ধর্ষিতাবউ২ পার্ট:৭

0
461

ধর্ষিতাবউ২

পার্ট:৭

#Rabeya Sultana Nipa

 

_আদরের সাথে আশফি বকবক করতে করতে চোখ পড়লো প্রাপ্তির দিকে।আদর সামনে তাকা মা কোথায় দেখ! আদর তড়িঘড়ি করে গাড়ি থেকে নেমেই দৌড়ে প্রাপ্তিকে নিজের বাহুডোরে জড়িয়ে নিলো,মা!কোথায় যাচ্ছো তুমি ? দেখছো না ওইখানে অনেক ভিড়। চলো গাড়িতে বসবে। প্রাপ্তিকে গাড়িতে বসিয়ে, আপু মা কে দরে রাখ।
আয়ান এগিয়ে এসেও আবার দাঁড়িয়ে পড়ে ভাবছে না প্রাপ্তি এইখানে কেনো আসবে হয়তো এইটা আমার মনের ভুল।আয়ান আবার পিছিয়ে গিয়ে গাড়িতে বসলো।মানুষের ভিড় আস্তে আস্তে কমতে থাকে।প্রাপ্তিদের গাড়ি আয়ানের পাশ দিয়ে চললো তাদের বাড়ির উদ্দেশ্যে।
বাড়িতে এসে পৌঁছে সবাই এক এক করে গাড়ি থেকে নেমে,
আশফি -ওয়াও! বাড়িটা তো অনেক সুন্দর।
আদর আশফির মাথায় টোকা দিয়ে, ওয়াও বাড়িটা কতো সুন্দর এইসব ন্যাকামি রাখ।তোদের মেয়েদের একটাই অভ্যাস কোনো কিছু দেখলেই ন্যাকামি।

আশফি-মা দেখেছো তোমার ছেলে
সবসময়,,,,,,, তাকিয়ে দেখে প্রাপ্তি অন্যমনস্ক হয়ে বাড়ির ভিতর ঢুকছে।মনে হচ্ছে এই বাড়িটা প্রাপ্তির অনেক চেনা।আদর পিছনদিক থেকে এসে, মা! তুমি কি আগে কখনো এই বাড়িতে এসেছো?

প্রাপ্তি -হুম? না,কিন্তু কেনো জানি মনে হচ্ছে এই বাড়িটা আমার অনেক চেনা।সবকিছু মনে হচ্ছে আমার মতো করে সাজানো। ঠিক যেমনটি আমি চাইতাম। আচ্ছা যাইহোক, তোর নানা ভাইকে নিয়ে আয়।
আদর- এক কাজ করলে কেমন হয়! এই বাড়িটা কে বিক্রি করেছে সেটা জানলে কেমন হয়?

আশফি -তুই এইসব কিভাবে জানবি?
আদর-আরে বোকা যিনি আমাদের ব্যাগ গুলো উপরে নিয়ে গেলেন ইনি হচ্ছেন এই বাড়ির পুরনো কাজের লোক।এবং উনি এই বাড়ির দেখা শুনা করেন। আমি গাড়ি থেকে নেমে উনার সাথে কথা বলেছি।তোর মতো না যে সারাদিন সাজা নিয়ে ব্যাস্ত থাকবো।
প্রাপ্তি -ওহঃ আদর ও তোর বড় বোন।সারাক্ষণ ওর পিছনে না লাগলে তোর হয়না। তোদের মতো থাকতে আমার ভাই আমাকে চোখের মনি করে রাখতো।

আদর-আমাদের মামা ও আছে? আপু জানিস এই জায়গা টা মনে হয় আমাদের জন্য শুভ। কেনো জানিস?এই জায়গার নাম নেওয়ার পর থেকেই মা তার পুরোনো স্মৃতি গুলো একটু একটু করে মনে করছে।

প্রাপ্তি – তোরা এখন বড় হয়েছিস। তোদের আস্তে আস্তে অনেক কিছু জানার প্রয়োজন আছে।
বাশার কে উপর থেকে নামতে দেখে(আদর যার কথা বলে ছিলো)
আশফি -সব কিছু ঠিকঠাক মতো আছে তো?

বাশার -জ্বী আপা মনি সব কিছু ঠিকঠাক করেই রেখে আসলাম।

প্রাপ্তি মুচকি হেঁসে বাশারের দিকে তাকিয়ে আচ্ছা এই বাড়িটা আগে কার ছিলো দেখে তো মনে হচ্ছে উনারা এই বাড়িতে থাকতেন না।

বাশার মন খারাপ করে, জ্বী খালাম্মা এই বাড়িতে কেউ থাকতো না।মাঝে মাঝে একজন এসে থাকতো।ওনাকে আমি মামা বলে ডাকতাম।আর মামার মুখ থেকেই শুনেছিলাম মামা ওনার স্ত্রীর জন্যই এই বাড়ি বানিয়েছিলেন মামীকে উপহার দেওয়ার জইন্য।কিন্তু ওনার স্ত্রী ফিরে এলোনা বাড়িও দেওয়া হলোনা।কিছু দিন আগে কোনো একটা কারনে তিনি বাড়িটা বিক্রি করে দেন।আমি যখন জিজ্ঞেস করলাম যদি মামী ফিরে আসে তখন? মামা কইলো মামী নাকি আর কখনোই ফিরা আইবো না।
কথা গুলো শুনে প্রাপ্তি দীর্ঘ শ্বাস ছেড়ে দিয়ে সাবিত সাহেব কে নিয়ে চলে গেলেন রুমে।

আশফি -দেখেছিস আদর লোকটা মনে হয় ওনার স্ত্রী কে খুব ভালোবাসতেন।আচ্ছা বাশার! ওনার স্ত্রী কোথায় থাকেন?

বাশার- কোনো কারণে ওনার স্ত্রী ভুল বুজে চলে গেছেন। আচ্ছা আপা মনি আপনারা কি খাবেন বলেন।আমি এখুনি নিয়ে আসছি।

আদর-আজ তোমার পছন্দের মতো কিছু নিয়ে আসো।(কিছু টাকা এগিয়ে দিয়ে)আমরা তো জানিনা তোমার মতো মজার একটা মানুষ এইখানে আছে।তাহলে আসার সময় কিছু নিয়ে আসতাম।এখন এই টাকা দিয়ে নিজের পছন্দের কিছু কিনে নিও।
বাশার খুশি হয়ে খাবার রেডি করতে বেরিয়ে গেলো।প্রাপ্তি এসে দেখে ভাইবোন এখনো দাঁড়িয়ে আছে।।
প্রাপ্তি -কিরে এখনো দাঁড়িয়ে আছিস। উপরে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে নে।কে কোন রুমে থাকবি দেখে নে।প্রাপ্তি কথাটা বলেই উপরে চলে গেলো।

রাত ১০. ০০ টায় প্রাপ্তি সবাইকে খেতে ডাকলো।বাশার প্রাপ্তির সাথে হেল্প করছে।বাশারের দিকে আড় চোখে তাকিয়ে প্লেট ঠিক করতে করতে প্রাপ্তি বললো,বাশার দুপুরে যে স্যারের কথা বলছিলে,ওই স্যার কি করেন?

বাশার-অনেক বড় ব্যবসা শুনেছি।এক ডাকে সবাই চিনেন।

প্রাপ্তি মুচকি হেঁসে, নাম কি উনার?

বাশার নাম বলার আগেই আশফি আর আদর উপর থেকে নামতে নামতে,
আদর -মা! এই বাড়িটা আমার খুব পছন্দ হয়েছে।
আশফি চেয়ারে বসতে বসতে, মা!আমার এক কলিং ফোন করেছে।
এইখানে আসার সময় একটা হসপিটালের সাথে কথা বলেছিলাম ওই হসপিটালে কাল থেকেই যেতে হবে।আদর! তুই আরও কয়েক দিন রেস্ট নে তারপর না হয় হসপিটালে জয়েন করিস।

প্রাপ্তি -আদর! আশফি কথাটা খারাপ বলেনি।কাল থেকে আমারও কলেজে যেতে হবে।তুই একা একা বাড়িতে বসে না থেকে শহরটা কে ভালো করে ঘুরে দেখ।

আদর মাথা নাড়িয়ে মায়ের কথায় সায় দিল।

সকাল থেকে সুমি নাস্তা বানাচ্ছে সবার জন্য। আয়ান ড্রইংরুমে বসে পেপার পড়ছে।মুনিয়া তাড়াহুড়ো করে রেডি হয়ে নিচে নেমে এলো। মুনিয়াকে তাড়াহুড়ো করতে দেখে আয়ান পেপার থেকে মুখ সরিয়ে, কিরে তোর এতো তাড়া কিসের? কোথাও যাচ্ছিস নাকি?
মুনিয়া আয়ানের পাশে এসে দাঁড়িয়ে কাকাই আর বলোনা কলেজে আজ নতুন ম্যাডাম আসছে।আর উনি নাকি খুব রাগী।

আয়ান মুনিয়ার কথা শুনে হাঁসি দিয়ে, যার যত রাগ তার মনটাই অনেক সুন্দর।
মুনিয়া-একটু ভেবে,তা ঠিক বলেছো।আচ্ছা তাহলে আমি আসি।(চেঁচিয়ে সুমিকে বললো)মা! আমি আসছি।
সুমি রান্নাঘর থেকে এসে, এই মুনিয়া আসছি মানে? নাশতা করে যা?
মুনিয়া দরজা দিয়ে বেরুতে বেরুতে, মা! বাহিরে খেয়ে নিবো।
আয়ান মুনিয়ার চলে যাওয়ার দিকে তাকিয়ে থেকে, আচ্ছা ভাবী! আমার আশফিও আজ কতো বড় হয়ে গেছে তাই না?
সুমি-সেটা আর বলতে,,,প্রাপ্তি চলে যাওয়ার অনেক বছর পর মুনিয়া দুনিয়াতে এসেছে।আর আশফির তো এখন বিয়ে হওয়ার কথা।ওদের কথা ভেবে আর কি লাভ।প্রাপ্তি হয়তো তার সংসার অন্য কারো সাথে ঠিকি গুছিয়ে নিয়েছে।
আয়ান দীর্ঘ শ্বাস নিয়ে আমি আমার পরীকে খুব ভালো করেই চিনি।আমি ছাড়া অন্য কারো হতে পারে না আমার পরী।
আকাশ আয়েশা বেগমকে ধরে ধরে এনে আয়ানের সাথে বসিয়েছে।নিজের ছেলের দিকে খানিকক্ষণ তাকিয়ে থেকে কতো করে তোকে বললাম বিয়েটা কর।কিন্তু না তুই প্রাপ্তি আশায় এখনো বিয়ে না করে আছিস।
আয়ান পেপার হাত থেকে রেখে দিয়ে, অন্য একটা মেয়েকে এই বাড়িতে এনে কি লাভ হতো,কারণ আয়ানের কাছ থেকে কখনোই ভালোবাসা পেতো না।আয়ানের যা কিছু ছিলো সব তার পরীকেই দিয়ে দিয়েছে। অন্য মেয়ে আসলে তাকে দেওয়ার মতো আমার কাছে কিছুই নেই।
আয়েশা বেগম- তুই কেমন ছেলেরে বাবা! যে মেয়ে তোর ভালোবাসাই বুজলোনা আজও তুই তাকেই ভালোবাসিস।সেইদিন তোদের কি হয়েছিলো কেউ এখনো জানতে পারলোনা।

আকাশ-থাকনা মা! রোজ রোজ ওকে এইগুলো বলে লাভ কি?ওর অপেক্ষার একদিন অবসানও হতে পারে।
প্রাপ্তির নতুন কলেজের আজ ফাস্ট দিন।ক্লাস পড়েছে তাও মুনিয়াদের ক্লাসে।ক্লাসে ঢুকতেই সবাই সালাম দিলো।প্রাপ্তি সালামের আনসার নিয়ে, আজ তোমাদের সাথে আমার ফাস্ট ক্লাস। তাই আগে সবার সাথে পরিচয় হয়ে নি। আমি মিফতাহুল জান্নাত। তোমাদের ম্যাথ টিচার।
মুনিয়া প্রাপ্তি ক্লাসে আসার পর থেকেই হা করে তাকিয়ে আছে।মুনিয়াকে এইভাবে তাকিয়ে থাকতে দেখে বৃষ্টি (মুনিয়ার ফ্রেন্ড) এই মুনিয়া তুই যে ভাবে উনার দিকে তাকিয়ে আছিস মনে হচ্ছে তোর বয় ফ্রেন্ড আসছে। এইভাবে হা করে কি দেখছিস?

মুনিয়া-ফোটো কপি!

বৃষ্টি -মানে?

মুনিয়া থুতনির নিচ থেকে হাত সরিয়ে, আমার কাকাইয়ের রুমে উনার মতো দেখতে একজনের ছবি দেওয়ালে ঝুলানো আছে, মানে! ওইটা আমার কাকীর ছবি অনেক পুরোনো। অবশ্য ম্যাডামের বয়সের সাথে ওই ছবির কোনো মিল নেই।
মনে হচ্ছে ওইটা ম্যাডামের যৌবন কালের ছবি।

প্রাপ্তির মুনিয়ার দিকে চোখ পড়তেই মুচকি হেঁসে, দাঁড়াও! কথা বলছিলে কেনো?

মুনিয়া- ইয়ে মানে!।
প্রাপ্তি -ঠিক আছে বসো! আমার ক্লাসে কেউ কথা বলবে না।
প্রাপ্তি ক্লাস শেষ করে বেরিয়ে গেলো।
ম্যাম! ম্যাম! কারো ডাক শুনে প্রাপ্তি পিছনে ফিরে তাকিয়ে দেখে ক্লাসের সেই মেয়েটা।
মুনিয়া হাঁপাতে হাঁপাতে প্রাপ্তির সামনে এসে দাঁড়ালো।
প্রাপ্তি তাকিয়ে আছে মেয়েটির দিকে,মেয়েটা যথেষ্ট সুন্দরী, চেহারায় অদ্ভুত এক মায়া।
মেয়েটা একটু খানি দম নিয়ে, ম্যাম আমি মুনিয়া! আপনি যদি কিছু মনে না করেন তাহলে একটা কথা জিজ্ঞেস করি?

প্রাপ্তি -অবশ্যই করতে পারো।

মুনিয়া-আপনার সাথে আমার আগে কখনো দেখা হয়েছে?
মুনিয়ার এমন অদ্ভুত প্রশ্ন শুনে প্রাপ্তি না হেঁসে পারলো না।
কেনো তোমার এমন মনে হয় ?
মুনিয়া ছবির কথাটা বলবে কিনা বুজতে পারছেনা।না! আপনাকে মনে হচ্ছে আমি আগে কোথাও দেখেছি।

প্রাপ্তি -দেখো মুনিয়া! পৃথিবীতে আমার মতো দেখতে আরও অনেক জন আছে।হয়তো তুমি কারো সাথে আমাকে গুলিয়ে ফেলেছো।তোমার আর কিছু বলার আছে?

আদর কলেজের গেটের সামনে দাঁড়িয়ে আছে, প্রাপ্তিকে নিতে এসেছে সে।প্রাপ্তি ক্লাস শেষ করে আদর কে দেখে, দায়িত্ব শীল ছেলে।
কখন এসেছিস?

আদর -অনেকক্ষণ! প্রাপ্তিকে গাড়িতে বসিয়ে নিজে বসতে গাড়ির দরজা খুলতেই আরেকটা গাড়ি এসে পাশে দাঁড়ালো।আদর একবার গাড়িটার দিকে তাকিয়ে নিজের গাড়িটা নিয়ে বেরিয়ে গেলো।আয়ান গাড়ি থেকে নেমে দেখে মুনিয়া আস্তে আস্তে বের হচ্ছে।
মুনিয়ার কাছে এগিয়ে গিয়ে,আমার মা মনির কি মন খারাপ? নতুন ম্যাডামকে ভালোলাগেনি?
মুনিয়া কোনো কথা না বলেই গাড়িতে এসে বসলো।
আয়ান ও কথা না বাড়িয়ে মুনিয়াকে নিয়ে বাড়ির দিকে রওনা দিলো।

চলবে,,,,,,,

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here