আমার_প্রতিশোধ পার্ট: ১০

0
407

আমার_প্রতিশোধ

পার্ট: ১০

লেখিকা: সুলতানা তমা

বিকেলের দিকে আমরা বাংলোতে পৌছালাম, খুব সুন্দর বাংলো কিছুটা পাহাড়ি এলাকা একটু উঁচুতে বাংলোটা খুব সুন্দর দেখতে, ভিতরে আরো বেশি সুন্দর কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় হলো এতো বড় বাংলোতে একটা কাজের লোক পর্যন্ত নেই
–তাসিন এখানে তো কোনো কাজের লোক নেই
–ছিল আমি ছুটি দিয়ে দিয়েছি
–তাহলে খাবো কি আমি তো রান্না করতে পারিনা
–পাশে রেস্টুরেন্ট আছে ওখান থেকেই খাবার আনবো
–হুম
–ভয় পেয়ো না তোমার কোনো ক্ষতি করবো না
–তুমি তো আমাকে ভালোবাস তাহলে আমার ক্ষতি করবে কিভাবে
–তারমানে কি তুমি আমাকে ভালোবাস না (ওর চোখের দিকে থাকালাম সত্যিই তো আমি ওকে ভালোবাসি না কিন্তু ওর চোখ দুটি তো আমার চোখে ভালবাসা খুঁজে বেড়াচ্ছে)
–অন্নি খিদে লেগেছে
–হ্যা
–তুমি ফ্রেশ হয়ে নাও আমি খাবার নিয়ে আসছি
–ঠিক আছে

ফ্রেশ হয়ে রুমে এসে দেখি তাসিন চলে গেছে খাটের উপর একটি ডায়েরি রাখা, ভাবছি ডায়েরিটা পড়বো কিনা, পড়াটা ঠিক হবে কিনা এসব ভাবতে ভাবতেই ডায়েরিটা খুললাম
প্রথমেই লিখা “এইটা পিচ্ছি বউয়ের জন্য”
ডায়েরিটা তো তাসিনের হবে তাহলে ওর পিচ্ছি বউ আবার কে, কৌতূহল নিয়ে পড়তে শুরু করলাম

পৃষ্ঠা নং ১
জানিনা আমার পিচ্ছি বউটা কোথায় আছে যখন থেকে বুঝতে শিখেছি তখন থেকে বউটা কে খুঁজে বেড়াচ্ছি কিন্তু খুঁজে পাইনি, আমার মন বলে ও বেঁচে আছে আর একদিন ঠিক ও আমার কাছে ফিরে আসবে

পৃষ্ঠা নং ২
ইদানীং পিচ্ছি বউটার কথা খুব মনে পরে খুব কষ্ট হয় জানিনা ওকে কখনো ফিরে পাবো কিনা

পৃষ্ঠা নং ৩
সেদিন হঠাৎ করে রাস্তার উপারে অন্নির মতো একটি মেয়েকে দেখেছি দৌড়ে ওর কাছে যেতে চেয়েছিলাম কিন্তু এক্সিডেন্ট করে ফেলি, এই কয়দিন হসপিটালে ছিলাম তাই বউটা কে নিয়ে কিছু লিখা হয়নি

পৃষ্ঠা নং ৪
ছোট বেলার সেই দিন গুলো খুব মনে পরে অন্নি কে বউ সাঝানো আর আমি বর সেজে দুজন মিলে খেলা করা, এখন এসব মনে পরলে হাসি পায় জানিনা অন্নিকে কখনো খুঁজে পাবো কিনা আমার বউ বানাতে পারবো কিনা

ডায়েরির বেশকিছু পাতা জুরে শুধু পিচ্ছি বউকে নিয়ে লিখা, তাসিনের পিচ্ছি বউয়ের নাম অন্নি আমার নামও অন্নি তাহলে কি আমিই সেই মেয়ে কিন্তু কিভাবে সবকিছু রহস্যের মতো লাগছে, আরো কিছু পাতা উল্টিয়ে পড়তে শুরু করলাম

পৃষ্ঠা নং ১
আবার প্রথম থেকে শুরু করলাম কারন আজ থেকে ডায়েরিতে নতুন অন্নির কথা লিখবো, কয়েকদিন ধরে একটি মেয়ে আমাকে খুব জ্বালাচ্ছে, আমি আমার পিচ্ছি বউ কে ভুলে অন্য কাউকে ভালোবাসতে পারবো না তাও মেয়েটি কে ভালোবাসতে হলো নাহলে নাকি মেয়েটি সুইসাইড করবে, হয়তো পিচ্ছি বউকে যতটা ভালোবাসি ততোটা ভালোবাসতে পারবো না অন্নিকে কিন্তু দুজনের নাম তো এক পিচ্ছি বউয়ের পাশে নাহয় অন্নিকে একটু জায়গা দিলাম

পৃষ্ঠা নং ২
আমার কেন জানি মনে হয় এই অন্নিটাই আমার পিচ্ছি বউ অনেক মিল খুঁজে পাই দুজনের মাঝে

পৃষ্ঠা নং ৩
আজ অন্নি আর আমার বিয়ে কাল থেকে এই ডায়েরিতে শুধু আমাদের রোমান্স গুলো লিখবো ভাবতেই ভালো লাগছে

পৃষ্ঠা নং ৪
মানুষের সব ইচ্ছা কখনো পূর্ন হয়না তাই হয়তো অন্নি আমার সাথে এমন করেছে
হাহাহা আমি কেমন বোকা অন্নি আমাকে ভালোই বাসে না আর আমি বুঝতেও পারিনি

পৃষ্ঠা নং ৫
এই অন্নিই আমার সেই পিচ্ছি বউ আজ জানতে পেরেছি কিন্তু অন্নির তো ছোটবেলার কথা কিছুই মনে নেই আমি কি পারবো অন্নিকে সবকিছু মনে করিয়ে দিতে

পৃষ্ঠা নং ৬
যতো দিন যাচ্ছে ততোই অন্নির নতুন রূপ দেখতে পারছি জানিনা অন্নি এমন পাল্টে গেলো কেন

পৃষ্ঠা নং ৭
অন্নিকে ভুল বুঝানো হয়েছে অনেক বড় ভুল অন্নি ভাবছে আব্বু ওর মা বাবা কে খুন করেছেন কিন্তু এইটা তো সম্পূর্ণ মিথ্যে আমি কি পারবো অন্নিকে এই ভুল ধারনা থেক বের করতে

আর পড়তে ইচ্ছে হচ্ছে না তাও পড়লাম
তাসিন কে কষ্ট দেওয়া থেকে শুরু করে পরী কে কিডন্যাপ করা সহ সব লিখা আছে ডায়েরিতে, আমার আন্দাজ ঠিকি ছিল তাসিন বুঝে ফেলেছিল সবকিছু কিন্তু বুঝলো কিভাবে আর ওর বাবা খুন করেছে এইটা মিথ্যে বললো কেন
–অন্নি (দরজায় তাসিন দাড়িয়ে আছে আমার হাতে ডায়েরিটা দেখে একটি মুচকি হাসি দিলো)
–হাসছ যে
–আমি চেয়েছিলাম ডায়েরিটা তুমি পড় পড়েছ তাই হাসছি
–কিন্তু
–অন্নি ডায়েরিটা পড়ে এই বাংলোতে এসেও কি তোমার কিছুই মনে পড়ছে না
–কি মনে পরবে
–না কিছু না খাবার এনেছি খেয়ে নাও
–খাবো না আমার কয়েকটা প্রশ্নের উত্তর চাই
–সব প্রশ্নের উত্তর দিবো আগে খেয়ে নাও আমিও ফ্রেশ হয়ে নেই
–হুম

তাসিন ফ্রেশ হতে চলে গেলো, আমি খাবার মুখে দিচ্ছি কিন্তু গলা দিয়ে যাচ্ছে না, শুধু মনে পরছে কি আছে এই বাংলোতে তাসিন কেন বললো আমার কিছু মনে পরেছে কিনা তাহলে কি আমিই তাসিনের সেই পিচ্ছি বউ কিন্তু আমার তো ছোটবেলার কথা কিছুই মনে পরছে না
–অন্নি তুমি তো কিছুই খাওনি
–খেতে ইচ্ছে করছে না
–টেনশন হচ্ছে
–হুম বলনা তোমার বলা কথা গুলোর মানে কি
–আগে আমার সাথে চলো
–কোথায়
–পাশের রুমে

তাসিনের পিছু পিছু গেলাম একটি রুমে তালা দেওয়া তাসিন তালাটা খুলে ভিতরে ঢুকলো আমিও ওর পিছু পিছু রুমের ভিতরে ঢুকলাম, তাসিন রুমে লাইট জ্বালাতেই চমকে উঠলাম পুরু রুমের দেয়াল জোরে শুধু ফ্রেমে বাঁধানো ছবি, একটি ছবিতে তাসিনের পুরু পরিবার আর একটি ছবিতে আব্বু আম্মু আর আমি, অনেক গুলো ছবিতে আব্বু আর তাসিনের আব্বু আর সবচেয়ে বেশি গুলোতে তাসিন আর আমার ছোটবেলার ছবি, কোনও ছবিতে তাসিন আমাকে দৌড়াচ্ছে কোনোটিতে তাসিন বর সাঝে আমি বউ সাঝে খেলা করছি এমন অনেক ছবি, তাসিনের দিকে অবাক দৃষ্টিতে থাকালাম ও আস্তে করে আমাকে পিছন থেকে জরিয়ে ধরে বললো অন্নি তুমিই আমার সেই পিচ্ছি বউ আশরাফ আঙ্কেলের মেয়ে….

চলবে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here