অনুরাগ ২য় পর্ব

0
990

অনুরাগ
২য় পর্ব
লেখিকাঃ #Israt_Jahan

 

” বলনা কি এমন হয়?
যদি আর একটু চায় হৃদয়।
বলনা কি এমন হয়?
যদি হই আমি স্বপ্নময়।
নাহয় পেলাম সে স্বপ্নকে তোর দু-চোখের নীল তারায়।
নাহয় পেলাম সে সুখ ছোঁয়া হিম বাতাসের আশকারায়। বলনা কি করি হায়?
যদি স্বপ্নরাই তোকে চায়।
বলনা কি করা যায়?
যদি আনমনেই মন হারায়। ”

ঘুমটা জেঁকে বসার আগেই মোহকর কন্ঠসুর শুনে শ্রুতি ঘুম ছেড়ে লাফিয়ে উঠে বসল।গানের কন্ঠটা আসছে বেলকোনি থেকে।গানটা খুব মনযোগ দিয়ে শুনতে শুনতে শ্রুতি খাটের সঙ্গে হেলান দিয়ে বসে চোখ বন্ধ করে নিল।ও জানে এই মোহকর সুর শুধুমাত্র একজনেরই। এই সুরকে ভালোবেসেই তো পুলককে কাছে টেনে নিয়েছিল সে।

” ঘুম জাগা চিলেকোঠায়,
মন ভেজা অমানিশায়,
মান করে,কখনও ভান করে তোকে আপন করে হারাতে চায়।
স্বপ্নরা উড়ে পালায়,
আনকোরা খেয়ালে হায়,
দূর থেকে,হৃদয় পুর থেকে অচেনা সুর থেকে কি করে পাই?
মন চাইছে ভীষণ,হারাতে………
তোর মন নজরে আড়াতে,
নাহয় থাক পড়ে খেয়ালে,
অভিমান গুলো গোপনে।
নাহয় পুরনো আশারা আজ ছোট্ট এই জীবনে।
বলনা কি হবে তাই?
যদি আর একটু কাছে পাই।
বলনা কি হবে তাই?
যদি দূর থেকেই হাত বাড়াই। ”

পুলকের সুরে সুর মিলিয়ে নিজেও দু লাইন গেয়ে উঠল শ্রুতি।
” হুম… স্বপ্নরা কেন আজ ঘড় ছাড়া? হুম… তুই হীনা কেন দিন আনমনা? ”

শ্রুতি সুর ছেড়ে দিতে তাল হারানোর আগেই পুলক আবার গেয়ে উঠল,
” নাহয় কাটালি এক জীবন,
কিছু ছন্নছাড়া ঢঙে,
নাহয় রাঙ্গালি স্বপ্ন তোর,
ওই রংধনুর সাত রঙে।
বলনা কি আসে যায়?
যদি আর একটু পাশে পাই।
বলনা কি ক্ষতি হয়?
যদি একটু বুঝিস আমায়। ”

দুজনের মোহকর কন্ঠ একত্র হয়ে মনের মাঝে যত মেঘের ঘনঘটা সৃষ্টি হয়েছিল শ্রুতি’র, সবটা নিমিষের মধ্যে ভ্যানিশ হয়ে গেল। এই মানুষটার গানের কন্ঠস্বর আর সুরগুলো এত পাগল করা কেন?যত বড় অন্যায় করুকনা সে।এমনভাবে যদি শ্রুতি’র সামনে কিছুসময় পার করে দেয় গান গেয়ে তাহলে শ্রুতি পুরো পৃথিবীকে ভুলে গিয়ে পুলকের বুকে ঝাঁপিয়ে পরবে। আর পুলকটাও সেটা খুব ভালোভাবেই বুঝে গেছে।এই কন্ঠে সারাজীবন গান শুনেও পার করে দিতে পারবে সারাটা সময়। এর জন্যই তো এই ছন্নছাড়া মানুষটিকে নিজের জীবনের সঙ্গে বেঁধে নিয়েছে শ্রুতি সবকিছুর মায়া ত্যাগ করে।আর কী থাকা যায় মুখ ঘুরিয়ে?বেলকোনির গ্রিলের সঙ্গে ঠেস দিয়ে দাঁড়িয়ে চোখদুটো বন্ধ করে গানটা গাইছিল পুলক।শ্রুতি যে ওর সামনে এসে দাঁড়িয়ে আছে সেটা পুলক বুঝেও চোখদুটো খুলছেনা।শ্রুতি নিজেই কথা বলল।

-‘ তখন রুম থেকে বেরিয়ে গেলে কেন? ‘
(পুলক নিশ্চুপ)

পুলক কোনো কথা বলছেনা দেখে শ্রুতি’র খুব অভিমান হলো।এভাবে পালাক্রমে দুজন রেগে থাকলে ভালোবাসাটা কখন হবে?এটা ভেবেই অথৈ আবার রেগে গেল। আর কিছু না বলে পুলকের গলা চেঁপে ধরতে গেলে পুলক চোখ খুলে শ্রুতি’র হাতদুটো ধরে নিজের কাঁধের দুপাশে রাখল।তারপর ওর কোমড় জড়িয়ে ধরে একদম কাছে টেনে নিয়েলো ওকে।দাঁত কিটকিট করে শ্রুতি বলল, ‘ ভাবটা তো কম শিখোনি।এতসময় কথা বলছিলেনা কেন? ‘
-‘ ভাব নিচ্ছিলাম।সবসময় তো তুমিও একশোতে একশো ভাব নিয়ে চলো।তাই আজ আমিও একটু দেখালাম “ভাব”। ‘
-‘ বদমাইশ পোলা।ভাব নেওয়ার রাইট অনলি আমার।তুই কেন নিবি?তাও আবার আমার কাছে নিবি?পাঁজি,বজ্জাত, শয়তান,খারাপ ছাড় আমাকে।আমার এখানে আসাই ভুল হয়ে গেছে।আমার কাছে ভাব নিতে আসে।কত বড় সাহস? ‘

পুলক আরো শক্ত করে চেঁপে ধরে বলল, ‘ এই ছুকড়ি তুই সবসময় আমাকে তুই তুকারি করে গালাগাল দিস কেন রে,হুম? আমি তোর বয়সে কত বড় জানিস? ‘
-‘ মাত্র আড়াই বছর। ‘
-‘ আড়াই বছর কম মনে হল তোর কাছে না?আ…ড়াই বছর আগে আমি দুনিয়াতে এসেছি।তখন তুই কই ছিলি তার কোনো খবরই নেই।আড়াই বছরের ছোট হয়ে তুই আমাকে গালাগাল দিস আবার তুই তুকারি করিস।আজ তোকে আমি শিক্ষা দিয়েই ছাড়ব। ‘
-‘ ওই ব্যাটা কী করবি তুই আমাকে?তার আগে আমি তোকে দুটো ঘুষি মেরে তোর নাক ভোঁতা করে দিব। ‘

বলা শেষ হতেই পুলকের নাকে শ্রুতি ঘুষি লাগাতে গেল।পুলক তখন ওর হাতটা ধরে বলল, ‘ স্বামীর নাক ফাটাতে আসছিস তুই?আজ তো তুই পুরো খাল্লাস। ‘

শ্রুতি কে কাঁধে তুলে রুমে নিয়ে চলে এল পুলক।তারপর ঠাস করে বিছানায় ফেলে দিল।

শ্রুতিঃ উহ্ঃ অসভ্য বেয়াদব ছেলে।তুই আমাকে এভাবে ফেলে দিলি কেন?
পুলকঃ আবার?আবার গালাগালি দিয়ে কথা বলছিস?তোকে তো আমি….

কথা শেষ না করে আলমারি থেকে তিনটা ওড়না বের করে নিয়ে শ্রুতি’র হাত পা বাঁধতে শুরু করে দিল।শ্রুতি চিৎকার করে বলল, ‘ এই তুমি কী করছো এগুলো? ‘

কথার জবাব দিল না পুলক।ওকে চেঁপে ধরে হাত পা বেঁধে চলেছে।শ্রুতি ভয় পেয়ে গেল।পুলক প্রচন্ড রেগে গেছে হয়তো।এতটা বেশি করা উচিত হয়নি ওর।নিজের দোষে এখন ওকে উত্তম মধ্যম না খেতে হয়।শ্রুতি কাঁদো কাঁদো কন্ঠে আবার জিজ্ঞেস করল, ‘ এই শোনোনা তুমি আমার হাত পা বাঁধছো কেন?হাত পা বেঁধে মারবে নাকি তুমি? কথা বলোনা কেন?সো স্যরি আমার কলিজাটা।আর কখনো এমন ছোটলোকদের মত ব্যবহার করবোনা। ‘
-‘ কলিজাটা?কলিজাতে বার বার লাথি মারার সময় মনে ছিলনা? ‘
-‘ আচ্ছা ভুল হয়ে গেছে তো।হাত পা বাঁধছো কেন?আমি কিন্তু চিৎকার করে ওদের ডাকব। ‘
-‘ মাইক এনে দিই?না হলে তো কানে যাবেনা ওদের।এমন সময় চিৎকার করলে ওরা কেন তোর আব্বাজানও দরজার কাছে আসবেনা। ‘
-‘ আচ্ছা তুমি আমাকে মারতে চাইলে মারো।তাই বলে হাত পা বেঁধে কেন? ‘
(পুলক নিশ্চুপ)
-‘ আরে আমার ভাই হাত পা বাঁধছিস কেন রে? ‘
-‘ ছাদ থেকে ফেলে দিব হাত পা বেঁধে। বুঝেছিস?যে বউ স্বামীকে তুই তুকারি করে গালাগাল দেয় সেই বউকে আজ চরম শিক্ষা দিব।তারপর সকাল হলে সবাই যখন তোকে রক্তাক্ত অবস্থায় নিচে পড়ে থাকতে দেখে আমাকে জিজ্ঞেস করবে এমনটা কী করে হল?তখন বলব আমার বউ আস্ত একটা গালিবাজ ছিল। তার জন্য ওকে ছাদ থেকে ফেলে দিয়ে শাস্তি দিয়েছি। ‘

কথাটা বলেই শ্রুতি’র মুখটা বেঁধে দিয়ে ওকে আবার কাঁধে তুলে নিয়ে ছাদের দিকে রওনা হল।শ্রুতি ভয়ে ঘেমে একদম চুপসে গেছে।পুলক রেগে গেলে যে কতটা সাংঘাতিক হয় তা তো একবার দেখেছিল যখন ওদের মাঝে প্রেম ছিল।রেগে গেলে ছেলেটা একদম হিতাহিত জ্ঞানবোধ হারিয়ে ফেলে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here