__ ওহহ! কখন আসবে?

__ একটু পরেই

__ কে বললো?

__ সেইই ফোন দিয়েছিলো কাল।

__ এতো দিন কোথায় ছিলো?

__ বাড়ি গিয়েছিলো।

__ ছুটি দিয়েছিলেন তাইনা।

__ হুম, কেনো বলোতো।

__ কিছুনা ( বুঝলাম অন্যায় করার জন্যই বাড়ি ফাঁকা করেছিলেন)।

__ যা ভাবছো, তাই ঠিক।

__ কি ভাবলাম?

__ কিচ্ছুনা ?

কিছুক্ষণ পর কলিংবেল বাজে, নিরা দরজা খুলতে যায়।

মেয়েটা প্রবেশ করেই নিরাকে জিজ্ঞেস করে

__ কে তুমি? এখানে কি করছো?

__ আপনি কে?

__ তার আগে বলো তুমি কে?
যাইহোক আবির কোথায়।

__ সে তো বাসায় আছে।

__ সরো আমার সামনে থেকে বলেই নিরাকে সরিয়ে ভিতরে ঢুকে সে।

__ আরে কোথায় যাচ্ছেন? কে আপনি?

__ তা তোমার জেনে লাভ কি? তোমাকে কি এই বাড়িতে নতুন কাজে দিছে নাকি? রোমানা কোথায়?

__ কি যা তা বলছেন?

__ আবির রুমে আছে তাই না।

__ আমি কাজের লোক না, আবিরের বউ আমি।

__ What?

__ জ্বী হ্যাঁ।

__ আবির বিয়ে কবে করলো, মজা নাও। ( দিয়েই উপরে যেতে থাকে)

__ আপনি পরিচয় না দিয়ে ভিতরে যেতে পারেন না।

__ এই ফকিন্নির মেয়ে তুই কে রে আমাকে আটকানোর।

__ ” তুমিও কাউকে অপমান করতে পারোনা। ” আবির বলে
( চিল্লাচিল্লি শুনে আবির নিচে নামতে গিয়েই এই কথা শুনে ফেলে তাই )

চলবে…….

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here