তিনি এবং ও! ১৬.

0
326
তিনি এবং ও! ১৬.
তিনি এবং ও! ১৬.

তিনি এবং ও!

১৬.
গরম গরম আলু পুরি তে কামড় দিয়ে নিদ্রের মন ভালো হয়ে গেলো। সকাল সকাল এরকম সুস্বাদু খাবার পেলে আর কী লাগে? রাতের ঘটনা টা এখনো ভুলতে পারছেনা সে। এভাবে হুটহাট করে মেয়েটাকে জড়িয়ে ধরা ঠিক হয়নি। তবে
সে যেখানে বড় হয়েছে ওখানে তো পরিচিত দের জড়িয়ে ধরাটা স্বাভাবিক ঘটনা। লিলি আলু পুরি ভরা প্লেট নিয়ে নিদ্রের সামনে দাঁড়িয়ে আছে। লিলি জিজ্ঞেস করলো
– ভাইজান কেমন হইছে?
নিদ্র বলল
– সেই রকম হয়েছে।
লিলি প্লেট নিদ্রের বিছানার উপর রেখে চলে যাবে তখন নিদ্র জিজ্ঞেস করলো
– তোমার ম্যাডাম কী করে?
লিলি বলল
– ম্যাডাম না আপা।
নিদ্র বলল
– আপা কী করে?
– আপা তো এখনো তার ঘর থেকে বেরই হয়নি। সে মাঝেমধ্যে এমন করে।
– কেনো?
– জানি না ভাইজান।
লিলি নিদ্রের ঘর থেকে চলে গেলো। নিদ্র প্লেটের সবগুলো আলু পুরি খেয়ে নিলো।
খাওয়া শেষ হবার পর ভাবতে লাগলো কী করা যায়? অদ্রির কাছে তার ক্ষমা চাওয়া দরকার ছিলো। কিন্তু , অদ্রির সামনে যেতে তার লজ্জা লাগছে।
এদিকে তার মনে কোনোভাবেই শান্তি আসছে না।
নিদ্র অদ্রির রুমের সামনে গিয়ে দরজায় নক করলো।
অদ্রি বিছানায় শুয়ে ছিলো। সারারাত সে ঘুমাতে পারেনি। চোখ বন্ধ করার সাথে সাথে চোখের সামনে ভেসে উঠে ” নিদ্রের জড়িয়ে ধরা সময়টুকু ”
কানে বার বার বেজে উঠে, নিদ্রের হৃদস্পন্দন। কী অসহ্য লাগে তখন তার, সে কাউকেই বোঝাতে পারবেনা।
এই প্রথম কোনো পুরুষের এতোটা কাছে সে এসেছে। যে শুনবে সেই অবাক হবে! অবাক হওয়ারই তো কথা! প্রায় ২ বছর সংসার করেছে সে কিন্তু তার স্বামী তার হাতটা পর্যন্ত কখনো স্পর্শ করেনি। সে যে সুন্দরী সেটা বলেছে কিন্তু আবেগহীন ভাবে। বলার কথা বলেছে চোখ মুখে কোনো অভিব্যক্তি প্রকাশ পায়নি।
গতরাতে নিদ্রের চোখে মুখে অদ্ভুত অভিব্যক্তি সে খেয়াল করেছে। যেটা সে তার স্বামীর কাছ থেকে। মানুষ টা কেনো এমন ছিলো সে জানে না। কখনওই জানতে পারেনি। জানার আগেই মানুষ টা টুপ করে চলে গেলো।
নিদ্র কেনো এরকম টা করলো? কী চায় সে? এতোটা কাছে আসার কী খুব দরকার ছিলো? একজন বিধবাই কি ছিলো তার সুন্দর মুহূর্তকে আরো সুন্দর করে তোলার জন্য?
নিদ্র বারবার দরজায় নক করছে। অদ্রি দরজা খুলে বলল
– কিছু বলবেন?
অদ্রির মাথার ঘোমটা খুলে গিয়ে এলোমেলো চুল গুলো কপাল জুড়ে আছে। নিদ্রের ইচ্ছে হচ্ছে, অদ্রির কপালের চুল গুলো সরিয়ে দিতে। কিন্তু এই ইচ্ছে কোনোভাবেই পূরণ করা সম্ভব নয়। গতরাতে যা করেছি তাতেই ভয়ংকর ভাবে রেগে আছে।
অদ্রি দরজা আটকে দিয়ে বিছানার উপর পরে রইলো।
অদ্রি তার মুখের উপর এভাবে দরজা আটকে দিলো যে, সে প্রায় লাফিয়ে উঠেছে। আরেকটু হলে তার নাক এর দফারফা হয়ে যেতো।
আসলেই অদ্রি অনেক রাগী।

চলবে…..!

#Maria_kabir