অন্যরকম ভালোবাসা পর্বঃ ০৭

0
333

অন্যরকম ভালোবাসা পর্বঃ ০৭
– আবির খান

মায়া ফোনটা রেখে দিলো..মায়া বারান্দায় গিয়ে ভাবছে..আজকে তার সাথে কি হলো.. আবির কিভাবে তার বাসা চিনলো..হঠাৎই মায়ার ফোনটা আবার বেজে উঠলো..মায়া দেখলো সেই নাম্বারটা যে ফোন দিয়ে কথা বলে না…
মায়াঃ দাড়াও…আমিও মায়া..তুমি কে আজকে বের করে ছাড়বো…

মায়া ফোনটা রিসিভ করলো…
মায়াঃ হ্যালো…
আবিরঃ…..
মায়াঃ কথা বলুন…কে আপনি???
আবিরঃ…
মায়াঃ অনেক হয়েছে…এভাবে প্রতি রাতে আপনি ফোন দিয়ে কথা বলেন না…আমার বিরক্ত লাগেনা বুঝি..আমি কিন্তু এই নাম্বার ব্লক লিস্টে ফালায় দিবো…
আবিরঃ আমি…
মায়াঃ আমিটা কে??
আবিরঃ হবে একজন…
মায়াঃ দিব এখনই ব্লক দিবো…
আবিরঃ চুপ একদম চুপ.. মুচকি হেসে…
এভাবেতো শুধু উনিই বলে..তারমানে…
মায়াঃ আ..আআবির ভাই থুক্কু আপনি??
আবিরঃ হুম আবির..
মায়াঃ আপনি আমাকে ফোন দিয়ে কথা বলেন না কেন??
আবিরঃ এমনি..
মায়াঃ হুহ আসছে এমনি…প্রতি রাতে খালি ডিস্টার্ব করে..পচা একটা… মনে মনে বলল..
আবিরঃ এই যে আমাকে কিছু বললা নাকি??
মায়া ভাবছে হায় হায় মনে মনে কি বললাম শুনে ফেলেনিতো…
আবিরঃ না শুনিনি…
মায়াঃ আচ্ছা আপনি এত বড় মানুষ আমাকে ফোন দিয়ে কথা বলতেন না কেন??
আবিরঃ কারো কথা শুনতে ভালো লাগে তাই..তার কথা না শুনলে যে ঘুম আসে না..
মায়া মনে মনে ভাবছে..বেটায় বলে কি..
মায়াঃ আমার কথা শুনতে ভালো লাগে??
আবিরঃ না তোমার পাশের বাসার মেয়ের কথা শুনতে ভালো লাগে….মজা করে
মায়াঃ তাহলে আমাকে ফোন দেন কেনো??তাচ্ছিল্য করে..
আবিরঃ কারণ তোমার….না এমনি দি..
মায়াঃ…. আমার কি বল বেটা..মনে মনে..

আবিরঃ আচ্ছা বাদ দেও এখন বলো অনুর মা কেমন আছে??
মায়াঃ হুম এখন ভালো আছে…
আবিরঃ অনু কালকে আসবে??
মায়াঃ না..ও ওর মায়ের সাথে থাকতে চায়..
আবিরঃ আচ্ছা..তুমি কাল রেডি থেকো আমি তোমাকে নিতে আসবো..
মায়াঃ আমি কালকে যাবো না..
আবিরঃ ৯টার মধ্যে নেমে পরো…আমি অপেক্ষায় থাকবো…
আবির আস্তে করে ফোনটা কেটে দিলো..

মায়া ভাবছে..কি করতে চাচ্ছে উনি…আমাকে ফোন দেওয়া.. আবার কালকে নাকি আমাকে নিয়ে যাবে…যাবনা উনার সাথে.. দেখি কি করে…নাহ ভাই সেতো আবার সেই ডেঞ্জারাস…বলা যায়না যদি আবার রাগ করে আমাকেও মারে..

সকাল ৮ টা…
আবিরের মাঃ কিরে বাবা এতো সকাল সকাল পুরা প্রিন্স গেটাবে কই যাস???
আবির মাকে জরিয়ে ধরে বলল..
আবিরঃ তোমার বউমায়ের মন জয় করতে মা..
মাঃ সত্যিই.. যা বাবা যা.,নে দোয়া করে দিলাম..
আবিরঃ তাহলে মা আমি যাই..আর অবনিকে গাড়িতে করে পাঠিয়ে দিও..
মাঃ আচ্ছা..
আবির মায়ার কাছে রওনা দেয়…

সকাল ৮.৩০…
মায়ার মাঃ এই মায়া…মায়া উঠ মা..ভারসিটিতে যাবিনা..
মায়াঃ মা একটু পর উঠি..
মাঃ আরে ৮.৩০ বাজে ত…
মায়াঃ কিহ..সিট উনিতো ৯ টায় আসবে নিতে…..
মায়া তারাতাড়ি উঠে রেডি হতে চলে গেলো…মায়ার মাতো পুরাই অবাক..

এদিকে আবির মায়ার বাসার সামনে অপেক্ষায় বসে আছে… কিন্তু তার কোন খবরই নাই..৯ টা বেজে গেছে..তার এখনো খবর নাই..আবিরের মাথা গরম হয়ে আসছে…এই মেয়ের কি টাইম সেন্স বলতে কিছু নাই নাকি…

৯.১০..হঠাৎই মায়া বেরিয়ে এলো… আবির দেখলো…আজকে মায়াকেতো অপরূপ সুন্দরী লাগছে…হালকা নীল কালারের জামা..নীল জুতা…চুলটা সামনে ফেলানো…আবির মায়াকে দেখে রীতি মতো পাগল হয়ে যাচ্ছে…এই নীল পরীকে তার চাই চাই..

এবার মায়া খেয়াল করলো আবিরকে…ব্লাক জিন্স, ব্লাক শার্ট আর ব্লাক সানগ্লাস..বাইকের সাথে হেলান দিয়ে তার দিকে তাকিয়ে দাড়িয়ে আছে… আবিরকে আজ পুরা ডার্ক প্রিন্স লাগছে..মায়াও আবিরকে দেখে পাগল হয়ে যাচ্ছে..

মায়া আবিরের কাছে এগিয়ে গেলো..আবির তার দিকে তাকিয়ে আছে..মায়াও আবিরের দিকে তাকিয়ে আছে..দুজন দুজনের চোখের দিকে তাকিয়ে আছে…আজ মায়ারও কেমন যানি ভালো লাগা কাজ করছে আবিরকে দেখে..

কিন্তু হঠাৎই আবিরের মুখের এক্সপ্রেশন চেঞ্জ হয়ে রাগী হয়ে গেলো… আর বলতে লাগলো..
আবিরঃ কয়টা বাজে??
মায়াঃ না মানে ৯.১৬..
আবিরঃ লেট করলে কেন??
মায়াঃ কি বলবে ভেবে না পেয়ে..আস্তে করে খুব সুন্দর করে আবিরকে সরি বললো..

মায়ার সরি বলটা এতোটা মায়াময় ছিলো যে আবির রাগতো পরেই গেলো সাথে আরো মায়ার প্রতি দুর্বল হয়ে পরছে..

আবিরঃ ইশারায় কাছে আসতে বলল মায়াকে…
মায়া অনেক ভয়ে ভয়ে কাছে গেলো…আবির মায়ার চোখের দিকে তাকিয়ে মায়াকে নিজ হাতে হেলমেট পরিয়ে দিচ্ছে…মায়ার চোখ দুটো কি যে সুন্দর.. এ চোখ অনেক কিছু জানতে চায় আবিরের কাছে তা আবির চোখ পড়েই বুঝতে পারছে…

মায়াও আবিরের চোখের দিকে তাকিয়ে আছে…উমি আমার কত কাছে..আমার বুকের ভেতরে যে ড্রাম বাজছে…উনি কি বুঝতে পারছে…উনি সবসময় এভাবে তাকিয়ে থাকে কেনো??উনি কি বুঝেনা..আমার কেমন কেমন লাগে…কত সুন্দর ছেলেটা..একটা ছেলে এতোটাও সুন্দর হতে পারে.. ধুহ এসব কি ভাবছিস মায়া…উনি কই আর আমি কই..সামান্য একটা সাধারণ মেয়ে…আর উনার যে রাগ…আমার খালি ভয়ই লাগে উনাকে…উহ..

আবিরঃ উঠো..
মায়া আস্তে করে বাইকে উঠে বসে..কিন্তু আবির বাইক ছাড়ছে না..
মায়া ভাবলো ব্যাপার কি বাইক ছাড়ছে না কেন… তখন মায়ার মনে পড়লো… আবির কেন বাইক ছাড়ছে না…মায়া মনের অজান্তেই একটু হেসে আবিরের দু কোমরে হাত রাখলো..এবার আবির বাইক স্টার্ট করলো…মায়া মনে মনে হাসছে..লোকটাকে বুঝা অনেক মুসকিল..

ভারসিটিতে…
আবির মায়াকে নামিয়ে দিল আর বাইক পার্ক করতে গেলো… বাইক পার্ক করে এসে দেখে মায়া দাড়িয়ে আছে…
আবিরঃ কি হলো ক্লাসে যাওনি কেন??
মায়াঃ একটা কথা ছিলো..
আবিরঃ কোন সমস্যা??
মায়াঃ না…
আবিরঃ তাহলে??
মায়াঃ আপনাকে ধন্যবাদ দিতে চাই…কালকের জন্য আর আজকের জন্য…
আবির মায়ার কথা শুনে সেই মন মুগ্ধকর হাসিটা দিলো..এই হাসিয়া দেখলে যে কেউ আবিরের প্রেমে পরতে বাধ্য… মায়াও এই হাসিটা দেখে কেমন জানি ফিল করলো…
আবিরঃ ক্লাস শেষ হলে আমার বাইকের কাছে দাড়িয়ে থেকো..আমি নিয়ে যাবো…
মায়াকে আর কিছু না বলার সুযোগ দিয়ে আবির চলে যায়…আর মায়া শুধু অবাক হয়ে এই প্রিন্সকে দেখছে..

ক্লাস শেষে মায়া বাধ্য মেয়ের মতো আবিরের বাইকের কাছে যেতে লাগে…
আসলে মায়ার যে আবিরকে ভালো লাগেনা তা না…মায়াও ধীরে ধীরে কেমন জানি আবিরের প্রতি দূর্বল হয়ে যাচ্ছে আর একটা ভালো লাগা কাজ করছে… মায়া বাইকের কাছে যেতে দেখেই প্রিন্স মসাই বাইক নিয়ে দাড়িয়ে আছে.. তবে কেমন জানি রাগী আর গম্ভীর মনে হচ্ছে…মায়া কাছে যেতেই কোন কথা না বলে সোজা তাকে হেলমেট পরিয়ে দিলো…তবে এবার আর আগের মতো ফিল হলো না মায়ার…মায়া ভাবছে কি হলো আবার উনার…মায়াকে নিয়ে আবির রওনা দিলো..

আবির আরামছে বাইক চালিয়ে যাচ্ছে..তবে মায়া কিন্তু আরামে নেই…কারণ আবির যেদিক থেকে বাইক চালিয়ে যাচ্ছে তা মায়ার অচেনা…মায়া খুব ভয় পাচ্ছে…হঠাৎ আবির একটা বিশাল বড় নির্জন যায়গায় এসে বাইক থামায়..বাইক থেকে মায়া নামে..মায়ার প্রচুর ভয় লাগছে.. আশে পাশে তেমন কোন লোক নেই..চারদিকে শুধু মাঠ আর কাশফুল… আর তার মধ্যে দিয়ে বিশাল রাস্তা…

আবির রাগী লুক নিয়ে মায়ার দিকে তাকিয়ে আছে…
মায়ার প্রচন্ড ভয় লাগছে…হাত পা ভয়ে থরথর করে কাপছে…মায়া কাপা কাপা কন্ঠে আবিরকে জিজ্ঞেস করলো…

মায়াঃ আমাকে এখানে কেন নিয়ে এসছেন??আমি বাসায় যাবো…
আবিরঃ… আরো রাগী ভাবে তাকিয়ে আছে…
মায়ার ভয়ের মাত্রা আরো বেরে গেলো…
মায়াঃ আমরা এখানে কেন??কাদো কাদো কন্ঠে..
আবিরঃ আমাকে সবার সামনে বকা দেও হুম…এত্তো বড় সাহস তোমার….আজকে তোমাকে এখানে তার শাস্তি দিবো…তাই এখানে এনেছি…

মায়া যেন আকাশ থেকে পরল….তার চোখ থেকে অঝোর ধারায় বৃষ্টি ঝরছে …

মায়াঃ প্লিজ আমাকে মাফ করে দিন…আপনিতো আমাকে মাফ করেই দিয়েছিলেন তাহলে??..কাদতে কাদতে..
আবিরঃ মিথ্যা বলছি…করি নাই মাফ..তোমাকে শাস্তি দিবো..এখন তোমার কি হবে মায়া…
মায়ার ভয়ে অবস্থা খুব খারাপ… হঠাৎ আবির…
চলবে… ?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here